নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 4 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • নুর নবী দুলাল
  • দ্বিতীয়নাম
  • সাইয়িদ রফিকুল হক
  • মিশু মিলন

নতুন যাত্রী

  • নীল মুহাম্মদ জা...
  • ইতাম পরদেশী
  • মুহম্মদ ইকরামুল হক
  • রাজন আলী
  • প্রশান্ত ভৌমিক
  • শঙ্খচূড় ইমাম
  • ডার্ক টু লাইট
  • সৌম্যজিৎ দত্ত
  • হিমু মিয়া
  • এস এম শাওন

আপনি এখানে

কৌশিক মজুমদার শুভ এর ব্লগ

বাঙালী মডারেট ধার্মিক ও লোকদেখানো বাহ্যিক প্রগতিশীলতা


"খালি কলসি বাজে বেশী"-এই অলংকারটি হয়ত বাঙালী মডারেট ও তথাকথিত ধার্মিকদের পাশে নির্দ্বিধায় বসিয়ে দেয়া যেতে পারে এবং এই অলংকার তাদের বাহ্যিক রুপবৈচিত্রের সাথে একান্ত না গেলেও অন্তরের ভাবনাচিন্তার সাথে একান্তই বেমানন নয় এবং ক্ষেত্রবিশেষে সুশোভন অথবা ভালোভাবে বলতে গেলে "সোনায় সোহাগা" বলতে পারেন।এটা বাংলাদেশী ধার্মিকদের একটি বড় সমস্যা, কেউ হিন্দুদের সমালোচনা করলে বলে পাকি দালাল,কেউ মুসলিমদের সমালোচনা করলে তখন ভারতের উদাহরণ টানেন।আর ভারতের কথা যদি বলেনই প্রতিবেশী দেশ হিসেবে তবে আমি বলবো-তুমি অধম হইলে আমি উত্তম হইবো না কেন?তাঁরা যদি অন্যায় করেওবা আমাদের ও তাই করতে হবে!ব্যাপারটা আমার কাছে বালসুলভ ম

মুসলিমদের কিছু খুচরো দোষ


অন্য কোনো ধর্মের লোকজন উপাসনা(নামাজ) বা উপবাস(রোজা) ভাঙার জন্যে পাবলিক বাসে, বাস-সুদ্ধ লোকের সময় নষ্ট করে বলে আমার জানা নেই।

যদিও এরা গাড়ির কারো কথা না ভেবেই এই অন্যায় আবদার করে এবং গাড়ির ড্রাইভার অন্যদের অনুমতি না নিয়েই অথবা কখনো কখনো বাধ্য হয়েই গাড়ি থামিয়ে রেখে অন্যদের সময়নষ্ট ও বিরক্তির উদ্রেক করে।অনেকের কাছে ব্যাপারটা অনৈতিক মনে হলেও মুখ ফুটে কিছু বলতে পারেন না,কেননা এই উন্নতশ্রেণীর দৃশ্যত দ্বিপদ( আচরনে চতুষ্পদ)'দের ধর্মানুনুভূতি অতি মাত্রায় প্রবল এবং তাদের প্রতিরোধ কিংবা প্রতিরোধের ভাষা তাদের ধর্মানুরাগের মতোই প্রবল ও বিকৃত।

"দ" আর "ধ" এর পার্থক্য


দেশে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার জন্যে তৎকালীন প্রতিকূল পরিবেশে হুমায়ুন আজাদ স্যার জীবনের মায়া না করে লিখেছিলেন সামরিক শাসনের বিরুদ্ধে "জলপাই রঙের অন্ধকার'রের মত বই।এইসব প্রতিক্রিয়াশীল ও প্রগতিশীলদের জন্যে আজ যে সরকার গদিতে পা তুলে বসে আছেন,ক্ষমতায় এসে ও কি তারা আজাদ স্যারের হত্যার তদন্ত করেছে?বিচার তো দূরে থাক।বরঞ্চ হয়েছে অভিজৎ দা,রাজীব হায়দার,অনন্ত বিজয় দাস,ওয়াশিকুরের মতো অসংখ্য ব্লগার খুন, নিরাপত্তার জন্যে দেশ ছাড়তে হয়েছে অসংখ্য ব্লগারকে।সামান্য যে কয়েকটা ভোটের লোভে সরকার যে ধর্মীয় উগ্রবাদীদের পুরষ্কার দিয়ে জয়মাল্য দিয়ে বরণ করছে একদিন এই মালাই ফাঁস হয়ে সরকারের গলায় পড়বে।যে ক্ষমতার লোভে সমর্থন পে

এবং এন্টেনা গিয়ে স্যাটেলাইট এলো


শুনি এত টকশো(যদিও ঘরে দূরদর্শনের বালাই নেই এবং অপটিক ক্যাবল ও বিতাড়িত),
তবে অনলাইনে,সোস্যালে দেখি দেশটা তালেবানি উটের কুঁজে হেলেদুলে চলছে,
বাপ এবং স্বামীর নামে তসবী জপসে কয়েকজন,
সারাদেশবাসী শামিল সেই শ্রাদ্ধবাসরে,
ওদিকে কারো গলায় কেউ দিচ্ছে চপ্পল ও মতান্তরে কেউ দিচ্ছে ফুলেল সংবর্ধনা।
চাকুরীর পরীক্ষায় টেবিলের ওপাশ থেকে প্রশ্ন আসে-
“আপনি কি রাষ্ট্রবিজ্ঞান পড়েছেন অথবা পৌরনীতি”।
-থোরা,থোরা,সাব।
“কি!উর্দু,বিদেশী ভাষা,অপসংস্কৃতি”।
-আইজ্ঞে না,হিন্দি ছিল জনাব।
“মারহাবা!মারহাবা!তাইলে ঠিক আছে।বলুন গণতান্ত্রিক শাসন ব্যবস্থায় সংসদ কি?”

নারীমাংস এবং আফিমের ব্যবহারবিধি


নক্ষত্র যেভাবে আমার মাংসে প্রবেশ করে,ঢোকে রক্তে-সেইভাবে প্রতিটা সকাল আসে প্রেমিকার লিপিস্টিক ঠোঁটের কিনারায় প্রবেশ করিয়ে রাজনৈতিক জিহ্বা; যেমনি প্রতিটা সকাল আসে নির্বিকার, পার্থিব শেষ আলো গিলে নিয়ে আমি আয়নায় দেখি আমার নষ্ট আত্মার প্রতিকৃতি। আমার জীবন, আমার আত্মা, আমার শরীরকে আমি নিয়েছি অকৃত্রিম সারল্যে-যেভাবে মাসিকের সময়ে আমি স্বাভাবিকভাবে প্রেমিকার বিছানা ছেড়ে হেঁটে যাই ব্রোথেলের পথে।
“নারী; একটি যন্ত্র ব্যবহারবিধি জানতে হয়”,
“নারীমাংস, রেসিপি জেনেই রান্না করুন”,

ইন দি সাওয়ার হাংরি টাইম


বিভক্ত নখর আমার তাই নিয়ে ডিসপেনসারি খুঁজতে আমি রাস্তায় বেরোই ,দেখি এন্টেনায় বসে আছে গাছ।
গতবছর সমুদ্রে আমি দেখেছিলাম মাস্তূলের উপরে জাহাজ চড়ে আছে,
যখন সৈণিকেরা বলেন ,কতখানি কার্তুজে সম্পূর্ণ হতে পারে একজন শান্তিরক্ষাবাহিনীর শহীদের প্রতি শ্রদ্ধাঞ্জলী,
এই ধরুন লেফটেনেন্ট কর্নেল মোঃ ফয়জুল করিম উইন্ডহোক-কি হবে তার অথবা সুরাইয়া সুলতানার(প্রয়াত লে. কর্নেল আবুল কালাম আজাদের স্ত্রী) ?
অথবা ভাবুন পৃথিবী কি ডান থেকে যাচ্ছে বামে,নাকি বাম থেকে ডানে?
পেডোফিলিয়া কি বাড়াবে জরায়ু মুখের ক্যন্সার?

বিলুপ্ত প্রজাতির শুক্রাণু


চোখ বুজে খুললাম পৃথিবীর প্রাচীনতম পুঁথি,দেখলাম সেখানে বলা আছে-
“জল বলে কিছু নেই,আপনারা সকলে পানি বলুন।”
এই শুনে পরস্পর ভাইভাই কেটে নিল কয়েক লক্ষ জিহ্বা।
অতএব, প্রসঙ্গত এটাই সত্যি যে-আপনি মানুষের চেয়ে পুঁথির ওপরে বিশ্বাসী।
হয়ত বিগত শতকে আপনিই ছিলেন আরব্য একমাত্র পুথিসাহিত্যিক।
আপনি একান্ত পুঁথিনির্ভর-তাই আপনার কাঁধে আছে যুদ্ধের একমাত্র অস্ত্র-
আপনার আছে কাটাওয়ালা শান্তির বাণী।
আপনার আছে একলক্ষ যৌনদাসী,অগনিত ভোগ্যবস্তু ও যুদ্ধবন্দী রমণী।
আপনি কুকুর পছন্দ করেন না,টিকিটিকি মারতে পছন্দ করেন আঙুলের টিপে,

একটি বিখ্যাত চিঠি


গতবার আমি বলেছিলাম মনে সুখ থাকলে কবিতা লেখা যায় না।আজ রাতে আমার মন ভীষন রকম অন্ধকার লক্ষ করছি,কালো গোলাপের মতোই।শেষবার বিদায় বলার সময় আমার ভীষন কষ্ট হচ্ছিল-মনে হতো হৃদয়টা ছিঁড়ে খাচ্ছে কাক আর শকুন।যাহোক,কাল শুনছি প্রধাণমন্ত্রী আমাদের শহর সফরে আসবেন,তাই শহরটা আজকে অনেক সুরক্ষিত-সবাই নিশ্চিন্তে ঘুমোচ্ছে;শুধু আমারই কেবল ঘুমাবার কোনো যুক্তিযুক্ত কারন খুঁজে পাচ্ছি না।সফরের কথায় মনে পড়ল-এবার হেমন্তে আমাদের ফিলিস্তিন ভ্রমণ হচ্ছে না,তোমার হাজবেন্ট শীতে তোমাকে নিয়ে কাশ্মীর সফরে যাচ্ছেন শুনলাম।পিচ্চিটার দিকে নজর দিও –এ বছর কাশ্মীরে শুনলাম অনেক ঠান্ডা পড়বে।আমার জন্য চিন্তা কোরো না আমি জানালায় দাঁড়িয়ে রাস্তায় বরফ পড়া দেখে দেখে শীতটা কাটিয়ে দেবো।

বাইবেল - ব্রোথেল বনাম রাষ্ট্র ও মহাপুরুষ


কয়েকটা জন্মান্ধ রাষ্ট্র পকেটে আমি কবিতার পথে হাঁটি,বুকের এন্টেনায় বাজে বিশ্বযুদ্ধের গান,
আমি সহস্রবার সশস্র হয়ে বাইবেল ঘেঁটেছি,কিন্তু কোনো কবিতা পাইনি,
উপরন্তু বারবার পেয়েছি ঋতুবতী নারীর প্রলুব্ধ সঙ্গমের গন্ধ,টিকটিকির বীর্য।
আমি রোজ বারবেলা কবিতার রাস্তায় হাঁটি,দেখি অজস্র রাস্তা-
আর অগনিত মহাপুরুষের নামে বিশ্ববিদ্যালয়,মঠ ও মসজিদ।
তবু ব্রোথেলের গলিতে কখনো নাম দেখি নাই !
দেখি অমুক মহাপুরুষ এখানে দেহ রেখেছেন,তমুক এখানে প্রথম সংগমে বীর্যপাত করেছেন।
দেখি আর হাসি!
নবনীতা,
এইসব দিনগুলো তোমার সাথে যদি কাটিয়ে দেয়া যেত!

জাগতিক ঈশ্বর যখন সকালের.........।,


জাগতিক ঈশ্বর যখন সকালের পদব্রজে চলেন,আমি তার সমান্তরালে হেঁটে চলি।
জিজ্ঞাসে সে ,"এতদিন ধরে এই রাস্তায় কেন?"
আমি বলি,"শুনেছিলাম আমি ,আপনি মহাভারতের যুদ্ধে সত্যভঙ্গ করেছিলেন।"
উত্তরে তিনি মৃদু হাসেন,কিঞ্চিৎ লজ্জা পান।
আমি তবু এই সলজ্জ প্রস্তাবে লরকার হাসি হাসতে পারি না।

পৃষ্ঠাসমূহ

বোর্ডিং কার্ড

কৌশিক মজুমদার শুভ
কৌশিক মজুমদার শুভ এর ছবি
Offline
Last seen: 3 ঘন্টা 51 min ago
Joined: রবিবার, এপ্রিল 2, 2017 - 7:31অপরাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

ফেসবুকে ইস্টিশন

কপিরাইট © ইস্টিশন ব্লগ ® ২০১৮ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর