নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

দৃষ্টি আকর্ষণ

  • ট্রেনিংরুম ঘুরে আসুন।
  • ইস্টিশনের এন্ড্রয়েড এ্যাপ্লিকেশন ডাউনলোড করুন
  • পরিষ্কার বাংলা দেখার জন্য এখান থেকে ফন্ট ইন্সটল করে নিন।
  • অনলাইনে লেখা কনভার্ট করুন
  • ইস্টিশনের নতুন ব্যানার দেখতে না পেলে/সমস্যা হলে Ctrl+F5 চাপুন।
  • প্যাসেঞ্জার ট্রেন শিডিউল
  • আপনার ব্রাউজার থেকে ইস্টিশনব্লগের সাথে সবসময় যুক্ত থাকতে নিচের লোগোতে ক্লিক করে টুলবারটি ইন্সটল করুন।
  • ওয়েটিং রুম

    এখন 3 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

    • এলিজা আকবর
    • পৃথ্বীরাজ চৌহান
    • নুর নবী দুলাল

    নতুন যাত্রী

    • সুমন মুরমু
    • জোসেফ হ্যারিসন
    • সাতাল
    • যাযাবর বুর্জোয়া
    • মিঠুন সিকদার শুভম
    • এম এম এইচ ভূঁইয়া
    • খাঁচা বন্দি পাখি
    • প্রসেনজিৎ কোনার
    • পৃথিবীর নাগরিক
    • এস এম এইচ রহমান

    যে রাত জাতিসংঘ কর্তৃক স্বীকৃত নয়


    কথা ছিল তুমি আমার প্রেমিকা হবে।
    অনেকগুলো রাতঘুম তখন পূর্ণতা পাবে।
    যৌবন ফিরে পাবে প্রবীণ মিছিল।
    রোদবালিশে ঘুমিয়ে থাকা পাতারাও জেগে উঠবে।
    জেগে উঠবে ঘাসের শিশিরের মতন ঘাসফড়িং।
    ঝিঁ ঝিঁ পোকার কণ্ঠ চাঁদের আলোয় রূপালি হবে।
    শ্যামা-শালিক-দোয়েলেরা গোলটেবিল বৈঠকে বাবুর পাখির চশমা চোখে বাঁধবে।
    একটি প্রজাপতি সূর্যমুখীর কক্ষপথে প্রদক্ষিণ করে মাতাল হবে।
    অ্যালকোহলিক দূষণের পর ট্রাফিক পুলিশ যেভাবে মাতাল হয়েছিল।
    একটি পদ্মফুলে স্বপ্ন দেখবে কুনোব্যাঙ।

    ফেমিনিজমের নামে নগ্নতা!!


    আমার ডাক্তার সাহেবা একবার বলেছিলেন, সাইকোলজীর বইগুলো পড়লে নাকি বোঝা যায় যে বাংলাদেশের শতকরা ৮০% মানুষই কোন না কোনভাবে মানসিক রোগে আক্রান্ত। শতকরা হিসেবে সংখ্যাটা একটু কমতে পারে তবে ধারণাটা একেবারে ভুল না। আমাদের আশেপাশেই অনেক সুশীল ব্যক্তিবর্গ আছেন যাদের বিভিন্ন কাজকর্ম দেখে সত্যি ব্যাপারটা আরও পরিষ্কার মনে হয়।

    ধার্মিক ও অসাম্প্রদায়িক : পারষ্পরিক সম্পর্ক


    ধার্মিকতা এবং অসাম্প্রদায়িকতা একসাথে যায়না। এই থিসিসটা শুনতে খারাপ এবং ভাবতে নির্বোধের মতো মনে হয় অনেকের কাছে। তবুও একবার ভেবে দেখা যাক।

    তার আগে একটা কথা বলে রাখি।কলহপ্রিয় মানুষেরা বলেন যে ধর্ম বলতে বোঝায় কোন কিছুর অর্ন্তগত বৈশিষ্ট্য। যেমন আগুনের ধর্ম উত্তাপ, বাতাসের ধর্ম প্রবাহমানতা ইত্যাদি ইত্যাদি। তাদের জন্য জ্ঞাতব্য হচ্ছে পদার্থের বৈশিষ্ট্য (Properties) আর মানুষ কর্তৃক মান্য সর্বশক্তিমান সৃষ্টিকর্তাকেন্দ্রিক ধর্ম (religion) - এ দুটোকে একসাথে গোলাবেন না। যদি না গোলান তাহলে পরের কথায় আসি।

    ধর্ম এবং মানুষের মগজ


    প্রথমে ভেবেছিলাম এই পোস্টের সাথে শিয়াদের মাতম করার দৃশ্যের একটা ছবি দিব, পরে ইচ্ছা করল না। ছবিতে সম্ভবত একজন পিতা নিজে তার অবুঝ শিশুকে রক্তাক্ত করছে - মাতম করবার উদ্দেশ্যে। এই ধরনের বর্বরতা শিশুদের প্রতি অন্যায় দেখলে সবার রাগ হয়। কেউ কেউ বলবেন

    - "শিয়ারা কত খারাপ। এইটা কি মানুষের কাজ?

    - এই ভাবে নিষ্পাপ শিশুদের ধর্মের নামে রক্তাক্ত করে কেন ? মানুষ এত নির্দয় এবং নির্বোধ হয় কিভাবে?

    - ওরা কেন বোঝে না ?"

    এখন একটু ভেবে দেখুন- এই ছবির শিশুটি যখন একই সমাজে বড় হবে, ত্রিশ বছর পরে খুব সম্ভবত সে অনায়েসে তার নিজ সন্তানকে নিয়ে শুরু করে দেবে একই রকম বর্বরতা । এইটাই মানব সমাজের স্বাভাবিক বাস্তবতা। মানুষ যে ভৌগোলিক অবস্থানে জন্ম নেয়া এবং যা দেখে দেখে সে বড় হয় তা তার কাছে অধিকাংশ ক্ষেত্রে তা স্বাভাবিক বলে মনে হয় - এবং তা ই সে অনুসরণ করে।

    শিয়ার ঘরে বা সমাজে জন্মালে শিয়া হবেন। সুন্নির ঘরে জন্মালে হবেন সুন্নি। যেন ঈশ্বর নির্ধারিত একজনের জন্মস্থান এবং সমাজ অধিকাংশ ক্ষেত্রেই নিশ্চিত বিশ্বাসের কারন হয়ে দাড়াচ্ছে। একটু পেছন থেকে ইতিহাস ঘেঁটে দেখি বিষয়টা আসলে কি হচ্ছে। ইসলামের ইতিহাস না - মানুষের ইতিহাস।

    তারপরও বলতে হবে শিক্ষার উন্নয়ন..?


    কোন দলান্ধ ব্যক্তি ছাড়া, বাংলাদেশে কেউ বলবে না যে সবকিছু ঠিকঠাক মত চলছে। আর মাত্র ৩ বছর পর স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তি উদযাপিত হবে। এই ৫০ বছরে শিক্ষার মত একটি অতি মৌলিক বিষয়কে আমরা একটি কাঠামোর মধ্যে দাড় করাতে পারিনি। ঠিক করতে পারিনি, শিক্ষার লক্ষ্য-উদ্দেশ্য। এবং তার সাথে সঙ্গতি রেখে একটি শিক্ষাব্যবস্থা। অথবা যে শিক্ষাব্যবস্থা আছে সেখানেও কোন সৃংখলা আনা যায়নি, যা আছে সেখানেও তৈরী হচ্ছে নিয়ত বিশৃংখলা ও নৈরাজ্য!

    কুরআন অনলি: (৮) কুরআানে অবিশ্বাস ও তার কারণ!


    স্বঘোষিত আখেরি নবী হযরত মুহাম্মদ (সা:) তার আল্লাহর রেফারেন্সে সুদীর্ঘ ২৩ বছর ব্যাপী (৬১০সাল- ৬৩২ সাল) যে বানীগুলো প্রচার করেছিলেন তার এক বিশেষ বৈশিষ্ট্য হলো, একই বাক্য বা বিষয় ঘুরিয়ে ফিরিয়ে বার বার উপস্থাপন করা। তিনি তার জবানবন্দি ‘কুরআনে’ ঘোষণা দিয়েছেন যে, অবিশ্বাসীরা তার দাবীকে নাকচ করতেন এই অভিযোগে যে তিনি যা প্রচার করছেন তা তাদের কাছে ‘পূর্ববর্তীদের কিচ্ছা-কাহিনী ও উপকথা বৈ আর কিছু নয়।’

    মুহাম্মদের ভাষায়: [1] [2]

    তবুও টিটু রায়কে কেন গ্রেফতার করা হয়েছে?


    বাংলাদেশে ইতঃপূর্বে অনেকবার সাম্প্রদায়িক-দাঙ্গা হয়েছে। তবে ইদানীং বিভিন্ন তুচ্ছবিষয়কে কেন্দ্র করে দাঙ্গার পরিমাণ আরও বেড়ে গেছে। ২০১২ সালে, পার্বত্যচট্টগ্রামের রামুতে মুসলমান-নামধারী সাম্প্রদায়িকপশুগুলো রাতের আঁধারে, দিনদুপুরে যে যেভাবে পেরেছে রামুর বৌদ্ধবিহারে নৃশংসভাবে হামলা চালিয়েছিলো। তাদের তাণ্ডবলীলা দেখলে যেকোনো মানুষ মনে করবে এখানে হয়তো পৃথিবীর সর্বকালের-সর্বকুখ্যাত ও হিংস্র কোনো শূয়র ভয়ংকর আগ্রাসন চালিয়েছে। আসলে, এগুলো আমাদের বাংলাদেশের আত্মস্বীকৃত-ধার্মিক তথা একশ্রেণীর নামধারী-মুসলমানই ইসলামের নামে এসব করেছে।

    পৃষ্ঠাসমূহ

    কু ঝিক ঝিক

    ফেসবুকে ইস্টিশন

    SSL Certificate
    কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর