নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 10 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • নুর নবী দুলাল
  • ইকারাস
  • আমি অথবা অন্য কেউ
  • দুরের পাখি
  • দীপঙ্কর বেরা
  • সাইয়িদ রফিকুল হক
  • ফারুক
  • রাফিন জয়
  • রাহাত মুস্তাফিজ
  • পৃথু স্যন্যাল

নতুন যাত্রী

  • রবিঊল
  • কৌতুহলি
  • সামীর এস
  • আতিক ইভ
  • সোহাগ
  • রাতুল শাহ
  • অর্ধ
  • বেলায়েত হোসাইন
  • অজন্তা দেব রায়
  • তানভীর রহমান

আপনি এখানে

লাল ঘোড়ার প্রাসঙ্গিকতা


শহিদ কমরেডের ব্যাপারে তুমুল আগ্রহ ছিলো আমার, আগ্রহটা জন্মেছিলো সদ্যকৈশোরেই, যখন আমার সেই মায়াজড়ানো মফস্বল শহর সাভারে কালের কণ্ঠের শিলালিপিতে করে পৌঁছে গেছিলো আরিফুজ্জামান তুহিনের একটি লেখা। যদিও তাঁর ব্যাপারে কোনো পড়াশোনা ছিলো না, সম্বল অই তুহিন ভাইয়ের একটি লেখাই। বিপ্লবআকাঙ্খীদের ভেতরেও তাঁকে বছরে একদিন স্মরণ করার ব্যাপারে আগ্রহ যতো বেশি, (যেমনটা করছি আমি এখন), তাঁর লেখা ও তাঁকে নিয়ে লেখা অধ্যয়ন করার আগ্রহ ঠিক ততোটাই কম।

এর একটা কারণ মনে হয় এই যে, আমাদের কাছে মগজের চেয়ে হৃদয় বেশি মূল্যবান, জ্ঞানের চেয়ে আবেগ। এর ভালো ও খারাপ দুটো দিকই আছে। ভালো দিক হচ্ছে আমাদের স্বপ্ন কখনো মরে না, আর, খারাপ দিক হচ্ছে সেই স্বপ্ন কখনোই সুনির্দিষ্ট কোনো বাস্তব আকার পায় না।

নির্দ্বিধায় কবুল করছি, এই ডিজিজ আমারও আছে। তদুপরি আমি বেজায় অলস প্রকৃতির একজন মানুষ। স্বভাবে পাণ্ডাজাতীয়, ঘুমকাতুরে।

সেই আমিও তাঁর নাম শুনেই শিহরিত হই। মুহূর্তে রক্তপ্রবাহে বয়ে যায় অপরিচিত এক তাড়না। নতুন মানুষ হওয়ার আকাঙ্ক্ষা আঁকড়ে ধরে জোরেশোরে।

সিরাজ সিকদার নামটাই আওয়ামি লিগের জন্য অস্বস্তিকর, যেহেতু ১৯৭৫এর আজকের এই দিনে তিনি খুন হয়েছিলেন জাতীয় রক্ষীবাহিনীর হাতে, পরবর্তীতে প্রকাশিত প্রতিক্রিয়া থেকে বোঝা যায় শেখ মুজিবের নির্দেশেই। যেহেতু মুক্তিযোদ্ধা ছিলেন, তাই তাঁকে তাঁরা অস্বীকার করতে পারে না, আর স্বীকার করতে পারে না বিপ্লবী হওয়ায়। তাই তাঁর বিরুদ্ধে শাসকগোষ্ঠী চালাচ্ছে নৈঃশব্দের ষড়যন্ত্র, অথবা কুৎসিত অপপ্রচার, যার একটি নমুনা অমি রহমান পিয়ালের 'সিরাজ শিকদারের ভুল বিপ্লবের বাঁশীওয়ালা (লেখাটি পাওয়া যাবে জন্মযুদ্ধ ৭১এ, পড়ে সময় নষ্ট করতে চাইলে ক্লিক করুনঃ http://www.jonmojuddho.com/shiraj-shikdar/ )।

আমাদের জেনারেশনের যাঁরা নাম জানেন কর্নেল তাহেরের, ক্রাচের কর্নেলের সুবাদে, তাঁরাও সিরাজ সিকদার সম্পর্কে সম্যকরূপে অবহিত নন। হয়তো অনেকের কাছেই সিকদার এক বিদ্রোহের প্রতীক, অত্যন্ত আকর্ষণীয় চরিত্র, যেমনটা আকর্ষণীয় জিউসের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ করা প্রমিথিউস। আমি তাঁদের আবেগকে হেয় করতে চাই না, যেহেতু আমরা সবাই শুরুই করি আবেগ থেকে, কিন্তু সেই আবেগকে স্বীকার করে নিয়েই মনে করি যে সিরাজ সিকদার ছিলেন গণমানুষের মুক্তির দিশারি তাঁকে বুদ্ধিবৃত্তিকভাবেও জানাটা জরুরী।

এই ছোট্টো লেখাটিতে তাঁর লেখা ও তাঁকে নিয়ে লেখা গ্রন্থাবলীর একটি তালিকা তাই দেয়ার চেষ্টা করলাম, যেসব বইয়ের ই-বুক সংস্করণ লভ্য তার লিংক যুক্ত করা হল, অন্যগুলোর হার্ডকপিই কষ্ট করে সংগ্রহ করতে হবে।

১। সিরাজ সিকদার রচনাসংগ্রহ (সম্পা. শামিম সিকদার), শ্রাবণ প্রকাশনী, ঢাকা ২০০৯

২। বিপ্লবের বাঁশিওয়ালা সিরাজ সিকদার ও তাঁর সর্বহারা পার্টি, আরিফুজ্জামান তুহিন, দৈনিক কালের কণ্ঠের সাময়িকী শিলালিপি (প্রকাশসাল বিস্মৃত হয়েছি), (http://www.liberationwarbangladesh.org/2015/11/blog-post_9.html)

৩। সিরাজ সিকদার-এর নির্বাচিত রাজনৈতিক রচনাবলী, শ্রাবণ প্রকাশনী, ঢাকা ২০১৪ (http://www.grontho.com/%e0%a6%b8%e0%a6%bf%e0%a6%b0%e0%a6%be%e0%a6%9c-%e0...)

৪। আণ্ডারগ্রাউণ্ড জীবন সমগ্রঃ বাংলাদেশ ও উপমহাদেশের কমিউনিস্ট আন্দোলনের বিতর্কিত অধ্যায়, রইসউদ্দিন আরিফ, পাঠক সমাবেশ, ঢাকা ২০১৩ (http://www.grontho.com/%e0%a6%86%e0%a6%a8%e0%a7%8d%e0%a6%a1%e0%a6%be%e0%...)

৫। সিরাজ সিকদার ও পূর্ববাংলার সর্বহারা পার্টি ১৯৬৭-১৯৯২, মুনীর মোরশেদ, ঘাস ফুল নদী, ঢাকা ১৯৯৭

৬। মাওইজম ইন বাংলাদেশঃ দি কেইস অফ দি ইস্ট বেঙ্গল সর্বহারা পার্টি, নুরূল আমিন, এশিয়ান সার্ভে ভলিউম ২৬ নম্বর ৭, (জুলাই ১৯৮৬) পৃষ্ঠা ৭৫৯-৭৭৩, ইউনিভার্সিটি অফ ক্যালিফোর্নিয়া প্রেস (http://www.jstor.org/stable/2644210, এটা ডাউনলোড করার জন্য ২২ ডলার লাগতো, কিন্তু আলেকসান্দ্রা এলবাকিয়ানের বদৌলতে সাইহাবের যুগে বিনাপয়সায় নামিয়ে নিতে পারবেন পূর্বপ্রদত্ত লিংকটা জাস্ট এই http://sci-hub.cc/ ওয়েবসাইটে গিয়ে পেস্ট করে দিলেই!)

শহিদ কমরেড সিরাজ সিকদারের মৃত্যুর পর পূর্ববাংলার সর্বহারা পার্টি জাতীয় রাজনীতিতে প্রাসঙ্গিকতা হারিয়ে ফেলেছে এই কথা সত্য। কিন্তু তিনি যেই মাওবাদী ধারার রাজনীতি করতেন সেই ধারাকে এই রাষ্ট্র কতোটা ভয় পায় তার একটি রক্তাক্ত উদাহরণ অপারেশন স্পাইডার ওয়েভ। ২০০৩এ তৎকালীন বিএনপি-জামাত জোট সরকার মাওবাদী কমিউনিস্টদেরকে নির্মূল করার জন্য এই অভিযানে নেমেছিলো, শুধু তাই নয়, সেই সময় সামরিক গোয়েন্দা সংস্থা ডিজিএফআই ধর্মীয় ফ্যাসিবাদী জেএমবি গঠনে ভূমিকা রেখেছিলো ইসলামি চরমপন্থা দিয়ে 'সর্বহারা' ঠেকাতে।

সিরাজ সিকদার বাংলাদেশ রাষ্ট্রকে যে পাকিস্তানের মতোই একটি নয়াউপনিবেশিক রাষ্ট্র হিসেবে নির্ধারণ করেছিলেন তাঁর সেই মূল্যায়ন সঠিক। তাই এই শহিদ বিপ্লবীর শিক্ষা আজো ঠিক ততোটাই প্রাসঙ্গিক যতোটা তা প্রাসঙ্গিক ছিলো বাংলাদেশ রাষ্ট্রের শুরুর দিনগুলিতে। যাঁরা মার্কিন-ভারত-রুশ-চীনের তাঁবেদার শাসকগোষ্ঠীকে বিপ্লবের মাধ্যমে উৎখাত করে একটি মানবিক সমাজ নির্মাণের স্বপ্ন দ্যাখেন, একটি গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার স্বপ্ন দ্যাখেন, তাঁদেরকে তাই সিরাজ সিকদারের কাছে আসতে হবে।

পাঠ নেয়ার জন্য।

বিভাগ: 

মন্তব্যসমূহ

নতুন কমেন্ট যুক্ত করুন

Plain text

  • সকল HTML ট্যাগ নিষিদ্ধ।
  • ওয়েবসাইট-লিংক আর ই-মেইল ঠিকানা স্বয়ংক্রিয়ভাবেই লিংকে রূপান্তরিত হবে।
  • লাইন এবং প্যারা বিরতি স্বয়ংক্রিয়ভাবে দেওয়া হয়।
CAPTCHA
ইস্টিশনের পরিবেশ পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য আপনাকে ক্যাপচা ভেরিফিকেশনের ধাপ পেরিয়ে যেতে হবে।

বোর্ডিং কার্ড

ইরফানুর রহমান রাফিন
ইরফানুর রহমান রাফিন এর ছবি
Offline
Last seen: 1 week 2 দিন ago
Joined: মঙ্গলবার, এপ্রিল 12, 2016 - 9:38পূর্বাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

কু ঝিক ঝিক

ফেসবুকে ইস্টিশন

SSL Certificate
কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর