নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

দৃষ্টি আকর্ষণ

  • ট্রেনিংরুম ঘুরে আসুন।
  • ইস্টিশনের এন্ড্রয়েড এ্যাপ্লিকেশন ডাউনলোড করুন
  • পরিষ্কার বাংলা দেখার জন্য এখান থেকে ফন্ট ইন্সটল করে নিন।
  • অনলাইনে লেখা কনভার্ট করুন
  • ইস্টিশনের নতুন ব্যানার দেখতে না পেলে/সমস্যা হলে Ctrl+F5 চাপুন।
  • প্যাসেঞ্জার ট্রেন শিডিউল
  • আপনার ব্রাউজার থেকে ইস্টিশনব্লগের সাথে সবসময় যুক্ত থাকতে নিচের লোগোতে ক্লিক করে টুলবারটি ইন্সটল করুন।
  • ওয়েটিং রুম

    এখন 6 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

    • নিহত নক্ষত্র
    • সৈয়দ মাহী আহমদ
    • সাইয়িদ রফিকুল হক
    • কাঙালী ফকির চাষী
    • রাজর্ষি ব্যনার্জী
    • দ্বিতীয়নাম

    নতুন যাত্রী

    • ফারজানা কাজী
    • আমি ফ্রিল্যান্স...
    • সোহেল বাপ্পি
    • হাসিন মাহতাব
    • কৃষ্ণ মহাম্মদ
    • মু.আরিফুল ইসলাম
    • রাজাবাবু
    • রক্স রাব্বি
    • আলমগীর আলম
    • সৌহার্দ্য দেওয়ান

    সেই তারিক - ৪


    এখন ৬টা ১০ বাজে। চারিদিক অন্ধকার হয়ে গেছে। পরিকল্পনা আবার খতিয়ে দেখা হচ্ছে। কে কোথায় যাবে তাও ঠিক হয়ে গিয়েছে আগে। তারিকের পরিকল্পনা অনুযায়ী যুদ্ধ হবে। তারিক আবার সবাইকে সংক্ষেপে সব বলে দিল। দুটি চেক পয়েন্ট, সেখানে সাত জন করে মোট চৌদ্দ জন। বাকিরা সেই ঘাটিতে একটু আগে দেখে এসেছে সে ।এই সময় শিফট চেঞ্জ হয়ে আগে যারা চেক পোস্টে ছিল তারা এখন ঘুমায়।প্রতিদিনের রুটিন এটাই।তারিক এটাও মাথায় রেখে পরিকল্পনা করেছে।মুক্তিযোদ্ধারা তারিকের পরিকল্পনা অনুযায়ী ভাগ হবে এখন। দুই চেক পোস্টে পাঁচ জন করে মোট দশ জন যাবে। চেক পোস্ট ও ক্যাম্পের মাঝা মাঝি যায়গায় থাকবে দুই জন করে মোট চার জন। এরা সংবাদ আদান প্রদান করবে।বাকিরা থাকবে ক্যাম্প কে ঘিরে।

    মেঘলা নীল


    আজ আকাশটা মেঘলা ॥ সকাল থেকেই ঝিরঝির বৃষ্টি হচ্ছে । সাকু এলাকার মতলব ভায়ের চায়ের দোকানে বসে আছে ।

    আজ ঈদের ৩য় দিন । সাকু ঈদের দিন তার এলাকার সব পিচ্চিগুলোকেই সালামি দিয়েছে । বিনিময়ে তারা দিয়েছে লম্বাআআ করে একটা সালাম ! সাকু তারপর ওদেরকে নিয়ে রেললাইনের ওপারে মেলায় গিয়েছে ।

    সাকুর মনে আজকাল কেমন সব যেন অনুভূতি জাগে ! যেন পৃথিবীর সব মায়া - মমতা এক করে কাউকে দিতে ইচ্ছে করে ! তখন মনের মাঝে একটা সুন্দর মায়াবী ছবি ভেসে ওঠে ॥ সাকুর মনে হয় তাকে যেন কোথায় দেখেছিল । তখন শুধুই তার পরিচয় জানতে ইচ্ছে হয় । কিন্তু কিছুতেই পারে না ।

    মর বাঙ্গালী মর


    বছর দুয়েক আগে কোথায় যেন হোকামো  সাইজের ( হোৎকা-কালা-মোটা) কয়েকজন নর্তকির ছবি সম্বলিত  "নাচ বাঙ্গালী নাচ" নামে  বাংলা সিনামার একটা এক্সক্লুসিভ পোস্টার দেখে চরম বিমলানন্দ ভোগ করছিলাম, সেই সাথে অবশ্য মারাত্নক বিস্মিত ও হৈছিলাম - এই শরীর নিয়া তারা এদ্দিন এভাবে  নাচল অথচ ভুমিকম্প হওয়া দুরে থাক,  ভুমিকম্পের একফোটা আলামত ও মালুম হয় নাই,  এটা ক্যাম্নে সম্ভব !!!!!!  আর তাছাড়া সুবিশাল এই শরীর সত্ত্বে ও এত কসরত কৈরা এরা নাচে ক্যাম্নে, তাও আবার ক্যামেরার সামনে !!!??
    সাহস বটে !! এদের নাচতে মুঞ্চাইলে তো গোপনেই নাচা উচিত,  তাদের মুল মন্ত্র হওয়া উচিত -

    চুপি চুপি নাচ কেউ জেনে যাবে ,

    আমি ভেঙ্গালী নয়।।আমি গর্বিত বাংলাদেশী।


    ও ভাই শোন!! আমাকে তুমি চেন?
    না !!!
    তবে শোন আমার পরিচয়।

    জন্মেছি সবুজ শ্যামল এই বাংলায়।
    শৈশব কেটেছে সবুজ মায়ায় ধূলো আর বালিতে গড়াগড়ি করে।
    প্রতিনিয়ত গ্রহন করছি এই দেশের সুস্থ নির্মল অক্সিজেন।
    ভোগ করছি এই মাটির উপরে জন্মানো আল্লাহ'র অসংখ্য নেয়ামত।
    মরে গেলে চলে যাব এই শুষ্ক কোমল মাটির অভ্যন্তরে।

    অনধিকার চর্চা !!!


    একজন কাছের মানুষ্‌কে তার এক্‌টি বিষয়ে সরাসরি বলেছিলাম যে--
    “এই ব্যাপারটা এইরকম হলে ভাল হত”।
    সম্ভবত আমার এই কথাটার জন্য সে মনে কষ্ট পেয়েছে। অনিচ্ছায় তার মনে কষ্ট দেওয়ার জন্য তার কাছে ক্ষমা চেয়ে তার উদ্দেশ্যে বলতে চাই “মানুষের ভালমন্দ বলা এবং ভুল হলে তা ধরিয়ে দেওয়া তার একান্ত কাছের মানুষের অন্যতম দায়িত্ব।”হয়ত সেই দায়িত্ববোধের থেকেই অহেতুক অনধিকার চর্চা করেছি।

    নিরুপমা, আমি এখন কষ্ট কিনি


    আমার আছে নিরুপমা
    তার চোখে আজ জল,
    কেউ মারে নি, কেউ বকে নি,
    করেছে শুধুই ছল।

    ছল করাটা বেজায় খারাপ
    তবু ছলের তরে সবাই করে আলাপ,
    শূন্যতাতে বিশ্বাস রেখে
    বকে শুধু বাজে প্রলাপ।

    আমার আছে নিরুপমা
    তার চোখে আজ জল,
    কেউ মারে নি, কেউ বকে নি,
    করেছে শুধুই ছল।

    ছল করাটা বেজায় খারাপ
    তবু ছলের তরে সবাই করে আলাপ,
    শূন্যতাতে বিশ্বাস রেখে
    বকে শুধু বাজে প্রলাপ।

    ছল করে সব বন্ধু হয়
    হয় প্রিয়তম,
    ছলের নেশা কাটলে সবাই
    দুখ দেয় পাহাড়সম।

    ছলের নেশায় কেন বিভোড়
    আজকের নব প্রজন্ম!
    ছল ছোবলে করবে কত
    নব জীবন বিপন্ন?

    নিরুপমার অশ্রু আমি
    মুছতে পারিনি বলে,
    খুব নীরবে আমায় ছেড়ে

    শিবিরের হামলায় গুরুতর আহত তন্ময়ের অবস্থা এখনও আশঙ্কা মুক্ত নয়


    পবিত্র ঈদ উল ফিতর পরিবারের সাথে পালনের জন্য বাড়ি গিয়েছিল বুয়েটের ছাত্র ব্লগার তন্ময় আহমেদ মুন। ঈদ তার কেমন কেটেছে জানিনা কিন্তু শনিবার রাত সাড়ে দশটার দিকে রংপুর-ঢাকা হাইওয়ের গাইবান্ধা জেলার পলাশবাড়ীতে শিবির সন্ত্রাসীদের হামলায় গুরুতর আহত হয়ে বর্তমানে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। তার অবস্থা এখনও আশঙ্কা মুক্ত নয়। সে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ও বুয়েট ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক এবং গণজাগরণ মঞ্চের কর্মী।

    তন্ময় আসবে


    উৎসর্গঃজামাত-শিবিরের হামলায় গুরুতর আহত তন্ময় আহমেদ।

    তিথী বসেছিলো পার্কের এক কোনায় কাঠের একটি বেঞ্চিতে। কোনো এক অজ্ঞাত কারনে বেঞ্চির অর্ধের সবুজ রঙ করা আর আরেক পাশ কালো। ব্যাপারটা তিথীর চোখ এড়ালো না। কিন্তু সেসব নিয়ে তিথীর কোন মাথা ব্যাথা নেই। তার সমগ্র চিন্তা চেতনা জুড়ে শুধু একটাই ভাবনা-কেমন হবে তার প্রতীক্ষিত মানুষটি?
    সেকি খুব লম্বা হবে? তিথীর উচ্চতা ৫ ফুট ৫ ইঞ্চি। সেটা নিয়ে তার ছোটবেলা থেকে আক্ষেপ। যদি ছেলেটি অনেক লম্বা হয়, তাদের কি মানাবে? দুজ'ন পাশাপাশি হাত ধরে হাটলে খারাপ লাগবেনা তো?

    কনক সখী পাখি


    কনক সখি, কনক সখি,
    সবাই তোমায় বলছে ও কি!
    শালিক চড়াই কাক ছাতারে
    সক্কলকে হকচকিয়ে
    বণিক বধূ কেবল তুমি
    গয়না বেড়াও চকমকিয়ে?

    পৃষ্ঠাসমূহ

    ফেসবুকে ইস্টিশন

    SSL Certificate
    কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর