নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

দৃষ্টি আকর্ষণ

  • ট্রেনিংরুম ঘুরে আসুন।
  • ইস্টিশনের এন্ড্রয়েড এ্যাপ্লিকেশন ডাউনলোড করুন
  • পরিষ্কার বাংলা দেখার জন্য এখান থেকে ফন্ট ইন্সটল করে নিন।
  • অনলাইনে লেখা কনভার্ট করুন
  • ইস্টিশনের নতুন ব্যানার দেখতে না পেলে/সমস্যা হলে Ctrl+F5 চাপুন।
  • প্যাসেঞ্জার ট্রেন শিডিউল
  • আপনার ব্রাউজার থেকে ইস্টিশনব্লগের সাথে সবসময় যুক্ত থাকতে নিচের লোগোতে ক্লিক করে টুলবারটি ইন্সটল করুন।
  • ওয়েটিং রুম

    এখন 9 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

    • রাফী শামস
    • দিন মজুর
    • সাইয়িদ রফিকুল হক
    • গোলাম মোর্শেদ হিমু
    • আব্দুল্লাহ আল ফাহাদ
    • রুদ্রমঙ্গল
    • নুর নবী দুলাল
    • এফ ইউ শিমুল
    • জহিরুল ইসলাম

    নতুন যাত্রী

    • অন্ধকারের শেষ প...
    • রিপন চাক
    • বোরহান মিয়া
    • গোলাম মোর্শেদ হিমু
    • নবীন পাঠক
    • রকিব রাজন
    • রুবেল হোসাইন
    • অলি জালেম
    • চিন্ময় ইবনে খালিদ
    • সুস্মিত আবদুল্লাহ

    ব্লগার


    ব্লগারদের ফাঁসি চাই !!!
    ব্লগারদের মুক্তি চাই !!!

    ব্লগার কি ভাই?
    নাম নাই?
    শুভ এর তো নাম আছে তাইনা। কইতে পারেন না শুভ এর মুক্তি চাই?

    তারা যেমন রাজনৈতিক উদ্দেশ্য চরিতার্থ করার জন্যে ব্লগার নামক একটা আলাদা জাতি বানাইছে, তেমনি আপনারাও ব্লগারদের মুক্তি চাই বইলা নিজেদের আইসোলেটেড করছেন। দেশের মানুষ বুঝছে ব্লগ মানেই নিষিদ্ধ কিছু।

    দিকে দিকে শুধু পাতানো খেলা!


    দিকে দিকে শুধু পাতানো খেলার অভিযোগ;
    গতকাল জানলাম বাংলাদেশের হীনতম পাতানো খেলার অভিযোগ আর তা হল, সাভার ট্র্যাজেডির রানা প্লাজা থেকে রেশমা নামক মেয়েটির উদ্ধার সরকারের সাজানো নাটক অর্থাৎ তা ছিল একটা সাজানো ৫০ মিনিটের স্বল্পদৈর্ঘ নাটক!

    এইবার দেখি আরও কিছু রাজনৈতিক নাটকের অভিযোগঃ
    ১) দক্ষিন আফ্রিকা থেকে মহাত্মা গান্ধীর ভারত বর্ষে আগমন একটা নাটকের অংশ...
    ২) মহাত্মা-গান্ধী আর জিন্নাহর দন্ধ ব্রিটিশদের পাতানো খেলা...
    ৩) ১৯৭১ এর স্বাধীনতা আর বঙ্গবন্ধু হচ্ছে রাশিয়া-ভারতের নাটক...
    ৪) স্বপরিবারে বঙ্গবন্ধু হত্যাও সমাজতান্ত্রিক বিশ্বের বলয় থেকে বাংলাদেশকে সরানোর নাটক...

    সব স্বাধীনের দেশ


    আমাদের রক্তে মননে সবচাইতে বেশি যে শব্দটি জড়িয়ে আছে তা হল স্বাধীনতা। আমরা স্বাধীন। সব স্বাধীনতা ভোগ করি বা করতে চাই। কিন্তু সব স্বাধীনতা নেয়ার মত যোগ্যতা কি আমাদের আছে?

    আমি’ই স্বাধীন জাতি


    আমি’ই স্বাধীন জাতি
    রকিব সিকদার

    কত হোঁচট খেয়েও বেঁচে আছি, দেখছনা তুমি মা,
    রাতের পরেও দিন কেটে যায়, মুচ্ছেনা তো ঘা।
    দেয়াল ভরা দীর্ঘশ্বাস, রুক্ষ হতাশা,
    স্বপ্ন আমার নেই তেমন আর, নষ্ট ভালবাসা।

    দিন কেটে যায় রাত কালো হয়, রক্তে মাখা পথ,
    হাসি মুখে’ই স্বপ্ন গড়াই নেই তো দ্বিধা মত।

    কত রাজ্য পাশে লাশ হয়েরই, দেখছ না তুমি মা,
    দেহের মাঝে পচন ধরা, বাঁচব কি আর না।
    সূর্য ওঠে চন্দ্র আসে, কাটছে’না আঁধার,
    নষ্ট হয়ে মরছি তবু নেই কেহ বলার।

    সময় পেরোয় সময় আসে, অতীত ভোলা মন,
    বর্তমানেই স্বর্গ সবার, অর্থে আছে পূরণ।

    কত নষ্টামিতে ভরছি মাগো, দেখার নেই কেহ,

    ফেনিল এই রাত্রিপ্রহর


    ক্রমাগত শুনতে থাকা মায়াকান্না
    কিংবা বয়সের ভিতর লুকিয়ে থাকা সব শীতকাল -
    তটে আছড়ে পড়া পৌরাণিক ঢেউ
    বায়বীয় নৈঃশব্দ্য আজ পুনরায় জমাট বাধে।
    যে নৌকাটি ভেড়ানো ছিল ঘাটে
    তা এলোমেলো প্রলয়ে বিদীর্ণ হয়ে গেছে,
    শরীর ঘিরে উড়ছে অজস্র কালো পোকা
    ক্ষুদ্র মস্তিষ্ক আটকে পড়েছে ভয়ে।

    যাপিত রাতগুলো এক ঝটকায় তুলে আনি
    আর খুজিঁ, হন্যে হয়ে খুজিঁ নিদ্রারহস্য।
    সকাল, বিকেল আর সন্ধ্যাগুলো -
    আমাকে নিয়ে নিরন্তর পরিহাসে লিপ্ত।
    কেননা সময়ের বাইরে দাড়িয়ে আমি
    রুটিন মাফিক রাত্রি হাতড়াই।

    পার্শ্ব ফিরিয়া শুয়েছেন আজ অর্ধনারীশ্বর; নারী চাপা ছিল এতদিন, আজ চাপা পড়িয়াছে নর।।


    " সে যুগ হয়েছে বাসি,
    যে যুগে পুরুষ দাস ছিল নাকো, নারীরা আছিল দাসী!
    বেদনার যুগ, মানুষের যুগ, সাম্যের যুগ আজি;
    কেহ রহিবেনা বন্দি কাহারও, উঠিছে ডঙ্কা বাজি।
    নর যদি রাখে নারীরে বন্দি তবে এরপর যুগে
    আপনারই রচা ঐ কারাগারে পুরুষ মরিবে ভুগে।
    যুগের ধর্ম এই-
    পীড়ন করিলে সে পীড়ন এসে পীড়া দেবে তোমাকেই। "

    তাই বলছি সাবধান! পুরুষতন্ত্রের সুবিধা নিয়ে যে সকল পুরুষ আজও চাচ্ছেন নারীদের ঘরের চার দেয়ালের মধ্যে বন্দি রাখতে, আজকে এই নারী জাগরণ সমাবেশ আপনাদের জন্য সাবধান সংকেত। নারী শক্তি জ্বলে উঠেছে। আস্তাকুরে নিক্ষিপ্ত হবেন।

    আর নারীদের জন্য একটা তথ্য -

    গণজাগরণ মঞ্চ ঘিরে বিতর্কের নতুন সুর এবং আগামীর চ্যালেঞ্জ


    আমাদের সামাজিক চিন্তার অনেকগুলো নষ্টামির মধ্যে একটা হচ্ছে, গুন্ডা-বদমাশ গোছের কিংবা শেয়ালের মত ধূর্ত না হলে কাউকে আমরা কাউকে নেতা মানতে চাই না। রাজনৈতিক, সামাজিক তো বটেই এমনকি সাংস্কৃতিক অঙ্গনের নেতৃত্বের ক্ষেত্রেও জটিল প্যাচ কষতে না জানলে তাকে নেতৃত্বের যোগ্য বিবেচনা করতে আমাদের মন চায় না। সরল সাধাসিধে কেউ কেউ নিদারুন কোন সংকটের সময় নৈতিকতার দায় থেকে নেতৃত্বে এলে তাকে ঘিরে মুহুর্তেই বিপুল আগ্রহ তৈরি হয় পুরো জাতির। আবার সংকট কিছুটা কাটলেই তাকে আর নেতা মনে হয় না, এক দল তো সংকটের সময়ের সেই নেতাকে বাড়ির দারোয়ান বানাতে পারলে খুশী হয়, ‘ব্যাটার যথেষ্ট সাহস আছে, চোর-ডাকাত দেখলে ঘাড় গুঁজে দৌড় দেওয়া

    বিশ্বাস


    প্রতিটি বস্তুর যেমন ধর্ম আছে। তেমনি প্রতিটি মানুষের ধর্ম আছে। একটি বিশ্বাস নিয়েই বেঁচে আছে। হতে পারে তা প্রচলিত সকল ধর্ম বিশ্বাসের বাহিরে।ধর্ম একটা গন্ডির ভিতর মানুষকে আবদ্ধ করে আর জ্ঞান মানুষকে অসীম করে তুলে। প্রকৃত জ্ঞানীরা কোন একটি গন্ডীর মধ্যে আবদ্ধ হতে পারে।জ্ঞানীরা সর্বত্রই বিচরণ করে। মূর্খরা মনে করে আমি যা জানি তাই শ্রেষ্ট, তাই সত্য অন্য সব মিথ্যা। অন্যের জানাকে তারা পাত্তাই দিতে চায়না।জানার প্রবল আগ্রহ নিয়ে জ্ভানীদের বিচরণ আর আমারমত মূর্খরা আমি সঠিক বলে অন্যকে জানতেই চাই না। তাইতো আমার মতটি প্রতিষ্ঠা করতে প্রয়োজনে যুদ্ধ ঘোষনা করি।যুগে যুগে এমন জ্ঞান পাপীরা ছিল এবং থাকবে।কখনোই মশৃণ হ

    আমি নীতিবান হতে চাই,তুই চাসণে?


    ইতোমধ্যে জেনে গেছি ভবতোষ,এদেশে মানুষ নেই নির্বিকার বাস করে কিছু শিকারী শকুন!
    এরা কারা?
    জানিনা,সেই মার প্যাচে নিজেই দুষ্ট!
    লিখেছিলাম,ফিরে আয় ভাই তুই ফিরে আয়!এটা সত্য নিজেকে ফেরাবে কে নিজেই জানিনা!এই যে এতো ডামাডোল বাজে; রাজনৈতিক আবেশে আমরা আসলেই ভুলে গেছি আমাদের নৈতিক রেডস্পট। কেউ কেউ ভুলেনি হয়তো। তাই এখনও আকাশচুম্বী আশা নিয়ে ১৭ দিন পর কেউ একজন উঁকি মারে পৃথিবীর আলো বাতাসে খুঁজে পায় শেষ আশ্রয় এই মানুষ হয়ে মানুষের বুকেই!

    বলো ভবতোষ তবে আমি কেনো মনিহারী বন ডিঙ্গিয়ে শুধু সেই লোভীদের দলে নাম লেখাবো?
    আমি রাজনীতি চিনিনা!চিনি নীতি নৈতিকতা যা এখনও মানুষ কে মানুষ ভাবতে শেখায়!

    "তুই তো ব্যাটা নাস্তিক!"


    কিছু মানুষ নিজেকে নাস্তিক ডিটেকটর মনে করেন।
    তারা মোটামুটি সব আলোচনাতেই আল্লাহ-রাসূলের অবমাননা জাতীয় বিষয়গুলো নিয়ে আসেন এবং আলোচনায় অংশ নেয়া অন্য মানুষগুলোর "ঈমান" নিয়ে হ্যাচকা টান দিয়ে বলেন, "এইটা বিশ্বাস না করলে তো ঈমানই থাকেনা! কি কন?" অথবা, "এইসব নাস্তিকদের ব্লগার আর এই নাস্তিক সরকারকে যারা সাপোর্ট দেয় তারাও নাস্তিক! ঠিক কিনা বলেন? যারা যারা একমত না তাদেরও ঈমানে সমস্যা আছে বলে মনে করতে হবে!"

    পৃষ্ঠাসমূহ

    ফেসবুকে ইস্টিশন

    SSL Certificate
    কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর