নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

দৃষ্টি আকর্ষণ

  • ট্রেনিংরুম ঘুরে আসুন।
  • ইস্টিশনের এন্ড্রয়েড এ্যাপ্লিকেশন ডাউনলোড করুন
  • পরিষ্কার বাংলা দেখার জন্য এখান থেকে ফন্ট ইন্সটল করে নিন।
  • অনলাইনে লেখা কনভার্ট করুন
  • ইস্টিশনের নতুন ব্যানার দেখতে না পেলে/সমস্যা হলে Ctrl+F5 চাপুন।
  • প্যাসেঞ্জার ট্রেন শিডিউল
  • আপনার ব্রাউজার থেকে ইস্টিশনব্লগের সাথে সবসময় যুক্ত থাকতে নিচের লোগোতে ক্লিক করে টুলবারটি ইন্সটল করুন।
  • ওয়েটিং রুম

    এখন 8 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

    • সাইয়িদ রফিকুল হক
    • সাহাবউদ্দিন মাহমুদ
    • কিন্তু
    • পৃথু স্যন্যাল
    • তানভীর আহমেদ মিরাজ
    • নুর নবী দুলাল
    • সাজ্জাদুল হক
    • বেহুলার ভেলা

    নতুন যাত্রী

    • কথা নীল
    • নীল পত্র
    • দুর্জয় দাশ গুপ্ত
    • ফিরোজ মাহমুদ
    • মানিরুজ্জামান
    • সুবর্না ব্যানার্জী
    • রুম্মান তার্শফিক
    • মুফতি বিশ্বাস মন্ডল
    • হাসান নাজমুল
    • নরমপন্থী

    হায় গণজাগরণ


    আমরা রাজাকারের ফাসি চেয়েছিলাম,
    আমরা ধর্ষনের বিচার চেয়েছিলা।

    আমরা মানবতার কথা বলতে চেয়েছিলাম,
    আমরা ধর্মীয় বিভেদ ভুলে বাঙ্গালিকে এক হতে বলেছিলাম।

    আমরা জামাত শিবির বয়কটের কথা বলেছিলাম,
    আমরা দেশকে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় জাগাতে চেয়েছিলাম।

    সূর্যমুখী চাতক


    দেনা পাওনা'র অলকা- অষ্টাদশী ষোড়শী আমাকে বিমোহিতো করে গেল। ষোড়শী বিচরণ করতে শুরু করল রক্তের কণায় কণায়। প্রতীক্ষার রাস্তায় হাত ধরে টেনে আনেনি অলকা আমাকে, একবারও বলেনি এগার বছরের বালিকাকে পথের পাশে কান পেতে অপেক্ষা করতে। প্রতিটা মুহূর্ত ব্যাকুল হয়ে পথের বাঁকে চেয়ে থাকি অপলকে আমার মনোহর এর অপেক্ষায়। মুখে ভালবাসি না বলেও বলে যাবে বহুবার ভালবাসি, চুম্বনে আঁকবে বিরহ বেদনা, পাশে না থেকে সর্বস্ব জুড়ে থাকবে।

    রাত ও বিরাতে


    সামনে পাঁচতলা দালান ।ছাদে পাঁচটি ডিশ এন্টেনার ।মাঝে একটি সরু খুঁটি ।খুঁটিতে প্রায় একটি পাখি বসে থাকে ।ঠিক দোয়েল পাখির মত কিন্তু আকারে অনেক বড় ।পাখির নাম নিয়ে ভাবনায় পড়ি।অর্ক বলে দেখতে নাকি কোকিলের মত আমি তর্কে জড়াই না ।আমি জানি অচিন পাখি নামে।দালানের নিচে পাঁচটি গাড়ি আঁকাবাঁকা করে সাজানো।রাত তেমন বেশী না ভোঁর হতে শুরু করলো ।আমি জানালার কাঠে হেলান দিয়ে দাড়াই।চারো দিকে শুনশান নীরবতা ।সবাই গভীর ঘুমে মগ্ন ।আকাশ আজ গম্ভীর সাদা কালো মেঘে ছেয়ে আছে। দূরে লেকের ধারে ল্যাম্প পোস্ট। বাতি জ্বলছে ।সাদা নীল আলো লেকের পানিতে খেলা করছে ।একে অন্যকে ছুয়ে দিয়ে দূরে সরে যাচ্ছে ।কিসের টানে আবার নিকটে আসছে ।তাকি

    স্বাস্থ্যনীতি- ২০১১, আশীর্বাদ না অভিশাপ?


    Internee শেষ হওয়ার পরপরই অভাব শুরু হয় না, হয় ৩-৪ মাস পর থেকে'- কথাটি আমাকে বলেছিলেন এক ভাই। তখন ক্যাবলা কান্তর মত হাসলেও এখন তা বুঝিতে পারছি।
    অভাবের সাথে জড়িয়ে আছে নানাবিধ বিড়ম্বনা। এর মধ্যে ১ নাম্বার হল identity সঙ্কট।
    কারো সাথে দেখা হওয়ার সাথে সাথে কমন কিছু প্রশ্ন করা শুরু হয়ে যায় ।
    এইখানে একটি মাত্র কথোপকথন তুলে ধরছে ----
    জনৈকঃ তুমি এখন কথায় আছ ?
    আমিঃ আমি এখন আপনার সামনেই আছি।
    জনৈকঃ না,বলছিলাম তুমি কোন হাসপাতালে আছ ?
    আমিঃ এখনও কোন হাসপাতালে ঢুকিনি ।
    জনৈকঃ তাহলে করো কি ? বেকার ? ( ভাব দেখে মনে হয় আমার বেকারত্তে আমার থেকে তারই অন্তর পুরে যাচ্ছে )
    আমিঃ জি হা ।

    প্রসঙ্গঃ স্ট্যাটাস খাওয়া এবং যাত্রায় গিয়ে ফাত্রামি


    -মন খারাপ ভাই, আমার লাস্ট ১০ টা স্ট্যাটাস খেয়ে দিল স্ট্যাটাস খাদকরা।
    -আপনি কে?
    -জি, আমি তেমন কেউ না।
    -কি ছিলো আপনার স্ট্যাটাস এ?
    -জি, কবিতা, গল্প, দৈনন্দিন ঘটনা।
    -আপনার মত এইসব লিখা প্রতিদিন হাজার হাজার ফেসবুক ইউজার পোস্ট করে। তো আপনার কবিতা খেয়ে তাদের কি লাভ হবে? আর সারাদিন কি তারা আপনার কবিতা খাওয়ার জন্য ফেসবুকে বসে থাকে?
    -ইয়ে, মানে...
    -আপনি কি কোনো ফেসবুক সেলিব্রেটি? অথবা আপনার জামাত-শিবির বিরোধি লিখাগুলো কি প্রচুর লাইকড বা শেয়ারড হয়?
    -হ্যাঁ, হয়তো...মাঝে মাঝে...তবে আমি কোনো সেলিব্রেটি না।

    বিপ্লবের জন্য প্রয়োজন দৃঢ় চিত্ত: চে


    চে গুয়েভারা ছিলেন একজন আর্জেন্টিনীয় বিপ্লবী, চিকিত্সক, লেখক, বুদ্ধিজীবী, গেরিলা নেতা, কূটনীতিবিদ, সামরিক তত্ত্ববিদ এবং কিউবার বিপ্লবের প্রধান ব্যক্তিত্ব। তাঁর প্রকৃত নাম ছিল এর্নেস্তো গেভারা দে লা সের্না (স্পেনীয়: Ernesto Guevara de la Serna)। তবে তিনি সারা বিশ্বে ‘চে’ নামেই পরিচিত। চে গুয়েভারার জন্ম ১৯২৮ সালের ১৪ জুন।

    গল্প - ম্যাজিক


    দেরি করে ফেললাম। ম্যাজিক দেখাতে দেখাতে কিভাবে সময় চলে যায় ! আকাশে মেঘ জমেছে, দ্রুত যেতে হবে। এতক্ষনে হয়ত নিহাকে দেখতে পাত্র পক্ষ চলে এসেছে। পা চালিয়ে দ্রুত এলাম।

    বাবা বারান্দায় বসে আছেন। আমাকে দেখেই বলে উঠলেন, যাইরে বাজারের দিকে ঘুরে আসি। ভিতর হতে মার ফুফানো কান্নার আওয়াজ শুনা যাচ্ছে। যা বুঝার বুঝে নিলাম। এমনি হয় প্রতিবার; চলছে, চলছেই।
    আমাকে দেখেই নিহা বলল, খেতে আয় তাড়াতাড়ি, ইস ! কি কেলেভূত হয়ে আছিস! গোসল করে খেতে আয় তাড়াতাড়ি। নিহা স্বাভাবিক, ওর মার্বেল চোখে কোন কিছু নেই, কিছুই যেন হয়নি। নিহা এমনই থাকে।

    ইতিহাস পাঠ


    খরস্রোতা নদীর প্রাগৈতিহাসিক তান্ডব আমরা শ্রুত হই
    আমাদের পূর্বপুরুষের বিস্মৃত পুরানে,
    তবু হাটুজল ছপছপিয়ে সেই সব সমুদয় নদী পার হয়ে যেতে যেতে
    আমাদের হটাৎ মনে পড়ে যায় এসব গালগল্পের অসারতা ।
    আমরা চুপচাপ অভিশাপ দেই আর দীর্ঘশ্বাসকে করি প্রলম্বিত ।

    মিথ : কল্পনা ও বাস্তবতা


    মিথ হল মানব সভ্যতার চিন্তা জগতের অন্যতম অনুষঙ্গ। মানুষ নিজে বাঁচার তাগিদে এবং স্বীয় কল্পনাকে প্রসারিত করতে জন্ম দিয়েছে অসংখ্য মিথের। নিয়ানডার্থালরা সর্বপ্রথম আত্নার ধারণা নিয়ে আসে। সেখান থেকেই মিথের শুরু বলা যায়। তবে পরবর্তীতে ঐতিহাসিক নানা ঘটনা ও চরিত্রের সাথে কল্পনার মিশেল মিথকে করেছে সমৃদ্ধ। মিথ শব্দটি এসেছে গ্রীক Muthos থেকে। শব্দটির অর্থ হল anything uttered by a word of mouth.

    ‘চুদুর বুদুর’


    কোন সন্দেহ নেই এই মুহূর্তের অন্যতম আকর্ষনীয় টপিক হচ্ছে ‘চুদুর বুদুর’। আলোচনা অনেক আঙ্গিকেই হতে পারে। তবে বাজারে এই মুহূর্তে সবচেয়ে বেশী যেটার কাটতি তো হচ্ছে এর ‘শ্লীলতা’ আঙ্গিক নিয়ে। এইট অশ্লীল না শ্লীল? বাংলা অভিধান তন্ন তন্ন হচ্ছে। সুশীল, কুশীল সব সমাজই নেমে পড়েছে গবেষণায়। বিভিন্ন গালি বিশারদ দের ও সহায়তা নেয়া হচ্ছে। বুদ্ধিজীবী, কলামিস্ট সবাই কম বেশী এ নিয়ে দুকলম লিখছেন। শব্দটির শ্লীলতা খুঁজে বের করা এই মুহূর্তে একটি জাতীয় সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে।

    পৃষ্ঠাসমূহ

    ফেসবুকে ইস্টিশন

    SSL Certificate
    কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর