নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

There is currently 1 user online.

  • বেহুলার ভেলা

নতুন যাত্রী

  • চয়ন অর্কিড
  • ফজলে রাব্বী খান
  • হূমায়ুন কবির
  • রকিব খান
  • সজল আল সানভী
  • শহীদ আহমেদ
  • মো ইকরামুজ্জামান
  • মিজান
  • সঞ্জয় চক্রবর্তী
  • ডাঃ নেইল আকাশ

আপনি এখানে

উলুল আমর অন্তর এর ব্লগ

বুক রিভিউঃ ওয়েটিং ফর গডো, স্যামুয়েল বেকেট



বুক রিভিউ
বইঃ ওয়েটিং ফর গডো (Waiting for Godot)
লেখকঃ স্যামুয়েল বেকেট
ধরণঃ অধিবাস্তব নাটক
রচনাকালঃ ১৯৪৮-১৯৪৯
প্রথম প্রদর্শনীঃ ৫ জানুয়ারি, ১৯৫৩

ধারাবাহিক উপন্যাসঃ চতুর্থ পর্ব।


এক নিঃশ্বাসে কথাগুলো বলে নিজের রুমে চলে গেলো বিজয়। গতকাল শাহরিয়ার কবিরের মুখে কথাগুলো শুনেছে সে। বিছানার এক পাশে দাদু ঘুমিয়ে পড়েছেন। অর্থির সাথে কথা বলতে ইচ্ছে করছে। কিন্তু রুমে দাদু থাকায় ফোন করলো না বিজয়। বিছানায় শুয়ে ফেসবুকে প্রবেশ করলো। অর্থিকে অনলাইনে পেলো না। টাইমলাইন স্ক্রল করতে করতে ‘আস্তিক বনাম নাস্তিক তর্কযুদ্ধ’ নামক গ্রুপে একটা পোস্ট চোখে পড়লো ওর। কে একজন একটা ব্লগ শেয়ার করে লিখেছে, ‘ দেখুন, আল্লাহর নবীকে নিয়ে কি লিখেছে এই শাহবাগী নাস্তিক।’ লিংক থেকে ব্লগটার ভিতরে গেলো বিজয়। লেখাটার শিরোনাম ‘ নবী মুহম্মদের নারী লিপ্সা’।

ধারাবাহিক উপন্যাসঃ তৃতীয় পর্ব


৫। প্রজন্ম
কলাবাগান ক্রীড়াচক্র মাঠে নেট প্র্যাক্টিস করছে ক্রিকেটাররা। দীর্ঘক্ষণ একটানা ব্যাটিং করে হেলমেট, গ্লাভস খুলে মাঠের মধ্যে বসে পড়লো মাসুদ। কলাবাগানের হয়ে প্রথম বিভাগে খেলে সে । বাংলাদেশ অনুর্ধ্ব-১৯ দলেও তার ডাক পাওয়ার সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে।
মাসুদের পাশে এসে বসলো বিজয় । ও নিজেও এক সময় ক্রিকেট খেলতো । মাসুদ আর বিজয় বাল্যবন্ধু । দুজনের বাসাই মোহাম্মদপুরে ।
‘আরেকটা রাজাকারের বিচারের রায় দিলো আজকে ,শুনেছিস?’ বিজয় বললো।
-‘হুম , কাদের মোল্লারে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিছে।হালা রাজাকার । ফাঁসি দেওনের দরকার আছিলো’। মাসুদ বললো।

ধারাবাহিক উপন্যাসঃ দ্বিতীয় পর্ব


৩। সেইসব দিনরত্রি
অনেকক্ষণ ধরে রাস্তা দিয়ে হাঁটছে সে। একা। গন্তব্য কোথায় তা জানে না। হঠাত সামনে রাস্তার উপর উল্টো হয়ে শুয়ে থাকা একটা মানুষ চোখে পড়লো। দ্রুত লোকটার কাছে ছুটে গেলো ও। ভালোভাবে তাকিয়ে দেখতে পেলো লোকটার শার্ট রক্তে ভেজা। বেশ ভয় পেলো সে। লোকটার গায়ে হাত দিয়ে মুখটা ফেরালো। মুখটা তার খুব চেনা। চিৎকার করে কেঁদে উঠলো সে।

ধারাবাহিক উপন্যাসঃ প্রথম পর্বের খসড়া


১। প্রারম্ভিকা। মাঘের শীতে বাঘও কাঁপে।আর উত্তরবঙ্গের বৃদ্ধ-বৃদ্ধাদের মাঝে মড়ক নামে।বগুড়া,রাজশাহী,রংপুর,পঞ্চগড়ের গ্রামগুলোতে সন্ধ্যার পর বাড়ির বাইরে বেরুনো কঠিন হয়ে পড়ে। ঘন কুয়াশায় কাছের জিনিসও দেখা দায়।সবুজ ঘাস,গাছপালা এমনভাবে শিশিরসিক্ত হয়ে থাকে যেন খানিক আগেই বৃষ্টি হয়েছে।এশার নামাযের পরপরই পুরো গ্রাম নীরব হয়ে যায়।

মুসলিম বিশ্বে ভাস্কর্য ও হেফাজতের রাজনীতি


সস্প্রতি উদ্বোধিত হওয়া সৌদি বাদশাহ সালমানের প্রতিকৃতিই বিশ্বের সবচেয়ে বড় প্রতিকৃতি।সারা বিশ্বের মুসলিম দেশগুলোতে দেখা যায় বড় বড় সব মসজিদের নাম কোনো বড় রাস্ট্রনায়কের নামে(যেমন-কিং ফয়সাল মসজিদ)।এসব মসজিদের সামনে দেখা যায় বিখ্যাত কোনো বীরের/ঘোড়া,উটের ভাস্কর্য।মসজিদে ঢোকার আগে মুসল্লিরা এসব ভাষ্কর্য দেখতে বাধ্য হয়।তাতে কোনো আপত্তি করে না কেউ। কিন্তু সাংবিধানিকভাবে ধর্মনিরপেক্ষ বাংলাদেশে কয়েক বছর আগে এয়ারপোর্টে মাত্র শ খানেক উগ্রপন্থী লোকের আন্দোলনে পাখির ভাস্কর্য অপসারণ করা হয়। এছাড়া সম্প্রতি হেফাজতের আন্দোলনে আদালত প্রাঙ্গন থেকে বিধর্মী দেবী থেমিসের ভাস্কর্য অপসারণ নিয়ে কি কাণ্ডই না ঘটে গেলো।

বিজয় এক স্বপ্নসৌধের নাম


১৬ ডিসেম্বর, বিজয় দিবস।
বিজয় মানে হানাদার, অমানুষ কে পরাজিত করে সত্যের জয়।বিজয়ের মানে অস্ত্রবলের কাছে পরাজিত এক নতমুখ জাতি নয়।

বিজয় মানে হানাদারমুক্ত হওয়া।বিজয়ের অর্থ কৃষি জমি দখল, ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানে চাঁদাবাজি নয়।

বিজয় মানে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের সেই বজ্রকণ্ঠ ঘোষণা।বিজয় মানে নেতার পা চাটা কুকুর হওয়া নয়।

বিজয় মানে নির্বিচারে মানুষ হত্যা,গুম,ধর্ষণ চিরতরে বন্ধ হয়ে যাওয়া।বিজয়ের অর্থ পঞ্চাশ বছর পরেও এসবের পুনরাবৃত্তি নয়।

রোহিঙ্গা সমস্যায় কতটা মানবিক হবে বাংলাদেশ?


মায়ানমারের রাখাইন রাজ্যের নৃতাত্ত্বিক গোষ্ঠী রোহিঙ্গাদের উপর সামরিক বাহিনীর নির্যাতন সম্প্রতি মাত্রা ছাড়িয়ে গেছে।জাতিসংঘের প্রতিবেদন অনুযায়ী প্রায় ২ লক্ষ ৭০ হাজার রোহিঙ্গা বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে।প্রতিদিন হাজারো রোহিঙ্গা এদেশে পালিয়ে আসছে।বাংলাদেশ সরকার ও বিজিবি নির্যাতিত রোহিঙ্গাদের প্রতি মানবিক আচরণ দেখিয়ে আশ্রয় ও ত্রাণ প্রদান করছেন।এখন প্রশ্ন হলো রোহিঙ্গা সমস্যায় কতটা মানবিক হবে বাংলাদেশ?সমস্যাটা বাংলাদেশের না,বরং বাংলাদেশের উপর চাপানো হয়েছে।দেশের একশ্রেণির মানুষ বলছেন,সীমান্ত খুলে দাও, রোহিঙ্গারা বাঁচুক।রোহিঙ্গারা ধর্মে মুসলিম বলেই বাংলাদেশি মুসলমানদের কাছ থেকে বেশি মানবিক সম

রকস্টার ওরফে রেপিস্ট বাবা ! ভারত বলেই সম্ভব !


ভারতে হিন্দু, মুসলিম, বৌদ্ধ,শিখ সকল ধর্মের নিম্নবর্গের মানুষদের নিয়ে বানানো নতুন ধর্ম সৌদার বর্তমান প্রধাণ ধর্মগুরু গুরমিত রাম রহিম সিং(তার নামটা লক্ষণীয়) ধর্ষণের মামলায় আসামী সাব্যস্ত হয়ে গ্রেপ্তার হয়েছেন।এর প্রতিবাদে তার ছয় লাখ ভক্ত রাস্তায় নেমে আন্দোলন করতে গিয়ে ইতোমধ্যে ৩২ জন নিহত হয়েছে।দাবি করা হয়,বিশ্বজুড়ে নাকি গুরমিত এর ভক্ত ছয় কোটি লোক।ভারতের প্রধাণমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী,বিরাট কোহলি এরাও গুরমিতের আশীর্বাদধন্য।লোকটা আসলেই ইন্টারেস্টিং ক্যারেকটার। ধর্ম প্রচারের পাশাপাশি তিনি একজন চলচ্চিত্র পরিচালক, নিজের সিনেমার নায়ক এবং সিংগার।তিনি বলেন,আজকালকার ছেলে-মেয়েরা ধর্মশালায় না এসে সিনেমা হল

পৃষ্ঠাসমূহ

বোর্ডিং কার্ড

উলুল আমর অন্তর
উলুল আমর অন্তর এর ছবি
Offline
Last seen: 2 months 3 দিন ago
Joined: বুধবার, ফেব্রুয়ারী 15, 2017 - 1:09পূর্বাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

ফেসবুকে ইস্টিশন

কপিরাইট © ইস্টিশন ব্লগ ® ২০১৮ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর