নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 6 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • নগরবালক
  • নুর নবী দুলাল
  • শ্মশান বাসী
  • মৃত কালপুরুষ
  • গোলাপ মাহমুদ
  • সজীব সাখাওয়াত

নতুন যাত্রী

  • নীল মুহাম্মদ জা...
  • ইতাম পরদেশী
  • মুহম্মদ ইকরামুল হক
  • রাজন আলী
  • প্রশান্ত ভৌমিক
  • শঙ্খচূড় ইমাম
  • ডার্ক টু লাইট
  • সৌম্যজিৎ দত্ত
  • হিমু মিয়া
  • এস এম শাওন

আপনি এখানে

বিপ্লব পাল এর ব্লগ

ট্রাম্প এবং মোদির সাপোর্ট বেস- পোস্টমর্ডানিস্ট প্রগতিশীলতার বিরুদ্ধে পুরুষ বিদ্রোহ ?


১৯৭০ সাল থেকেই ফ্রান্সে কমিনিউস্ট বুদ্ধিজীবিরা ব্রাত্য। কারন ততদিনে সোভিয়েত ইউনিয়ানের দানবীয় রূপ সবার সামনে কদর্য্য ভাবে উলঙ্গ। তখন কমিনিউজিমের জয়গান করলে লোকে বলত উন্মাদ-মোদ্দা কথা স্রিরিয়াসলি কেউ নিত না। ফলে সার্তের মতন মার্ক্সবাদি দিকপাল ও সোভিয়েতের নিন্দায় মুখর হন।

তাছাড়া ওই শ্রমিক বিপ্লবের ন্যারেটিভ ও খাচ্ছিল না। কারন পাশ্চাত্যে শ্রমিকরা তখন গাড়ি বাড়ি হাঁকিয়ে মধ্যবিত্ত-কারুর দায় পরে নি আরামের জীবন ছেড়ে গুলাগের দাস শ্রমিক হওয়ার।

কিন্ত বুদ্ধিজীবি হওয়ার জ্বালা এই যে, বুদ্ধি হইতে উদ্ভুত লেখাগুলি মার্কেটে না কাটলে পত্রিকাওয়ালা বা পাবলিশার্সও টাকা দেবে না।

ইসলামিক সমাজে এত গৃহযুদ্ধ আর রক্ত কেন?


দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পরে জার্মানী এবং জাপান মাত্র ১৫ বছরের মধ্যেই আমেরিকান সাহায্য নিয়ে আবার গণতান্ত্রিক শক্তি হয়ে প্রথম বিশ্বে ফিরে আসে। কিন্ত আফগানিস্থানে ওর থেকে বেশী সাহায্য নিয়েও কিস্যু হয় না। ইরাকেও কিস্যু হয় না। কেন? ইসলামিক সমাজ ব্যবস্থার ডি এন এতে দোষটা কোথায়?

নোটস ফ্রম আন্ডারগ্রাউন্ড !


ডস্টভয়েস্কির "নোটস ফ্রম আন্ডারগ্রাউন্ড" -খুব সম্ভবত পৃথিবীর প্রথম অস্তিত্ববাদি উপন্যাস।

হিন্দু-মুসলমান বিবাহ এবং অনর কিলিং


মুসলমান সাজিয়ার সাথে প্রেম করার জন্য হিন্দু অঙ্কিত সাক্সেনাকে তার প্রেমিকার ভাই এবং বাবা দিল্লীর রাস্তায় সবার সামনে কুপিয়ে খুন করেছে। লোকেরা সেই দৃশ্য মোবাইলে তুলতে ব্যস্ত ছিল-কেউ এগিয়ে আসেনি তাকে বাঁচাতে। স্পষ্টতই তিন বছর আগে ফেব্রুয়ারী মাসে ঢাকার বুক ফেয়ারে অভিজিত রায়ের খুনের ঘটনা মনে এল। সেও খুন হয়েছিল প্রকাশ্যেই-কেউ এগিয়ে আসে নি। সবাই দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে দেখেছে।

আলাউদ্দিন খিলজি, নায়ক না ভিলেন ?



ভারতের ধারাবাহিক ইতিহাস পাঁচ হাজার বছরের। খুব স্বাভাবিক ভাবেই ভারতে ভবিষ্যত নিয়ে চিন্তা কম-ওটা আমেরিকা/জার্মানী এখন চীনে দের হাতে। অনর্থক মারামারি ইতিহাসের দখল নিয়ে। বিশেষত যদি তা ভারতের ইসলামিক ইতিহাস হয় তাহলে বহু তর্কে বহু বিতর্কে তা ঘেঁটে ঘ।

সুপ্রীয়া স্বরণে


আমাদের আগের জেনারেশনটা- মানে আমাদের মা-মাসি, কাকিমাদের গ্যাং উত্তম-সুচিত্রা, উত্তম সুপ্রিয়ার জন্য পাগল। সেই নব্বই দশকে, হ্যাফপ্যান্ট পড়া টিনেজে দূরদর্শনের মাধ্যমে যখন একের পর এক সুপ্রিয়ার সিনেমা গুলো দেখানো হত, মোহমুগ্ধের মতন আমরা তাকে দেখতাম। সুচিত্রার গ্ল্যামার নেই, সেই ষাটের দশকের সিনেমাগুলোতে চড়া মেকাপ ও নিতেন না। কিন্তু তার কমলাক্ষি চোখের বানের হিরন্ময় নীরবতায় শুধুমাত্র নায়কদেরই বিঁধতেন না- তীর হয়ে তা হৃদয়ে ঢুকত আমাদের মতন উঠতি সদ্য গোঁফ গজানো কিশোরদের ও। মেকাপহীন নেক্সট ডোর গার্ল - পাশের বাড়ির সুপ্রীয়া। আশেপাশে সমস্ত মেয়েদের ভীরেই তাকে দেখেছি কখনো!

রাজপুত গৌরব



রাণী পদ্মাবতী মালিক মহম্মদ জায়সীর কল্পনার রাণী-সুতরাং তাকে নিয়ে বানানো সিনেমা নিয়ে দেশজুরে এত হানাহানি কেন - এই প্রশ্ন তুললে, এটাও ঊঠবে যীশু, কৃষ্ণ, মহম্মদ এরাও কেউ বিশুদ্ধ
ঐতিহাসিক চরিত্র নন । তারা বিরাজমান ভক্তের কল্পনায়, ভয়ে ভালোবাসায়। তাদের নিয়ে হানাহানির চোটে ত গোটা বিশ্বটাই এখন বারুদের ওপরে। সুতরাং এ আর নতুন কি?

হিন্দুত্ববাদিদের নতুন জোকার নায়েক-সত্যপাল সিং



সত্যপাল সিং ভারতের মানবসম্পদ রাষ্ট্রমন্ত্রী। তার দাবী ডারউইনের বিবর্তন তত্ব ভুল, গোঁজামিল। স্কুল সিলেবাস থেকে তুলে দেওয়া উচিত। মানবসম্পদকে মানবআপদ বানানোর এমন ঐকান্তিক ইচ্ছা প্রকাশ করে মন্ত্রীমশাই এখন সংবাদ শিরোনামে।

মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস বিকৃতির ইতিহাস


বাংলাদেশ সম্ভবত পৃথিবীর একমাত্র দেশ, যারা স্বাধীনতার পরে, মুক্তিযুদ্ধের প্রামান্য ইতিহাস তৈরী করার চেষ্টা করে নি বহুদিন। আমরা ভারতীয়রা বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস জানি না-এটা যদি লজ্জার হয়-তাহলে ভাবুন ১৯৭৫ সাল থেকে ১৯৯৬ সাল পর্যন্ত, সরকারি ভাবে বাংলাদেশে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস চর্চা প্রায় বন্ধ ছিল-যা চলত তাও সরকারি ভাবে বিকৃত। বাংলাদেশে যারা বড় হয়েছে ঐ সময়টাতে, তারাও জানেনা বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের ইতিহাস। কারন সরকারি বইগুলো এমন ভাবে লেখা হত, যাতে শেখ মুজিবর রহমান, আওয়ামী লীগের ভূমিকা এবং ভারতের মিলিটারি ও ইন্দিরা ভূমিকা সম্পূর্ন অজ্ঞাত থাকে।

হ্যাজব্যান্ড নামক হ্যাজটার ল্যাজ রেখে হবেটা কি?


হয় এরেঞ্জড মেরেজ না হলে লাভ মেরেজ। দুটোই আসলে ডিজাস্টার। হওয়া উচিত ডেটা সায়েন্স ভিত্তিক মেরেজ-যেখানে আগে থেকেই বলে দেওয়া সম্ভব-এই পার্টনারশিপ চলবে কি না।

অর্থাৎ সমাধান সেই বিজ্ঞানের পথেই। আবেগ, আইন, প্রেম -কোন কিছুই বিবাহ নামক এই অচলায়তনকে বাঁচাতে পারবে না।

পৃষ্ঠাসমূহ

বোর্ডিং কার্ড

বিপ্লব পাল
বিপ্লব পাল এর ছবি
Offline
Last seen: 2 months 3 weeks ago
Joined: শুক্রবার, জুন 30, 2017 - 6:01অপরাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

কু ঝিক ঝিক

ফেসবুকে ইস্টিশন

কপিরাইট © ইস্টিশন ব্লগ ® ২০১৮ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর