নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

দৃষ্টি আকর্ষণ

  • ট্রেনিংরুম ঘুরে আসুন।
  • ইস্টিশনের এন্ড্রয়েড এ্যাপ্লিকেশন ডাউনলোড করুন
  • পরিষ্কার বাংলা দেখার জন্য এখান থেকে ফন্ট ইন্সটল করে নিন।
  • অনলাইনে লেখা কনভার্ট করুন
  • ইস্টিশনের নতুন ব্যানার দেখতে না পেলে/সমস্যা হলে Ctrl+F5 চাপুন।
  • প্যাসেঞ্জার ট্রেন শিডিউল
  • আপনার ব্রাউজার থেকে ইস্টিশনব্লগের সাথে সবসময় যুক্ত থাকতে নিচের লোগোতে ক্লিক করে টুলবারটি ইন্সটল করুন।
  • ওয়েটিং রুম

    এখন 10 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

    • পৃথু স্যন্যাল
    • সুজন আরাফাত
    • অর্বাচীন উজবুক
    • নুরুন নেসা
    • সংবাদ পর্যবেক্ষক
    • নাস্তিকের আত্মকথা
    • আবীর সমুদ্র
    • মূর্খ চাষা
    • নরসুন্দর মানুষ
    • দ্বিতীয়নাম

    নতুন যাত্রী

    • সোহম কর
    • অজিতেশ মণ্ডল
    • আতিকুর রহমান স্বপ্ন
    • অ্যালেক্স
    • মিশু মিলন
    • আগন্তুক মিত্র
    • গাজী নিষাদ
    • বেকার
    • আসিফ মহিউদ্দীন
    • সাধনা নস্কর

    মনের উপর হাতুড়ি চেপে লিখাটা লিখছি !


    আজ সকালের কথা ।
    একজন বৃদ্ধ ভদ্রলোক বাজার করে ঘরে ফিরছিলেন । পিকেটাররা বাজার এর ব্যাগ দু'টি ছিনিয়ে নিয়ে ছিঁড়ে রাস্তায় ছড়িয়ে দিলেন ! চাল-ডাল-আলু-মাছ ছড়িয়ে গেল বড় রাস্তাময় । রাস্তার প্রতিটি মানুষ বোকার মতো ঠায় দাঁড়িয়ে, আর কী কী দেখাবার বাকি !?

    বিদ্যুৎ খাতে ভোগান্তি অনিবার্য


    • ৪০ কেন্দ্র ত্রুটিপূর্ণ
    • তেল-গ্যাস সরবরাহে সঙ্কট বাড়ছে
    • সেচ ও গ্রীষ্মে তীব্র লোডশেডিং এর আশঙ্কা
    • আবারো বাড়তে পারে জ্বালানি ও বিদ্যুতের দাম
    • রেন্টালে লাগছে বাড়তি তেল, ভর্তুকি বেড়েই চলেছে

    গরম পড়তে শুরু করেছে। সবেমাত্র শুরু হলো সেচ মৌসুম। তাই পাল্লা দিয়ে বাড়ছে বিদ্যুতের চাহিদা। সেই সঙ্গে এখনই বাড়তে শুরু করেছে লোডশেডিং। সামনের দিকে পুরো গ্রীষ্মের উত্তাপ পড়তে শুরু করলে এবং সেচের জন্য সব জমিতে বিদ্যুৎভিত্তিক সেচযন্ত্রগুলো চালু হলে বিদ্যুৎ বিতরণের অবস্থা হবে ভয়াবহ।

    মনের দুঃখে পক পক পক।


    আমার ফেসবুক ফ্রেন্ড লিস্ট এ সাধারণত নিকট বন্ধু বা আমি যাদের সম্মান করি বা ভাল লাগে তারাই শধু আছেন। এবং বলা যায় অরাজনৈতিক পরিবেশে বড় হওয়া আমার ফ্রেন্ড লিস্ট টা সাধারন মানুষের প্রতিনিধিত্ব করে। আজকে কেন জানি দেখতে মন চাইল আমার ফ্রেন্ড লিস্ট কে যদি রাজনৈতিক মনোভাবে বিভক্ত করা হয় তবে কি দাড়ায় । দেখলাম আমার ৭৭ জন বাংলাদেশি ফ্রেন্ড আছে। যার মধ্যে ৪-৫ জন শিবির মনা বা শিবিরের প্রতি সহানুভূতিশীল । ৩০ জনের মত বিএনপি মনা কিন্তু শিবির কে মনে প্রানে অপছন্দ করে। ৩৩-৩৫ জনের মত আওয়ামীপন্থী বা বামপন্থি। বাকি ৭-৮ জন অনেকটাই কোন দলের এর প্রতিই সহানুভূতিশীল নয়। কেন জানি হিসাব টা আমাদের দেশের ভোটের হিসাবের সাথে

    মেয়ে


    আল্লাহ দুনিয়ার তাবত্‍ মেয়েদেরকে কত সুন্দর করেই না সৃষ্টি করেছেন ! ! !

    @ রেশমের মতো চুল |
    @ গোলাপের মতো ঠোট |
    @ কোকিলের মত কণ্ঠ |
    @ কাচা হলুদ গায়ের রং |
    @ হরিণীর মতো চোখ |
    @ কোমল হাত-পা |
    @ মোহনীয় হাটা চলা |
    @ আকর্ষনীয় দেহ-মন
    কিন্তু
    .
    .
    .
    .
    .
    .
    .
    .
    .
    .
    .
    .
    জিহ্বা টা বানাইয়া তাবত্‍ পুরুষ জাতিরে বিপদ এ ফালায়া দিছেন Sad

    'বন্ধু রাষ্ট্র' ভারত ও বাংলাদেশের শাসকগোষ্ঠীর তোষণনীতি


    প্রণব মুখারজি যখন বাংলাদেশে এসে শ্বশুর বাড়ি ঘুরে গেলেন তখন খুব বেশি করে মনে পড়ছিল, বার বার মনে পড়ছিল ফেলানীর মুখটা। কাঁটাতারে ঝুলে কিভাবে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেছিল অভাগী ফেলানী !!! খুব মনে পড়ছিল ফেলানীকে তখন। প্রণব মুখারজি যখন বাংলাদেশে রাষ্ট্রীয় আতিথীয়তায় সিক্ত হলেন, তার সম্মানে যখন তোপধ্বনি করা হলো, তখন বার বার কানে বেজে উঠছিল বিএসএফ 'র গুলির শব্দ। বার বার চোখের সামনে ভেসে উঠছিল সীমান্তে নগ্ন হাবীবের অসহায় মুখটা !!!

    দুই নেত্রী বনাম দেশ


    বহু বছর আগের একটা গল্প বলবোঃ

    খলিফা হারুনুর রাশিদের আমলে একটি শিশুর মাৃত্বের দাবীতে দুইজন মহিলা দরবারে বিচার নিয়ে এলেন । দুজনই শিশুটিকে যার যার সন্তান দাবী করে ফয়াসালা চাইলে বিজ্ঞ খলিফা শিশুটিকে দ্বিখন্ডিত করে দুইজনের হাতে তুলে দেবার নির্দেশ দিলেন । এই নির্দেশ শোনা মাত্র শিশুটির সত্তিকারের মা শিশুটির দাবী প্রত্যাহার করলেন কারণ তিনি তার সন্তানের বেঁচে থাকার প্রশ্নে নিজের অধিকার বিসর্জন দিতে হলেও রাজী আছেন । খলীফার বুঝতে বাকী রইলনা সন্তানটি আসলে কার !!

    যুদ্ধাপরাধীদের ফাঁসির দাবি- অসমাপ্ত মুক্তিযুদ্ধ সমাপ্ত করার ডাক


    ৫ফেব্রুয়ারি কুখ্যাত যুদ্ধাপরাধী জামায়াত নেতা কাদের মোল্লার বিচারের রায় প্রদান করে মানবতাবিরোধী অপরাধ ট্রাইব্যুনাল। ট্রাইব্যুনালে কাদের মোল্লার বিরুদ্ধে দায়ের করা ৬টি অপরাধের ৫টিতে তার সংশ্লিষ্টতা প্রমাণিত হয়। ৩৮৮টি খুন, ধর্ষনের মতো গুরুতর অপরাধ প্রমাণের পরও ট্রাইব্যুনাল কাদের মোল্লাকে যাবজ্জীবন কারাদন্ডের সাজা প্রদান করে। ট্রাইব্যুনালের এই রায় এর প্রেক্ষিতে দেশব্যপি তুমুল গণআন্দোলন দানা বাধে। বিক্ষোভে উপচে পড়ে সারা দেশ। শাহবাগে জমা হতে শুরু করেন প্রগতিশীল ব্লগার,প্রগতিশীল বিভিন্ন সংগঠনের ব্যক্তিবর্গ। শাহবাগে লাখে লাখে আসতে শুরু করে মানুষ। সবার মনে ক্ষোভ। কিন্তু এই ক্ষোভ কিসের প্রতি?

    ক্ষতিগ্রস্ত মানুষগুলোর দায়িত্ব কে নেবে? কে বলবে তাদের কথা ?


    সাঈদীর ফাঁসির রায় হওয়ার পর থেকে সারাদেশের পরিস্থিতি ভয়ংকর রূপ নিয়েছে। জ্বালাও-পোড়াও চলছে, বিশেষ করে হিন্দুদের ঘর বাড়ি জ্বালিয়ে দেয়া হচ্ছে। সম্পদ লুট করা হচ্ছে। হিন্দু মেয়েদের ধর্ষণ করা হচ্ছে। লাখো মানুষ আজ খোলা আকাশের নিচে আশ্রয় নিয়েছেন। বাসে, ট্রেনে আগুন দেয়া হচ্ছে। উপড়ে ফেলা হচ্ছে ট্রেন লাইন। থানায় হামলা হচ্ছে, এই বোরো মৌসুমে হামলা থেকে রেহাই পাচ্ছে না বিদ্যুৎকেন্দ্র গুলোও। মন্দির ভাংচুর করা হচ্ছে। মসজিদের গালিচায় আগুন দেয়া হচ্ছে। লিস্ট করে আলেমদের হত্যার হুমকি দেয়া হচ্ছে। ইত্যাদি, ইত্যাদি আরো অনেক কিছু !!! এক কথায় মাৎস্যন্যায় পরিস্থিতি বিরাজ করছে ।

    বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ ও একটি এতিম জাতির হাহাকার


    আমরা টিভিতে বঙ্গবন্ধুর সম্পূর্ণ ভাষণ শুনি না, কাট ছাট ভার্সন শুনি। "আর যদি একটা গুলি চলে..." বলার আগে তিনি যে শান্তিপূর্ণ কর্মসূচির ঘোষণা দিয়েছিলেন তাই ২৫ মার্চ পর্যন্ত মানুষ পালন করেছিল, তারপর একটা না অসংখ্য গুলি চলেছিল। এর ফলশ্রুতিতে ভাষণের পরের পার্ট "ঘরে ঘরে দুর্গ" গড়ে তোলা হয়। ইমরান এইচ সরকারের অবদানের প্রতি সম্মান রেখেই বলছি বঙ্গবন্ধু যদি ৭ মার্চের ভাষণে যা বলিছিলেন তা না বলে সবাইকে মোমবাতি জালিয়ে বেলুন উড়াতে বলতেন তাইলে আজ আমরা পূর্ব পাকিস্তানে বসে থাকতাম, উর্দু সিরিয়াল দেখতাম, উর্দুতে পড়ালেখা করতাম। নিজের অধিকারের কথা বলার আগেই আর্মির গুলি খেতাম (এখন তাও অধিকারের কথা বলতে পারি) । সা

    আবেগ রাজনীতির পরিবর্তনের কোনো নিয়ামক হতে পারে না


    বাংলাদেশের সংঘাতময় রাজনীতির ইতিহাস অনেক পুরনো। অতীতেও ছিল এখনও আছে। সামনে সংঘাত আরও বাড়বে। গত দুই দশক ধরে এই সংঘতের চিত্র বেশ প্রত্যক্ষ করা গেছে। বর্তমান পরিস্থিতির সঙ্গে নতুন মাত্রা যোগ হয়েছে। এখন শুধু গণতন্ত্র নয়, অতিসম্প্রতি ধর্ম, সাম্প্রদায়িকতা এবং ধর্মনিরপেক্ষতা প্রশ্নগুলো এর সঙ্গে যুক্ত হয়েছে। এ কারণেই বর্তমান রাজনীতি অত্যন্ত জটিল আকার ধারণ করেছে। এই পরিস্থিতি আমাদের সকলের জন্যই খুব উদ্বেগজনক।

    পৃষ্ঠাসমূহ

    Facebook comments

    ফেসবুকে ইস্টিশন

    SSL Certificate
    কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর