নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

দৃষ্টি আকর্ষণ

  • ট্রেনিংরুম ঘুরে আসুন।
  • ইস্টিশনের এন্ড্রয়েড এ্যাপ্লিকেশন ডাউনলোড করুন
  • পরিষ্কার বাংলা দেখার জন্য এখান থেকে ফন্ট ইন্সটল করে নিন।
  • অনলাইনে লেখা কনভার্ট করুন
  • ইস্টিশনের নতুন ব্যানার দেখতে না পেলে/সমস্যা হলে Ctrl+F5 চাপুন।
  • প্যাসেঞ্জার ট্রেন শিডিউল
  • আপনার ব্রাউজার থেকে ইস্টিশনব্লগের সাথে সবসময় যুক্ত থাকতে নিচের লোগোতে ক্লিক করে টুলবারটি ইন্সটল করুন।
  • ওয়েটিং রুম

    এখন 8 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

    • ফারুক হায়দার চৌধুরী
    • নরসুন্দর মানুষ
    • শিকারী
    • ফারজানা সুমনা
    • নুর নবী দুলাল
    • আবদুর রহমান শ্রাবণ
    • মওদুদ তন্ময়
    • অজল দেওয়ান

    নতুন যাত্রী

    • প্রলয় দস্তিদার
    • ফারিয়া রিশতা
    • চ্যাং
    • রাসেল আহমেদ
    • আবদুর রহমান শ্রাবণ
    • হিপোক্রেটস কিলার
    • পরিতোষ
    • শ্যামা
    • শিকারী
    • মারিও সুইটেন মুরমু

    ব্লগার হত্যার মধ্যকথা: ১


    মূলত কূটনীতি খেলে প্রতিপক্ষকে নির্বাচন থেকে দুরে সরিয়ে ২০১৪ সালে ৫ই জানুয়ারী নির্বাচন জিতে সরকারে এলো হাসিনা| এই উপায়ে নির্বাচিত হাসিনা সরকারের আশঙ্কা দেখা দিল, যে তাদের জনসমর্থনের খামতি দেখা দেবে কি না! সরকার টিঁকবে তো?

    #অযাচিত_বাক্যব্যয়...!


    যাদের আমরা মৌলবাদী বলি তারা কিন্তু সঠিকটাই করছে, যা যা যেভাবে করতে বলা হয়েছে তা-ই করছে, অর্থাৎ ওর মূল ধরেই এগোচ্ছে, আর তাদের জন্য কিন্তু এই মর্ডারেট ধার্মিকরা কখনোই 'মাথার মূল্য' ঘোষণা করেনা, কিন্তু যারা এর প্রতিবাদ করছে, ঐ ভুলগুলো সনাক্ত করছে তাদেরকে প্রতিনিয়ত অপমৃত্যুর ভাবনা ভাবতে হচ্ছে; আচ্ছা অভ্র বলতে পারো- যাদের কে ওর নাস্তিকতার জন্য হত্যা করতে একত্রীভূত, তারা কি কখনো দেখেনি এ ধর্মের ব্যবহারে কত অসহায় প্রাণ যাচ্ছে প্রতিদিন, কোথায় থাকে তখন তাদের সৃষ্টিকর্তা(কথিত আমার চোখে); সে কি অন্ধ, সে নাকি অতীত, বর্তমান, ভবিষ্যৎ ঠিক করে দিয়েছে! তাহলে তো কিচ্ছু পাল্টানোর নেই, কারণ তাতো পূর্বনির্ধারিত!

    নর্থ কোরিয়ান ফ্যাক্টস, নট ফিকশন!



    এইটা সেই দেশের মিলিটারী প্যারেড, যেই দেশের রাজধানীতেই বিদ্যুতের অভাবে ঘরের বাতি জ্বলে না। ফ্রিজ কিনতে লাইসেন্স লাগে, ইলেকট্রিক কেতলি ইউজ কইরা ধরা খাইলে বহুবছর জেল। যেই দেশের মানুষ সরকার অনুমোদিত ১০-১৫ টা হেয়ারকাটের বাইরে হেয়ারকাটও নিতে পারে না। যেইদেশে ধর্মগ্রন্থ্য রাখা মারাত্মক অপরাধ, যাদের দেশে প্রতি হাজার মানুষের বিপরীতে মাত্র ১ টা গাড়ি। অনাহারে লাখ লাখ মানুষ মরা যেইদেশে প্রতিবছরের স্বাভাবিক ঘটনা, রাষ্ট্রের ফাউন্ডিং ফাদার কিংবা তার উত্তরসূরীদের মরণ দেইখা কিংবা স্মমুখে দেইখা আবেগে না কান্নাকাটি করলে কিংবা সেই কান্নারেও যথাযথ মনে না হইলেও বিচার হয়, যেই দেশের রাজধানীর ভিতরেও এলিট এরিয়া আছে যার সীমানা পাহারা দেয় সৈন্যরা যাতে গরীব কেউ না আসতে পারে, যেই দেশে রাজধানীতে বসবাস কিংবা আসবার জন্য অনুমতি লাগে। বিশাল হাইওয়েতে যেইখানে ঘন্টায় গোটাদশেক গাড়ির দেখা পাওয়া দুস্কর। দেশে যতগুলা প্রাইভেট কার আছে তার চেয়ে সম্ভবত ট্রাফিক পুলিশের সংখ্যা বেশি এবং তারা প্রায় সকলেই আকর্ষণীয়া নারী।

    চেনা বেদনা


    পরদিন সকালে ঈদের নামাজ হয়, ওদিকে জহির নদীর পাড়ে বসে।পাশেই শুন্য খাচাটার দরজা খোলা। শালিকটা চারপাশে ঘুরছে আর কিচিরমিচির করছে। আজ ওর খুব আনন্দ হচ্ছে। কিন্তু উড়ে হারিয়ে যাচ্ছে না। কিচিরমিচির করে যেন জহিরকে বলছেঃ
    -"তোমার বেদনাটা আমার বহুদিনের চেনা।"

    ধর্মগ্রন্থে বিজ্ঞান রঙ্গ। পৃথিবীর অখ্যাত ধর্মের বিজ্ঞানময় কিতাবগুলোর বিজ্ঞানময় বর্ণনা।


    সে যেহেতু বিশ্বাস করে তার বিশ্বাসটাই সত্য তাই সে ধরেই নিলো তার ধর্মের কথাগুলো বিজ্ঞানের বিরুদ্ধে যাবে না। এই অন্ধবিশ্বাসে সে তার প্রভু পাগলা বাবার নামে রচিত লেখাগুলো ভালো করে দেখতে লাগলো। পড়তে পড়তে তার মনে হলো যে পাগলা বাবার বাণীগুলোর মধ্যে বিজ্ঞানের কথা গুলো লেখা আছে। সে উত্তেজিত হয়ে একটি বই লিখে ফেললো তার ধর্মগ্রন্থটি কতটা বিজ্ঞানময় এবং বিজ্ঞানের আবিষ্কারের কথা কিভাবে সেই দুই হাজার বছর আগের তার ধর্মগুরুর লেখাগুলোর সাথে মিলে যাচ্ছে সেটা দেখিয়ে।

    ধর্মরাজনীতির দৌড় শোভাযাত্রার অমঙ্গল সাধন পর্যন্তই


    ধর্মবর্ণ নির্বিশেষে অধিকাংশই নির্ভেজাল সুবিধাভোগী।সম্ভবত ধর্মে টিভি দেখা, ছবি দেখা, ছবি আঁকা, ক্রিকেট খেলা, নীলজগতে পায়চারি করাতে নিষেধাজ্ঞা থাকলেও সবই চাহিদামত মিটাইয়া এখন যত দোষ হইয়া যায় মঙ্গল শোভাযাত্রার। অথচ এই সব অনুষ্ঠান হল সব ধর্মের মিলনমেলা। নিশ্চিত ভবিষ্যদ্বাণী দেওয়া যায়, নিয়মিত যদি সব ধর্মের মানুষের সাংস্কৃতিক মিলন ঘটে তাইলে এদেশে সাম্প্রদায়িকতা বলে কিছু থাকবে নাহ।

    গরুর মাংসে বিক্ষোভ ও সমাচার


    যে কেউ ভুলে কিংবা ইচ্ছাকৃত ভাবে কয়েকটা হিন্দু ছেলেকে গরুর মাংস খাইয়েছে তাই তারা ভাংচুর করছে। ভাংচুর করাটা অন্যায় হলেও তাদের ক্ষোভটা যথার্থ। কারণ আমাদের মুসলিমদের ও কেউ এভাবে শুকোর খাওয়াইলে আমরা প্রতিবাদ করতাম। সুতরাং যাদের কারণে এসব হইছে তাদের যেন বিচারের আওতায় আনা হয়। নিউজগুলো একটু ভালোভাবে পড়লেই অনুমান করা যায় ঘটনার পেছনে কারা ছিল??

    ওয়াজশিল্প!


    সূচনাঃ শ'য়ে শ'য়ে হাজারে হাজারে মানুষ অসীম সওয়াবের আশায় শীতের রাত্রী উপেক্ষা করে কোন এক বিশেষ জায়গায় একত্রিত হয়ে সারারাত জেগে খানিক কেঁদে খানিক হেসে নির্দিষ্ট কিছু শিল্পীর শিল্পকলা শুনে সকালে যেই লাউ সেই কদু হওয়াকেই ওয়াজশিল্প বলা হয়।

    পৃষ্ঠাসমূহ

    ফেসবুকে ইস্টিশন

    SSL Certificate
    কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর