নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

দৃষ্টি আকর্ষণ

  • ট্রেনিংরুম ঘুরে আসুন।
  • ইস্টিশনের এন্ড্রয়েড এ্যাপ্লিকেশন ডাউনলোড করুন
  • পরিষ্কার বাংলা দেখার জন্য এখান থেকে ফন্ট ইন্সটল করে নিন।
  • অনলাইনে লেখা কনভার্ট করুন
  • ইস্টিশনের নতুন ব্যানার দেখতে না পেলে/সমস্যা হলে Ctrl+F5 চাপুন।
  • প্যাসেঞ্জার ট্রেন শিডিউল
  • আপনার ব্রাউজার থেকে ইস্টিশনব্লগের সাথে সবসময় যুক্ত থাকতে নিচের লোগোতে ক্লিক করে টুলবারটি ইন্সটল করুন।
  • ওয়েটিং রুম

    এখন 7 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

    • পৃথু স্যন্যাল
    • রুদ্র মাহমুদ
    • সুষুপ্ত পাঠক
    • বেহুলার ভেলা
    • নিটোল আরন্যক
    • মো.ইমানুর রহমান
    • সুজন আরাফাত

    নতুন যাত্রী

    • রমাকান্ত রায়
    • আবুল খায়ের
    • একজন সত্যিকার হিমু
    • চক্রবাক অভ্র
    • মিস্টার ইনকমপ্লেইট
    • নওসাদ
    • ফুয়াদ হাসান
    • নাসিম হোসেন
    • নেকো
    • সোহম কর

    প্রার্থনা কি ও উহার কার্যকারিতা কিসে?


    প্রার্থনা কি ও উহার কার্যকারিতা কিসে?

    O my God! There is no God. He is in nowhere but in human belief.

    ঈশ্বর থাকুক বা না থাকুক; উহা আছে মানুষের বিশ্বাসে কিংবা নিঃশ্বাসে। ঈশ্বরের নিকট প্রার্থনা মূলত অবচেতন ও চেতন মনের মিথোষ্ক্রিয়ায় ইতিবাচক ফল লাভের আকাঙ্খা। একজন নাস্তিক কিংবা অজ্ঞেয়বাদী অন্যের শুভকামনা কিংবা মঙ্গলকামনা করেন সেটাও প্রার্থনা।

    মানুষ যা চায় তা সে পাবেই পাবে যদি এবং কেবল যদি উহা মনছবি আকারে উহা চেতন মন থেকে অবচেতন মনে প্রোগ্রামিত হয়।

    অভিজিৎ রায় আর অনন্ত বিজয়ের নতুন লেখা বই আর কখনো পাবেনা এই গ্রন্থমেলা।


    আবার ঘুরে ফিরে চলে এল ফেব্রুয়ারি মাস। প্রাণের বই মেলার মাস। সাহিত্য প্রেমীদের মাস। নবীন কবিরা টান টান উত্তেজনা তাদের জীবনের প্রথম বইটি প্রকাশ করবে। কেউ কেউ লম্বা আর চুল দাঁড়ি রেখে কবি কবি উদাস হবার চেষ্টা করবে। কোনো সুন্দরীকে ভাব নিয়ে অটোগ্রাফ দেয়ার জন্য তাদের মন উসখুস করবে। কোনো পাঠক বিভিন্ন স্টলে স্টলে ঘুরে ঘুরে তার প্রিয় লেখকের বইয়ে আলতো হাতে স্পর্ষ করে মন জুড়াবে। মেলায় কোনো কোনো লেখক চায়ের কাপে চুমুক দিয়ে দিয়ে দেশ সমাজ ও বর্তমান রাজনীতি নিয়ে গুরুগম্ভীর আলোচনা করবে। কোনো লেখক তার বইটা বর্তমান প্রেক্ষাপটে কতটা গুরুত্বপূর্ণ তা আড্ডায় বার বার জাহির করবে। শিশুসাহিত্যিক-বেশ্যারা দুচার লাইনের

    ৭১-রে ভারত যদি পাকিদের হাতে আমাদের তুলে দিত তখন কেমন লাগত?


    মায়ানমারের বৌদ্ধদের হাতে নির্যাতিত—নিপীড়িত রোহিঙ্গা মুসলিমরা আজ চরম মানবেতর দিন অতিবাহিত করছে ৷ বাবার সামনে মেয়েকে,ছেলের সামনে মাকে উলঙ্গ করে ধর্ষণ করছে ৷ ছিড়ে ছিড়ে খাচ্ছে মুসলিমদের ৷ 
    যাহোক রোহিঙ্গাদের উপরে যখন অমানবিক নির্যাতন শুরু হলো ৷ তখন রোহিঙ্গা মুসলিমরা জীবনের ভয়ে নদী পথে সোনার বাংলাদেশে আসলো আশ্রয়ের জন্য ৷ কিন্তু বাংলাদেশ সরকার তাদের আশ্রয় না দিয়ে ফেরত পাঠালেন বৌদ্ধদের হাতে ৷ হায় রে ! মানবতা ৷ 
    শেষ কথা ৭১ সালে পাকিস্তানী বাহিনীরা যখন আমাদের উপর বর্বর অত্যাচার শুরু করলো ৷ তখন আমার জীবন বাচানোর তাগিদে দেশ ত্যাগ করে ভারতে গেলাম আশ্রয়ের জন্য ৷ ভারত সরকার আশ্রয় দিল ৷

    ঠেঙ্গারচরে রোহিঙ্গাদের পুর্নবাসন হবে অমানবিক


    যে দ্বীপ কোন ভাবেই বাসযোগ্য নয়, যেখানে প্রতিমুহুর্তে রয়েছে মৃত্যুঝুঁকি। ঠেঙ্গারচরে রোহিঙ্গাদের পুর্নবাসন হবে অমানবিক।নোয়াখালী জেলা সদর থেকে প্রায় ৮০ কি:মি:, উপকূলীয় উপজেলা সুবর্ণচর উপজেলা হতে প্রায় ৫০ কি:মি:, হাতিয়া উপজেলা থেকে ২৫ কি:মি: সন্দ্বীপ উপজেলার পশ্চিম উপকূল হতে ৫ কি:মি: দুরত্বে মেঘনা নদী ও বঙ্গোপসাগরের মোহনায় অবস্থিত এই বিচ্ছিন্ন এবং জনশূন্য দ্বীপ ঠেঙ্গারচর । যেখানে প্রায়ই জোঁয়ার ভাটায় প্লাবিত হয় এ ঠেঙ্গারচর। তাছাড়া লবনাক্ত পানি ঘেরা এই নির্জন দ্বীপে বসবাসের জন্য আছেই বা কি?

    আমি অপ্রিয় বলছি- শুনো হে মুর্খের দল!


    আমাদের রাষ্ট আর সমাজের অধিকাংশ শিক্ষিত (মাথামোটা শিক্ষিত) অভিভাবকগন মনে করে- ছেলে হোক মেয়ে হোক ডিগ্রি পাশ করলেই সেই শিক্ষিত! ডাক্তার, ইঞ্জিনিয়ার, অনার্স, মাস্টার্স, বিবিএ, এমবিএ, পাস করলে সেই অধিক শিক্ষিত! কোনো ছাত্র বাইরে গিয়ে পি এইস ডি পড়ে এসে নামের আগে "ডক্টরেট" লাগালে তাদের দৃষ্টিতে সেই তো আরো অনেক বড়ো শিক্ষিত! ডক্টর অমুক, ডক্টর তমুক! আহারে কতো বড়ো শিক্ষিত মানুষ! এসব অভিভাবকরা নির্ধারণ করে দেয় কারা শিক্ষিত, কারা অশিক্ষিত। এরা মনে করে শুধুমাত্র সার্টিফিকেট ওলারা শিক্ষিত বাকি সব অশিক্ষিত! এরা ভাবে প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষিতরাই মানুষ, বাকি সব অমানুষ!

    অপদ্য বচন (২০৬-২১৫)


    ২০৬. At times good friends are like good prostitutes - a rare source of brainless entertainment.

    ২০৭. ২০২০ সাল বাংলাদেশের জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ বছর। এ বছর জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং ইসলামের ত্রাতা আওয়ামীবন্ধু শফী হুজুর, উভয়েরই জন্ম শতবার্ষিকী।

    ২০৮.বাংলাদেশে যারা স্টার জলশা, জী বাংলা এই চ্যানেলগুলো নিষেধের পক্ষে, তাঁদের কমন আর্গুমেন্ট হলো অপসংস্কৃতি বা বাঙালি সমাজের সাথে সাংঘর্ষিক আইডিয়োলজির আত্মীকরণ। খুব জানতে ইচ্ছে করে, গেইম অফ থর্নস বা স্পার্টাকাস-এর ঠিক কোন কোন দিক থেকে আমাদের সংস্কৃতির সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ।

    চিরঅম্লান বাঙলা !


    কৃষ্ণবর্ণ ক্ষীর্ণকায় বাঙালি আর্য সংস্কৃতিতে ছিল ঘৃণ্য, তাই আত্মাভিমান ছিল তার প্রচন্ড। তার নির্দিষ্ট ভৌগলিক সীমারেখা তাকে দিয়েছে বিশেষ ভাষা, সাহিত্য কৃষ্টি ও শিল্প। ময়নামতি তার অতীত, তার গর্ব, তার ঐশ্বর্য। বারবার আমরা আক্রান্ত হয়েছি বিদেশীদের দ্বারা তবুও ভুলবো না এই বাঙলার সোনারগাঁও থেকেই একদিন সুলতান গিয়াসউদ্দিন আযম শা পারস্যের কবি হাফিজকে আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন।

    পুনঃপাঠঃ আবুল মনসুর আহমদের 'হুজুর কেবলা'


    এক
    এমদাদ তার সবগুলি বিলাতি ফিনফিনে ধুতি,সিল্কের জামা পোড়াইয়া ফেলিল; ফ্লেক্সের ব্রাউন রঙের পাম্প সুগুলি বাবুর্চিখানার বঁটি দিয়া কোপাইয়া ইলশা-কাটা করিল। চশমা ও রিস্টওয়াচ মাটিতে আছড়াইয়া ভাঙ্গিয়া ফেলিল; ক্ষুর স্ট্রপ,শেভিংস্টিক ও ব্রাশ অনেকখানি রাস্তা হাঁটিয়া নদীতে ফেলিয়া দিয়া আসিল;বিলাসিতার মস্তকে কঠোর পদাঘাত করিয়া পাথর-বসানো সোনার আংটিটা এক অন্ধ ভিক্ষুককে দান করিয়া এবং টুথক্রিম ও টুথব্রাস পায়খানার টবের মধ্যে ফেলিয়া দিয়া দাঁত ঘষিতে লাগিল। অর্থাৎ এমদাদ অসহযোগ আন্দোলনে যোগদান করিল! সে কলেজ ছাড়িয়া দিল।

    পাকিস্তানে ছিল এক জিন্না। আর এখন স্বাধীনবাংলাদেশে অসংখ্য জিন্না!


    এখন বাংলাভাষার অনেক শত্রুও লোকদেখানো ও স্বার্থসিদ্ধির-আনুষ্ঠানিক ভাষাপ্রেম দেখানোর জন্য শহীদমিনারে গিয়ে বেদীতে ফুল দেয়। তারপর ছবি তুলে কিংবা বিশাল একটা ভিডিও করে বাসায় ফিরে আসে। তারপর এগুলো দিয়ে ব্যবসা করে খায়। অনেক ভণ্ড এখন শহীদমিনারে গিয়ে ফুল দিচ্ছে। অথচ, এদের মনের মধ্যে বাংলাভাষার প্রতি সামান্যতম শ্রদ্ধাবোধ নাই। এদের মনে যদি বাংলাভাষার প্রতি সামান্যতম শ্রদ্ধাবোধ থাকতো—তাহলে, বাংলাভাষা কি এতোদিনেও বাংলাদেশে উপেক্ষিত থাকতো?

    শিবলিঙ্গ এবং শিবরাত্রি কথন ।


    সনাতন হিন্দু ধর্মালম্বী দের বিশেষ একটি রাত্রির নাম শিব রাত্রি । এদিন হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকজন শিবের মাথায় ফুল বেল পাতা সমেত দুধ গঁঙ্গা জল ঢেলে ও ভোগ হিসেবে বেল চড়িয়ে দিনটি পালন করবে। শিবের প্রনাম মন্ত্র-

    ওঁ নমঃ শিবায় শান্তায় কারণত্রয়হেতবে।
    নিবেদয়ামি চাত্মানং ত্বং গতিঃ পরমেশ্বর।।

    পৃষ্ঠাসমূহ

    Facebook comments

    ফেসবুকে ইস্টিশন

    SSL Certificate
    কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর