নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

দৃষ্টি আকর্ষণ

  • ট্রেনিংরুম ঘুরে আসুন।
  • ইস্টিশনের এন্ড্রয়েড এ্যাপ্লিকেশন ডাউনলোড করুন
  • পরিষ্কার বাংলা দেখার জন্য এখান থেকে ফন্ট ইন্সটল করে নিন।
  • অনলাইনে লেখা কনভার্ট করুন
  • ইস্টিশনের নতুন ব্যানার দেখতে না পেলে/সমস্যা হলে Ctrl+F5 চাপুন।
  • প্যাসেঞ্জার ট্রেন শিডিউল
  • আপনার ব্রাউজার থেকে ইস্টিশনব্লগের সাথে সবসময় যুক্ত থাকতে নিচের লোগোতে ক্লিক করে টুলবারটি ইন্সটল করুন।
  • ওয়েটিং রুম

    এখন 6 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

    • সরকার আশেক মাহমুদ
    • নুর নবী দুলাল
    • শাম্মী হক
    • মারুফুর রহমান খান
    • মিশু মিলন
    • মাহের ইসলাম

    নতুন যাত্রী

    • চয়ন অর্কিড
    • ফজলে রাব্বী খান
    • হূমায়ুন কবির
    • রকিব খান
    • সজল আল সানভী
    • শহীদ আহমেদ
    • মো ইকরামুজ্জামান
    • মিজান
    • সঞ্জয় চক্রবর্তী
    • ডাঃ নেইল আকাশ

    অমাবস্যার রাতে এগিয়ে চলা


    - অমিত, তুমি তো বাক্য রচনা করা শিখে গেছ। আজকে একটা মজার লেখা লিখতে দিব।
    - কি লেখা?
    - আজকে তুমি বাবা-মাকে নিয়ে লিখবে। তোমার যা লিখতে ইচ্ছে করবে লিখবে।
    - কি লিখব?
    - যা ইচ্ছা। বাবা-মার কি নাম, কি করে, কোথায় কোথায় ঘুরেছ বাবা-মার সাথে, বাবা কখন আদর করে, কখন বকা দেয়, মা কখন আদর করে, মা রাতে কি কি গল্প শোনায়, জন্মদিনে মা-বাবা কি গিফট দেয় আর যা যা মনে পরে সবই লিখবে। তুমি ঠিকমত লিখতে পার কিনা সেটা দেখব। সুন্দরভাবে লিখতে পারলে কালকে চকলেট দিব।
    আমিত ভাবতে থাকে। চার-পাঁচ মিনিট খাতা-পেন্সিল হাতে ভাবতে থাকে কি লিখবে।
    - অমিত, তুমি কিছু লিখছ না কিন্তু।
    - পারি না আপু।

    "পারফিউম - দ্যা স্টোরি অফ আ মার্ডারার" বাংলা ভার্সন।।


    "পারফিউম - দ্যা স্টোরি অফ আ মার্ডারার" মুভিটা কে কে দেখেছেন ? অসাধারণ এক ছবি। ২০০৬ সালে মুক্তি পাওয়া এই ছবিটি একটি রেকর্ড করেছিলো। সেটি হচ্ছেঃ একই মুভিতে একসাথে সর্বোচ্চ সংখ্যক মানুষকে নগ্ন দেখানো। ছবিটির লাস্ট সিকোয়েন্সে পারফিউমের সুঘ্রাণে পাগল হয়ে যাওয়া হাজার হাজার মানুষের সঙ্গমদৃশ্য অনেকেই মনে করতে পারবেন।

    কুচিন্তা ১৫


    জটিলতার কারনে যাদের চ্যাপ্টা ব্রেইনে গিট্টু লাইগা গেছে ,জিবনের মহৎ বোধসম্পন্ন কিংবদন্তী দাঁতভাঙ্গা শব্দজাদুকর সেই অত্যাধুনিক সাহত্যিকরা তফাতে থাকুন । অতি উচ্চমার্গের কথা বোঝা বা লেখার সামর্থ্য আমার নেই । এ কারনে অইসব আমার কাছে স্যাটায়ার লাগে । লোকে যখন কিংবদন্তী লেখা পড়ে চোখের পানিতে নগর ভাসায়,তখন আমি থাকি টয়লেটে । আরও মজার ব্যাপার ব্লগকে যারা এনসাইক্লোপিডিয়া লিখার জায়গা ভাবেন তখন দু-একটা নচ্ছার বিটকেল দু-চার লাইন ফেঁদে তাদের ঘোল খাওয়ায় যায় । মহান উপদেষ্টারা যারা খালি সুযুগের অপেক্ষায় থাকে কখন দু-লাইন উপদেশ দিয়ে মনটা শান্ত করব।মাঝে মাঝে সেই বিটকেলগুলির খপ্পরে পড়ে দুটো কানমলা খেলে দলবেঁধে তে

    আর একটু মানবিক হই আমরা


    মা ফল কাটতে গিয়ে হাত কেটে ফেলেছে, ছেলের মোবাইল দিয়ে ফটাফট ছবি তুলে আপলোড করে দিলো ফেইসবুকে, ট্যাগ দিচ্ছে বন্ধুদের এর মাঝেই শুরু হলো লাইক দেয়া, মিনিট পাচেক লাইক পড়লো নানা রকম স্যাড সাইন দিয়ে কমেনটস ও পড়ছে ভালো, তার পর কাছের বন্ধুর কমেনটস ওএমজি কি বলিশ এ্যান্ট ব্যথা পায়নি তো কেমনে কাটলো কিভাবে হায় হায় আমার সুইট এ্যান্টের এই হাল এইবার আমাদের অনস্থন ফ্রাই খাওয়াবে কে সত্যি আমার মন চাচ্ছে উইড়ে চলে আসি এ্যান্টের সেবা করতে?

    সৃষ্টি আর সৃষ্টিকর্তা


    যত নদী আর যত পাহাড়
    সবকিছুই সৃষ্টি তাহার।
    কি অপরুপ সৃষ্টি প্রভুর
    কি অপরুপ সৃষ্টি,
    পুলকিত হয় দৃষ্টি আমার
    পুলকিত হয় দৃষ্টি।

    দুঃস্বপ্ন


    এই মুহূর্তে শায়লাকে দেখে বোঝার উপায় নেই ঠিক কি ঘটে যাচ্ছে তার ভেতরে। সুন্দরি শায়লা মামুনের স্ত্রী আর একমাত্র ছেলে বুবুন কে নিয়ে তাদের সুখের সংসার। বার্নিশ করা আসবাবপত্র, ঝকঝকে মেঝে আর দেয়ালের রং দেখে অন্ততঃ তাই বোঝা যায়। তবে সুখের কথাটার পরে বিস্ময় চিহ্ন আবশ্যক!

    যাত্রা


    পরকালের ভাবনায় থই খুঁজে পাই না মোটেই। ওখানেই কি শুরু হয় অনন্ত যাত্রা? ইহকালকে যাত্রা বিরতি মনে হয়। কুয়োর ব্যঙের কাছে যেমন কুয়োকেই পৃথিবী মনে হয়, তেমনি পৃথিবীকেই শুধু পৃথিবী মনে করে অনেকে। কিংবা পৃথিবীতে যাপিত জীবনই শুধু জীবন, যেখানে শুরু সেখানেই শেষ।

    যে যা-ই মনে করুক, কালের ভাবনা আমাকে ভাবায় শুধু। যে কালে এখন আমি, কিছুতেই ছাড়তে ইচ্ছে করে না তা। অথই জলে ভাসতে ভাসতে ভাসতেই ইচ্ছে করে কেবল।

    এখানে সঙ্গী তেমন নেই আমার। আমিই আমার একমাত্র সঙ্গী, আর আছে কিছু শব্দহীন সঙ্গীত।

    আমি মূলত খুনি হতে চেয়েছিলাম...


    বিশ্লেষণের মাহাত্ম বুঝেন?
    এ টু জেড সর্বনাশের অর্থ?
    জানি জানেন না!আপনি মহান রাজনীতিবিদ।
    দশ বারোটা মাইক সামনে নিয়ে বসে,
    যেন মজাদার আইস-ক্রীম এই মৌসুমে
    আরো বেশী ঘনীভূত করে লোভ লালসা!
    কে বা কাদের নামে জানি স্কেন্ডাল বেরোয়।

    রামপাল, ব্রহ্মপুত্র এবং আমি


    বর্তমান সময়ে অনলাইন জগতে আলোচিত সমালোচিত অন্যান্য বিষয়গুলোর মধ্যে অন্যতম হলো রামপাল কয়লা বিদ্যুৎ কেন্দ্র। এরই মাঝে অনেকেই চরম দ্বিধাদ্বন্দ্বে পড়ে গেছেন। যার কারণ হিসেবে দলীয় প্রভাব কিনবা অন্যান্য কারণ থাকতেই পারে। সেরকম নিজেও দ্বিধাদ্বন্দ্বে ভুগলেও সমস্ত কিছুর অবসান ঘটাতে এই লেখাটুকু নিজের ক্ষুদ্র চিন্তা ভাবনা থেকে।

    গনপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের সংবিধানের আলোকে চিন্তা ও বিবেকের স্বাধীনতা এবং বাক স্বাধীনতা


    গনপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের সংবিধান
    তৃতীয় ভাগঃ মৌলিক অধিকার

    অনুচ্ছেদ ৩৮: চিন্তা ও বিবেকের স্বাধীনতা এবং বাক স্বাধীনতা

    (১) চিন্তা ও বিবেকের স্বাধীনতার নিশ্চয়তা দান করা হইল।
    (২) রাষ্ট্রের নিরাপত্তা, বিদেশী রাষ্ট্রসমূহের সহিত বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক, জনশৃঙ্খলা, শালীনতা বা নৈতিকতার স্বার্থে কিংবা আদালত অবমাননা, মানহানি বা অপরাধ সংঘটনে প্ররোচনা সম্পর্কে আইনের দ্বারা আরোপিত যুক্তিসঙ্গত বাধা-নিষেধের সাপেক্ষে-
    -(ক) প্রত্যেক নাগরিকের বাক ও ভাব প্রকাশের স্বাধীনতার অধিকারের, এবং
    -(খ) সংবাদ ক্ষেত্রের স্বাধীনতার
    নিশ্চয়তা দান করা হইল।

    পৃষ্ঠাসমূহ

    ফেসবুকে ইস্টিশন

    কপিরাইট © ইস্টিশন ব্লগ ® ২০১৮ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর