নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

There is currently 1 user online.

  • গোলাম সারওয়ার

নতুন যাত্রী

  • অনিক চক্রবর্তী
  • অনুভব রিজওয়ান
  • মোমিন মাহদী
  • নাঈম উদ্দীন
  • সাইফ উদ্দীন
  • সংগ্রামী আমি
  • মোঃ নাহিদ হোসোইন
  • পাপেন ত্রিপুরা
  • মোঃ রেফায়েত উল্ল্যাহ
  • রজন্ত মিত্র

আপনি এখানে

হিউম্যানিস্ট বাই নেচার এর ব্লগ

“আল্লাহর দ্বি- চারিতা”


-কি ব্যাপার কেমন আছো?
-আলহামদুরিল্লাহ!
-জিজ্ঞেস করলাম কেমন আছো, আর তুমি জবাব দিলে ‘সকল প্রশংসা কেবলি আল্লাহর’- মানে আলহামদুরিল্লাহ? এটা কেমন ভদ্রতা!
-আমাদের মুসলমানদের শিক্ষা হচ্ছে আমাদের সমস্ত মঙ্গল ঘটে আল্লাহ’র ইচ্ছাতে…।
-খারাপ বা মন্দ কাজ আল্লাহ ঘটায় না?
-কখনই নয়। মানুষের সব মন্দ আর খারাপ কাজের দায় মানুষের নিজের।
-তাহলে যে বলা হয় আল্লাহ’র হুকুম ছাড়া একটা গাছের পাতাও নড়ে না!
-অবশ্যই এটা সত্য। তবে মানুষকে একটা স্বাধীন ইচ্ছা শক্তি দিয়ে আল্লাহ পাঠিয়েছেন, মানুষ নিজের বিবেক খাটিয়ে ভাল মন্দকে বেছে নিতে পারে।

৫ বছর আগের স্মৃতির অনেক সংগ্রামী কর্মীরা আজ নেই আমাদের মাঝে, কিন্তু আছে তাদের অনুপ্রেরনা।



মনে আছে নিশ্চই আমাদের সকলেরই ৫ বছর আগের কাহিনী, ২০১৩ সনের শাহবাগ আন্দোলনের কথা। আজ ৫ ফেব্রুয়ারী এই দিনে শাহবাগ চত্বরে একত্র হয় কয়েকজন ব্লগার শুরু হয় তাদের গণদাবি থেকে শাহবাগ আন্দোলন, তারপর গন জাগরণ। কেনো শুরু হয়েছিল তাও আমরা ভুলিনি। সেক্টর কমান্ডার ফোরাম ও নির্মুল কমিতির চাপে আওয়ামীলীগ সরকার যুদ্ধ অপরাধির বিচার ট্রাইবুনাল গঠন করতে বাধ্য হয়।

ধর্মের কুৎসিত চেহারাটা মানুষকে না দেখালে তাদের মোহভঙ্গ ঘটবে না।


ইসলামের সমালোচনা করলেই নাকি উগ্রপন্থার উত্থান ঘটে। এসব কারণে বলতে হবে ইসলাম খুবই মানবিক একটি ধর্ম। সব দোষ ধর্ম ব্যবসায়ী মোল্লাদের। তারাই নিজেদের স্বার্থ হাসিলের জন্য কুরআন-হাদিসের অপব্যাখ্যা করে মুসলমানদের বিভ্রান্ত করছে…। যারা এরকম প্রস্তাব করেন তারা প্রথমত শঠতা করতেই প্ররোচিত করলেন। এর বিপদ সাংঘাতিক এবং বহুমুখী।

সমাজের কাছে প্রশ্ন মেয়েরা কি মানুষ নয়?


লেখাটি ভালো লাগাই পোস্ট করলাম,সংগৃহিত।
-‘মানুষ তবে মেয়ে মানুষ।,

‘সত্যিকারের বাংলাদেশ একটি ইসলামিক প্রজাতান্ত্রিক দেশ!


বাংলাদেশকে কেনো সেকুল্যার দেশ বলা হয়?আসলে বাংলাদেশ একটি ইসলামিক প্রজাতান্ত্রিক দেশ।শারিয়্যাই আইন আমাদের দেশে কৌশলে আইন হিসেবে চলছে সেই স্বাধীনতার পর থেকে।বাংলাদেশের সৃষ্টি হয় সেকুল্যারিজমের বীজে কিন্তু তা প্রসফুটিত হওয়ার আগেই যারা বাংলাদেশের অস্তিত্বে বিশ্বাস করেনি তারা স্বাধীনতার পর সেকুল্যার নেতাদের সাধারন মানুষের কাছে খারাপ,অত্যাচারী ও চোর সাজিয়ে দেশ পরিচালনা থেকে সরিয়ে দেন।ঐসব দেশদ্রোহী ধর্মের ভন্ডামীতে স্বাধীনতা বিরোধী হয়েও নতুন দেশের যে মূলমন্ত্র ছিলো তা পরিবর্তন করে। তারা তাদের ধর্ম ব্যবসাকে সুচারু রুপে বাস্তবায়ন করেন।আর তার মাধ্যমে স্বাধীনতার সেই লালিত সপ্নের সেকুল্যার অসামপ

‘এই প্রজন্ম ধর্মে বিমুখ তা নিয়ে কিছু সংক্ষেপ আলোচনা,


চিরকাল বিশ্বাস করেছি পৃথিবীর "ফাস্টেস্ট গ্রোইং রিলিজিওন" (সবচেয়ে প্রসারমান ধর্ম) হল ইসলাম৷ বটেই তো৷ বিশ্বময় মুসলিম পরিবারে সন্তানের সংখ্যা অন্যদের চেয়ে বেশী, পশ্চিমা দেশে অনেকে ইসলাম গ্রহণ করছে তাতে এটাই তো হবার কথা৷ বিশ্বাসটা প্রথম ধাক্কা খায় বছর ৫-৭ আগে এক বিশ্ববিদ্যালয়ের জরিপের খবরে, সেখানে ৬৭% ছাত্রছাত্রীই নাস্তিক৷ তারপর থেকে ব্যাপারটা খুঁটিয়ে খুঁটিয়ে খেয়াল করেছি, বিভিন্ন দেশে প্রজন্মকে সুযোগ পেলেই প্রশ্ন করেছি, ধীরে ধীরে স্পষ্ট হয়ে উঠেছে যে বহুকাল থেকে যা ছিল অন্তর্লীন ফল্গুধারায় প্রবহমান সম্প্রতি তা উচ্ছ্বল জলধিতরঙ্গে রূপ নিয়েছে৷ সংক্ষিপ্ত উদ্ধৃতি:-

“সত্যিকারের স্বাধীনতার চেতনা মানুষের মনুষ্যত্বে নিহিত, মানুষের প্রতি বিদ্বেষে নয়।”


মনে আছে আপনাদের, পুরো একটা বছর পেরিয়ে গেছে নভেম্বর ২০১৬ তে গোবিন্দগঞ্জের সাঁওতাল পল্লীতে আগুন লাগানোর কথা?

পৃষ্ঠাসমূহ

বোর্ডিং কার্ড

হিউম্যানিস্ট বা...
হিউম্যানিস্ট বাই নেচার এর ছবি
Offline
Last seen: 5 দিন 5 ঘন্টা ago
Joined: বুধবার, এপ্রিল 5, 2017 - 4:57পূর্বাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

কু ঝিক ঝিক

ফেসবুকে ইস্টিশন

SSL Certificate
কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর