নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

দৃষ্টি আকর্ষণ

  • ট্রেনিংরুম ঘুরে আসুন।
  • ইস্টিশনের এন্ড্রয়েড এ্যাপ্লিকেশন ডাউনলোড করুন
  • পরিষ্কার বাংলা দেখার জন্য এখান থেকে ফন্ট ইন্সটল করে নিন।
  • অনলাইনে লেখা কনভার্ট করুন
  • ইস্টিশনের নতুন ব্যানার দেখতে না পেলে/সমস্যা হলে Ctrl+F5 চাপুন।
  • প্যাসেঞ্জার ট্রেন শিডিউল
  • আপনার ব্রাউজার থেকে ইস্টিশনব্লগের সাথে সবসময় যুক্ত থাকতে নিচের লোগোতে ক্লিক করে টুলবারটি ইন্সটল করুন।
  • ওয়েটিং রুম

    এখন 3 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

    • রাজিব আহমেদ
    • সাইয়িদ রফিকুল হক
    • হৃদয় মজুমদার

    নতুন যাত্রী

    • মানিক হোসেন
    • রাজিব আহমেদ
    • রাজু তালুকদার
    • ড. এফ জাহান
    • মোঃ যীশুকৃষ্ণ
    • পাহাড়ী_রেডওয়াইন
    • প্রবাসী ছেলে সোহেল
    • নাগিব মাহফুজ খান
    • বুক্কু চাকমা
    • মাষ্টার মশাই

    দুর্ঘটনা নয়, হত্যা


    ধরুন আপনাকে পাহাড় এর উপর উঠিয়ে বললাম লাফ দিন...
    আপনি লাফ দিলেন। নিচে পরে আপনার মৃত্যু হল।

    আবার আপনাকে একটা ভাঙ্গা দালানে তুলে দিলাম। দালান ভাঙল।আপনি চাপা পড়লেন। মারা গেলেন।

    প্রশ্ন হল, প্রথমটা কি দুর্ঘটনা বলা যায়?
    যদি ওটা দুর্ঘটনা না হয় তবে আপনি কোন যুক্তিতে দ্বিতীয়টা দুর্ঘটনা বলেন?

    এই ৩০০+ মানুষকে হত্যা করা হল। মালিকসহ দোষীদের বিচার চাই।

    শুওর VS মানুষ


    শ্রদ্ধেয় বাঁশের কেল্লা, তোদের অতিতের কুকর্মের কথা সব ভুলে গেলাম, শুধু একটা জিনিস ই বলব, দেশের এই ক্রান্তিলগ্ন মুহূর্তে তোদের ওয়াল পোস্ট আর শাহবাগে সাইবার যুদ্ধ এর ওয়াল পোস্ট মিলিয়ে দেখ। তাহলেই বুঝতে পারবি তোদের মনে কত জিঘাংসা, কত কুৎসিত তোদের মানসিকতা, কত নিচু তোদের সংস্কৃতি।

    সাভার ট্র্যাজেডি ......অতঃপর আমার অনুরোধ


    সাভার ট্র্যাজেডি ......অতঃপর আমার অনুরোধ
    আজ সারাদেশে শোক দিবস পালিত হলো। এভাবে শোক দিবস পালন করে আর কতো চাপা দিব এই ধরনের হত্যাকান্ড। নিজের চোখে দেখলাম KDS Garments এর অগ্নিকান্ড, বহদ্দারহাট ফ্লাইওভার ভেঙ্গে পরা। এভাবে আর কত? কখন এই হত্যাকান্ডগুলোর বিচার হবে? আমাদের-ই বা কয়জনের মনে আছে এইসব হত্যাকান্ডগুলো? তাই এবার আর ভুলে যাওয়া নয়..................

    সাভার !! সাভার !!! সাভার !!!!


    সবখানেই শুরু হয়ে গেছে লাশ নিয়ে রাজনীতি ।একালের রাজনীতিবিদেরা আর কিছু পারুক না পারুক এটা খুব পারে। প্রধানমন্ত্রী ঠিক ই বলেছেন বড়বড় কথা না বলে পারলে ওইখানে গিয়ে একজনকে হলেও বাচান। রাজনীতিবিদ আর সুশীলরা টকশো তে বসে নানান জায়গার চুল চুলকিয়ে একে অপরকে দোষ দিয়ে যাচ্ছেন অনবরত। আর ওইদিকে অক্সিজেন,খাবার,পানি এর জন্যে হাহাকার চলছে ধ্বংসস্তুপ এর নিচে চাপা পড়া মানুষের মাঝে। এর মাঝে ওইখানে নতুন নবজাতকের জন্ম হয়ে মারা ও গেলো। কি উত্তর দিবো আমরা ওই শিশুটির কাছে ?? কোন মুখে আপনারা এদের নামাজের জানাজায় দাড়াবেন ??

    হেফাজতের ১৩ দফার শানে নজুল


    চট্টগ্রামের হাটহাজারী মাদ্রাসার ‘হেফাজতে ইসলাম’ জন্মগতভাবে একটি দু’নম্বরি সংগঠন। হাটহাজারীর দারুল উলূম মুঈনুল ইসলাম-এর মহাপরিচালক আল্লামা শাহ্ আহমদ শফী সাহেব এবং তার সহযোগীরা ২০১০-এর ১৯ মার্চ ‘হেফাজতে ইসলাম’ গঠন করেছেন। এর প্রায় ৬০ বছর আগে সিলেটের মৌলভীবাজারের বরুণার পীর শেখ লুৎফর রহমান সাহেব প্রতিষ্ঠা করেছিলেন আদি ও আসল ‘হেফাজতে ইসলাম’, যার শাখা পাকিস্তানেও আছে। বর্তমানে মূল ‘হেফাজতে ইসলাম’-এর প্রধান হচ্ছেন বরুণার গদ্দিনশিন পীর খলিলুর রহমান সাহেব, যাদের সঙ্গে হাটহাজারী, জামায়াত বা জঙ্গীবাদের কোনও সম্পর্ক নেই।

    প্রতিক্রিয়াঃ সাভার ট্র্যাজেডি


    ৭ম শ্রেণীতে পড়ি তখন। সামাজিক বিজ্ঞান বইয়ে ফখরুদ্দীন মুবারক শাহের আমলের বর্ণনা ছিল। তখনকার সময় ভারতবর্ষের অন্যান্য জায়গার তুলনায় বাংলায় জিনিসপত্রের দাম খুব কম ছিল। এ নিয়ে পর্যটক ইবনে বতুতার একটি তালিকাও দেয়া ছিল। সেই তালিকা অনুসারে, যতদূর মনে পড়ে, একজন দাস বা দাসীর দাম ছিল ৭ টাকা। সেই ত্রয়োদশ শতাব্দীর কথা।

    মানুষ মানুষেরই জন্য ..............


    সাভারের দূর্ঘটনা একটি জাতীয় বিপর্যয়
    । প্রান হারিয়ে প্রায় আড়াই শতাধিক,
    আহত এবং নিখোঁজ অসংখ্য । এদের সবাই
    শ্রমজীবী খেটে খাওয়া গার্মেন্টস
    কর্মী । এদের রক্ত চুষে খায় বড় মালিক
    পিশাচেরা আর এই দেশের স্বরাষ্ট্র
    মন্ত্রী সেটাকে বলেন, কিছু হরতাল সমর্থক
    ভবনটির ফাটল ধরা দেয়ালের বিভিন্ন
    স্তম্ভ এবং গেট ধরে নাড়াচাড়া করেছে ।
    ফলে ভবনটি ধসে পড়েছে ।

    এই মৃত্যুর মিছিল!! আর কত??!


    একটা অদ্ভুত, অভিনব ও বাক্যরুদ্ধ সময় পার করছি আমরা।

    সাভারের ঘটনাটা এমনিতেই একটা মর্মান্তিক ও কান্ডজ্ঞানহীন লোকের কারনে হয়েছে, কিন্তু এর পর পর যা ঘটছে, আমাদের রাজনীতিবিদ আর মিডিয়া কর্মীরা যেন এই ঘটনাটা ঘিরে কান্ডজ্ঞানহীনতার পসরা সাজিয়ে বসেছে।

    ঝড়


    বিবর্ন পৃথিবীতে কেউ একমুঠো ভাত দেবেনা,
    আমাকে পুড়ে মরতে হবে জ্বল জ্বল রৌদ্রে
    কেউ এক ফোটাজল দেবেনা।

    আমি একটা ঝড়ের প্রতিক্ষায় আছি
    তুমুল ঝড়।

    আমি একটা ঝড়ের প্রতিক্ষায় আছি
    তুমুল ঝড়।
    প্রচন্ড বাতাস উড়িয়ে নেবে সবকিছু।
    উচু দালানগুলোকে দেবে গুড়িয়ে।
    যেখানে আমার "মাথা"রা বসবাস করে।

    সমস্ত নিয়ম-কানুন ছিন্ন করে সে ঝড়
    থেমে যাবে একটি উজ্জ্বল সোনালী প্রভাতে
    শুরু হবে নতুন বর্বরতার ইতিহাস।
    ঝঞ্জালের পৃথিবীতে, আবর্জনার স্তুপ থেকে
    জন্ম নেবে আগামীর মহামানব।

    -পৃথু স্যন্যাল।

    সাভারের মৃত্যুকূপ থেকে বেঁচে ফেরা মানুষগুলোর চিকিৎসার খরচ প্রসঙ্গে


    আমার পা কেটে বাহির করো, আমি আর সইতে পারি না…’ ধ্বংসস্তূপের ভেতর শোনা যাচ্ছে এক নারীর এমন আর্তনাদ । উদ্ধারকারীরা তাকে দেখছেন ভেঙে পড়া দেয়ালের ফাঁকে । কেউ হাত দিয়ে এ নারীকে উদ্ধারের আশ্বাস দিচ্ছেন । কেউ চিৎকার করে । গার্মেন্টের এ নারী চাপা পড়ে আছেন ভেঙে পড়া বিশাল এক দেয়ালের মাঝে । গতকাল বেলা সাড়ে ৩ টায় ধসে পড়া ভবনের পেছনের দিকে গিয়ে দেখা গেছে, এ নারীর বাম পায়ের হাঁটুর উপরে একটি বড় দেয়াল । ভালোভাবে মাথা উঁচু করতে পারছেন না । কারণ আরেকটু উপরে ধসে পড়া আরেকটি দেয়াল । সারামুখ তার কংক্রিটের ধুলোয় ঢাকা । কখনও একটু উঠে বসেন । কখনও আবার শুয়ে পড়েন । এক তীব্র যন্ত্রণায় আর্

    পৃষ্ঠাসমূহ

    ফেসবুকে ইস্টিশন

    SSL Certificate
    কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর