নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 3 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • রাজিব আহমেদ
  • সাইয়িদ রফিকুল হক
  • হৃদয় মজুমদার

নতুন যাত্রী

  • মানিক হোসেন
  • রাজিব আহমেদ
  • রাজু তালুকদার
  • ড. এফ জাহান
  • মোঃ যীশুকৃষ্ণ
  • পাহাড়ী_রেডওয়াইন
  • প্রবাসী ছেলে সোহেল
  • নাগিব মাহফুজ খান
  • বুক্কু চাকমা
  • মাষ্টার মশাই

আপনি এখানে

জ্যামিতির কয়েকটি ভিন্ন পাঠ


জ্যামিতির ভিন্ন পাঠ-১

বৃত্ত একটি বহুভুজ যার বাহুর সংখ্যা অসীম যেখানে বৃত্তের পরিধির প্রতিটি বিন্দুই একেকটি বাহু।

জ্যামিতির ভিন্ন পাঠ-২

বৃত্তের ব্যাসার্ধের বৃদ্ধির সাথে সাথে পরিধির বক্রতা হ্রাস পায়। অতএব অসীম ব্যাসার্ধের বৃত্তের পরিধি একটি সরলরেখা।
অন্যভাবে বলা যায় অসীম ব্যাসার্ধের বৃত্তের পরিধির যে কোন অংশকে সরলরেখা বলে।

জ্যামিতির ভিন্ন পাঠ-৩

একটি ত্রিভুজের দুইটি সমকোন সম্ভব হবে যদি এবং কেবল যদি সমকোন সংলগ্ন লম্বদ্বয়/অতিভূজদ্বয় অসীম দূরত্বে ০ ডিগ্রি কোনে মিলিত হয়।
অর্থাৎ ত্রিভুজ ABC এ
কোন A = কোন B = একসমকোন,
AC বাহু = BC বাহু = অসীম,
কোন BCA = ০ ডিগ্রি।

জ্যামিতির ভিন্ন পাঠ-৪

দুইটি সমান্তরাল সরলরেখাকে উভয় দিকে বর্ধিত করলে উহারা অসীম দূরত্বে দুইটি পৃথক বিন্দুতে ০ (শূন্য) ডিগ্রি কোনে মিলিত হয়। অর্থাৎ দুইটি সমান্তরাল সরল রেখাকে উভয় দিকে অসীম দূরত্ব পর্যন্ত বর্ধিত করলে এমন একটি চতুর্ভুজ উৎপন্ন হয় যার দুইটি কোন সরলকোণ (১৮০ ডিগ্রি) এবং দুইটি কোণ শূণ্য (০) ডিগ্রি এবং যার প্রস্থদ্বয় দৈর্ঘ্য বরাবর একিভূত হয়ে যায়।

জ্যামিতির ভিন্ন পাঠ-৫

বিন্দুঃ যার দৈর্ঘ্য, প্রস্থ, বেধ কিছুই নেই _শুধু অবস্থান আছে তাকে বিন্দু বলে____ দৈর্ঘ্য নেই, প্রস্থ নেই, বেধ নেই কিন্তু অবস্থান আছে; বিষয়টি বাস্তব না কাল্পনিক, এ রকম কিছু থাকা কি সম্ভব? তবুও বিন্দুর এই সংজ্ঞাটিকেই আমরা গ্রহন করি এবং বাস্তব বলে জানি এবং মানি। বিন্দু থেকেই রেখা, তল, ঘনবস্তু ইত্যাদিকে সংজ্ঞায়িত করা হয়। তারমানে জ্যামিতির পুরো কাঠামোটাই ধারনা ও কল্পনার উপর দাড়িয়ে আছে। আমরা বিন্দু আঁকতে পারিনা, শধু কল্পনয়ই আমরা বিন্দুকে উপলব্ধি করি।
অথচ আমরা গনিত এবং জ্যামিতিকে সবচেয়ে সত্য বলে জানি।

জ্যামিতির ভিন্ন পাঠ-৬

একটি অসীম ব্যাসার্ধের বৃত্ত একই সঙ্গে আবদ্ধ এবং উন্মুক্ত; আবদ্ধ এই কারনে যে বৃত্ত একটি আবদ্ধ ক্ষেত্র, উন্মুক্ত এই কারনে যে বৃত্তের পরিধি একটি সরলরেখা। সেক্ষেত্রে জগত যদি একটি অসীম ব্যাসার্ধের গোলক হয় উহা একই সঙ্গে আবদ্ধ ও উন্মুক্ত।
অতএব, আমাদের মহাবিশ্বসমূহ(মহা জগত)
একই সঙ্গে সসীম ও অসীম।

জ্যামিতির ভিন্ন পাঠ-৭

অসীম ব্যাসার্ধের বৃত্তের ব্যাসার্ধ সমূহ পরস্পর সমান্তরাল এবং যে কোন দইটি ব্যাসার্ধ বৃত্তের কেন্দ্রে ০ (শূন্য) ডিগ্রি কোন উৎপন্ন করবে; সেক্ষেত্রে অসংখ্য ব্যাসার্ধের মিলিত বিন্দু অর্থাৎ বৃত্তের কেন্দ্র অনির্দিষ্ট ও অনির্নেয় হয়ে যায়, এক্ষেত্রে অসীম বৃত্তীয় ক্ষেত্রের যেকোনবিন্দু বৃত্তের কেন্দ্র হিসেবে কল্পন অশুদ্ধ নয়।
অতএব, যদি মহাজগত অসীম ব্যাসার্ধের একটি গোলক হয়, তবে গোলকের যেকোন বিন্দুই গোলকের কেন্দ্র বিন্দু।
সেমোতাবেক আমাদের মস্তিষ্কের কেন্দ্রই মহাবিশ্বের কেন্দ্র, এ ধরনের কল্পন অশুদ্ধ, অর্থহীন ও অযৌক্তিক নয়।

Comments

Post new comment

Plain text

  • সকল HTML ট্যাগ নিষিদ্ধ।
  • ওয়েবসাইট-লিংক আর ই-মেইল ঠিকানা স্বয়ংক্রিয়ভাবেই লিংকে রূপান্তরিত হবে।
  • লাইন এবং প্যারা বিরতি স্বয়ংক্রিয়ভাবে দেওয়া হয়।
CAPTCHA
ইস্টিশনের পরিবেশ পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য আপনাকে ক্যাপচা ভেরিফিকেশনের ধাপ পেরিয়ে যেতে হবে।

বোর্ডিং কার্ড

আবু মমিন
আবু মমিন এর ছবি
Offline
Last seen: 8 ঘন্টা 27 sec ago
Joined: সোমবার, মে 2, 2016 - 3:00পূর্বাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

ফেসবুকে ইস্টিশন

SSL Certificate
কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর