নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

দৃষ্টি আকর্ষণ

  • ট্রেনিংরুম ঘুরে আসুন।
  • ইস্টিশনের এন্ড্রয়েড এ্যাপ্লিকেশন ডাউনলোড করুন
  • পরিষ্কার বাংলা দেখার জন্য এখান থেকে ফন্ট ইন্সটল করে নিন।
  • অনলাইনে লেখা কনভার্ট করুন
  • ইস্টিশনের নতুন ব্যানার দেখতে না পেলে/সমস্যা হলে Ctrl+F5 চাপুন।
  • প্যাসেঞ্জার ট্রেন শিডিউল
  • আপনার ব্রাউজার থেকে ইস্টিশনব্লগের সাথে সবসময় যুক্ত থাকতে নিচের লোগোতে ক্লিক করে টুলবারটি ইন্সটল করুন।
  • ওয়েটিং রুম

    এখন 2 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

    • ফারজানা সুমনা
    • মিনহাজ

    নতুন যাত্রী

    • অরুণাভ দে
    • পাহাড়ের উপমানুষ
    • পুরানো ঘড়ি
    • স্বর্ণ সুমন
    • হেজিং
    • মং চিং প্রু
    • প্রলয় দস্তিদার
    • ফারিয়া রিশতা
    • চ্যাং
    • রাসেল আহমেদ

    অল্প কিছু কথা !!!


    পুজিবাদ নিয়ে অল্প কিছু কথা, পুজিবাদ এর নেগেটিভ প্রভাব এবং এর লোভনীয় বিস্তার আর মানুষের মুক্তির নামে মানুষের দাসত্য প্রতিষ্ঠার বেপারে লিখতে গেলে বিশাল একটি গ্রন্হ লেখা হয়ে যাবে। পুজিবাদের অপ্রয়োজনীয়তা আর মার্ক্সবাদের প্রয়োজনীয়তাকে সংক্ষেপে এভাবে বলা যায়-

    মার্ক্সবাদ একটি সমীকরন এর মত, পারিপার্শ্বিক অবস্থা ও বৈষম্য এর মাঝে এই সমীকরন কে যথাযথ রুপে কাজে লাগাতে পারলে, যে কোন প্রকার পুজিবাদ বিদ্ধংসী সফল বিপ্লব ঘটান সম্ভব, যেভাবে আমরা আমাদের মহান নেতা লেলিন রাশিয়ার তখন্কার রাজনৈতিক প্রেক্ষাপটে থেকে কিভাবে সমাজতান্ত্রিক রুপ দিতে পেরেছিলেন তার মাঝে দেখতে পাই।

    আমাকে নাস্তিক বলার কোন অধিকার তোমাকে আমরা দিইনি এবং তরুণদের প্রতি অশালীন আচরণের জন্য ক্ষমা চাইতে হবে।


    ১)
    তুমি কে হে আমাকে নাস্তিক বলার ?
    তুমি কে হে ফতোয়া দেওয়ার ?
    ধর্মের তুমি কিইবা জানো , কিইবা বুঝো ?
    আমাকে বল নাস্তিক ?
    আয়নার সামনে দাড়াও , নিজের দিকে তাকাও
    নিজেকে প্রশ্ন করো
    বাংলার জনগণকে নাস্তিক বলার অধিকার তুমি রাখ নাকি ?
    বাংলার মানুষ ধর্মপ্রাণ ,
    দেশপ্রেমে বাংলার মানুষ জীবন দিতে জানে
    তুমি কোথাকার কে হে খালেদা ?

    ব্লেড দিয়ে তৈরি করুন টেলিফোন


    শিরোনাম দেখে অবাক হচ্ছেন ? অবাক হওয়ার কিছু নেই । সত্যিই
    আপনি ব্লেড দিয়ে টেলিফোন তৈরি করতে পারবেন । আর সেই
    টেলিফোন দিয়ে আপনি আপনার
    নানুবাড়ির মামাতো বোনের
    সাথে কথাও বলতে পারবেন । শুধু লাগবে ইয়া লম্বা তার । অর্থাত্‍ তার যতদূর কথা যাবে ততদূর । এখন আপনি যদি চাঁদ পর্যন্ত তার নিয়ে যেতে পারেন
    তাহলে সাঈদি সাহেবের সাথেও

    ফ্লাডিং


    ফ্লাডিং । এটা দেখলেই মেজাজ চরম খারাপ হয়ে যায় । যারা এই কাজটা করে তারা কি ইস্টিশনবিধি পড়ে আসে নাই নাকি আবাল । সোহরাব হোসেন নামে একজনের পোস্টে প্রথম পেইজ ভরপুর । ইস্টিশনের প্রথম পেইজে ঢুকলে মনে হয় সোহরাব হোসেনের ব্লগ এ ঢুকছি । ব্যাপারটা খুবি দৃষ্টিকটু । এই ব্যাপারে স্টেশন মাস্টারের হস্ত্ক্ষেপ কামনা করছি ।

    সাভারে দুর্ঘটনা : তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়া


    এরই মধ্যে খবরে সবাই জেনে গেছেন: 'ঢাকার অদূরে সাভার বাসস্ট্যান্ডের পাশে রানা প্লাজা নামের একটি বহুতল ভবন আজ বুধবার সকালে ধসে পড়েছে। ওই ভবনে বিপণী কেন্দ্র, পোশাক প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান ও বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের কার্যালয় ছিল। এ কারণে ধসে পড়ার সময় ভবনটিতে বহু মানুষ ছিলেন বলে পুলিশ ও স্থানীয় লোকজন জানিয়েছে।'

    যে বিল্ডিংয়ে গতকালই ফাটল দেখা গিয়েছিল, সেই বিল্ডিংয়েই আজ শ্রমিকদের কাজ করানো হচ্ছিলো! এবং তার ফলাফল এখন আমরা দেখতেই পাচ্ছি।

    সুন্দরবন বাঁচান - দেশ বাঁচান


    বাঘেরহাটের রামপালে ভারতের সহযোগিতায় যে কয়লা ভিত্তিক বিদ্যুৎ প্রকল্পের চুক্তি করা হয়েছে তার ব্যয় ধরা হয়েছে ১.৫ বিলিয়ন ডলার। অনেকেই বলছেন প্রকল্পের জায়গাটি সুন্দরবন থেকে ১৪ কিলোমিটার বাইরে কেও বা বলছেন ৯ কিলোমিটার বাইরে। আমি বলছি এটা সুন্দরবনের ভেতরে, কারন এই জায়গাটি একসময় সুন্দরবন ছিল। ব্যাপক হারে জনসংখ্যা বৃদ্ধি এবং বনাঞ্চল ধ্বংসের কারনে আগামী ১০ বছর পর যদি সুন্দরবনের আরো ২০ কিলোমিটার এলাকা খালি হয়ে যায় আর কেউ একজন ১০ কিলোমিটার দূরে একটা চা দোকান দেয় তাহলে আমরা বলব এটা সুন্দরবনের ভেতরেই। রামপালের প্রস্তাবিত বিদ্যুৎ কেন্দ্রটিও সেকারনে সুন্দরবনের ভেতরেই।

    রানা প্লাজার ধসে প​ড়ার আড়ালের কার্যকারন।


    আজ সকালে সাভার বাজারে রানা প্লাজা মার্কেটটি ধসে প​ড়েছে। আহত শতাধিক।শুধু তাইনা, মার্কেটটির মালিক চেষ্টা করছে যাতে বিষয় ধামা চাপা দেয়া যায়। সাংবাদিকদের বাধা দেয়া হচ্ছে সঠিক খবর নিতে। তার পালা কুকুরের দলদের লেলিয়ে দেয়া হয়েছে ওইমুখে মানুষ যেতে বাধা দেয়ার জন্য। এর সাথে যুক্ত হ​য়েছে সাভারের ক্যাডারদের।বলা হচ্ছে মানুষ বেশি আহত হয়নি, অথচ লোকচহ্মুর আড়ালে বহু মানুষ এসে ভর্তি হচ্ছে আশেপাশের ক্লিনিকগুলোতে।

    প্রসঙ্গ : নিঃসঙ্গতার একশ বছর


    ১৯৮২ সালে সাহিত্যে নোবেল বিজয়ী গ্যাব্রিয়েল গার্সিয়া মার্কেস এর "নিঃসঙ্গতার একশ বছর" বইটা মাত্র শেষ করলাম। চমত্‍কার একটি বই। পড়ার পরামর্শ রইল।

    ফ্ল্যাপে লিখা কথা

    রাজনীতি না ইতরামি?


    তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচন ও শীর্ষস্থানীয় নেতাদের মুক্তির দাবি মানা না হলে হরতাল কর্মসূচি চলবেই। এ কথা বলে হুঁশিয়ার করেছেন প্রধান বিরোধী দল বিএনপির সাংসদেরা।
    --- সুত্র প্রথম আলো ।

    কিছু কথা : অবস্থাদৃষ্টে মেনে নিলাম আপনাদের এই হরতালের ফলে বর্তমান সরকারের পতন ঘটল,কিন্তু এরপর কি হবে?
    অস্থায়ী সরকার কে হবেন?আপনারা?হেফাজত?
    যেহেতু আদালতের রায়ের ভিত্তিতে সংসদের মাধ্যমে সংবিধান থেকে 'তত্ত্বাধায়ক সরকার ব্যাবস্থা' বাতিল করা হয়েছে সেহেতু সংসদ ছাড়া এই ব্যবস্থা পুনর্স্থাপন কি সম্ভব?

    ছাত্র শিবির যে কারনে রাজাকার


    "ইসলামী ছাত্র শিবির ধর্মের নামে মৌলবাদী একটি ছাত্র সংগঠন। অনেক সময় তারা যুক্তি করে, আমরা কি করে রাজাকার হলাম, ৭১ সালে আমাদের বেশিরভাগেরই জন্ম হয় নাই বা তখন আমাদের বয়স একবছর কি দুই বছর। আমরা রাজাকার নই, আল-বদর নই। আমি তোমাদের বিবেকের কাছে একটা প্রশ্ন রেখে যাই। অধ্যাপক গোলাম আজম ১৯৫২ রাজাকার ছিলেন না, মতিউররহমান নিজামী ১৯৬২ সালে রাজাকার ছিলেন না। কিন্তু যে ভাবমানসকে ধারন করার জন্য, যে রাজনীতিকে ধারন করার জন্য '৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধের সময় তারা রাজাকার,আলবদর, আলশামস ঘাতকবাহিনীর পরিচালকে পরিণত হয়েছিলেন সেই একইভাবমানস ধারণ করার কারণে তোমরা রাজাকার, আলবদর, আলশামসের উত্তারাধিকার বহণ করছ। আজকে রগকাটা,

    পৃষ্ঠাসমূহ

    কু ঝিক ঝিক

    ফেসবুকে ইস্টিশন

    SSL Certificate
    কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর