নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

দৃষ্টি আকর্ষণ

  • ট্রেনিংরুম ঘুরে আসুন।
  • ইস্টিশনের এন্ড্রয়েড এ্যাপ্লিকেশন ডাউনলোড করুন
  • পরিষ্কার বাংলা দেখার জন্য এখান থেকে ফন্ট ইন্সটল করে নিন।
  • অনলাইনে লেখা কনভার্ট করুন
  • ইস্টিশনের নতুন ব্যানার দেখতে না পেলে/সমস্যা হলে Ctrl+F5 চাপুন।
  • প্যাসেঞ্জার ট্রেন শিডিউল
  • আপনার ব্রাউজার থেকে ইস্টিশনব্লগের সাথে সবসময় যুক্ত থাকতে নিচের লোগোতে ক্লিক করে টুলবারটি ইন্সটল করুন।
  • ওয়েটিং রুম

    এখন 3 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

    • নুর নবী দুলাল
    • শাম্মী হক
    • সলিম সাহা

    নতুন যাত্রী

    • চয়ন অর্কিড
    • ফজলে রাব্বী খান
    • হূমায়ুন কবির
    • রকিব খান
    • সজল আল সানভী
    • শহীদ আহমেদ
    • মো ইকরামুজ্জামান
    • মিজান
    • সঞ্জয় চক্রবর্তী
    • ডাঃ নেইল আকাশ

    হিজিবিজি


    শাহবাগ প্রজন্ম জাগরনের ২০ দিন চলছে। প্রাপ্তি বা ব্যার্থতা খোজার সময় থেকে আন্দোলন অনেক দূরে আছে। জাতিগত ভাবেই আমরা অস্থির, ডিজিটাল আশির্বাদে এই অস্থিরতা আরো বড় আকার ধারন করেছে। আমরা খুব দ্রুত 3G স্পিডে সব পেতে চাই। গত ৪২ বছরে যে ক্যান্সার পালছে এই দেশ তা এতো দ্রুত নিরাময় হয়ে যাবে সেটা ভাবাও বোকামি। কিন্তু প্রশ্ন কিছু মানুষের মনে জেগেছে। আন্দোলন সমর্থনকারী এবং মাঠে থাকা অনেক সমর্থকদের সাথে কথা বলে জানা গেলো কিছু সংশয় ও প্রশ্ন।
    প্রশ্ন ১: সব ব্লগার ও এক্টিভিস্টরা কোথায়?
    প্রশ্ন ২: শুক্রবারের তান্ডবের পর মাহমুদুর রহমানকে দেয়া আল্টিমেটামের কি হলো? সংবাদ সম্মেলনে সেতো চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিলো।

    "ব্লগার হইতে সাবধান"


    ছোট বেলায় এই কাজ করতাম। বিরাট কোন রচনা লিখার সময় পয়েন্ট বাড়িয়ে মার্ক পাওয়ার জন্য মূল বিষয় থেকে সরে যেতাম, ছাত্র জীবন রচনায় ছাত্রী জীবন শিক্ষক জীবন, জাতীয় জীবন থেকে ধর্মীয় জীবন সব কিছু নিয়া গেজাইতাম, বেচারা টিচার কনফিউসড হয়ে ভাল নাম্বার দিয়ে দিতেন। এই টেকনিক এখন ব্লগারদের মধ্যে জনপ্রিয়। ছোট একটা ব্যাপার নিয়ে তারা এমন রচনা লিখে দেন আমরা বলদ হয়ে যাই, রচনা শুরু হয় গরু দিয়ে শেষ হয় টিকটিকি দিয়ে এবং পরিশেষে আমরা বলতে পারি দুধ একটি আদর্শ খাদ্য। জনপ্রিয়তা দুর্লভ জিনিষ, এটা পেতে ভাগ্যতা যোগ্যতা দুটাই লাগে, আর অনলাইন জনপ্রিয়তা এমন এটা এক বার পেলে তা আর কমে না বরং বাড়তেই থাকে। জনপ্রিয়তার অপব্যবহার কমবে

    হীন-জিনিয়ার


    বাপে বেচল ধানী জমি মায়ে বেচল গয়না,
    ইঞ্জিনিয়ার হইয়া ফেরত আইস জাদু, সোনা, ময়না।
    পাবলিকে চান্স হয় নাই আমার, ছিল প্রতিভাতে ঘাটতি
    রেসে টিকতে পারি নাই তাই দুই ঘণ্টা ব্যাপ্তি।
    দুই ঘণ্টার পরীক্ষায় আমায় মেধাহীন বানাইল
    তারপরেও মায়ে ক্যান জানি ইঞ্জিনিয়ার বানাইতে চাইল।
    এরপর আমি রওনা দিলাম পোটলা নিয়া ঢাকায়
    যেই শহর চলে শুধুই মামা চাচা টাকায়।
    প্রাইভেটে হইলাম ভর্তি- অ্যাট দ্যা অরিয়েন্টেশন
    কত টাকা দিতে হবে শুনলাম তার ডেসক্রিপশন।
    কেউ কইল না “বাবা কিছু শিখো পরান ভরে”
    সবাই জিগায় অই ব্যাটা তোর জিপিএ কত রে?
    জিপিএ তো ভালো না তোর দুইটা এ+ নাই
    তোর বাপের কি টাকা বেশি খরচ করে হুদাই???

    বন্ধুরুপী শত্রু অপেক্ষা প্রকাশ্য শত্রু অনেক ভালো


    প্রজন্মের এই আন্দোলন নিয়ে কুত্তা কামড়াকামড়ি শুরু করেছে বন্ধুরুপী শত্রু বিশেষ। তাদের মধ্যে অন্যতম হলো সামু ব্লগের গুলশান জানা।

    একটি অনলাইন পত্রিকায় তিনি দাবী করেছেন এই আন্দোলনের কৃতিত্ব তার ব্লগেরই,অথচ যেই ব্লগে বাকস্বাধীনতার কথা বলে এই আন্দোলন নিয়ে ব্যঙ্গ করা হয়,যেই ব্লগে ছাগুতোষিত হয় তারা এই আন্দোলনের জন্য কতটা আন্তরিক সন্দিহান থাকি।

    আন্দোলন শুরুর প্রথমদিন সবার আগেই বিকাল চারটায় ঐ ব্লগের কয়েকজন ব্লগার উপস্থিত হয় অথচ জানা ম্যাডাম দাবী করেন অথচ তিনি ভুলে গেছেন এই নিয়ে ফেসবুকে বিকাল চারটার আগে ইভেন্ট তৈরী করেন বাধন স্বপ্নকথক এবং সেখানে আমন্ত্রন পান জানা ম্যাডামের বাহিনী।

    অহিংস আন্দোলন (জামাতী উস্কানীতে পা দেব না )


    আবারও বলতে চাচ্ছি,আন্দোলন অহিংসা শুভ ফল বয়ে আনতে পারে। অন্তত আমাদের দেশের বাস্তবতায়। জাগরণ মঞ্চ থেকে পতাকা তোলার প্রস্তাবনা আসতে সারা দেশে পালিত হয়। তিন মিনিটের নিরবতা সংসদ থেকে ধরে গাড়ির ড্রাইভার পর্যন্ত পালন করেন। এত আস্থার পরেও কেন আল্টিমেটাম দেয়া হচ্ছেনা, এই নিয়ে ফেসবুকে অনেকে অসন্তুষ্ট।শেষ পর্যন্ত আল্টিমেটাম দেয়া হলো। ২৬মার্চের মধ্যে জামাত,শিবিরকে নিষিদ্ধ করতে হবে। মাহচুদির রহমানকে গ্রেফতার করার আল্টিমেটামের ২৪ঘন্টা শেষ হয়েছে। সে গ্রেফতার হয় নাই। এখন কি করতে হবে?

    করিম দাফাদার ও কামার মোল্লা


    করিম দফাদার রিক্সা চালিয়ে কোন মতে জীবন চালাই তবে লোকটা গারিব হলেও সাহসী। প্রজন্ম চত্বরে আন্দোলন সুরুর পর থেকে কত যে ফ্রী শাহবাগে রিক্সাই করে লক আনল তার ঠিক নেই কারন তিনি যে প্রতিশোধের আগুনে জ্বলছিলেন। '৭১' এ তার অনেক সহকর্মী কে তো এই রাজাকারদের জন্যই মৃত্যু বরন করতে হয়েসিল।তিনিও ও তো মরতে মরতে বেঁচে গিয়েসিলেন। পদ্মার তীরে তো তিনিও ছিলেন । যেদিন রাজাকার কামার মোল্লার নেতৃ তে একদল পাকিস্তানী হায়েনা তাদের ৩৬ জন সহযোদ্ধা কে নিতে হয়েছিল নির্মম মৃত্যুর স্বাদ। সংখা টা তো ৩৬ না হয়ে ৩৭ হওয়াটাই স্বাভাবিক ছিল। কেনই বা গুলিটা তার হাতে লাগবে। তিনি দেখেসেন কামার মোল্লা মুক্তিযোদ্ধা দের রক্ত নিয়ে হোলি খেল

    প্রজন্ম অভ্যুত্থান যেন ভেসে না যায় – লক্ষ্যকে জিবনসংগ্রামের ভিত্তি দিন, জনমুখি হোন


    আমার কেনো জানি মনে হচ্ছে শাহবাগ চত্বরের এত সম্ভবনাময় নতু্ন প্রজন্মের অভ্যুত্থান, যার সম্ভবনা আছে নতুন প্রজন্মের নতুন ধারার রাজনৈতিক শক্তি হিসাবে উত্থানের, তা যেন একটা খনিকের হুজুগের মতো থিতিয়ে পড়ছে জামাতি কুট কৌশলের মুখে।

    তারুণ্য


    যারা এ দেশকে বানাতে চাই পাকিস্তান কিংবা আফগানিস্তান , যারা ইসলামের নামে সহিংস কর্মকাণ্ড করতে চাই, যারা এ দেশ কে জঙ্গি রাষ্ট্রে পরিনত করতে চাই যে রাষ্ট্রে কেউ জানবে না '৭১' এর মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস, যে রাষ্ট্রে কেউ জানবে না '৫২' ভাষা আন্দোলনের কথা, যে রাষ্ট্রে কেউ জানবে না '৬৯' এর গন অভুত্থান এর কথা এ রকম একটি রাষ্ট্রে পরিনত করতে চাই পাকিস্তানে জন্ম যে রাজনৈতির(সন্ত্রাসী) দলটির। কিন্তু যখন দেখি স্বাধীন বাংলার মাটিতে সৃষ্ট কোন রাজনৈতিক দল নৈতিক সমর্থন জানাই তাদের এ ধ্বংসযজ্ঞের প্রতি। কি করে পারল তারা এ ধরনের ধ্বংসযজ্ঞের প্রতি সমর্থন জানাতে???

    হরতাল সামনে রেখে চট্টগ্রামে মহাপরিকল্পনা নিয়ে প্রস্তুত জামাত-শিবির চক্র


    আজকের হরতালকে সামনে রেখে মহাপরিকল্পনা নিয়ে প্রস্তুত জামাত-শিবির চক্র। বিভিন্ন সূত্রে প্রাপ্ত তথ্যানুযায়ী জানা যায়, চট্টগ্রামে আজকের হরতালে ব্যাপক সহিংসতা চালানোর পরিকল্পনা নিয়েছে স্বাধীনতা বিরোধী এই চক্রটি। বিএনপির এই হরতালে সমর্থন জামাতকে নতুন করে শক্তি এবং উদ্দীপনা যুগিয়েছে বলে জানা যায়। কারন বিগত একমাস যাবত বিএনপি তাদের জোটের এই দলটির সাথে কিছুটা ধরি মাছ না ছুই পানি নীতি দেখিয়ে আসছিলো। এতে করে জামাতের কেন্দ্রীয় নেতারা কিছুটা দুশ্চিন্তায় ছিল। তবে আজকের হরতালে বিএনপির সমর্থন তাদের নতুন করে উজ্জীবিত করেছে।

    শুরু দিয়ে শেষ


    অনেকদিন লেখালেখি করা হয়না| তথাকথিত কমলা খেটে দিন চলে যায়| সকাল ৯ টা থেকে রাত ৯ টা| নিজেকে মাঝে মাঝে কারখানার মেশিনের মত মনে হয়| বস বোতাম টিপে দিল, আমি চলা শুরু করলাম, আবার বোতাম টিপে দিল আমি বন্ধ হয়ে গেলাম| গোটা দুনিয়ার খবর তো দুরে থাক, নিজের বাসায় কি হচ্ছে সেই খোজ ও থাকেনা আমার| এ বলে সেই আমি যে কিনা সব বিষয়ে সবার আগে মুখ খুলত!!

    পৃষ্ঠাসমূহ

    ফেসবুকে ইস্টিশন

    কপিরাইট © ইস্টিশন ব্লগ ® ২০১৮ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর