নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

দৃষ্টি আকর্ষণ

  • ট্রেনিংরুম ঘুরে আসুন।
  • ইস্টিশনের এন্ড্রয়েড এ্যাপ্লিকেশন ডাউনলোড করুন
  • পরিষ্কার বাংলা দেখার জন্য এখান থেকে ফন্ট ইন্সটল করে নিন।
  • অনলাইনে লেখা কনভার্ট করুন
  • ইস্টিশনের নতুন ব্যানার দেখতে না পেলে/সমস্যা হলে Ctrl+F5 চাপুন।
  • প্যাসেঞ্জার ট্রেন শিডিউল
  • আপনার ব্রাউজার থেকে ইস্টিশনব্লগের সাথে সবসময় যুক্ত থাকতে নিচের লোগোতে ক্লিক করে টুলবারটি ইন্সটল করুন।
  • ওয়েটিং রুম

    There is currently 1 user online.

    • মিঠুন বিশ্বাস

    নতুন যাত্রী

    • ফজলে রাব্বী খান
    • হূমায়ুন কবির
    • রকিব খান
    • সজল আল সানভী
    • শহীদ আহমেদ
    • মো ইকরামুজ্জামান
    • মিজান
    • সঞ্জয় চক্রবর্তী
    • ডাঃ নেইল আকাশ
    • শহিদুল নাঈম

    শিরোনামহীন


    জীবনের কোলাহল, মেঠো পথ রাজপথ
    আর হাটো জল ছোট নদী, রোদেলা প্রহর পেরিয়ে
    জোত্স্নার বন্ন্যায়, চাতকীর চেয়ে থাকা
    দিগন্তের ঊপাড়ে লালচে ঊষা।

    গণ্তব্যহীন, অজানা নেশায় কুয়াশার
    চাদর।

    লেখলাম আর পারছিনা, কেমন যেন লাগামহীন, ছন্নছাড়া, অর্থহীন আমি অর্থের খুজে,
    কে আমি কেঊ নই, ভোরের স্বপ্নের মত অজানা।

    কেবল মিছেমিছি সময় সাগরে ডুবুসাতার।

    তবু যেনো পথের নেই শেষ, অবিরাম পথচলা
    একা একা বলেচলা অনর্গল বারিধারা লোনাজল শব্দহীন,
    অনুভূতির নাম শিরোনামহীন।

    যুদ্ধাপরাধী শয়তানের বিচার ও আওয়ামীলীগ সরকার


    যুদ্ধাপরাধীদের বিচার বাংলার গণ মানুষের প্রাণের দাবী। মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় আমাদের মাতৃভূমি ও মুক্তিকামী মানুষের বিরোদ্ধে যারা ষড়যন্ত্র করেছিলো, যারা মানুষ হয়ে বাংলার স্বাধীনকামী মানুষ’দের নির্বিচারে গুলি করে হত্যা করেছিলো সেই রাজাকার, আলবদর, আলসামস্ নর পশু পাকিস্তানীদের রেখে যাওয়া কিছু জারজ সন্তান’দের বিচার আমাদের দাবী।

    অগ্নী সংযোগ আর লুটপাট করে সর্বস্ব নিয়ে গিয়েছিলো যারা তাদের বিচার...
    মা-বোন’দের সম্ব্রম নষ্ট করেছিলো যারা তাদের বিচার...
    ইসলাম রক্ষার নামে ইসলামের শান্তিকে নষ্ট করেছিলো যারা, তাদের বিচার...
    পাকিস্তানীদের সাথে আতাত করে ধ্বংস করেছিলো যারা, তাদের বিচার...

    আমরাই মানুষ


    কি জন্যে যেন সেদিন টিভিতে সি.এন.এন খুলেছিলাম। সম্ভবত খাওয়ার সময় টিভি দেখতে গিয়ে। দেখি একটা প্লেন ধুরুম করে একটা টাওয়ারের ভেতরে ঢুকে গেল, আর বিরাট আগুনের হল্কা! ভাবলাম ভাল মুভি শুরু হলো। পরে দেখি, সত্যি এবং সরাসরি সম্প্রচার হচ্ছে সেপ্টেম্বর ১১, ২০০১ এর সেই ভয়াবহ দূর্ঘটনার। এর সব ঘটনাই এখন সবার জানা। আজ বোস্টনে ২৭,০০০ প্রতিযোগির সমাগমে বোমা ফেটেছে। দুজন নিহত (শেষ খবর পর্যন্ত) এবং আহত শতাধিক। কিছুদিন আগে ফটিকছড়িতে ভয়াবহ-নোংরা হত্যাযজ্ঞ ঘটে গেল। এসব দেখে মনে হয়, মানবতার চরম অধপতন ঘটেছে।

    শুভ নববর্ষ ১৫২০


    শশুর বাপ (হবু): তা ছেলে জানি কি করে…?
    আমার বাপ : ব্লগিং
    শশুর বাপ : বাহ! ছেলে তো খুবই ভালো…আমাদের
    পছন্দ হয়েছে…তা আপনাদের
    কি দাবী দাওয়া তা যদি..……
    আমার বাপ : ছি ছি এইসব কি বলেন!আমাদের বাড়ি,গাড়ি,সোনা গয়্না কোনো কিছুই চাইনা…
    শশুর: (খুশিতে গদগদ) বাহ! যৌতুক ছাড়া বিয়ে!
    বাপ: নাহ মানে ছেলের ছোটো বেলার সপ্ন
    ইলিশ মত্স্য খাবে… আপনি যদি বিয়ের সময়
    মেয়ের সাথে একটা ইলিশ মত্স্য দিয়ে দিতেন.
    … শশুর: হায়…হায়…এটা কি বললেন…
    করি তো সামান্য মন্ত্রিগিরি ,ঘুষ খেয়ে আর কয়
    টাকা আয় হয়,যে ইলিশ মত্স্য কিনতে পারব…
    শুনছো টিয়ার মা তোমার হবু জামাই
    বলে ইলিশখোর..…

    বিষবাষ্প


    সাম্প্রদায়িকতা এবং ধর্মীয় মৌলবাদকে উস্কে দিয়ে মাহমুদুর রহমান যে অর্জন করেছেন তা এক কথায় অতুলনীয়। কি পরিমান প্রাণহানি সারাদেশে হয়েছে তা মোটামুটি সকলেই জানে। যার সাম্প্রতিকতম উদাহরন হল ফটিকছড়ি। আর হাসনাত আব্দুল হাই তার লিখাটির কল্যাণে উগ্র ধর্মীয় মৌলবাদী গোষ্ঠীর কাছে ইতিমধ্যে ব্যাপক সমাদৃত। মুক্তিযুদ্ধের চেতনার যোদ্ধাদের বিরুদ্ধে কুৎসিত অশ্লীল গল্প লিখার কারনে উগ্র ধর্মীয় মৌলবাদীরা হয়তো মাহমুদুর রহমানের মত উস্কানি পায়নি কিন্তু ব্যাপক ইরোটিক মজা পেয়েছে। যদিও প্রথম আলো এবং হাসনাত হাই এর জন্য ক্ষমা চেয়েছেন, তাতে কিছুই যায় আসে না। কিছু উৎসাহী মানুষের আনাগোনা ছাড়া শাহবাগ গণজাগরণ মঞ্চে হয়তো এখন তেম

    শরণার্থীর গল্প


    দলে দলে দেশ ছাড়ার উদ্দেশ্যে পথ চলছে মানুষ। এতো মানুষ একসাথে কখনো দেখেনি নিরঞ্জন। কাঁধে ব্যাগ নিয়ে নিরঞ্জনও অজানা উদ্দেশ্যে পাড়ি দিচ্ছে ছেলে নিতাই আর মেয়ে দুর্গাকে নিয়ে।

    স্ত্রী লক্ষ্মী আর ছেলে-মেয়ে নিয়ে ছোট্ট সংসার ছিল নিরঞ্জনের। জমিতে কাজ করে কোনরকমে দুবেলা দুমুঠো পেটে পুড়তে পারলেই খুশী ছিল ওরা। সুখেই দিন কাটছিল ওদের।

    দেশে কি হচ্ছে, কেন হচ্ছে এতো কিছু বুঝতোনা নিরঞ্জন। কিন্তু বেশ কয়েকদিন ধরে কেন যেন সবাই তাকে ভারতে চলে যেতে বলছিল। হিন্দুদের নাকি মেরে ফেলছে। কিন্তু কি করেছে হিন্দুরা?

    আর সে-ই বা কেন দেশ ছাড়বে? নিজের ভিটে মাটি ছেড়ে কেউ কোথাও যায় নাকি?

    খেলনা গাড়ি


    কোন প্ল্যান ছিলনা, সারাদিন ঘুমিয়েই কাটালাম, মনে হল সন্ধ্যায় খবরেই দেখে নিব পহেলা বৈশাখ টা কেমন হল। তারপরও কি মনে করে যেন নিচে একটু হাঁটতে বের হলাম, দেখি বাইকে তেল নেই, ভাবলাম তাহলে তেলও আনি টিএসসি থেকেও একটু ঘুরে আসা যাক। পকেটে ১০০ টাকার একটাই নোট ছিল আর কিছু খুচরো পয়সা, সেটা নিয়েই বের হলাম ।

    ফুয়েলের কাটা লাল এর ঘরে থাকলেও কিভাবে যেন টিএসসি পৌছে গেলাম, সেখানে সন্ধানীর স্টল এ অনেক জুনিওর কেও দেখলাম, একটু ভয়ে ভয়ে ছিলাম, কখন যে কোন জুনিওর বলে বসে “ভাই ... খামু” । তাহলেই হইসে। পকেট ছিল গড়ের মাঠ, খাওয়ানোর কোন উপায় নাই।

    দৃশ্যপট ফটিকছড়ি ও তার ব্যাবচ্ছেদ


    ফটিকছড়ি উপজেলার ভূজপুর থানায় ঘটে যাওয়া ঘটনা নিয়ে কিছু না লিখে থাকতে পারছি না।
    প্রথমেই বলি ভূজপুর ইউনিয়নটি হল জামায়াত শিবির নিয়ন্ত্রিত একটি এলাকা । এই অঞ্চলের অধিকাংশ জনগনই জামায়াত সমর্থক । বিগত দুটি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন এবং জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ঐ অঞ্চলের ফলাফলই যার প্রমান ।

    খোলা চিঠিঃ বৃহত্তর জামায়াতে ইসলামীর বিএনপি শাখার মহিলা আমীর আল্লামা খালেদা জিয়ার প্রতি।


    :মনখারাপ: :মনখারাপ: মা'রে,
    মা আমার। কেমন আছেন মা? আশা করি মহান আল্লাহ পাকের ইচ্ছায় আর এই অধম নাখান্দার দোয়ায় সহি সালামতে হেফাজতেই আছেন। আমরাও ভালই আছি মা। ভাল না থাকিয়া উপায় কি বলেন? জন্ম সুত্রে আমি মুসলমান, আমার ধর্মের নাম ইসলাম। মহান রাব্বুল আলামীন তাঁর মনোনীত শ্রেষ্ঠ ধর্ম এই ইসলামের হেফাজতের কাজ আল্লামা শাহ আহমদ সফী ছাহেবকে ইজারা দিয়াছেন। সফী ছাহেব পাইক পেয়াদা, দাসী গোলাম, দাতা ত্রাতাদের লইয়া বহাল তবিয়তে তাঁহার উপর অর্পিত দায়িত্ত্ব পুরোপুরি ভাবেই পালন করিয়া চলিতেছেন, ফলে আমাদের ধর্ম ইসলামের হেফাজত হইতেছে। ইসলাম ধর্ম যেহুতু আমাদের পৈতৃক সম্পত্তি তাই উহার এই ক্রান্তি লগ্নে উহার রজ্জু শক্ত করিয়া ধরিয়া এই অধম নাখান্দা আমরাও আল্লামা সফী ছাহেবের হেফাজতের সামিয়ানা তলে স্থান পাইতেছি।

    পৃষ্ঠাসমূহ

    কু ঝিক ঝিক

    ফেসবুকে ইস্টিশন

    কপিরাইট © ইস্টিশন ব্লগ ® ২০১৮ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর