নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 2 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • কুমার শাহিন মন্ডল
  • নুর নবী দুলাল

নতুন যাত্রী

  • অন্নপূর্ণা দেবী
  • অপরাজিত
  • বিকাশ দেবনাথ
  • কলা বিজ্ঞানী
  • সুবর্ণ জলের মাছ
  • সাবুল সাই
  • বিশ্বজিৎ বিশ্বাস
  • মাহফুজুর রহমান সুমন
  • নাইমুর রহমান
  • রাফি_আদনান_আকাশ

আপনি এখানে

সজয় সরকার এর ব্লগ

হে অনাগত শিশু


হে অনাগত নতুন দিনের শিশু
তোমায় আহ্বান জানাই;
মানবতার পালনখানায়
রুগ্ন কুৎসিত প্রাচীন সংস্কারের কণ্ঠস্বর
কুলষিত করেছে যাদের অন্তর--
তাহাদের হতে থেক বহুদূরে
সজীব থাকিও চেতনাকে পবিত্র করে।
অন্ধকার আদিম বিশ্বাস
মানুষকে নিতে দিচ্ছে না নিঃশ্বাস ;
তাহাদের বুলির ঝুলি হতে
তোমাদের মুক্তি দিতে
আজ নতুন আহ্বান জানাই,
শোনাই নতুন সুরের সানাই।
মানুষে মানুষে যারা করে ভেদাভেদ
আচার কানুনে যারা খোঁজে নরের বিভেদ,
মূল্য দেয় না যারা স্বেদ কিবা শ্রমের
হৃদয় ভাসে না কভুও যাদের
সকল মানুষের তরে,

বিপ্লবী চে


বিপ্লবী চে,তুমি চেতনার উৎস
তুমি কৃষ্ণচূড়ার লাল
পলাসের আগুন রঙ।

তুমি শিরায় রক্তপ্রবাহ
আবহ তুমি বিস্ময় বিপ্লব
তুমি সুনামী-সাইক্লোন
তুমি চেতনার রঙ।

তুমি বিশ্বাস হয়ে আছো
মাঝের রাতে তারায় তারায়
পাহারায় প্রহরে প্রহরে
তুমি উদিত সূর্যের লাল রঙ।

তুমি ধমনীতে মিশে আছো
আমার প্রিয়তমা রমণীতে
আছো সুখে আছো অকুল পাথারে
তুমি গোধুলীর রঙ।

তুমি এলোমেলো কথামালা
নবীন কবির
তুমি ছবি, তুলির আঁচড় ছবির
তুমি শিশুর হাতের রঙতুলির রঙ।

অর্থহীন সাধ


আমি জেগে উঠেছি আজ
বড় অসময়ে অকারণ -
কিশোরের চিবুকের খাঁজে
বেমানান অর্থহীন স্পর্ধার মতো
শশ্রুরেখা যেমন দু'একটি।

শিল্পির শুরুর আঁচড়ে যেমন
ছবিরা থেকেও নেই
কিংবা ওরা তখনও নিরাবয়ব।
অথবা অস্তাচলের অরুণাভের যেমন
আলিঙ্গন গোধুলীর আঁধারের সাথে।
হয়তবা ভোরের কুয়াশার ভীরে
ক্ষীণতর আলোয় দেখা মুখ।
নয়তবা তার চেয়েও অর্থহীন অস্পষ্ট
কালো মেঘে বিদ্ধ হওয়া অদৃশ্য
সিঁদুরে মেঘের আনাগোনা।

তুমি


তুমি আমায় ভালোবাসো তবে তা যান্ত্রিক নীরবতার মতো
হে নিশীথিনী আমার অপার সুখের আবেগ তাতে মিটেনা।
আমার প্রেমের আবেগ আমাকে পুড়ে মারে কোমল অনলের মতো
কিন্তু তুমি সুধারাশি নিয়ে কোন দূর পর্বতে করো আরোহণ।

আমি নই অবিচলিত ভাগাড়ে গৃধন
শবাহার শেষে উড়ে যাবো ছেড়ে -ভেবো না কখনো
সে সংশয়ে তুমি থেকো না দূরে
এ নির্বাসন নগর জীবন আমায় ঘুমোতে দেয় না
আমার নিদ্রাহীন স্বপ্নের মাঝে ঢেউয়ের ফেনার মতো
ভেঙে ভেঙে গলে যায় সুখের অনুভূতি
এ শবের শহর হতে আমাকে তুমি বাঁচাও।

তার্কিক


দিতে পারো তাহাকে হয়তো উপাধি তর্করত্ন
তাহাতেই খুশি সে;
সারাদিন তা-ইতো করে যায় যত্ন।
তর্কই পেশা তার
নেই কাজ কোনো আর;
ভালোটাও ভালো নয়
বলিবেন মহাশয়,
কারণ,মতলব একটায়
তর্কটা করা চাই।

রতন কামার;অসিত কুমার


রতন কামার হাতুড় যাহার সদা করে ঠংঠং
অসিত কুমার ছেলে যে তাহার, মনেতে নানান রং।
গরম লোহার রঙের বাহার হাতুড়িতে হয় সোজা
সে লোহার হায় লোহারই ঘায় হয় যে অস্ত্র সাজা।

জীবন শুধুই নামেই মধুই 'নয়কো তাহা সঠিক!
অসিত-রতন করিয়া যতন, পায় না খুজে সে দিক।'
হাপড়-উনুন ঘাম ও আগুন জীবন যাদের ভাই
তাহাদের কাছে মূল্য আর আছে? জীবন যেথায় দায়!

বয়স তরুণ সোনার বরণ করলো অসিত ছাই
বুঝলে রতন তাহার মতোন কামার করতো নাই।
বুক ভরা তার ব্যথার পাহাড় খেটেই জীবন মাটি;
সুখের পরশ মনের হরষ, সোনার পাথর বাটি!

একটি স্বপ্নের মৃত্যুতে


মনের ক্যানভাসে তুলির আঁচড় পড়ে
স্বপ্নের রংগুলি কথা বলে অতি ধীরে ধীরে
নিরেট বাস্তব তখন গলা টিপে ধরে
স্বপ্নের মৃত্যু তখন
জগৎ জাগে আদিম অন্ধকারে।

মিথ্যার ইন্দ্রজালে ধর্মের ফাঁদ করে
ওরা শিকারী সেজে শিকার করে
মেকি সভ্যতা তখন রুগ্ন বিবেকের বেশে
ফিসফিস করে হাসে।

সত্যেরা তখন ভারী ভয়ঙ্কর রূপে
দেয় দেখা এই মিথ্যার ধুপে
ধুসরতায় পুড়ে লাল আগুনের বিভিষিকা বেশে।।

আমি ধার্মিকতা দেখেছি


আমি ধার্মিকতা দেখছি
হন্তারকের মাঝে
আমি ধার্মিকতা দেখেছি
উন্মত্ত ধর্মান্ধের মাঝে।
আমি ধার্মিকতা দেখেছি
নিষ্ঠুরদের নিষ্ঠুরতায়;
আমি ধার্মিকতা দেখেছি
চোর,লোভী ও নীচেদের মাঝে।
আমি ধার্মিকতা দেখেছি
ক্রোধ-চণ্ডাল বর্বরের মাঝে।
আমি ধার্মিকতা দেখেছি
অন্ধ অনুকারকের বিকৃত বাসনার ভিতরে।
আমি ধার্মিকতা দেখেছি
কপটের কাপট্যে।
আমি ধার্মিকতা দেখেছি
যতো হীন নীচ আর নিকৃষ্টদের মাঝেও।

কবি


উর্ব্বসী, অপ্সরা তোমরা চলে এসো
আমার কল্পস্বর্গলোকে
কোন স্বর্গে নটীর দাসত্বে
নিজেরে করিছো ছলনা।

মর্ত্যের ললনা হয়ে ছুটে আসো
সিক্ত করো নিজেরে প্রেমের পুষ্পজলে
আজ এখানে অবিরাম
কবিতার বৃষ্টি নামে
করবো তোমার রূপের বন্দনা।

খুঁজবো না কোনো
মন্দাকিনী মন্থরা
চাই না শোভিত নন্দন কানন
তিয়াসাতে অমৃত নয়
তম অধরে তারে- দিবো শান্তনা।

কোনো ইন্দ্রের আজ্ঞাতে নয়
ভয়হীন হৃদয় নাচে যদি পুলকে
প্রেমালোকে ভাসাও তারে
নিজেরে আর না করো বঞ্চনা।

ভালোবাসি বলে


আমি এখনও জ্যোৎস্নার আমন্ত্রণ উপেক্ষা করি না
গুমোট অন্ধকারেও তার সুবাস খুঁজে যাই
আমি এখনও অসাড় আবেগে নিজেকে হত্যা করি নি
বুঝি নিজেকে কিছুটা হলেও ভালোবাসি বলে।

আমি এখনও সাধ ও সাধ্যের হিসেব কষি
নিঃশেষ করতে পারি না অন্তরাত্মার আকুতি
ছুঁড়ে ফেলে দিতে পারি না বৃন্তচ্যুত স্বপ্নকুসুম
বুঝি নিজেকে কিছুটা হলেও ভালোবাসি বলে।

আমি এখনও স্বপ্নজাল ছিন্ন করি নি
সম্ভোগে শূন্য করতে পারি না আকাঙ্ক্ষাগুলো
ক্ষ্যাপার মতো বৈরাগ্য খুঁজি না প্রবল আগ্রহে
বুঝি নিজেকে কিছুটা হলেও ভালোবাসি বলে।

পৃষ্ঠাসমূহ

বোর্ডিং কার্ড

সজয় সরকার
সজয় সরকার এর ছবি
Offline
Last seen: 1 month 2 weeks ago
Joined: শুক্রবার, জানুয়ারী 27, 2017 - 6:12অপরাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

কু ঝিক ঝিক

ফেসবুকে ইস্টিশন

SSL Certificate
কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর