নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

দৃষ্টি আকর্ষণ

  • ট্রেনিংরুম ঘুরে আসুন।
  • ইস্টিশনের এন্ড্রয়েড এ্যাপ্লিকেশন ডাউনলোড করুন
  • পরিষ্কার বাংলা দেখার জন্য এখান থেকে ফন্ট ইন্সটল করে নিন।
  • অনলাইনে লেখা কনভার্ট করুন
  • ইস্টিশনের নতুন ব্যানার দেখতে না পেলে/সমস্যা হলে Ctrl+F5 চাপুন।
  • প্যাসেঞ্জার ট্রেন শিডিউল
  • আপনার ব্রাউজার থেকে ইস্টিশনব্লগের সাথে সবসময় যুক্ত থাকতে নিচের লোগোতে ক্লিক করে টুলবারটি ইন্সটল করুন।
  • ওয়েটিং রুম

    এখন 2 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

    • নুর নবী দুলাল
    • মৃত কালপুরুষ

    নতুন যাত্রী

    • মিঠুন সিকদার শুভম
    • এম এম এইচ ভূঁইয়া
    • খাঁচা বন্দি পাখি
    • প্রসেনজিৎ কোনার
    • পৃথিবীর নাগরিক
    • এস এম এইচ রহমান
    • শুভম সরকার
    • আব্রাহাম তামিম
    • মোঃ মনজুরুল ইসলাম
    • এলিজা আকবর

    অরণ্যের দিনরাত্রি # ৪র্থ পর্ব # যমুনা ইকো পার্ক @ সিরাজগঞ্জ


    বাংলাদেশে বনাঞ্চলের পরিমান এমনিতেই কম। তার মাঝে উত্তরাঞ্চলে তো বন খুঁজে পাওয়াই কঠিন। যমুনা ইকো পার্ককে বলা যায় উত্তরবঙ্গের সব থেকে বড় কৃত্রিম বন। বিশেষজ্ঞরা উত্তরবঙ্গের আবহাওয়া নিয়ে এই আশংকা করে থাকেন যে অদূর ভবিষ্যতে হয়তবা এইখানে মরুভুমিকরন প্রক্রিয়া শুরু হবে। সেটা সময়ই বলে দিবে। কিন্তু আপনি যদি একবারের জন্য হলেও ঘুরে আসতে পারেন যমুনা ইকো পার্ক থেকে, তাহলে সেই আশংকা আপনার মনে দানা বেঁধে উঠতে পারবে না। চলুন, যান্ত্রিক এই নগর থেকে কিছুক্ষণের জন্য বিরতি নিয়ে সবুজের আলিঙ্গনে বাঁধা পড়ি।

    SO, পাট ও পাটকল নিয়ে গল্প শেষ…………এবার নতুন গল্প…


    অধ্যায় -১
    “পাট একটি বর্ষাকালীন ফসল। বাংলাদেশে পাটকে সোনালী আঁশ বলা হয়ে থাকে এবং পাটই বাংলার (বাংলাদেশ ও পশ্চিম বঙ্গের) শত বর্ষের ঐতিহ্য।“
    http://bn.wikipedia.org/wiki/%E0%A6%AA%E0%A6%BE%E0%A6%9F

    অধ্যায় -২
    “পাট বাংলাদেশের একটি অন্যতম অর্থকরী ফসল। বাংলাদেশ ১৯৭১ খ্রিস্টাব্দে স্বাধীনতা লাভের পর পরই পাটশিল্পের উপর বিশেষ গুরুত্ব দেয়।“

    অধ্যায় -৩

    প্ল্যান বি


    জরুরী তলব কেন?
    ভেতরে যা। বুঝতে পারবি।
    তোকেও ডেকেছিল?
    হ্যাঁ। একটা মিশন দিল। এক রড ব্যাবসায়ীকে ফেলতে হবে।
    গুড। আজকাল বস তোকে সব দামী কাজ দিচ্ছে।
    তোর জন্যও একটা কাজ দেখলাম।
    তুই কি এখনই বেরোবি?
    হ্যাঁ রে। কাজ আছে। পরে কথা হবে। কি কাজ পেলি জানাস।
    ওকে। কতদূর কি হল জানাস।
    ফোন দিস।

    Roman Holiday (1953) {One Of the best Classic Movie Ever}


    অনেকসময়ে অনেক গল্প বা উপন্যাসে অত্যাচারী রাজা অথবা রাণীর কথা সবাই পড়েছেন আশা করি। আমাদের গল্পও গুলোর রাজা অথবা রাণীদের অত্যাচারে সাধারণত দেখাযেত সাধারণ জনগণ রাজ্য ছেড়ে পালাতো। কিন্তু রাজা বা রাণী কখনো অন্যদের অত্যাচারে রাজ্য ত্যাগের ঘটনা বা গল্প বিরল। তেমনই এক বিরল ঘটনার জন্ম দিয়েছিলেন “রোমান হলিডে” সিনামার গল্পকার। রাজ্যের কাজের চাপে ত্যাক্ত বিরক্ত হয়ে রাণীর পলায়ন।

    ভালবাসা নেই - দুই


    এরপর থেকে আম্মুকে ফোন করলে আম্মুই ধরত।নিরার কথা জানতে চাইলে মা বলে বেড়াতে গেছে হয়ত।আনন্দ ফুর্তি করে দিন কেটে যাচ্ছিল।এর মধ্যে একদিন সাফিয়া কে নিয়ে ঘুরতে গেছি পতেঙ্গা ওখানে সিমার সাথে দেখা।আমরা একি কোচিংয়ে পড়তাম একি সাথে বসতাম সবকিছু একসাথেই করতাম।একদিন আমি ঘুমাই পড়ছিলাম একেবারে ওর কোলে পুরো দেড়ঘন্টা ও ওইভাবে ছিল যতক্ষন না আমার ঘুম ভেঙ্গেছিল।আমরা যাচ্ছিলাম বান্দরবান।এজন্য অবশ্যই কম খোটা দেয় নাই।ও আমাকে দেখে দৌড়ে এসে জড়িয়ে ধরে।আর ওদিকে সাফিয়া দেয় উল্টো দিকে হাঁটা।ওকে অনেক বুঝালাম বাট ও আর আমার সাথে থাকতে চায়না।ও সিমাকে জড়িয়ে আমাকে অনেক বাজে কথা বলে এন্ড ফাইনালি উই আর নাও সিঙ্গেল।এরমধ্যে রেজ

    স্ট্যাটাস মুইছে দেওয়ার চাইতে একাউন্ট মুইছে দিলে কিরাম হয়?


    ভাইপো, হন্তদন্ত হয়া; ছুটে আসিল, কলোঃ- কাহা! এ কাহা! এ তুমি কনে? এদিক আইসো।

    টয়লেট থাকিই; দৌড় দিলামঃ- এ; কি হয়েছেরে? এবা করি; চেচাচ্ছিস ক্যানে?

    ভাইপোঃ- কাহা, লিটেস্ট খবর শুনিছাও?

    আমিঃ- তা, কি লেটেস্ট খবর; তুই শুনিছিস সিডা ক।

    ভাইপোঃ- আরে; ফেসবুকের ইস্ট্যাটাস দেওয়ার সাথে সাথেই হাপিস হয়া যাচ্ছে। হেফাজত, জামায়াত, বিএনপি এই চুদির ভাইগের বিরুদ্ধে কিছু কলিই; স্ট্যাটাস মুইছে দেয়া হচ্ছে।

    প্রয়াত প্রেমিকা এবং বাসে সংরক্ষিত নারী সীট...


    আজকে সন্ধ্যায় ঘটে যাওয়া একটি ঘটনার প্রেক্ষিতে আমার প্রয়াত প্রেমিকার কথা খুব বেশি মনে পড়ে যাচ্ছে । ... ... ... ওর অনেক ভালো অভ্যাসের মধ্যে একটি ছিল , রাস্তায় যেখানে সেখানে আবর্জনা না ফেলা। চকোলেট বা আইসক্রিম খেয়ে আমি হয়তো খোসাটি রাস্তার উপর ফেলেছি কোনও কিছু চিন্তা না করেই । ও অমনি কটমট করে তাকিয়ে বলতো, “ অ্যাই, এটা কী করলে ? এতো সুন্দর রাস্তাটাকে তোমার ডাস্টবিন মনে হয় ? ’ ওর সিরিয়াসলি রেগে যাওয়া দেখে আমার মাথায় দুষ্টুমির ভূত চাপতো । আমি বলতাম, “ আরেব্বা, কী এমন ক্ষতি হলো ? সবাইত ফেলছে, আর আমি ফেললে দোষ, তাই না ?

    ভালবাসা নেই - এক


    আমি তখন ক্লাস ওয়ানে পড়ি।স্কুল থেকে বাড়ি ফিরে খাওয়া সেরে উঠলাম।স্যার চলে আসছে পরতে বসলাম।আম্মু এসে বলল আজকে স্যার যেন তাড়াতাড়ি ছুটি দেয়।আমাদের বাড়ির এক আঙ্কেলের মেয়ের নাম রাখবে তাই।আমার খুশি দেখে কে।যথারীতি অনুষ্ঠানে গেলাম নাম রাখা হল নিরা।আমি প্রাইমারীর গন্ডি পেরিয়ে হাইতে।নিরা আমাদের বাসায় আসত আমি অবসরে ওর সাথে খেলতাম।প্রায় প্রতিদিনই ও আসত আম্মুকে পুরো বাড়ির সবার অবস্থা বর্ননা করত।ও স্কুলে এডমিট হল প্রথম প্রথম আমিই ওকে নিয়ে যেতাম।পরে ও একাই যেত।পড়ালেখা নিয়ে দুজনই ব্যাস্ত।তারপরেও ছুটির দিনটাই আমরা জমিয়ে আড্ডা দিতাম।বাড়িতে জায়গা জমি নিয়ে ঝামেলা হল ওদের ফ্যামিলির সাথে।ব্যাস ও আর এ দিকটাই আসতনা

    পৃষ্ঠাসমূহ

    কু ঝিক ঝিক

    ফেসবুকে ইস্টিশন

    SSL Certificate
    কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর