নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

দৃষ্টি আকর্ষণ

  • ট্রেনিংরুম ঘুরে আসুন।
  • ইস্টিশনের এন্ড্রয়েড এ্যাপ্লিকেশন ডাউনলোড করুন
  • পরিষ্কার বাংলা দেখার জন্য এখান থেকে ফন্ট ইন্সটল করে নিন।
  • অনলাইনে লেখা কনভার্ট করুন
  • ইস্টিশনের নতুন ব্যানার দেখতে না পেলে/সমস্যা হলে Ctrl+F5 চাপুন।
  • প্যাসেঞ্জার ট্রেন শিডিউল
  • আপনার ব্রাউজার থেকে ইস্টিশনব্লগের সাথে সবসময় যুক্ত থাকতে নিচের লোগোতে ক্লিক করে টুলবারটি ইন্সটল করুন।
  • ওয়েটিং রুম

    এখন 3 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

    • এলিজা আকবর
    • পৃথ্বীরাজ চৌহান
    • নুর নবী দুলাল

    নতুন যাত্রী

    • সুমন মুরমু
    • জোসেফ হ্যারিসন
    • সাতাল
    • যাযাবর বুর্জোয়া
    • মিঠুন সিকদার শুভম
    • এম এম এইচ ভূঁইয়া
    • খাঁচা বন্দি পাখি
    • প্রসেনজিৎ কোনার
    • পৃথিবীর নাগরিক
    • এস এম এইচ রহমান

    পুলিশ বাহিনীর টিম লিডারদের উদ্দেশ্যে বলছি


    আপনারা দেশের স্বার্থে পেশাদারিত্বের স্বার্থে পুলিশ ডিপার্টমেন্টের স্বার্থে অধীনস্থ কর্মীদের স্বার্থে দয়াকরে একটু মানসিক উৎকর্ষতা অর্জন করুন।

    দুই কাধে দুই কুলাঙ্গার


    ১. মানুষের দুই কাধে যে দুজন ফেরেস্তা চেপে আছে একথা প্রথম জানতে পারি সম্ভবত ৮ বছর বয়সে। এই গুপ্ত খবরটা দিয়েছিলেন আমার প্রিয়তমা গ্রান্ডমাদার। একথা শুনেই আমি বিশ্বাস করে নিয়েছিলাম, তখন থেকে কাধদুটো একটু করে বেশি ভারি ভারি লাগতো। তার বসার সময় তাদের ওজন কতো ছিলো জানিনা, আমার ওজন দিনে দিনে বেড়েছে, তাদের ওজনের কি অবস্থা কে জানে?

    মেডিকেল সায়েন্স পড়া মানুষ কিভাবে কোরানকে ঐশি কিতাব বলে বিশ্বাস করে ?


    বাংলাদেশে যে ডাক্তার সম্প্রদায় আছে , মেডিকেল কলেজ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ডিগ্রী নিয়ে নামকরা ডাক্তার হয়েছে , তারা কিভাবে কোরানকে ঐশি কিতাব হিসাবে বিশ্বাস করে , তা এক বিস্ময়কর ব্যপার। যারা মেডিকেল কলেজে পড়ে , যখন এনাটমি পড়ে , তখন সহজেই তাদের বোঝার কথা যে জীব জগত আসলে বিবর্তনের ফলে আজকের পর্যায়ে এসেছে। যুক্তির খাতিরে ধরা যাক , বিবর্তনবাদ মিথ্যা , তাহলেও কি কোরান জীব বিজ্ঞান সম্পর্কে সঠিক তথ্য দেয় ? এবার দেখা যাক , কোরান জীব বিজ্ঞান সম্পর্কে আসলে কি বলে।

    পৃথিবী আমায় চায় না


    আমি একজন হিজড়া। কি আঁতকে উঠলেন? কিন্তু মানুষ তো? রক্তে -মাংসে- মজ্জায়- মগজে প্রাণ তো?
    আমি আজ লানত দিচ্ছি ইসলামের মুহাম্মদকে (স.)। কেন ? সে কথায় পরে আসছি। তবে এ কথা ঢের জেনেছি, পৃথিবী কেন আমায় চায় না?!

    সৃষ্টিকর্তা ও তাঁর মনোনিত পুরুষদের কাছে আজও আমি অভিশাপ! আমাকে অভিসম্পাত্ করেছে প্রতি মুহূর্তে আসমানী কিতাবধারী
    আল্লাহ্! ভগবান! ঈশ্বর ! সদাপ্রভু! এবং পরিবার! সমাজ! রাষ্ট্র!
    কিন্তু আমি চিৎকার করে বলতে চাই, আমি আমার জন্মের জন্যে দায়ী নই? তাহালে দায়ী কে? দায়ী আমার বিবর্তনীয় প্রকৃতি? 

    কুঞ্জবিথী (ভ্রমণ,ইন্টেরিয়র ডিজাইন ও কারুকাজ পর্যবেক্ষণ) -১



    একটা মানুষ কতটা রুচিশীল কতটা শৌখিন তা আঁচ করা যায় তার পছন্দ চাল চলন থেকে। আর সেটা আঁচ করার একটা বড়মাধ্যম হল তার গৃহস্থালির ব্যবস্থাপনা । আপনার ইন্টেরিয়র সাজানো যত সুন্দর হবে আপনার ব্যাক্তিত্ব তত মজবুতভাবে প্রকাশ পাবে।
    আজকে কিছুটা ইন্টেরিয়র ডিজাইন ও ভ্রমন বিষয় নিয়ে লিখব , কিন্ত তাতে একেবারেই আমি নবিশ।ভুল ত্রুটি ক্ষমাসুন্দর চোখে দেখার আহবান রইল ।

    প্রতিটি ধর্মে স্বর্গের পাশাপাশি নরকের অস্তিত্তই প্রমাণ করে স্বয়ং সৃষ্টিকর্তাও তাঁর হুকুমমতের উল্টো মতাদর্শের মানুষ থাকার বিষয়টি স্বীকার করে নিয়েছেন।


    একই মাতৃ জঠরে জন্ম নেয়া দুই সহোদর ভাইয়ের মধ্যেও মতাদর্শগত পার্থক্য থাকতে পারে। একই মাতৃস্তন্যে লালিত, একই পিতার ঔরষে জন্ম, সেই একই জল-হাওয়ায় আশৈশব বেড়ে উঠা। একই পারিবারিক অনুশাষনে যাপিত জীবন, অথচ চিন্তায়-চেতনায়, আদর্শে, মতাদর্শে বহু যোজন দুরত্ব। একজন প্রথাগত সংস্কারাবদ্ধ, ধর্মীয় অনুশাষনে অত্যন্ত কনজার্বেটিভ অন্যজজন যুক্তি শাস্ত্রের ধারক। সংস্কার, ধর্ম, সামাজিক রীতিনীতি সর্বক্ষেত্রে যুক্তির প্রাধান্যে বিশ্বাসী। এর থেকে এটাই প্রতীয়মান যে, প্রতিটি মানুষই সাতন্ত্র সংস্কার দ্বারা গঠিত।

    ধর্ষক, ধর্ষণ এবং প্রতিরোধ !!!


    বেশ কিছুদিন ধরেই ধর্ষণ নিয়ে ব্যাপক আলোচনা হচ্ছে। বিষয়টা একদিক থেকে ইতিবাচক। কেউ বলছেন পুরুষ মাত্রই ধর্ষক আবার কেউ একটু সংশোধন করে বলছেন সকল পুরুষ মস্তিষ্কে ধর্ষক। অনেকেই আবার বলছেন সকল পুরুষ ধর্ষক নয়। ধর্ষণ করতে এলে ধর্ষকের লিঙ্গ কাটা হবে নাকি হবেনা সে নিয়েও আলোচনা কম হয়নি। কাউন্টারে অনেকে বলছেন লিঙ্গ কেটে ফেলা অমানবিক, আইনের শাসন প্রতিষ্ঠার কথা বলেছেন অনেকেই। নারীবাদীদের একরকম ধুয়ে দেয়ার ঘটনাও ঘটছে। কিন্তু পুরুষমাত্রই ধর্ষক অথবা সম্ভাব্য ধর্ষক কে হতে পারে বা ধর্ষণ করতে এলে তাকে কি করা উচিৎ সেটা নিয়ে আলোচনা যতটা জরুরী তার থেকে বেশী জরুরী ধর্ষণ কি করে প্রতিরোধ করা যায়। অত্যন্ত দুঃখজনক হলেও স

    আম বাঙালি মুসলমানের হিরো বখতিয়ার নালন্দাতেই থেমে থাকেনি !


    ভারতীয় উপমহাদেশে ইসলামের প্রসার মূলত বহিরাগতদের আক্রমনের ফলে, মানুন বা না মানুন। ১৪০০ বছর আগে ইসলামের প্রবক্তার এই উপমহাদেশের কোনো যোগসূত্র আর পাওয়া যায়না। ইসলামী আগ্রাসনের থাবা ভারতীয় উপমহাদেশে বার বার আচড়ে পরেছে, মানুষ মরেছে, নারী সম্ভ্রম হারিয়েছে, ধর্মান্তকরণ চলছে অবাধে আর সাথে লুঠতরাজ তো ছিলই।

    সরকারকে ৭ মার্চের ভাষণের জাতীয় উৎসবে সমগ্র জাতির অংশগ্রহণ নিশ্চিত করতে হবে, দাবি বিএইচপি’র


    জাতির পিতা, জাতীয় ঐক্যের প্রতীক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণ সমগ্র বাঙালি জাতির ভাষণ। ১৯৭১ সালে সমগ্র বাঙালি জাতির হৃদয়ের আশা-আকাঙ্খা, পুঞ্জিভূত ক্ষোভ ও স্বাধীনতার মহাবাণী বঙ্গবন্ধুর ভাষণের মধ্য দিয়ে টগবগিয়ে ফুঁষে উঠেছিল। এ ভাষণ সমগ্র বাঙালি জাতির সম্পদ। এ ভাষণ কোন একটি দল কিংবা কোন একটি গোষ্ঠীর হতে পারে না। এ ভাষণ আন্তর্জাতিক সংস্থা ইউনেস্কোর ‘ওয়ার্ল্ড ডকুমেন্টারী হেরিটেজ’ হিসেবে স্বীকৃতি লাভ করেছে, এটা সমগ্র জাতির আনন্দ এবং জাতীয় উৎসবের বিষয়।

    পৃষ্ঠাসমূহ

    কু ঝিক ঝিক

    ফেসবুকে ইস্টিশন

    SSL Certificate
    কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর