নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 3 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • নুর নবী দুলাল
  • সৌম্যজিৎ দত্ত
  • নগরবালক

নতুন যাত্রী

  • নীল মুহাম্মদ জা...
  • ইতাম পরদেশী
  • মুহম্মদ ইকরামুল হক
  • রাজন আলী
  • প্রশান্ত ভৌমিক
  • শঙ্খচূড় ইমাম
  • ডার্ক টু লাইট
  • সৌম্যজিৎ দত্ত
  • হিমু মিয়া
  • এস এম শাওন

আপনি এখানে

অ্যাডল্ফ বিচ্ছু এর ব্লগ

তোমার যত জিজ্ঞাসা


আমাকে জিজ্ঞেস করো না, ভাল আছি কি না।
মিথ্যে বলতে বলতে আজ আমি মৃতপ্রায়।

আমাকে বরং তুমি জিজ্ঞেস করো, তোমার কি মন খারাপ?
আজ কি ঘর থেকে বেরিয়েছ নাকি
সারাদিন ঘরেই ছিলে, চুপচাপ, একান্ত নিরিবিলি?
আমাকে তুমি জিজ্ঞেস করতে পারো, গতকালকের ঝড়ে কটা আম তোমার উঠোনে পড়েছিল?
কতগুলো ভাল ছিল কিংবা কতগুলো মন্দ?
তুমি বরং আমাকে জিজ্ঞেস করতে পারো, পুকুরপাড়ে জারুলের বনে কটা মাছ গতকাল ভ্রমণে বেরিয়েছিল?

তোমার জন্য আমার যত ঘৃণা


তোমাকে দেখলেই ইদানীং রাগগুলো মেঘের মত জমে যায়।
প্রকাণ্ড বজ্রপাতে বৃষ্টির মত ঘৃণা ঝড়ে পড়ে অভিমানের পাহাড় বেয়ে।
আমি ঠায় দাঁড়িয়ে ভিজতে থাকি।
আমার ঠান্ডা লাগে না।

তোমাকে যে আঙুল একদিন ভালোবাসত
মায়ের মমতায় স্পর্শে স্পর্শে ততোধিক কোমলতায় কবিতা লিখত
সে আঙুল গভীর বিষাদের ক্ষতে জর্জরিত।
নিজেকে ঢেকে নিয়েছে অস্পৃশ্য ব্যান্ডেজে।
মাতৃস্নেহ এখন তার নিজেরই দরকার।

তোমার চোখ এখন আর আমার হৃদয়ে কাঁপন ধরায় না।
আমার হৃদয় ব্যাপক দুঃসাহসী হয়ে তোমার অংশটা তার শরীর থেকে
ইতোমধ্যে কেটে ফেলেছে!

জীবন


জীবন
সে তো পাহাড়ের চেয়েও উঁচু
উচ্চতর মেঘ ভেদ করে উঁকি দেয়
নাক্ষত্রিক দেহ দেখে বিমুগ্ধ হয়
এমন সত্ত্বা।
জীবন
সে তো বৃক্ষের শিকড়ের মত ফুটিয়ে তোলে ভূমিচাদরে নাকশিক ভালবাসা।

সুইসাইডাল নিমন্ত্রণপত্র


তোর বিয়ের নিমন্ত্রণপত্রের উল্টো পাশে আমি সুইসাইড নোট লিখলাম-
আমার মৃত্যুর জন্য দায়ী ডাকপিয়ন।
রাষ্ট্র তো তাকে ক্রসফায়ারের হুমকি দেয়নি।
সে কেন নিমন্ত্রণপত্র নিয়ে এলো?
আর তুইও তো নির্দোষ।
ঈশ্বরের হাতে জন্ম, মৃত্যু এবং বিয়ে।
স্কুলে ভর্তির আগে আমার মা বলেছিল।

তুমি কি বেঁচে আছ?


তুমি কি বেঁচে আছ?
তোমাকে দেখলে ইদানীং ‘প্রবালের মত বেঁচে থেকেও মৃত’ - বলে মনে হয়।
মনে হয় আর এক মিনিট পরই, তুমি, দপ করে নিভে যাবে।
এসরেণু উড়ে উড়ে ততোধিক ধূসরিত হবে যতোধিক
তোমার মলিন মুখ।

তোমার কপালে এত্তো বড় টিপ!
আমার হৃদয় ওখানে স্বচ্ছন্দেই ঢুকে পড়তে পারে এবং
পড়েও।
নজরুল প্রেমিকাদের মত তোমার চুল এতো এলোপাতাড়ি আর উশৃঙ্খল যে
আমি ওখানে বারংবার নবশৃঙ্খলে আটকা পড়ি
বড্ড সুশৃঙ্খল ভাবে।

ক্যান্সার


যেসব চুমুগুলো আমাদের খাবার কথা ছিল
সেসব পচে গিয়ে দখল করে নিয়েছে নাগরিক ডাস্টবিন
এবং
সেসব ডাস্টবিনেও পচন ধরেছে!
বস্তুত
কুকুররাও সেসব ছুঁয়ে দেখে না; ক্যান্সারের ভয়ে।

কুকুরদেরও কি ক্যান্সার হয় তোমার হৃদয়ের মত?

দেবী


মেয়েটির বস্তুত কোন সমস্যা ছিল না।
আর পাঁচটা বাঙালি মেয়ের মতই লাল শাড়ীতে তাকে বেশ মানাত।
সিঁথি করত ডানদিকে বেশিরভাগ সময়।
নির্লিপ্ত ঠোঁটে যেন মধু লেগে থাকত
উপরে-নীচে দিবায়-প্রত্যুষে প্রত্যহ।

মেয়েটির আহামরি কোন সমস্যা ছিল না।
তার কণ্ঠ সংবাদ উপস্থাপিকার মত বলিষ্ঠ না হলেও
আমার হৃদয় কাঁপিয়ে দেয়ার জন্য যথেষ্ট ছিল।
তার গালে ছিল সাদা মেঘের প্রলেপ আর হাতে ছিল
ঘন মাখনের মতন পিচ্ছিল আস্তরণ।
বিভিন্ন উৎসবে প্রয়োজনে-অপ্রয়োজনে ছাল-ছুতোয়
হাত ধরলেই কেমন নরম নরম লাগত!

ব্যর্থ আমি


আমি সম্ভবত আর কোনদিনও সফল হতে পারব না।
ব্যর্থতায় ভরে উঠেছে আমার সমস্ত দেহ।
ছড়িয়ে পড়া শুরু করেছে তারা গ্রহ থেকে গ্রহান্তরে
আলোর সাথে মিশে গ্যালাক্সি থেকে গ্যালাক্সিতে।
ছড়িয়ে পড়ছে গুচ্ছে গুচ্ছে
মহাজাগতিক শূন্য স্পেস তারা ভরে দিচ্ছে পরম আবেগে।

আমি সম্ভবত আর কোনদিনও সফল হতে পারব না।
রাস্তায় হাঁটতে গেলে ছুটন্ত বাস আমার দিকে ধেয়ে আসে
আর ফুটপাতে ধেয়ে আসে নগরীর সমস্ত সফল মানুষ।
এক এক করে তারা আমার পাশ কাটে।
সভ্য ছুরির বদলে বুকে ঢুকিয়ে দেয় অসভ্য রক্তাক্ত সফলতার হাসি।

জগতের সমস্ত সাফল্য সিগারেটখোরদের অধিকারে যাবে


জীবনে তো একটাও সিগারেট খাইলি না। কি করলি এই জীবনে?
বন্ধুর এই বাচ্যে আমি রীতিমত আৎকে উঠলাম। অবশ্য মুখে কিছু বললাম না। কপালে তৎক্ষণাৎ চিন্তার ভাঁজ পড়ল। আচ্ছা, আমি কি সত্যি জীবনে কিছু করিনি? আমার জীবনটা কি এই সিগারেট না খাওয়ার জন্যই ব্যর্থ হয়ে গেল? হায় হায়! এ তো বড় চিন্তার বিষয়!

আমার নবজন্ম সাধ


আমার নবজন্ম সাধ, তোমার দুটো নখর আঙুল ঘষে
প্রাচীনকালের শাশ্বত গুহামানবের বেশে
তুমি আমার বুকে আগুন জ্বালাবে।
কিন্তু তুমি আগুনের চাষাবাদ করলে তোমার প্রেমিকের অনুর্বর বুকে।
মরুভূমিতেও সবুজ ঝোপঝাড় জন্মায়। জানি। আরও জানি,
উট কাঁটা খেতে ভালোবাসে।

তোমার চুলের প্যাঁচ প্রতি দুই ওয়াক্তে আমার মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করে।
মৃত্যুর আগে অর্ধপূর্ণ ফুসফুস নিয়ে আমার পূর্ণ শ্বাসকষ্ট হয়।
তোমার প্রেমিক অ্যাশট্রে পোড়ায় বেনসনের ধ্বংসাবশেষে।
একটা দামী ইনহেলার তুমি তার কাছ থেকেও নিতে পারতে।

পৃষ্ঠাসমূহ

বোর্ডিং কার্ড

অ্যাডল্ফ বিচ্ছু
অ্যাডল্ফ বিচ্ছু এর ছবি
Offline
Last seen: 2 weeks 5 ঘন্টা ago
Joined: বৃহস্পতিবার, জুলাই 27, 2017 - 8:07অপরাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

কু ঝিক ঝিক

ফেসবুকে ইস্টিশন

কপিরাইট © ইস্টিশন ব্লগ ® ২০১৮ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর