নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 2 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • নুর নবী দুলাল
  • নীল কষ্ট

নতুন যাত্রী

  • ষঢ়ঋতু
  • এনেক্স
  • আরিফ ইউডি
  • গলা বাজ
  • হুসাইন
  • তারুবীর
  • অন্তরা ফেরদৌস
  • শেখ সাকিব ফেরদৌস
  • প্রাণ
  • ফেরদৌস সজীব

আপনি এখানে

বাংলাদেশের রাজনীতিক পরিস্থিতি



বাংলাদেশের রাজনীতিক পরিস্থিতি নিয়ে আমার কয়েকটি পর্যবেক্ষণঃ

১. ২০১৪র ৫ জানুয়ারির নির্বাচনকে সিরিয়াসলি নেয়া উচিত। এইটা ১৯৯০ থেকে যে উদারনীতিক গণতন্ত্র, অন্তত লেবাস হিসেবে, বাংলাদেশে চালু আছে তার অলিখিত নিয়ম ব্রেক করেছে। ১/১১ থেকে ১/৫ চরিত্রগতভাবে আলাদা, ১/১১য় মূলধারার রাজনীতিক শাসকগোষ্ঠীর বাইরে কর্পোরেট পুঁজি, বাংলাদেশ সেনাবাহিনী আর সিভিল সোসাইটির কিছু লোকজনের মাধ্যমে শাসকগোষ্ঠীর পুনর্বিন্যাসের প্রয়াস নিয়েছিলো মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, ১/৫এ আওয়ামি লিগ সরকার ক্ষমতায় থেকে গেছে ভারতের সরব ও মার্কিনের নিরব সমর্থনে।

২. যারা ভাবছেন সামনেই একটা ১৯৯০-পরবর্তী চলতি নিয়মে নির্বাচন হবে, এবং সেই নির্বাচনে জিতে বিএনপি এই দেশের রাষ্ট্রক্ষমতায় চলে আসবে, ভুল ভাবছেন। আওয়ামি লিগ সরকার ৫/১০ বছরের জন্য ক্ষমতায় থাকার প্ল্যান নিয়ে ২০১৪র ৫ জানুয়ারির নির্বাচন করে নি, তাদের লক্ষ্য ২০৪১ পর্যন্ত ক্ষমতায় থাকা, একটানা। আমার কথা এই মুহূর্তে হয়তো পাগলের প্রলাপ মনে হতে পারে, কিন্তু আমি আওয়ামি লিগকে চিনি, তারা রেকর্ড তৈরি করার সামর্থ্য রাখে।

৩. কেউ খেয়াল করেছেন কিনা জানি না, আওয়ামি লিগ যুদ্ধাপরাধের বিচার নিয়ে কথা বলা কমিয়ে দিয়েছে, আগের তুলনায়। মুক্তিযুদ্ধ আওয়ামি লিগের সবচে কাজে আসা পলিটিকাল ক্যাপিটাল, তাই জামাতের সাথে আওয়ামি লিগের ঘোষণা দিয়ে ঐক্য করা কঠিন, তবে তাদের পক্ষে জামাতের প্রতি সহনশীল হওয়া খুবই সম্ভব। এই সহনশীলতা সামনে আরো বাড়তে দেখবো আমরা।

৪. আওয়ামি লিগ এখন জোর দিচ্ছে 'উন্নয়নের' ওপর। বিশেষ করে তার শেষ কাউন্সিলের পর থেকে। এবং অন্তত শহুরে মধ্যবিত্ত এই আফিম গিলছে। এর পাশাপাশি 'সংস্কৃতির' আফিমও জনগণকে গেলাচ্ছে সরকার। স্বৈরতন্ত্র যতো গভীর হচ্ছে, লুটপাট যতো বাড়ছে, পাল্লা দিয়ে বাড়ছে বিভিন্ন ফেস্ট আয়োজন। ক্রিকেট নিয়ে মাত্রাতিরিক্ত মাতামাতিটাও চালাতে চাইছে সরকার। নাটক-সিনেমা-গান ভালবাসি আমরা সবাই, ক্রিকেটও ভালবাসি অনেকেই, কিন্তু এসব নিয়ে যতোই বেশি উল্লাস হবে পাবলিক প্লেসে ততোই সারা দুনিয়ার সামনে এই মেসেজ যাবে "বাংলাদেশে সবকিছু ঠিকঠাক আছে, নইলে, মানুষজন এতো ফূর্তি করছে কিভাবে?"

৫. বাংলাদেশের জনগণের উল্লেখযোগ্য অংশ এখন কমপ্লিটলি ডিপলিটিসাইজড। আওয়ামি লিগকে সক্রিয়ভাবে সমর্থন করেন না তাঁরা, কিন্তু বিরোধিতা করার কোনো প্ল্যাটফর্মও দ্যাখেন না, তাই চুপচাপ থাকেন। তাঁদের এই মৌনতা এক ধরণের অনিচ্ছুক সম্মতি। আওয়ামি লিগ সরকার ভীষণভাবে চায় এই ডিপলিটিসাইজড অংশটার আকার বৃদ্ধি করতে, কারণ রাষ্ট্রক্ষমতায় থাকলে সক্রিয় সমর্থক কম থাকলেও চলে, কিন্তু এঁদের অনিচ্ছুক সম্মতি ছাড়া রাষ্ট্রক্ষমতায় থাকা কঠিন। এঁদেরকে আমরা 'সাইলেন্ট মেজরিটি' আখ্যায়িত করতে পারি। যে পার্টি এঁদেরকে ইস্যু স্পেসিফিকালি মোবিলাইজ করতে পারবে, লেফট বা রাইট, এঁরা সেই পার্টির দিকে টার্ন করবে। কারণ এদের সুনির্দিষ্ট কোনো পলিটিকাল অরিয়েন্টেশন নাই।

৬. বাংলাদেশে কোনো আশির দশকী গণআন্দোলন হচ্ছে না। তার অর্থ এই না গণআন্দোলন সম্ভব নয়। সম্ভব, কিন্তু সেটা আশির দশকের স্বৈরাচারবিরোধী গণআন্দোলনের মডেলে হবে বলে মনে হয় না আমার, কারণ এই স্বৈরাচার সেই স্বৈরাচারের চেয়ে অনেক বেশি এফিসিয়েন্ট।

৭. ইরাক সিরিয়ায় আপাতব্যর্থতার পর খেলাফত কায়েমের কাণ্ডারিরা দক্ষিণ এশিয়ার দিকে মনোযোগ দিতে পারে। বাংলাদেশ তাদেরই খুবই পছন্দসই রাষ্ট্র হওয়ার কথা। খেলাফতের সাথে দুনিয়াবি ধনদৌলতের ব্যাপক সম্পর্ক আছে। তার ওপরে বঙ্গোপসাগরে আল্লার রহমতের অভাব নাই। চোখ টাটানো স্বাভাবিক। বাংলাদেশ রাষ্ট্র এখনো "বাংলাদেশে আইএস আছে কি নাই" এই টোটালি ডিজঅরিয়েন্টেড ডিবেট থেকে বের হতে পারে নাই। সংগঠন হিসেবে আইএস আছে কি নাইএর চেয়ে অনেক বড়ো প্রশ্ন খেলাফত কায়েমের পক্ষের লোকজন আছে কিনা, অর্থাৎ আইএসের মতাদর্শে বিশ্বাসীরা বাংলাদেশে আছে কিনা। আছে। খুব প্রবলভাবেই আছে। নইলে গুলশান এটাকের মতো ঘটনা ঘটতো না। কন্সপিরেসি কাজ করতে পারে ক্ষমতাবান ভিন্ন রাষ্ট্রের, কিন্তু, সেই কন্সপিরেসি কার্যকর করায় আগ্রহীরা বাংলাদেশে আছে। বিশেষ পরিস্থিতিতে ফোর্স ইউজের বিকল্প থাকে না। কিন্তু শুধুমাত্র ফোর্স ইউজ করে এই খেলাফতআকাঙ্খীদের ঠেকানো যাবে বলে মনে হয় না, বিজ্ঞাপন বানিয়েও না, তার জন্য যে ব্যাপক মতাদর্শিক লড়াইয়ে নামতে হবে সেটার আগ্রহ এই রাষ্ট্রের নাই এবং থাকার কথাও না।

৮. আওয়ামি লিগ সম্ভবত ইসলামিস্ট অপজিশন ডিজায়ার করছে। অর্থাৎ সরকার চাইছে এই খেলাফতআকাঙ্খীদের উত্থান ঘটুক। এতে মার্কিন-নেতৃত্বাধীন সাম্রাজ্যবাদের ওয়ার অন টেরর প্রকল্পের পার্টনার হওয়া যাবে, খেলাফতআকাঙ্খীদের সাথে শত্রু শত্রু খেলা যাবে, এবং 'ওয়েস্টার্নাইজড সেকুলার' সরকার হিসেবে পশ্চিমা বিশ্বের ব্যাপক সমর্থন পাওয়া যাবে।

৯. বাংলাদেশের বামপন্থীরা পরিস্থিতির জটিলতা বুঝতে পারছেন না। বা, কে জানে, বোঝার চেষ্টাও করছেন না। বাংলাদেশের রাজনীতিক ইতিহাসের সবচে ক্রিটিকাল সময় এটা। অতীতেও স্বৈরাচার ছিলো, লুটপাট ছিলো, কিন্তু এতো অপ্রতিদ্বন্দ্বীভাবে আর কোনো স্বৈরাচারী সরকার এইদেশে ক্ষমতায় থাকতে পারে নাই। জাতীয় সম্পদ রক্ষার আন্দোলন ছাড়া কাউন্ট করার মতো আর কোন অবস্থান নাই বামপন্থীদের। কারণ বাংলাদেশের বামপন্থীদের আত্মতৃপ্তিতে ভোগার বদভ্যাস আছে, ১৭ কোটি মানুষের দেশে কোনো প্রতিবাদে ১৭০০ মানুষ শামিল হলে যে উল্লাস দ্যাখা যায় অনেকের মধ্যে, তা রীতিমতো বিব্রতকর। ক্ষমতার রাজনীতির হিসেবনিকেশ হয় লাখ লাখ মানুষকে নিয়ে, বামপন্থীরা যদি স্বপ্নেও কল্পনা করতে না পারেন রাষ্ট্রক্ষমতা দখল করছেন, তাহলে বাস্তবে সেটা করতে পারবেন বলে মনে হয় না।

১০. বাংলাদেশকে নিয়ে মার্কিন-ভারত-রুশ-চীনের আন্তঃসাম্রাজ্যবাদী খেলা শুরু হবে। অদূর ভবিষ্যতেই হবে। মধ্যপ্রাচ্যের যুদ্ধকে ট্রান্সফার করা হবে দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ায়। আমাদের ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য অপেক্ষা করছে যুদ্ধ। ভয়াবহ সর্বগ্রাসী যুদ্ধ। যদি না আন্তর্জাতিকভাবে কোনো বৈপ্লবিক পরিবর্তন ঘটে। অথবা অন্তত আঞ্চলিকভাবে।

১১. বাংলাদেশ একটা পুরোপুরি গোয়িং-টু-নোহোয়ার সিচুয়েশনে আটকে আছে। এখান থেকে অসাধারণ ভালো কিছু হতে পারে, অসাধারণ খারাপ কিছুও, অনিশ্চয়তা সবসময়ই পরিবর্তনের ধাত্রী হিসেবে কাজ করে। আমি অসাধারণ ভালো কিছুর আলামত দেখছি না, তবে আমি আশাবাদী, আশা ছাড়া আমার আর কোনো ভালোবাসা নাই।

ক্ষমতার মুখোমুখি সত্য বলার চেষ্টা করলাম, আমাদের সবারই আদতে সেটাই করার কথা ছিলো।

বিভাগ: 

মন্তব্যসমূহ

নতুন কমেন্ট যুক্ত করুন

Plain text

  • সকল HTML ট্যাগ নিষিদ্ধ।
  • ওয়েবসাইট-লিংক আর ই-মেইল ঠিকানা স্বয়ংক্রিয়ভাবেই লিংকে রূপান্তরিত হবে।
  • লাইন এবং প্যারা বিরতি স্বয়ংক্রিয়ভাবে দেওয়া হয়।
CAPTCHA
ইস্টিশনের পরিবেশ পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য আপনাকে ক্যাপচা ভেরিফিকেশনের ধাপ পেরিয়ে যেতে হবে।

বোর্ডিং কার্ড

ইরফানুর রহমান রাফিন
ইরফানুর রহমান রাফিন এর ছবি
Offline
Last seen: 1 week 6 দিন ago
Joined: মঙ্গলবার, এপ্রিল 12, 2016 - 9:38পূর্বাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

ফেসবুকে ইস্টিশন

SSL Certificate
কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর