নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 6 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • নগরবালক
  • নুর নবী দুলাল
  • শ্মশান বাসী
  • মৃত কালপুরুষ
  • গোলাপ মাহমুদ
  • সজীব সাখাওয়াত

নতুন যাত্রী

  • নীল মুহাম্মদ জা...
  • ইতাম পরদেশী
  • মুহম্মদ ইকরামুল হক
  • রাজন আলী
  • প্রশান্ত ভৌমিক
  • শঙ্খচূড় ইমাম
  • ডার্ক টু লাইট
  • সৌম্যজিৎ দত্ত
  • হিমু মিয়া
  • এস এম শাওন

আপনি এখানে

মুফতি মাসুদ এর ব্লগ

ঝাড়ুভ্যর্থনা


অনন্ত জলিল পাগড়িময় তুমি
বর্ষা অাপুর স্বামী,
যত টুংটাং হে পীর মহান
তোমারি মতন দামি ।

সিনেমা নাটক পাপেরে ছাড়িয়া
তেঁতুল চরণে পড় লুটাইয়া,
তোমারি লাগিয়া মোল্লার ভক্তি
তোমারি পয়সাকামী।

তরল টপিক ধর্ম পন্থা
জোব্বার চিপা গলি
ডাকিছে জলিল সুপথে
সবারে মিষ্টি বাক্য বলি।

সে পথে মোচন হয়ে যায় পাপ
সে পথে শান্তি বায়বীয় চাপ
হে নূরানি লোক
হইয়োনা অার গুনার সিনেমাগামী।

হিউম্যান ডাক্তার


কোনো ব্যক্তি বা ব্যক্তিবর্গের বিরুদ্ধে এ কবিতা লিখিনি, এটা হৃদয়ের তাড়না থেকে লিখেছি। নারী নির্যাতনের উগ্র সমর্থকদের বিরুদ্ধে লিখেছি এটি।
সুতরাং নারী নির্যাতকদের অনুভূতি অাহত হলে অামার কিছু করার নেই।
~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~
হিউম্যান ডাক্তার গাল ভরা রাগ তার
সন্দেহে বউ মারে পিটিয়ে,
মার চলে রাতদিন নারীজাতি পরাধীন
মানবতা যান তিনি বিলিয়ে।

ইয়া বড় ঝাড়িদার, চুল টানে ফরিদার
বলে কথা মানবতা সকাশে,
থিওরিতে পড়ে টান, এই বুঝি যায় মান
উস্কাতে অতি বড় পাকা সে।

গরুত্বের গুরুত্ব


গরুবাদীরা গরু হয়ে অাজ পাড়ায় পাড়ায় নাচে,
গরুকে ওদের বাঁচাতে হবে, যদিও না মানুষ বাঁচে।

গঙ্গানদের দূষিত পানি খেয়ে,
হেঁরে গলায় যায় গরুত্বের গান গেয়ে।

নর্দমাতে পূণ্য স্নানে যেয়ে,
লোক দেখলে অাবাল চোখে থাকে শুধু চেয়ে!

কানের পর্দা বেশ খানিকটা ভারি,
কপালমাঝে গোপাল সারি সারি।
শুনতে পাওনা? বললে করে অাড়ি।

হাতে সুতা, গলায় তাগা, ঘরেতে ঠাকুর,
বাইরে এসে গলায় ধরে মুক্তকথার সুর।

গরুর প্রতি স্নেহ-দয়া অচিন্ত্য অসীম,
বললে অাবার গরুর কথা, বলে ঘোড়ারডিম!

গুপ্তকেশ অার রয়না সুপ্ত, দেখে সকলে,
লাজলজ্জার মাথা খেয়ে চলে নকলে।

নিরালোক নিঝুম


তোমারি নাম করেছি জপ জনম জনম ধরে,
তোমারি হৃদমাঝারে দেহমন অামার সদা বসত করে।

সেই সন্ধ্যের চাঁদোয়ামাখা মুখে, দিয়েছিনু চুমু কি অপূর্ব নিবিড় এক সুখে;
কি জানি কি অাবেশে, জড়িয়ে ধরেছিনু গভীর মনোনিবেশে।

কপালে গন্ডে বক্ষে....যেখানে গেলে নাকি হয়না অার রক্ষে,
সুধার মাঝে নিভেছিল সব ক্ষুধা, ধরণী যেন গিয়েছিল মোর পক্ষে।

এখনো ডাকে গাছে পাখি,
লালে ভরিছে পলাশ-শিমুল শাখী।
প্রহর গুনিছে চাতক, প্রেমের লাগি,
রয়েছি অাজো তোমারি তরে নিশিথ রাতি জাগি।

রোমান্টিক অাল্লাহ চাই, ভালোবাসার বিকল্প নাই!


শ্রদ্ধেয় অাপনি!
ঋতুরাজ বসন্তের দ্বিতীয় দিন অাজ। ঋতুরাজ এলে অামি অামার ভাড়া বাসার ছাদের ফুলগাছগুলির পাশে বসে সময় কাটাতাম মাঝেমধ্যে। কিছুক্ষণ পরই অাবার উঠে যেতে হত।
মুসলিমদের মহান ধর্মে সারাদিনে পাঁচবার নামাজ পড়া ফরজ, অর্থাৎ কোন সৃজনশীল চিন্তা বেশি সময় ধরে করার সুযোগ নেই।
অাজান হলেই নামাজ পড়ানোর জন্য ছুটতে হতো মসজিদে।
অবোধ্য, অপ্রয়োজনীয় কিছু উঠবোস করে মুসুল্লিরা চলে যেত যার যার বাড়ি কিংবা ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে।
মুসুল্লিরা জানেনা, তাদের ইমাম সাহেব নামাজে কি পাঠ করলেন। ইমাম সাহেব জানলেও সঠিক কথা না বলে বরং ঘুরিয়ে বলেন।

অালহাজ্ব মোকলেছ


অালহাজ্ব মোকলেছ
চুরি করে নেকলেছ
খোদাপাকের পেয়েছে অাশীষ,
সবকিছু খোদা পারে
মান দেয় বান্দারে
বুঝিস কি নাই-বা বুঝিস।

অামাদের মডার্ন বান্টিপা


বান্টি অাপা, অাল্ট্রামডার্ণ অাপা হিসেবে 'অাপামহলে' তার দুর্নাম অাছে। বান্টিঅাপার স্বামী একটি বেসরকারি ব্যাংকের প্রধান ব্যবস্থাপক। গায়ের রং ফর্সা হওয়ার সুবাদে বান্টিপার কদর সবসময়ই ছিল এবং অাছে।
স্টুডেন্ট লাইফে বহু পুরুষকে নাকে দড়ি দিয়ে ঘুরিয়েছেন। চাইনিজে, পার্কে, শপিংমলে কিছুদিন ঢুঁ দিয়ে পকেট গড়েরমাঠ করে এবার রিপ্লেস করতে হয় গাধা; নতুন গাধার অাগমন ঘটে।

মালাউনের মেয়ে


পেয়েছ কি মহাসুখ?

বন্ধুকে বলেছ কি - করেছ তুমি রেপ,
কি মজাটাই পেয়েছ বুঝি - কি অপূর্ব খেপ!

পটিয়েছিলে বেশ কিছুদিন, হয়নি তাতে কাজ,
অবশেষে করেই ফেললে.... ছুঁড়ে দিয়ে লাজ!

চিৎকার করে কেঁদেছিল সে, গামছাবাঁধা  দিলে,
কি সুবিধাটাই হলো তোমার, একাই সুখ নিলে!

কতবড় বীর যে তুমি, বন্ধু বলেছে নাকি,
বন্ধুকে বলেছ - অারো নাকি, তিনটে খেপ বাকি!

সাবাশ বেটা, পুরুষ তুমি, কি অপূর্ব বল,
রেপের সময় অাটকাতে পার, অার্তনাদের গল!

এর অাগেও শিউলি রাণীকে পেয়েছ পাটেরক্ষেতে,
হয়েছে দেখা, বীরেন স্যারের কোচিংয়েতে যেতে।

বিশিষ্ট নাগরিক


একটি শিশু জন্মগ্রহণ করে, সে থাকে নিষ্পাপ ক্লেদমুক্ত। এ শিশুটিকে ঘিরে কত মানুষের অানন্দ, কত স্বপ্ন, কতশত অনুভূতি!
শিশুসুলভ বালখিল্য, বড়দের অাদিখ্যেতা, খেলার সাথীদের নির্মলতায় সে তখনো বোঝেনা সে কত নির্মম ভবিষ্যতের পথে এগোচ্ছে। এমন এক ভবিষ্যৎ যেখানে সে হয় শোষক হবে নয়তো শোষিত।
হয় বিশিষ্ট মানুষ হবে, নয়তো সাধারণ।
হয় বন্দুকের নল অন্যের দিকে তাক করবে, নয়তো তার নিজের দিকেই নলটি ঘুরবে।
ছোট্ট শিশুটি বড় হতে থাকে, অার ক্রমেই সে বদলে যেতে থাকে।

প্রজেক্ট দেবিখা - ২


উপক্রমণিকা :- প্রজেক্ট দেবিখা মুসলিম সমাজের একটি বহুল প্রচলিত ও জনপ্রিয় প্রজেক্ট। এটি একটি বিজনেস পলিসিও বটে। এই প্রজেক্টের মূলধনের নাম দেনমোহর, অার বিনিমেয় পণ্যের নাম হালাল নারীর দেহ।

সংজ্ঞা : দেবিখা দিয়ে বোঝানো হয় 'দেহের বিনিময়ে খাদ্য।'

পৃষ্ঠাসমূহ

বোর্ডিং কার্ড

মুফতি মাসুদ
মুফতি মাসুদ এর ছবি
Offline
Last seen: 2 weeks 3 দিন ago
Joined: সোমবার, আগস্ট 14, 2017 - 6:00অপরাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

কু ঝিক ঝিক

ফেসবুকে ইস্টিশন

কপিরাইট © ইস্টিশন ব্লগ ® ২০১৮ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর