নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

দৃষ্টি আকর্ষণ

  • ট্রেনিংরুম ঘুরে আসুন।
  • ইস্টিশনের এন্ড্রয়েড এ্যাপ্লিকেশন ডাউনলোড করুন
  • পরিষ্কার বাংলা দেখার জন্য এখান থেকে ফন্ট ইন্সটল করে নিন।
  • অনলাইনে লেখা কনভার্ট করুন
  • ইস্টিশনের নতুন ব্যানার দেখতে না পেলে/সমস্যা হলে Ctrl+F5 চাপুন।
  • প্যাসেঞ্জার ট্রেন শিডিউল
  • আপনার ব্রাউজার থেকে ইস্টিশনব্লগের সাথে সবসময় যুক্ত থাকতে নিচের লোগোতে ক্লিক করে টুলবারটি ইন্সটল করুন।
  • ওয়েটিং রুম

    There is currently 1 user online.

    • বেহুলার ভেলা

    নতুন যাত্রী

    • চয়ন অর্কিড
    • ফজলে রাব্বী খান
    • হূমায়ুন কবির
    • রকিব খান
    • সজল আল সানভী
    • শহীদ আহমেদ
    • মো ইকরামুজ্জামান
    • মিজান
    • সঞ্জয় চক্রবর্তী
    • ডাঃ নেইল আকাশ

    এপ্রিলের এক অপরূপ সকালে ১০০% নিখুঁত মেয়েটির সঙ্গে দেখা হওয়ার পর


    এপ্রিলের এক অপরূপ সকালে, টোকিওর কেতাদুরস্ত হারাজুকু এলাকার সংকীর্ণ রাস্তায় আমি মুখোমুখি হেঁটে গেলাম আমার জন্য ১০০% নিখুঁত মেয়েটির সামনে দিয়ে।
    সত্যি কথা বলতে কী, সে যে দেখতে খুব সুন্দর তা নয়। ভিড়ের মধ্যে তাকে আলাদা করা যাবে না। এমন বিশেষ চমকদার পোশাকও পরেনি সে। ঘুম ভেঙে এইমাত্র উঠে আসার কারণে অপরিপাটি পেছনের চুল। বয়সও খুব কম নয় — তিরিশের কাছাকাছি হবে। সেভাবে বললে, তাকে ‘মেয়ে’ই বলা চলে না। তবু পঞ্চাশ গজ দূর থেকেও আমি টের পেলাম: সে আমার জন্য ১০০% নিখুঁত মেয়ে। তাকে দেখামাত্র আমার বুকের ভেতরটা ধুকপুক করতে থাকলো, মরুভূমির মতো শুকিয়ে গেল জিহ্বা।

    সেই হৈমন্তি আবারও.....


    চৈত্রময় সন্ধ্যে বেলা আমার পথচলা কোন এক পরিচিত রাস্তায় প্রতিদিনকার মত। হঠাৎ বেজে উঠে যানবাহনের হর্ন, পাশ কাটিয়ে যায় দুই একটা রিকশা আর মোটরযান। চোখ আটকে যায় মোটরযানে। আবছা আবছা আলো, তবুও যেন কত স্পস্ট । মৃদু বাতাসে দুল খাওয়া তার চুল ,একজোড়া ঐশর্য্যময় চোখের চাহুনী আর ঠোটের কোনে লেগে থাকা সেই চির পরিচিত হাসি......

    মনে করিয়ে দিয়ে যায় আমার উনিশ বছর বয়সের সেই জং ধরা স্মৃতি গুলোকে,মনে করিয়ে দেয় নদীর তীরে দাড়িয়ে দুই জোড়া চোখের পলকহীন কিছু মুহূর্তকে। আমি ডুব দেই ফেলে আসা সেই উনিশ বছর বয়সে যেখানে বসন্ত এসেছিল কোন এক সন্ধ্যে বেলায়।

    একজন গাঙচীল


    এ কয়দিন, তেরো নদী আর সাত সাগর উড়াল দিয়ে আজ এই গভীর রাত এ চলে এলাম ইস্টিষন এ।
    গুটি কয় এক যাত্রী ছাড়া তেমন কেও কে দেখা যাচ্ছেনা।

    ইস্টিষন মাস্টার এর রুম এ বিরামহীণ টিঊব লাইট জলছে।

    আমার দুটি পাখায় সারাদিন এর ক্লান্তি, আর যে চোখ মেলে রাখা যাচ্ছেনা।

    আচমকা জেগে ঊঠি, একবার চোখ বুলিয়ে আবার দেই ঘুম।

    হরহাল ও নতুন আতঙ্ক ‘পেট্রোল বোমা’


    হরতাল, বিক্ষোভসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক কর্মসূচিতে ককটেল বা হাতবোমার বিস্ফোরণ এখন নিত্যদিনের ঘটনা। রাজধানীসহ সারাদেশেই ককটেল ফাটিয়ে আতঙ্ক তৈরির চেষ্টা চালায় হরতাল সমর্থকরা। অনেক ক্ষেত্রে এসব ঘটনায় প্রাণহানিও ঘটছে। শুধু ককটেল নয়, এবার হরতাল সমর্থকদের হাতে এসেছে পেট্রোল বোমা। হরতালে পিকেটারদের হাতে পেট্রোল বোমায় পাব্লিক ভুগছে চরম আতঙ্কে।

    ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক- শিক্ষার্থীবৃন্দের লিফলেট


    ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের শিক্ষার্থী সুব্রত অধিকারী শুভসহ অনলাইন অ্যাক্টিভিস্টদের নিঃশর্ত মুক্তি চাই

    প্রিয় সহযোদ্ধা,

    এ লড়াই ছিল অবশ্যম্ভাবী


    "স্বাধীনতা অর্জনের চেয়ে রক্ষা করা কঠিন" এটা যারা ভুলে যায় স্বাধীনতা নিশ্চয় তাদের জন্য নয়। তিরিশ লাখ শহীদের রক্তে অর্জিত স্বাধীনতা রক্ষার্থে যদি আরো তিরিশ লাখ প্রাণের রক্ত ঝরাতে হয় তবে সে কাতারে যে এগিয়ে আসতে পারবে স্বাধীনতা তার জন্যই।

    একটু ভাববেন কি,তাদের নিয়ে??????


    বেশ কদিন আগে দেশের শিক্ষা ব্যবস্থা নিয়ে একটি লেখা লিখেছিলাম।সেখানে কওমি মাদ্রাসা অন্তর্ভুক্ত শিক্ষা ব্যবস্থা বিষয় নিয়েও লিখেছিলাম।আজকে রাস্তায় দাঁড়িয়ে হেফাজতে ইসলাম বলুন আর জামাত শিবির বলুন তাদের মিছিল ও পত্রিকা কিংবা নিউজ চ্যানেলের উপর রিপোর্টে তাদের কার্যক্রম দেখালাম।

    বন্ধু মাসুদ এবং হেফাজতি মাসুদ


    চট্রগ্রামের খাতুনগঞ্জে হাফেজিয়া মাদ্রাসার ছাত্র থাকাকালীন বেশ কয়েকজন পেয়ারের দোস্ত ছিল। এরা এখন প্রত্যেকেই হাফেজ। এদের মধ্যে আমার সবচেয়ে খুব কাছের বন্ধু ছিল মাসুদ রানা। আমি পড়াশুনা পুরোটা শেষ না করেই শৈশবেই হুজুরের মাইরের চোটে মাদ্রাসা ছেড়েছিলাম! হুজুরটা কেমন জানি একরকম সাইকো ছিল বলে আমার ধারনা। আমাকে মেরে ব্যপক মজা পেত বলে মনে হতো!

    ধর্মব্যবসা সবচেয়ে লাভজনক, সে ভার্চুয়ালি হোক বাস্তব জগতে হোক।


    জুকারবার্গের সৃষ্টি এক অতীব জনপ্রিয় জগতের নাম facebook। আর এই জনপ্রিয় ফেসবুকের আরেকটি জনপ্রিয় জিনিস পেজ। আমরা অনেকেই পেজ খুলে থাকি। সেই পেজ জনপ্রিয় ভাবে চালাতে হয় কিভাবে তার জন্য আজকের এই লেখা ।

    পোস্ট-১:
    একটা মাছের ছবি দিয়ে বলবেন
    "সুবহানাল্লাহ !!! আল্লাহর কি কুদরত ।
    মাছের গায়ে আল্লাহর নাম !!!! আল্লাহর
    এমন কুদরতের জন্য কয়টি লাইক ?????"

    পাবলিকের মন্তব্যঃ আল্লাহুআকবার ,
    সুবাহানাল্লাহ , মাসাল্লাহ , ধন্যবাদ
    এডমিন ।

    ====বিজ্ঞাপন===
    আপনাদের সামনে নিয়ে এলাম একটি পেজ ।
    এখানে পাবেন অমুক তমুক । প্রথম ১০০
    লাইকারকে দেওয়া হবে ৫০
    টাকা ফ্লেক্সি
    ===========
    পোস্ট- ২:

    অভাগা


    এটি একটি ছোট গল্প , বর্তমান অতীত ভবিষ্যত্‍ কনো কিছুর সাথে মিল রেখে লেখা নেই । মিল থাকলে তা কাকতালীয় ।

    ছোট্ট একটা ভাড়া বাড়িতে থাকেন নারয়ণ ঢালী ও তার স্ত্রী লক্ষী ঢালী । নারায়ণ একটা ছোট খাটো ফার্মেসী দোকান চালায় । ব্যাবসাটা ছোটখাটো হলেও ইনকাম তার কম হয় না । দুই ছেলে মেয়ে আর স্বামী স্ত্রীর
    সংসারটা চলে যায় কনো ভাবে ।

    বাজারে নারায়ণ মালু (মালাউন)
    বলে পরিচিত নারায়ণ ঢালী । মার প্যাঁচ কিছু বোঝে না সে । নিতান্তই সাদাসিদা , কেউ নাম ধরে গালি দিলেও কিছু বলে না ।
    যদি নারায়ণকে জিজ্ঞাসা করা হয় ...."তোমাকে ওরা মালু বলে ডাকে কেনো ?"
    নারায়ণের সোজাসাপটা উত্তর ..."বাংলাদেশের হিন্দুরা মালু হয় ।"

    পৃষ্ঠাসমূহ

    ফেসবুকে ইস্টিশন

    কপিরাইট © ইস্টিশন ব্লগ ® ২০১৮ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর