নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

দৃষ্টি আকর্ষণ

  • ট্রেনিংরুম ঘুরে আসুন।
  • ইস্টিশনের এন্ড্রয়েড এ্যাপ্লিকেশন ডাউনলোড করুন
  • পরিষ্কার বাংলা দেখার জন্য এখান থেকে ফন্ট ইন্সটল করে নিন।
  • অনলাইনে লেখা কনভার্ট করুন
  • ইস্টিশনের নতুন ব্যানার দেখতে না পেলে/সমস্যা হলে Ctrl+F5 চাপুন।
  • প্যাসেঞ্জার ট্রেন শিডিউল
  • আপনার ব্রাউজার থেকে ইস্টিশনব্লগের সাথে সবসময় যুক্ত থাকতে নিচের লোগোতে ক্লিক করে টুলবারটি ইন্সটল করুন।
  • ওয়েটিং রুম

    এখন 4 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

    • কাঠমোল্লা
    • মিঠুন বিশ্বাস
    • মারুফুর রহমান খান
    • দ্বিতীয়নাম

    নতুন যাত্রী

    • চয়ন অর্কিড
    • ফজলে রাব্বী খান
    • হূমায়ুন কবির
    • রকিব খান
    • সজল আল সানভী
    • শহীদ আহমেদ
    • মো ইকরামুজ্জামান
    • মিজান
    • সঞ্জয় চক্রবর্তী
    • ডাঃ নেইল আকাশ

    আম্মু


    ২০০৯ সাল, তখন সবেমাত্র কলেজে উঠেছি । স্কুল শেষ হওয়ার পরেই প্রত্যেকটা উঠতি বয়সের ছেলেরা যেমন নিজেকে খুব বড় এবং জ্ঞানী মনে করে, আমিও তাদের দলে ছিলাম, অথবা তাদের চেয়ে এক ডিগ্রী উপরে । দুষ্টামির সীমা থেকে একটু বেশি আর বেয়াদবির সীমা থেকে অনেক বেশি । বয়সটাই তখন বেপরোয়া, বাধাহীন । যাই হোক, মূল কথায় আসি । কিছু ঘটনা বলবো আমার, মনোযোগ দিয়ে পড়বেন আশা করিঃ

    ঘটনা-একঃ
    আম্মুঃ উফফ !! এত্ত রোগী আসে, দেখতে দেখতে পাগল হয়ে যাচ্ছি । ঘর থেকে বের হতেই আর ভাল্লাগে না ।
    আমিঃ তাইলে এক কাজ কর, বাসার নিচে একটা চেম্বার খুলে দেই, ওইখানে প্র্যাকটিস কর ।

    ভালোবাসি মা তোমায় অনেক অনেক...


    ছোট বেলা যখন ১২০ মাত্রায় জ্বর উঠত তখন আমার পাশে বসে একজনি রাত ভোর সেবা করতো আর তিনি আমার মা।আমি দুষ্টামি করলে হয়তো তিনি আমাকে শাসন করতেন ঠিকি কথিন ভাবে বকা দিতেন বা মাঝে মাঝে মারতেনও।কিন্তু,রাতে যখন ঘুমাই তখন আবার ঐ আমার মা আমার মাথায় হাত বুলায় ঘুম পারাতেন।এখন আমি প্রায় ২০ বছরের যুবক অনেক

    মা দিবসে 'শুভ জন্মদিন, মা!'


    পুরো পৃথিবীতে মাত্র একজন মানুষ একটি তরুণীর মনের গভীরে লুকিয়ে থাকা ছোট ছোট অনুভুতিগুলো টের পায়- সেই ব্যক্তিটি হলো মা। নিজেকে খুব আশীর্বাদপুষ্ট মনে হয় আমার মা'কে এখনও সবসময় পাশে পাই বলে। যেসব মায়েরা আজ আকাশের তারা হয়ে জ্বলছেন তাঁদের প্রতি বিশেষ শ্রদ্ধাসহ পৃথিবীর সব মা'কে জানাই অনেক অনেক শুভেচ্ছা।

    কাকতালীয়ভাবে আমার মায়ের আজ জন্মদিনও বটে! আসুন আজ মাকে চিৎকার করে বলি,

    তোমাকে ভালোবাসি মা- সেই ভালোবাসা যে ভালোবাসা কোনোদিন কারও সাথে ভুলেও প্রতারণা করে না!

    আমার ছেলেবেলা অথবা সোনালীবেলা, আর আমার মা


    ছোটবেলা অকাম-কুকাম করার পর মা আমাকে যেইসব শাস্তি দিতেন, তাঁর মধ্যে প্রধান শাস্তি হলো কান ধরে টেনে আমাকে একহাত উপরে তুলে ফেলার চেষ্টা আর পিঠের ওপর ধুরুম-ধারুম কিল। নাওয়া নাই খাওয়া নাই, সারাদিন ঘুড়ি আর লাটিম নিয়ে সারা গ্রাম ছুটে বেড়ানো, তারপর সন্ধ্যায় বাড়িতে ফেরা, এইটা ছিলো আমার সাপ্তাহিক অভ্যাস। মানে প্রতি সপ্তাহে অন্তত একবার, একদিনের জন্য হলেও উধাও হয়ে যেতাম আমার ঘুড়ি অথবা লাটিমকে সঙ্গে নিয়ে। তারপর, সন্ধ্যায় লাফাতে লাফাতে বাড়িতে ফিরতাম। মা কিছু বলার আগেই হাত-পা ধুয়ে ঘরের মেঝেতে মাদুর বিছিয়ে ভদ্র ছেলের মতো পড়তে বসে যেতাম। মা মাগরিবের নামাজ পড়ার পর আমার হাত ধরে টেনে আবারও টিইবওয়েলে নিয়ে যেতেন

    ইসলাম রক্ষার আন্দোলন বাস্তবে কতটুকু ইসলাম সম্মত?


    রাজনীতিতে ধর্মের ব্যবহার, প্রকৃত পক্ষে রাজনীতিকে কলুষিত করে নাকি ধর্মকেই কলুষিত করে আজ অবদি কোন গবেষনালব্দ বিশ্লেষন কেউ করেছে কিনা জানি না, তবে এটুকু বলতে পারি এই দুটির(ধর্ম এবং রাজনীতি) সংমিশ্রন বাস্তবে দুটোকেই কলুষিত করে এবং করবে ।বাংলাদেশে নিবন্ধিত ও অনিবন্ধিত অনেকগুলি ধর্মীয় রাজনৈতিক দল রয়েছে ।এসব দলগুলো কোন কোনটি স্বতন্ত্রভাবে থাকলেও বেশিরভাগ দলই ক্ষমতার লিপ্সায় বড় দুটি রাজনৈতিক দলের সাথে জোট বেধে নিজেদের রাজনৈতিক কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে ।এসব রাজনৈতিক দলের বাহিরেও রয়েছে অনেকগুলো অরাজনৈতিক ধর্মীয় সঃগঠন ।এসব অরাজনৈতিক সংগঠন আবার ক্ষেত্রবিশেষে আদর্শিক মিলে হোক অথবা নিজ স্বার্থেই হোক ধর্মী

    ব্লগার


    ব্লগারদের ফাঁসি চাই !!!
    ব্লগারদের মুক্তি চাই !!!

    ব্লগার কি ভাই?
    নাম নাই?
    শুভ এর তো নাম আছে তাইনা। কইতে পারেন না শুভ এর মুক্তি চাই?

    তারা যেমন রাজনৈতিক উদ্দেশ্য চরিতার্থ করার জন্যে ব্লগার নামক একটা আলাদা জাতি বানাইছে, তেমনি আপনারাও ব্লগারদের মুক্তি চাই বইলা নিজেদের আইসোলেটেড করছেন। দেশের মানুষ বুঝছে ব্লগ মানেই নিষিদ্ধ কিছু।

    দিকে দিকে শুধু পাতানো খেলা!


    দিকে দিকে শুধু পাতানো খেলার অভিযোগ;
    গতকাল জানলাম বাংলাদেশের হীনতম পাতানো খেলার অভিযোগ আর তা হল, সাভার ট্র্যাজেডির রানা প্লাজা থেকে রেশমা নামক মেয়েটির উদ্ধার সরকারের সাজানো নাটক অর্থাৎ তা ছিল একটা সাজানো ৫০ মিনিটের স্বল্পদৈর্ঘ নাটক!

    এইবার দেখি আরও কিছু রাজনৈতিক নাটকের অভিযোগঃ
    ১) দক্ষিন আফ্রিকা থেকে মহাত্মা গান্ধীর ভারত বর্ষে আগমন একটা নাটকের অংশ...
    ২) মহাত্মা-গান্ধী আর জিন্নাহর দন্ধ ব্রিটিশদের পাতানো খেলা...
    ৩) ১৯৭১ এর স্বাধীনতা আর বঙ্গবন্ধু হচ্ছে রাশিয়া-ভারতের নাটক...
    ৪) স্বপরিবারে বঙ্গবন্ধু হত্যাও সমাজতান্ত্রিক বিশ্বের বলয় থেকে বাংলাদেশকে সরানোর নাটক...

    সব স্বাধীনের দেশ


    আমাদের রক্তে মননে সবচাইতে বেশি যে শব্দটি জড়িয়ে আছে তা হল স্বাধীনতা। আমরা স্বাধীন। সব স্বাধীনতা ভোগ করি বা করতে চাই। কিন্তু সব স্বাধীনতা নেয়ার মত যোগ্যতা কি আমাদের আছে?

    আমি’ই স্বাধীন জাতি


    আমি’ই স্বাধীন জাতি
    রকিব সিকদার

    কত হোঁচট খেয়েও বেঁচে আছি, দেখছনা তুমি মা,
    রাতের পরেও দিন কেটে যায়, মুচ্ছেনা তো ঘা।
    দেয়াল ভরা দীর্ঘশ্বাস, রুক্ষ হতাশা,
    স্বপ্ন আমার নেই তেমন আর, নষ্ট ভালবাসা।

    দিন কেটে যায় রাত কালো হয়, রক্তে মাখা পথ,
    হাসি মুখে’ই স্বপ্ন গড়াই নেই তো দ্বিধা মত।

    কত রাজ্য পাশে লাশ হয়েরই, দেখছ না তুমি মা,
    দেহের মাঝে পচন ধরা, বাঁচব কি আর না।
    সূর্য ওঠে চন্দ্র আসে, কাটছে’না আঁধার,
    নষ্ট হয়ে মরছি তবু নেই কেহ বলার।

    সময় পেরোয় সময় আসে, অতীত ভোলা মন,
    বর্তমানেই স্বর্গ সবার, অর্থে আছে পূরণ।

    কত নষ্টামিতে ভরছি মাগো, দেখার নেই কেহ,

    ফেনিল এই রাত্রিপ্রহর


    ক্রমাগত শুনতে থাকা মায়াকান্না
    কিংবা বয়সের ভিতর লুকিয়ে থাকা সব শীতকাল -
    তটে আছড়ে পড়া পৌরাণিক ঢেউ
    বায়বীয় নৈঃশব্দ্য আজ পুনরায় জমাট বাধে।
    যে নৌকাটি ভেড়ানো ছিল ঘাটে
    তা এলোমেলো প্রলয়ে বিদীর্ণ হয়ে গেছে,
    শরীর ঘিরে উড়ছে অজস্র কালো পোকা
    ক্ষুদ্র মস্তিষ্ক আটকে পড়েছে ভয়ে।

    যাপিত রাতগুলো এক ঝটকায় তুলে আনি
    আর খুজিঁ, হন্যে হয়ে খুজিঁ নিদ্রারহস্য।
    সকাল, বিকেল আর সন্ধ্যাগুলো -
    আমাকে নিয়ে নিরন্তর পরিহাসে লিপ্ত।
    কেননা সময়ের বাইরে দাড়িয়ে আমি
    রুটিন মাফিক রাত্রি হাতড়াই।

    পৃষ্ঠাসমূহ

    ফেসবুকে ইস্টিশন

    কপিরাইট © ইস্টিশন ব্লগ ® ২০১৮ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর