নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 4 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • মৃত কালপুরুষ
  • দ্বিতীয়নাম
  • রাজর্ষি ব্যনার্জী
  • অনিমেষ অধিকারী

নতুন যাত্রী

  • এম এম এইচ ভূঁইয়া
  • খাঁচা বন্দি পাখি
  • প্রসেনজিৎ কোনার
  • পৃথিবীর নাগরিক
  • এস এম এইচ রহমান
  • শুভম সরকার
  • আব্রাহাম তামিম
  • মোঃ মনজুরুল ইসলাম
  • এলিজা আকবর
  • বাপ্পার কাব্য

আপনি এখানে

জেনারেল সান যু (Sun Tzu) এবং The Art of War


সভ্যতার একেকটা পর্যায় পেরিয়ে আমরা এখন আধুনিক যুগে অবস্থান করছি। মানব সভ্যতা প্রযুক্তি এবং বিজ্ঞানে এগিয়েছে বহুদূর। আমরা পৃথিবীর পেরিয়ে মহাবিশ্বে যাচ্ছি এমনকি সৌরজগতের বাইরে যাওয়ারো ছক আঁকছি। সেদিনটা হয়ত দেরি না যেদিন পৃথিবীর বাইরের কোন গ্রহের সাথে আমাদের যোগাযোগ টা হবে নিয়মিত। সেইসাথে মানব সভ্যতা ভয়ঙ্করতম কিছু আবিষ্কারও করে ফেলেছে।

গত শতকে আমরা তিন তিনটা বড় ধরণের যুদ্ধ দেখেছি। দুই বিশ্বযুদ্ধ এবং কোল্ড ওয়ার বা স্নায়ু যুদ্ধ। এছাড়া ভিয়েতনাম ওয়ার আরর আমাদের লিবারেশন ওয়ারও তাৎপর্যপূর্ণ। ১৯৪৫ সালে হিরোশিমা এবং নাগাসাকিতে যুক্তরাষ্ট্রের আণবিক বোমা ফেলা মানবসভ্যতাকে আরো বহুদূর এগিয়ে নিয়ে এসেছে। এবং পৃথিবীটাকে একমেরুকরণ করে দিয়েছে। ১৯৪৯ সালে আণবিক এবং ১৯৬২ সালে থার্মোনিউক্লিয়ার অথবা হাইড্রোজেন বোমার পরীক্ষার মাধ্যমে সোভিয়েত ইউনিয়ন জানান দে মেরুকরণের যুদ্ধে তারাও আছে। যেটা ছিল স্নায়ু যুদ্ধ।

মর্গেনথু কিংবা ওয়াল্ট'জের কথাতেই বলি, আমরা একটা সংঘাতময় বিশ্বে বাস করছি যেখানে যুদ্ধ একটা স্বাভাবিক ব্যাপার। প্রতিটা দেশেরই যুদ্ধের জন্য কিছু নিজস্ব পরিকল্পনা বা স্ট্র্যাটেজি থাকে। সহজ কথায় স্ট্র্যাটেজি হল, একজন জেনারেল যুদ্ধের জন্য যেসব পরিকল্পনা তৈরি করেন। আগেই বলেছি আমরা সভ্যতা এবং প্রযুক্তির কোন পর্যায়ে রয়েছি। এত উন্নত প্রযুক্তি সত্ত্বের আমরা যুদ্ধ এবং পররাষ্ট্রনীতির ক্ষেত্রে এখনো প্রাচীনকালের তত্ব উপাত্তের উপর নির্ভর করে আছি। নির্ভর করতে বাধ্য।

যেমন পররাষ্ট্রনীতি'র ক্ষেত্রে ভারত খ্রিস্টপূর্বাব্দ ৩২৬-২৯৮ সালের মৌর্য্য সম্রাট চন্দ্রগুপ্তের মন্ত্রী কোটিল্য (Kautilya), যিনি চানক্য নামেই পরিচিত, তার লেখা বই "অর্থশাস্ত্র (Arthasastra)" অনুসরণ করে। যেটা 'রাজনীতির বিজ্ঞান' নামে পরিচিত। শুধু ভারত না, বিশ্বের আরো অনেক রাষ্ট্রই পররাষ্ট্রনীতির ক্ষেত্রে এই বই অনুসরণ করে। কোটিল্য'র একটা বড় নীতি হচ্ছে, "তোমার প্রতিবেশি রাষ্ট্র তোমার শত্রু এবং তোমার শত্রুর শত্রু তোমার বন্ধু।" (এই হিসেবে অবশ্য পাকিস্তানি আমাদের বন্ধু হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু ধরে পাকিস্তান নামে কোন দেশ নাই। ওটা একটা সাগড় Biggrin )।

এবার আসি যুদ্ধের কথায়। যুদ্ধের স্ট্র্যাটেজি'র যে বইটা বাইবেল নামে পরিচিত আশ্চর্য হলেও সেটা লেখা হয়েছিল আজ থেকে প্রায় ২৫০০ বছর আগে! এক চৈনিক জেনারেল। নাম সান যু (Sun Tzu) (544-496 BC)। বইটার নাম 'দ্যা আর্ট অফ ওয়ার'। মাত্র কয়েক পৃষ্ঠার একটা বই। মাত্র ১৩ টা অধ্যায় এবং ২৭ টা পয়েন্ট। বইটা লেখা হয়েছি বিশেষভাবে তৈরি বাঁশের চাটাইয়ের উপর। এই বইটা নিয়ে বলা হয়, এটাকে কেউ অগ্রাহ্য করতে পারবে না কিন্তু যে অগ্রাহ্য করবে তার যুদ্ধে তার পরাজয় সুনিশ্চিত। বইটার পিছনে একটা ইতিহাস আছে।

প্রাচীন চৈনিক সভ্যতায় (বর্তমান চীন) উয়ু বা Wu এবং চু বা Chu নামে দুটো রাজ্য ছিল। সান যু Wu এর কমান্ডার ছিল। Chu রাজ্যটি অপেক্ষাকৃত অনেক বড় এবং শক্তিশালী ছিল এবং তাদের সৈন্য সংখ্যাও ছিল Wu এর প্রায় দশগুণ। Wu এর রাজা আগে সান যু'র একটা পরীক্ষা নেন। যেখানে সান যু জয়ী হন এরপর তাকে তার সেনাবাহিনীর কমান্ডার বানানো হয়। এরপর যুদ্ধের কিছু আগে সান যু পরিকল্পনা দেন। যেটা The Art of War নামে পরিচিত। এটা যুদ্ধেনীতির সবচেয়ে প্রচীনতম একটা বই।

বইয়ের প্রথম দুটো পয়েন্ট ছিল,
এক- রাষ্ট্রের অতীব গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হচ্ছে যুদ্ধ।
দুই- যুদ্ধের সাথে জীবন মরণ, নিরাপত্তা ও সমূলে ধ্বংস হবার মত ব্যাপার জড়িত, তাই একে বিন্দুমাত্র অবহেলা করার কোন সুযোগ নেই।

সান যু কে আমরা বলতে পারি বাস্তববাদের একজন আদি পুরুষ। সান যু বলেন, 'প্রতিটা যুদ্ধে লড়াইয়ের আগেই একজন জিতে যায়।' তিনি আরো বলেন, একজন জেনারেলের কথা সব সৈন্য মানতে বাধ্য। এবং জেনারেলকে অবশ্যই কঠোর হতে হবে। তিনি আরো বলেন, যুদ্ধের জন্য জেনারেল এবং শাসকের সম্পর্কটা ভাল হতে হবে। তবে শাসক যুদ্ধের সময় নাক গলাবেন না। (পাকিস্তানের মত হলে হবে না। সব জায়গাতে নেতা খেতার হাত দেয়া চলবে না Blum 3 )। সান যু'র সব কথা তিনটা নীতি দিয়ে বলা যায়,

১. নিজেকে জানো এবং তোমার শত্রুকে জানো এবং ১০০ টি যুদ্ধে তুমি বিপদমুক্ত থাকবা। "Know your self, know your enemy and in 100 wars you will never be in peril"

২. যেটা বড় বা শক্তিশালী সেটাকে বাদ দিয়ে যে দূর্বল তাকে আঘাত করো। "Avoid what is big, attack what is weak."

৩. ১০০ টা যুদ্ধে জেতা তোমার উচ্চতা কিংবা দক্ষতা না। যুদ্ধ না করে শত্রুকে দমন করাই তোমার দক্ষতা। "To win 100 battles is not the height of skill- to subdue the enemy without fighting is."

এই নীতিগুলো কে মানে বলে আপনার মনে হয়?
অবশ্যই সেটা যুক্তরাষ্ট্র। শুধু তারা না আরো অনেক দেশই এসব নীতি মানে। ব্যবসার ক্ষেত্রেও এখন এই নীতিগুলো সমান গুরুত্বপূর্ণ। আপনার শত্রুকে জানলে তার দূর্বলতা জানলে তাকে সহজেই আপনি পরাজিত করতে পারবেন। সান যু'র এই নীতিগুলো যে মানবে তার যুদ্ধে জয় নিশ্চিত কিন্তু না অগ্রাহ্য করলে নির্ঘাত পরাজয়। সান যু বলেন, যুদ্ধে একজন সৈনিকে মূল দায়িত্ব হচ্ছে যুদ্ধ জেতানো না, ১০ জন শত্রুকে হত্যা করাই দায়িত্ব। এজন্য ১০ গুণ বড় একটা সৈন্যবাহিনীর বিরুদ্ধে লড়েও Wu রাজ্যটি জিতেছিল। সান যু আরো বলেন, যুদ্ধের ময়দানে সৈন্যদের বাড়ি ফিরে আসার কোন ব্যবস্থা রাখা যাবে না, মানে পিছু হটার কোন অপশন রাখা যাবে না, জাতে করে সৈন্যরা মনে করে লড়াই ছাড়া আমাদের কোন রাস্তা নেই। ফলে তারা অবশ্যই প্রাণপণে লড়ে যুদ্ধে জয়ী হতে চাইবে।

কিছু মনে পড়ে? মনে আসছে না!
300 মুভি! দেখেছেন নিশ্চয়ই মাত্র ৩০০ জন সৈন্য নিয়ে স্পার্টা রাজা কিং লিওনিডাস কিভাবে লড়াই করেছিল! কারণ তাদের ফিরে যাবার কোন পথ ছিল না। এছাড়া গেরিলা, স্পাই এসব ধারণা এসেছে সান যু'র আর্ট অফ ওয়ার থেকে। এই গেরিলা যুদ্ধের জন্যই আমরা স্বাধীনতা যুদ্ধে জিতেছিলাম। সান যু আরো বলেন, তোমার পরিকল্পনা আগে থেকে কাউকে জানাবে না। আগে সৈন্য প্রস্তুত করো তারপর যুদ্ধে আগে জানাবে। কোনভাবে পরিকল্পনা পাচার হলেই তোমার পরাজয় ঘটবে। তিনি বলেন, তোমার পরিকল্পনাগুলো রাত্রির অন্ধকারের মত গোপন রাখো যাতে কেউ জানতে না পারে।

এত প্রযুক্তি থাকা সত্বেও এত পড়াশোনা সত্বেও আজ পর্যন্ত কেউ সান যু'র এই নীতিগুলো সাথে কেউ দ্বিমত পোষণ করেনি। কেউ ভুল প্রমাণ করতে পারেনি। শেষ করছি Sun Tzu এর একটি উক্তি দিয়ে,

"Let your plans be as dark as night, then strike like a thunderbolt"

Comments

Post new comment

Plain text

  • সকল HTML ট্যাগ নিষিদ্ধ।
  • ওয়েবসাইট-লিংক আর ই-মেইল ঠিকানা স্বয়ংক্রিয়ভাবেই লিংকে রূপান্তরিত হবে।
  • লাইন এবং প্যারা বিরতি স্বয়ংক্রিয়ভাবে দেওয়া হয়।
CAPTCHA
ইস্টিশনের পরিবেশ পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য আপনাকে ক্যাপচা ভেরিফিকেশনের ধাপ পেরিয়ে যেতে হবে।

বোর্ডিং কার্ড

জলের গান
জলের গান এর ছবি
Offline
Last seen: 3 দিন 8 ঘন্টা ago
Joined: শুক্রবার, নভেম্বর 1, 2013 - 4:15পূর্বাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

ফেসবুকে ইস্টিশন

SSL Certificate
কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর