নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 5 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • জিসান রাহমান
  • নরসুন্দর মানুষ
  • সাইয়িদ রফিকুল হক
  • আকিব মেহেদী
  • নুর নবী দুলাল

নতুন যাত্রী

  • আদি মানব
  • নগরবালক
  • মানিকুজ্জামান
  • একরামুল হক
  • আব্দুর রহমান ইমন
  • ইমরান হোসেন মনা
  • আবু উষা
  • জনৈক জুম্ম
  • ফরিদ আলম
  • নিহত নক্ষত্র

আপনি এখানে

সামনের সময়গুলো আরো কঠিনঃইন্দিরা গান্ধী


অস্ট্রেলিয়াভিত্তিক সংবাদপত্র ‘দি এইজ’ ১৯৭১ সালের ২০ ডিসেম্বর ভারতের সে সময়ের প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধীর একটি সাক্ষাৎকার প্রকাশ করে।১৬ ডিসেম্বর পাকিস্তানী হানাদার বাহিনী আত্মসমর্পণের (পত্রিকাটির ভাষ্য অনুযায়ী,১৪ দিন ধরে চলা পাক-ভারত যুদ্ধ শেষ হওয়ার)মাত্র কয়েক ঘণ্টা পর নয়াদিল্লীতে নাতিদীর্ঘ সাক্ষাৎকারটি নেন ঐ পত্রিকার সাংবাদিক নিকোলাস ক্যারল।
ক্যারলঃ বাংলা দেশ বিষয়ে আপনি আপনার কথা রেখেছেন।আপনি বোঝাতে পেরেছেন অঞ্চলটি দখল করার ব্যাপারে ভারতের কোন আগ্রহ নেই। বাংলা দেশ থেকে ভারতীয় সেনাবাহিনী পুরোপুরিভাবে সরিয়ে নিতে কতদিন সময় লাগবে?

ইন্দিরা গান্ধীঃএই মুহুর্তে বলা মুশকিল। এটা অনেকাংশে বাংলা দেশ সরকারের উপর নির্ভর করছে। তবে শীঘ্রই সেনা সরিয়ে নেওয়ার কাজটি শেষ হবে বলে আশা করছি।

ক্যারলঃ তবুও কত সপ্তাহ বা মাস লাগতে পারে বলে আপনি মনে করছেন?

ইন্দিরা গান্ধীঃ এখন কিছুই বলা যাচ্ছেনা।সবকিছুই গোলমেলে অবস্থায় আছে। সেখানকার বহু লোকের নিরাপত্তার প্রশ্ন জড়িত।অঞ্চলটির অবাঙালিদের প্রতি আমাদের এক ধরনের দায়িত্ব রয়েছে।ভারতীয় সেনাবাহিনী এ সময়ে তাদের পাশে থাকবে বলেই আশা রাখি।

ক্যারলঃআপনি কি আবার নিশ্চিত করছেন পশ্চিম পাকিস্তানের কাছ থেকে কোন অঞ্চল নিয়ে নেওয়ার ইচ্ছা ভারতের নেই?

ইন্দিরা গান্ধীঃ আমার তো মনে হয় জনসভায় এবং সংসদে দাঁড়িয়ে এ কথা আমি নিশ্চিত করেই বলেছি যে অঞ্চল দখলের কোন আগ্রহ আমাদের নেই।

ক্যারলঃ তাহলে পাকিস্তানের দখলে থাকা অঞ্চলের ব্যাপারে আপনার একই বক্তব্য যেটিকে আপনারা ভারতের অংশ বলে মনে করেন(ক্যারল জম্মু ও কাশ্মীরকে ইঙ্গিত করেছেন এখানে)?

ইন্দিরা গান্ধীঃ এর আগেও বলেছি যে এটা আমরা জোর করে নেব না। তবে এটা সত্যি, আপনি জানেন, অস্ত্রবিরতি অনিশ্চিত এবং সেখানে শান্তি বজায় রাখা যাচ্ছেনা।কিন্তু(পাকিস্তানের)বর্তমান সরকার এটা বা এরকম কিছু নিয়ে নতুন করে আর চিন্তা করেনি।

ক্যারলঃ বাংলা দেশের মানুষের তাদের নেতা শেখ মুজিবুর রহমানকে অতি প্রয়োজন। তাকে ছাড়িয়ে আনতে ভারত কি করছে? কোন ধরনের চাপ প্রয়োগের চিন্তা করছেন কি আপনারা?

ইন্দিরা গান্ধীঃ আমার তো মনে হয় না আমরা খুব বড় ধরনের চাপ প্রয়োগ করতে পারব। দূতাবাসগুলোর মাধ্যমে আমরা সারা বিশ্বের সরকারগুলোর কাছে আবেদন জানিয়েছি;আমি নিজের হাতে সবার কাছে লিখেছি। আমরা আশা করি তারা সত্যিকার অর্থেই চাপ প্রয়োগ করবে।আজ সকালে দেখলাম,অস্ত্রবিরতির বিষয়টিকে মার্কিন সরকার তাদের সাফল্য বলে দাবি করছে,তাই আমি আশা করি এ বিষয়টিও তারা গুরুত্বের সাথেই দেখবে।

ক্যারলঃকিন্তু আপনি তাকে(শেখ মুজিবুর রহমান)জিম্মি মনে করছেন কিনা;আমি বলতে চাচ্ছি পশ্চিম পাকিস্তানিদের হাতে একজন পূর্ব পাকিস্তানি যুদ্ধবন্দী হিসেবে?বিষয়টি নিয়ে কি কোন সমঝোতা হতে পারে?

ইন্দিরা গান্ধীঃ সমঝোতার বিষয়ে আমি কিছু বলতে পারব না। কেননা সমঝোতায় কি হবে, সমঝোতাটাই বা কিভাবে হবে তা আমরা জানিনা।

ক্যারলঃ ভারত অবশেষে পশ্চিম পাকিস্তানের সাথে কি ধরনের সম্পর্ক স্থাপন করতে যাচ্ছে বলে আপনার মনে হয়?

ইন্দিরা গান্ধীঃআমরা যে একটি ভাল বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক তৈরি করব সে বিষয়ে আমার সন্দেহ কখনই ছিল না। দূর্ভাগ্যজনক(!) হলেও সত্য তাদের বেশ কয়েকটি সরকার এই বন্ধুত্বের হাত ধরেই ক্ষমতায় এসেছে। তবে আমি নিশ্চিত পাকিস্তানের জনগণ আমাদের বন্ধুই মনে করে।
আপনি দেখবেন ভারতের কেউ পাকিস্তানকে ঘৃণা করেনা, কখনই না। আমি শুনেছি তারা নাকি সংবাদপত্রে এমনকি শিক্ষামূলক অনুষ্ঠানে বিদ্বেষ ছড়িয়ে বেড়াচ্ছে যদিও আমি তা একদমই বিশ্বাস করিনি।
পাকিস্তানের জনগণ খুব তাড়াতাড়িই বুঝতে পারবে তাদের মঙ্গল কোথায়- আমি ঠিক সে অর্থে ভারতের সঙ্গে বন্ধুত্ব বজায় রাখার বিষয়টিও বলছিনা কিন্তু আমাদের দেশের ভেতর কি হচ্ছে তার সাথে তাদের স্বার্থও জড়িত;বিশেষ করে তাদের উন্নতির জন্য, যদি তারা সেভাবে চিন্তা করে আর কি!

ক্যারলঃ বাংলা দেশ এবং শরনার্থীদের বিষয়ে ভারতের অবস্থান বুঝতে না পারায় আপনি প্রেসিডেন্ট নিক্সনের নিন্দা করেছেন বলে যুক্তরাষ্ট্র এবং আপনি একটি ‘শীতল’ সম্পর্কের মধ্য দিয়ে যাচ্ছেন। যত তাড়াতাড়ি সম্ভব তাদের উন্নতির কথা চিন্তা করে মিস্টার নিক্সনের কাছ থেকে আপনি কি ধরনের পদক্ষেপ আশা করেন?

ইন্দিরা গান্ধীঃহ্যাঁ, আপনি ইতোমধ্যেই একটি বলে ফেলেছেন,শেখ মুজিবের মুক্তি।বাংলা দেশে উদ্ভূত পরিস্থিতির বাস্তবতা তাদের বুঝতে হবে।বাংলা দেশে উদ্ভূত পরিস্থিতির বাস্তবতাও তাদের বোঝা উচিৎ। একটি দুরবর্তী দেশের উচিৎ হবে না অন্য দেশের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে কোন এক পক্ষকে সমর্থন দেওয়া বা নাক গলানো।একটি নির্দিষ্ট সরকারকে সমর্থন দেওয়া আপনার জন্য ভাল হতে পারে কিন্তু প্রশ্নটি হচ্ছে তা সেখানকার জনগণ আদৌ সঠিক মনে করছে কিনা।যদি তা না হয়, তবে সে সরকার কখনই শক্তিশালী হয়ে উঠতে পারেনা যতই তার পেছনে সশস্ত্র বাহিনী থাকুক না কেন। এটা আমাদেরও বিষয় নয়, তাদেরও নয়। এটা পাকিস্তানের বিষয়।

ক্যারলঃভারতের সাথে ব্রিটেনের সুসম্পর্ক রয়েছে বলেই মনে হচ্ছে।এই অঞ্চলের স্থিতিশীলতা বজায় রাখতে যুক্তরাষ্ট্র,জাতিসংঘ বা কমনওয়েলথ বিষয়ে ব্রিটেন কোন নির্দিষ্ট সহায়তা করতে পারে কি?

ইন্দিরা গান্ধীঃদেখুন, আমি আগেই বলেছি, আমি বিশ্বাস করি বিদেশিরা নাক না গলালে স্থিতিশীলতা ও শান্তি বজায় থাকত।ব্রিটেন হয়তো সাম্প্রতিক সময়ে নাক গলায়নি কিন্তু অতীতে তো গলিয়েছে!শুধু ‘আপনি’ই (ব্রিটেন)না, ‘অন্য লোক’এর নাক গলানোর কারনেও সমস্যা সৃষ্টি হয়।
এ সময়ে ব্রিটেনের সাথে আমাদের ভাল বোঝাপড়া রয়েছে।আগেও ভারতের অর্থনৈতিক মন্দার সময়ে ব্রিটেনের সাথে বোঝাপড়া ছিল।তাই আমরা আশা করি ব্রিটেন একই ধরনের দৃষ্টিভঙ্গি পোষণ করবে যখন ইউরোপীয় ইকোনমিক কমিউনিটি তাদেরকে নিয়েই তাদের দ্বারা যাত্রা শুরু করবে।

ক্যারলঃচলতি সপ্তাহে ভারত সফরে থাকা সোভিয়েতের সহকারি পররাষ্ট্র মন্ত্রী ভাসিলি কুজনেতসভের সাথে বাংলা দেশের স্বীকৃতির বিষয়ে কথা বলেছেন?

ইন্দিরা গান্ধীঃ না, আমরা সে বিষয়ে কোন আলোচনা করিনি।তবে আমরা আশা রাখি আরো অনেকগুলো দেশই বাংলা দেশকে স্বীকৃতি দেবে।

ক্যারলঃ আপনি কি সমাজতান্ত্রিক দেশগুলোর কাছ থেকে শুধুমাত্র বাংলা দেশকে স্বীকৃতি দেওয়ার জন্য কোন ধরনের ‘তাড়াহুড়ো’প্রত্যাশা করেন না?

ইন্দিরা গান্ধীঃ না না,আমি সেভাবে বলিনি।যত বেশি দেশ তাদের স্বীকৃতি দেবে তত বেশি তারা আত্মবিশ্বাস খুঁজে পাবে এবং এখন তারা যে সকল সমস্যার মুখোমুখি হচ্ছে, সে সকল সমস্যা মোকাবেলায় সামনে এগিয়ে যাবে বলে আমি মনে করি।

শুধু ভারত থেকেই নয়, অন্য সকল দেশ থেকেও তাদের সাহায্য দরকার।আমরা আমাদের নিজেদের অভিজ্ঞতা থেকেই জানি,স্বাধীনতা শুধুমাত্র দরজাটুকুই খুলে দেয় কিন্তু আসল কাজটি এর পরেই শুরু হয়।

Comments

Post new comment

Plain text

  • সকল HTML ট্যাগ নিষিদ্ধ।
  • ওয়েবসাইট-লিংক আর ই-মেইল ঠিকানা স্বয়ংক্রিয়ভাবেই লিংকে রূপান্তরিত হবে।
  • লাইন এবং প্যারা বিরতি স্বয়ংক্রিয়ভাবে দেওয়া হয়।
CAPTCHA
ইস্টিশনের পরিবেশ পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য আপনাকে ক্যাপচা ভেরিফিকেশনের ধাপ পেরিয়ে যেতে হবে।

বোর্ডিং কার্ড

সাদমান সাকিব
সাদমান সাকিব এর ছবি
Offline
Last seen: 1 year 4 months ago
Joined: সোমবার, মার্চ 4, 2013 - 2:54পূর্বাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

কু ঝিক ঝিক

ফেসবুকে ইস্টিশন

SSL Certificate
কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর