নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

দৃষ্টি আকর্ষণ

  • ট্রেনিংরুম ঘুরে আসুন।
  • ইস্টিশনের এন্ড্রয়েড এ্যাপ্লিকেশন ডাউনলোড করুন
  • পরিষ্কার বাংলা দেখার জন্য এখান থেকে ফন্ট ইন্সটল করে নিন।
  • অনলাইনে লেখা কনভার্ট করুন
  • ইস্টিশনের নতুন ব্যানার দেখতে না পেলে/সমস্যা হলে Ctrl+F5 চাপুন।
  • প্যাসেঞ্জার ট্রেন শিডিউল
  • আপনার ব্রাউজার থেকে ইস্টিশনব্লগের সাথে সবসময় যুক্ত থাকতে নিচের লোগোতে ক্লিক করে টুলবারটি ইন্সটল করুন।
  • ওয়েটিং রুম

    এখন 4 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

    • কাঠমোল্লা
    • সাতাল
    • সৈকত সমুদ্র
    • মৃত কালপুরুষ

    নতুন যাত্রী

    • সুমন মুরমু
    • জোসেফ হ্যারিসন
    • সাতাল
    • যাযাবর বুর্জোয়া
    • মিঠুন সিকদার শুভম
    • এম এম এইচ ভূঁইয়া
    • খাঁচা বন্দি পাখি
    • প্রসেনজিৎ কোনার
    • পৃথিবীর নাগরিক
    • এস এম এইচ রহমান

    নো ল্যান্ডস ফর দ্য ব্লগারস...


    সাম্প্রতিক সময়ে ব্লগার শব্দটি মনে হয় আমাদের দেশে সবচেয়ে আলোচিত। ব্লগারদের ডাকা কাদের মোল্লার ফাঁসির দাবির আন্দোলন গণজাগরণে পরিণত হয়েছে। একজন ব্লগারের জীবন কেড়ে নিয়েছে খুনী জামাত শিবির চক্র। এরই প্রেক্ষিতে উঠে এসেছে ব্লগারদের নিরাপত্তার প্রশ্নটি। সরকার বিষয়টি একেবারে এড়িয়ে যায়নি। তবে যে ধরনের লোকজনকে নিরাপত্তা দেয়ার কথা হচ্ছে তারা কেউ আদতে ব্লগারই না। একজন প্রকৃত ব্লগারকে কি আসলে কেউ নিরাপত্তা দিতে পারে?

    রাজিবের পর শান্তঃআর কত লাশ চাই?


    রাজিবের পর চলে গেলেন শান্ত। প্রজন্ম চত্বরে গণজাগরণের আন্দোলন চলছে প্রায় দুই সপ্তাহ ধরে। অভূতপূর্ব এই আন্দোলন

    ভাষার মাসে ফেসবুক আইডি বাংলা করার আহবান


    ফেব্রুয়ারী মাস বাঙালীর জন্য একটি ঐতিহ্যবাহী মাস। দাবী আদায়ের মাস, প্রতিবাদের মাস। আর্ন্তজাতিকভাবে বাঙালীর বুক টান করে, মাথা উচু করে গর্বের সাথে নিঃশ্বাস নেওয়ার মাস। ১৯৫২ সালের ২১শে ফেব্রুয়ারী মাতৃভাষার দাবী প্রতিষ্ঠার জন্য বুকের রক্ত ঢেলে দিয়ে বাঙালী যে ইতিহাস সৃষ্টি করেছে, সমগ্র বিশ্ব শ্রদ্ধার সাথে সেই ইতিহাস স্মরণ করে এই মাসের ২১শে ফেব্রুয়ারীতে 'আর্ন্তজাতিক মাতৃভাষা দিবস' পালনের মধ্য দিয়ে। বিশ্ববাসী এই দিনে শ্রদ্ধার সাথে বাঙালী জাতির এই অমর ইতিহাস নিয়ে মাতম তুলে। আমাদের শহীদ মিনার হয়ে উঠে বিশ্বের সকল জাতির শ্রদ্ধা জানানোর কেন্দ্র বিন্দু হিসাবে।। বাঙালী জাতি হিসাবে আমাদের কি কোন দায়িত্ব নে

    কাদের সিদ্দীকি ও আপনার নষ্ট মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতি


    চলমান দুইহাজার তেরোয় আমি ঊনিশ বছরের এক নিতান্ত মধ্যবিত্ত তরুণ হিসেবে আপনাদের কাছে জানতে চাই যে, আপনারা ঠিক কতগুলো কাগজের নোটের বিনিময়ে সেই মাকে বিকিয়ে দিলেন যে মাকে একাত্তরে বাঁচাবার জন্যে জীবনের মূল্যকে তুচ্ছ করে নয় নয়টি মাসের অবিস্মরণীয় যুদ্ধে অবতীর্ণ হয়েছিলেন ?

    কী সেই যক্ষের ধন, কোথায় সে মধুবন, যার লোভে নিজের বোনের সম্ভ্রম হরণকারীদের সাথে হাত মিলিয়েছেন ? কীভাবে সম্ভব হল ? কয় গ্লাস মদের বিনিময়ে আপনারা নিজের বোনের, নিজের মায়ের ক্ষতবিক্ষত লাশের ছবি ভুলে গেলেন? কী সেই মদের নাম ?

    কতিপয় অনুভুতির পোষ্টমোর্টেম


    আমাদের মানুষদের ভেতরটা একেকটা অনুভূতির বস্তা।আমাদের একেকজনের ভেতরটা যে কত শত অনুভূতিতে ভরপুর তার কোন ইয়াত্তা নাই। প্রত্যেকটা অনুভূতি আমাদের ভেতরে গাদাগাদি করে বাস করে,করতে হয়।তাদের একটা আবার আরেকটার সাথে ভয়ংকর রকম ভাবে সাংঘর্ষিক।তবু তারা সহ-অবস্থান বজায় রেখে চলেছে,চলতে হয়। ছোটবেলা থেকেই শুনে এসেছি 'প্রান থাকলেই প্রানী হয়,কিন্তু মন না থাকলে মানুষ হয় না।' ইদানীং এইটা সত্য মনে হয় না।উদ্ভিদের প্রান থাকা সত্তেও তারা প্রানী নয়,আবার অনুভূতিহীন সকলেই মানুষ হতে পারে না।বরং ব্যাপারটা এমনভাবে বলা যায় 'প্রান থাকলেই জীব হয়,কিন্তু অনুভূতি না থাকলে মানুষ হয় না।' আসেন আজকে কিছু বিভিন্ন ধরনের অন

    ব্লগে ভেকধারী রাজাকার


    ব্লগে দেখি ভেকধারী জামাতের আনাগোনা। কারন জামাত শিবির যা করতাছে আমাদের কিছু জামাত বিরোধী ব্লগাররা অনেকটা তাই করছে। নিজেদের মহা পণ্ডিত জ্ঞানে আন্দোলন কে ভিন্ন খাতে বয়ে আপ্রান চেষ্টা করছে। এদের মনে রাখা উচিত, জামাত হইতে গেলে মেধা বা জ্ঞানের দরকার নাই। কৃতঘ্ন হইলেই চলে।
    জামাত-শিবির ব্লগারদের মধ্যে যে একতা আছে তা জামাত বিরোধী ব্লগারদের মাঝে নেই। জামাতিদের লক্ষ্য এক, ওদের রাজাকার নেতাদের নিষ্পাপ প্রমাণ করার জন্য নেয়া যে কোন পদক্ষেপে এক থাকা। সেখানে কে হাইলাইটেড হইল, কে হইল না, কে প্রচার বেশি পাইলো কে পাইলো না এইগুলা নিয়া ফালতু ক্যাচালে নেই।

    অহিংস আন্দোলনে ভীত জামাত।


    ইতিহাস কথা বলে। শহীদ জাফর মুন্সী আর ব্লগার-স্থপতি শহীদ রাজীবের হত্যার ধরণে ১৯৭১ সালে মুক্তি যুদ্ধকালীন রাজাকার,আল বদর ও আল শামসের ও পাকিস্তানী সমার্থকদের সুপষ্ট ছাপ পাওয়া যায়। ১৯৭১ থেকে ২০১৩ মাঝখানে পার হয়ে গেছে ৪২টি বছর। যুগের সাথে বদলে গেছে অনেক কিছু, বসনভূষণ, চাল চলন, আধুনিক জীবনযাত্রা, মেশিন-পত্র, এসেছে কমপিউটার,ল্যাপটপ, নোট বুক, আই ফোন, এন্ড্রয়েড ফোন, চালকবিহীন গাড়ি, সেই সাথে এসেছে নতুন নতুন মারণাস্ত্র, জীবানুস্ত্র। প্রতি দিন একটা কে পিছনে ফেলে আবিষ্কার হচ্ছে আরেকটি ।

    আন্দোলনের স্বার্থে যে সব কাজ থেকে বিরত থাকি।


    আপনি কি লিখবেন, কি পড়বেন, কি শেয়ার দিবেন,কি মন্তব্য করবেন সেটা আপনার স্বাধীনতা আছে। এই নিয়ে আমি যেমন কারো কথা শুনতে বাধ্য নই। আপনিও বাধ্য নন। কিন্তু এই আন্দোলনের বিষয় চিন্তা করে আমিও অনেক বিষয়ে চুপ থাকি। অনেক বিষয়ে সতর্ক থাকি। অনেক বিষয়ে ঢোল পিটাই। আমি কেন করি, সেটাই বলতে চাই। আপনার পছন্দ হলে করবে না হলে করবে না।

    ব্যাংক, কোচিং সেন্টার, চিকিৎসকদের টাকায় চলছে শিবিরের কর্মকাণ্ড


    ছাত্রশিবিরের সাম্প্রতিক কর্মকাণ্ড পরিচালনায় অর্থের যোগান দিচ্ছে নামে-বেনামে তাদের পরিচালিত বিভিন্ন কোচিং সেন্টার, জামায়াত নেতাদের মালিকানাধীন ইসলামি ব্যাংক এবং দেশের বিভিন্ন মেডিক্যাল কলেজের শিক্ষানবিশ চিকিৎসকরা। অনুদান হিসেবে দেয়া এসব টাকা ছাত্রশিবিরের বিভিন্ন শাখা-সংগঠনের নামে ব্যাংকে জমা হওয়ার পর তা চলে যাচ্ছে দেশের বিভিন্ন স্থানে।

    শিবিরীয় অপপ্রচার, আস্তিক-নাস্তিক প্রশ্ন এবং সাধারণ মানুষ


    সাধারণ মানুষ অন্যকে খুব সহজেই বিশ্বাস করতে পছন্দ করে। আর এই বিশ্বাসকে টার্গেট করেই অনলাইন মাঠে নেমেছে জামায়াত শিবির। জামাত শিবির পরিচালিত ফেসবুকভিত্তিক কিছু পেজের অপপ্রচারকে আমলে নিয়ে রাজীব হায়দারের বিচার প্রশ্নে আজ বিভক্ত একদল মানুষ। কিছু পেজ আছে যেগুলো এতদিন অর্ধনগ্ন নারীর ছবি ও সেক্সুয়াল জোকস শেয়ার করত তারা আজ ধর্মীয় অনুভুতিতে আঘাত হানার খবর প্রচার করছে। সেইসব পেজের সুক্ষ অপপ্রচারনার পেছনের কারন ধরতে না পেরে শুধুমাত্র ধর্মীয় অনুভুতির কথা ভেবে ধুমাইয়া শেয়ার করছে। বুঝতেও পারছে না, আড়ালে মুখ লুকিয়ে দাঁত কেলিয়ে হাসছে শিবিরের কুপমুন্ডুকরা।

    পৃষ্ঠাসমূহ

    কু ঝিক ঝিক

    ফেসবুকে ইস্টিশন

    SSL Certificate
    কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর