নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

দৃষ্টি আকর্ষণ

  • ট্রেনিংরুম ঘুরে আসুন।
  • ইস্টিশনের এন্ড্রয়েড এ্যাপ্লিকেশন ডাউনলোড করুন
  • পরিষ্কার বাংলা দেখার জন্য এখান থেকে ফন্ট ইন্সটল করে নিন।
  • অনলাইনে লেখা কনভার্ট করুন
  • ইস্টিশনের নতুন ব্যানার দেখতে না পেলে/সমস্যা হলে Ctrl+F5 চাপুন।
  • প্যাসেঞ্জার ট্রেন শিডিউল
  • আপনার ব্রাউজার থেকে ইস্টিশনব্লগের সাথে সবসময় যুক্ত থাকতে নিচের লোগোতে ক্লিক করে টুলবারটি ইন্সটল করুন।
  • ওয়েটিং রুম

    এখন 5 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

    • শাম্মী হক
    • সলিম সাহা
    • নুর নবী দুলাল
    • মারুফুর রহমান খান
    • রাজর্ষি ব্যনার্জী

    নতুন যাত্রী

    • চয়ন অর্কিড
    • ফজলে রাব্বী খান
    • হূমায়ুন কবির
    • রকিব খান
    • সজল আল সানভী
    • শহীদ আহমেদ
    • মো ইকরামুজ্জামান
    • মিজান
    • সঞ্জয় চক্রবর্তী
    • ডাঃ নেইল আকাশ

    বৈশাখ


    সেকুলারিজম, ইসলাম – এদিকে বাংলা বিভক্ত
    মাঝ খানে সেই তুমি –রক্তক্ষরণের হিসাবে ব্যস্ত কেরানি ,
    যে হিসাব কোন দিনও মেলাতে পারনি ,
    বলতে পারনি কাউকে-কোনদিকে হোল কত ।
    কই কখনও তো এমন ছিলে নাতো তুমি ?

    যুগে যুগে এসেছিলে নিয়ে রুদ্র মূর্তি
    বজ্র কণ্ঠে ধ্বনিত হত আকাশ-বাতাস ,
    খরদীপ্ত মধ্যাহ্নে ভরে যেত রাজপথ,
    ভূবন কাঁপানো শ্লোগান- হুঙ্কার –রক্তে লেখা হত কীর্তি ।

    সেদিনও এসেছিলে আজও এসেছ রুদ্র বৈশাখ-
    আজ তোমার রূপ ফ্যাঁকাসে জীর্ণ মলিন ,
    হতে পারতে মহাপ্রলয় কিংবা সর্বনাশী ভাঙ্গন,
    থরথর কম্পনে এলোমেলো দিশেহারা হতো শোষক ।

    সুখস্বপ্নে ব্যস্ত তুমি-ব্যস্ত তোমার বটমূল

    ইচ্ছে থাকলেও উপায় নাই, বর্ষবরণ উৎসব উৎযাপন করা


    একটু ভেবে দেখেছেন কি?? প্রায় প্রত্যেক বছর অনেক ইচ্ছা থাকা সত্ত্বেও বাংলাদেশের বাঙ্গালীর একটি বড় মাপের অংশ বাংলা বর্ষবরণ উৎসব উৎযাপন করতে পারেনা।

    আগে বছরের এই সময় এস.এস.সি পরীক্ষা চলত। তখন এস.এস.সি পরীক্ষার্থীরা এই উৎসব উৎযাপন করতে পারতনা। এই বছর সহ বিগত কয়েক বছর যাবৎ বছরের এইসময় এইচ.এস.সি পরীক্ষা হচ্ছে, ফলে কয়েক লক্ষ্য বাঙ্গালী এই উৎসব উৎযাপন করতে পারেনা।

    সরকার একটু খেয়াল রাখলেই হয়ত এরাও উৎসব উৎযাপনকারীদের সাথে একাত্ত হয়ে বাংলা বছরকে বরণ করতে পারত। কিন্তু প্রতি বছর একি ব্যপার ঘটলেও কেও কি তা লক্ষ্য করছে?? নাহ করছে না !!! করলে তো এমন হতো না বা এটা নিয়ে কথা শুনতাম। তাই আমি বলব করছেনা।

    জ়াগ্রত বাংলা


    আবার জেগেছে বাংলার দামাল ছেলে
    বুকে নিয়ে প্রত্যয়,
    করবে করবে বাংলার জয়।

    তারা জেগেছে,
    বাংলার স্বপ্ন নিয়ে
    তারা জেগেছে ,
    বাংলাকে আশা দিয়ে
    করবে করবে বাংলার জয়।

    মদীনা সনদ কেন রাষ্ট্রীয় গঠনতন্ত্র নয়।


    মদীনা সনদ কেন রাষ্ট্রীয় গঠনতন্ত্র নয়।

    হাদিছ সমূহ নবিজীর ইন্তেকালের প্রায় ২০০ বৎসর পর হতে সংগৃহীত হয়। ইতিমধ্যে নিজেদের দলীয় স্বার্থ রক্ষায় নবিজীর নাম দিয়ে অসংখ্য জাল হাদিছ সৃষ্টিকারীর উদ্ভব হয়েছিল। এরা এসেছিল শিয়া খারিজী,মুতাজিলা ইত্যাদি দল হতে। একারনে বর্তমান হাদিছের কিতাব গুলীতে রসুলের নামে অনেক অসামাজিক, ও অবৈজ্ঞানিক হাদিছ পাওয়া যায়। এই সমস্ত জাল হাদিছ দ্বারা পক্ষান্তরে নবিজীকেই নিন্দিত করা হয়। এ বিষয়ে আমাদের সতর্ক হওয়ার প্রয়োজন আছে।

    হাসান মাহমুদের নীচের নিবন্ধটিতে এর কিঞ্চিত বর্ণনা পাওয়া যাবে।

    কপিকৃত

    "মৃত্যুকুপ"


    আজ আমি হেটে যাচ্ছি চলে
    অচেনা কোন এক নতুন পথে
    যে পথ গেছে চলে
    দিক সীমানা না নিয়ে বহুদুরে।

    নিঃস্ব এক মন নিয়ে
    পথের দিক সীমানা না জেনে,
    কোন যে এক সরল পথে
    হেটে যাচ্ছি বহুদুরে।

    কষ্ট!


    বালিকার কষ্টগুলো কখনও মুখে বলেনি আমাকে
    গভীর রাতে আমার ঘরে এসে যখন গল্প করতে চাইত,
    কষ্টগুলো তখনই বোধহয় খুব ছটফট করাত বালিকাকে।
    ঈদের জামাটিতে নিজের মত করে ফুল আকত যখন,
    মাঝে মাঝে চায়ে চিনি না দিয়েই যখন খেত
    আবার বাড়ির কোণের ঝলমলে বেলী ফুলের গাছটির দিকে
    যখন শূণ্য চোখে তাকাতো, কষ্টগুলো হয়ত
    তখনই আছড়ে-পিছড়ে মারত বালিকাকে।

    যুক্ত হলো ইস্টিশনব্লগের এন্ড্রয়েড ভার্সন


    এন্ড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেম চালিত স্মার্ট ফোনের ব্যবহার এখন ব্যাপকহারে বেড়েছে। ব্যবহারকারীকে বিভিন্ন সুবিধা প্রদানের মাধ্যমে এই স্মার্ট ফোনগুলো এখন তরুন প্রজন্মের হাতে হাতে। বিশেষ করে কিছু ফোন কোম্পানি স্বল্প দামে বাজারে এন্ড্রয়েড মোবাইল ফোন সেট ছাড়ার পর থেকেই এর ব্যবহার আমাদের দেশে ব্যাপক হারে বৃদ্ধি পেয়েছে। শুরুতে মোবাইল ফোনের জন্য হলেও এখন এন্ড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেমে চলছে নেটবুক, ট্যাবলেট ও গুগল টিভি।

    ঝরনার হাসিরা


    আবছা আলো,ছায়াময় ঘর,মেঝের আয়নায় অতৃপ্ত
    চোখ দুটো খুঁজ়ে বেড়াচ্ছে বহু অভাবের স্বাপ্নিক স্বাক্ষী
    অনিদ্রার পোকাদের দীর্ঘদিনের বাসস্থান এখানে
    নিস্তেজ মন, বিষাদ স্মৃতির মুহুর্তগুলো...........
    কপালের কালো টিপ, গোছানো চুল নাচিয়ে
    তোমার ঝরনার পরিস্কার হাসিরা গাল বেয়ে ঝরছে

    ৬০ লাখ মরিয়া হাতের সামনে হেফাজতকে হেফাজত করবে কে!


    একটা কথা খুব সাধারন মানুষরাও এখন বুঝে। সেটা হল বাংলাদেশ বেঁচে আছে মুলত তিনটা বড় অর্থনৈতিক খুঁটির উপর। কৃষি, রেমিটেন্স আর গার্মেন্টস। এর মধ্যে কোন একটি খুঁটি নড়বড়ে হলে দেশ যে গর্তে পড়বে তা থেকে আর উঠতে পারবেনা। গত কয়েকমাসে দেশে যে পরিমান হরতাল আর রাজনৈতিক সহিংসতা হয়েছে তাতে নানান ভাবে এই তিনটই ক্ষতিগ্রস্ত। খুব বাস্তব কারনে গার্মেন্টস সেক্টর সবচেয়ে বেশী ক্ষতিগ্রস্ত খাত। এক অবিচ্ছেদ্য শেকলে আটকা পুরা মালিক শ্রমিক এবং এর সাথে সম্পর্কিত অন্য আরও শত শত ব্যাবসা প্রতিষ্ঠান।

    পৃষ্ঠাসমূহ

    ফেসবুকে ইস্টিশন

    কপিরাইট © ইস্টিশন ব্লগ ® ২০১৮ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর