নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 3 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • ড. লজিক্যাল বাঙালি
  • দীব্বেন্দু দীপ
  • নুর নবী দুলাল

নতুন যাত্রী

  • রিপন চাক
  • বোরহান মিয়া
  • গোলাম মোর্শেদ হিমু
  • নবীন পাঠক
  • রকিব রাজন
  • রুবেল হোসাইন
  • অলি জালেম
  • চিন্ময় ইবনে খালিদ
  • সুস্মিত আবদুল্লাহ
  • দীপ্ত অধিকারী

আপনি এখানে

অপ্রিয় কথা এর ব্লগ

ধর্ষণের জন্য লিঙ্গ কর্তন করলেই কি অপরাধ প্রবণতা কমে যাবে? আমাদের ঘাটতি টা কোথায়?


চুরির জন্য হাত কর্তন, ধর্ষণের জন্য লিঙ্গ কর্তন করলেই কি অপরাধ প্রবণতা কমে যাবে? এসব ভয়ভীতি দেখালেই কি অপরাধীর সংখ্যা আস্তে আস্তে বিলুপ্ত হবে? আমার উত্তর না। আমাদের শিক্ষা ব্যবস্থা এতোটা অপরিপক্ক ও ভঙ্গুর যে, যেখান থেকে প্রতি বছর বের হয় হাজার হাজার অসুস্থ প্রতিদ্বন্দ্বী শিক্ষার্থী। উচ্চ নম্বর পাওয়ার জন্য, একটি সার্টিফিকেট অর্জন করার জন্য রাত-দিন জেগে পড়াশুনা করা ছাড়া আর কিই বা ঢুকানো হয় আমাদের শিক্ষার্থীদের মননে?

ইসলামি সন্ত্রাসের পথ ধরে চলছে রোহিঙ্গা মুসলিম পুরুষরা, আমরা কাদের জন্য মানবতা দেখাচ্ছি?


ইসলামি সন্ত্রাসের পথ ধরে চলছে রোহিঙ্গা মুসলিম পুরুষরা, আমরা কাদের জন্য মানবতা দেখাচ্ছি?
------------------------------------------------------

মায়ানমারে চলছে মুসলিম রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীদের হিন্দু হত্যার তাণ্ডব!


আমি দেখেছি একরাশ বিভীষীকাময় ভয়ার্ত করুন মুখ
আমি বুঝেছি স্বামী-শাশুড়ী হারা তিন মাসের বাচ্চা কোলে নেয়া সুশীলার বুক ছেঁড়া অব্যক্ত আর্তনাদ
কিশোরী রাজকুমারীর চোখে মুখে ছিল সীমাহীন ভয় আর আতংক!
দেখেছি সদ্য বিবাহিত নববধুর
স্বামী হত্যার চিৎকারের হাহাকার!

বন্যার্ত দূর্গত মানুষের হাহাকার, মিলিয়ন মিলিয়ন ডলারের সাবমেরিন ও সমরাস্ত্র দিয়ে আমরা কি করিব?


দুর্যোগ কবলিত বন্যার্ত মানুষের পাশে যখন রাষ্ট্রচালকরা দাঁড়ায় না, তখন রাষ্ট্রের খুব বিলাসীতা করে ক্রয় করা শত শত মিলিয়ন ডলারের সাব মেরিনগুলো যেন আমাদের মুখ ভেঙ্গায়। যেখানে বন্যায় দেশের লক্ষ লক্ষ মানুষ পানি বন্দি, দুর্বিষহ অসহায় জীবন যাপন করছে, বৈরি পরিবেশে বেঁচে থাকার জন্য প্রাণান্তকর চেষ্টা করে যাচ্ছে, সেখানে দুই'শ মিলিয়ন ডলারে সাবমেরিন, কোটি কোটি ডলারের যুদ্ধাস্ত্র আমাদের কিই বা উপকারে আসবে? দেশের মানুষের কোন কাজে আসবে? সাবমেরিন আর যুদ্ধাস্ত্র দিয়ে আমরা কি করিব? দেশের এই টাকাগুলো যদি দুর্যোগ মোকাবেলার জন্য বরাদ্দ থাকত, তাহলে আমাদের মানুষের দুঃসহ কষ্ট দেখতে হতো না।

ব্যক্তিগত কথাকাব্য


এই ফেইসবুক জগতে আসছি ৮-৯ বছর হয়ে গেল। ছাইপাশ যা লিখি না কেন, এই আট নয় বছরে এই পর্যন্ত কয়েক হাজার লেখা পোস্ট করেছি। প্রায় লেখা যাতে অর্থবহ হয়, সেই দিকে মনোভাব রেখে লেখার চেষ্টা করেছি। কোনটি কতটা অর্থবহ তা যেসব বন্ধুরা পড়েছেন তারা ভালো বলতে পারবেন। কোনো না কোনো ভাবে পুরোনোকে ভাঙার চেষ্টা করেছি। প্রচলিত জীর্ণতা আর মালিন্যকে ভেঙ্গেচুরে নতুন সময়কে উজ্জল দীপ্ত আলো দেয়ার চেষ্টা করেছি। এতে আশীর্বাদ স্বরুপ পেয়েছি প্রচলিত ধ্যান ধারনার মানুষের অকথ্য, অশ্রাব্য ভাষার গালাগালি। এই গালাগাল শুনে আমি মোটেও উত্যক্ত হয়নি। এটা আমার লেখার ভালো দিক হিসেবেই বিবেচনা করেছি সবসময়। এই ৭-৮ বছর ধরে আমি একজন সাম্যবাদ

বঙ্গবন্ধুর ক্ষমতার লোভ ও বর্তমান যুবলীগ-ছাত্রলীগের হাস্যকর শোক দিবস পালন!


বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব ও তাঁর পরিবারকে যারা নৃশংসভাবে হত্যা করেছে তারা আসলেই বোকা। তারা জানতো না যে, ভবিষ্যতে মৃত শেখ মুজিবের আদর্শ ও দল জীবিত মুজিবের চেয়েও আরো বেশি শক্তিশালী হয়ে উঠবে। এখন হয়েছেও তাই। মৃত্যুর পর বঙ্গবন্ধু এখন এই দেশে এক মহান মানুষ, এক মহান নেতা, স্বপ্নদ্রষ্টা এক রাজনৈতিক দেবতা হিসেবে প্রতিষ্ঠা পেয়েছে। অথচ বঙ্গবন্ধু তার যোগ্য কখনোই ছিলেন না। তিনি বড় জোর বক্তৃতার জেড়ে স্বাধীনতা সংগ্রামে সাড়ে সাত কোটি বাঙালীকে একত্রিত করতে পেরেছিলেন। বক্তৃতার জেড়ে মুক্তি সংগ্রামী মানুষকে যুদ্ধ করার জন্য অনুপ্রাণিত করেছিলেন। মুক্তিযোদ্ধাদের মনে অদম্য সাহস যুগিয়েছিলেন। কিন্তু একটা রাষ্ট্র পরিচালনা

অপ্রিয় কথা'র কবিতা সমগ্র, পর্ব-৪


নাস্তিক বলে ভেবো না আমার কামনা নেই
ইচ্ছে নেই
যৌনাবেগ নেই
সবকিছু সযত্নে গুছিয়ে রেখেছি
বোকা ভেবোনা
দেখোনা একটু স্পর্ষ করে,
দেখো দীর্ঘদিনের কতো উত্তাপ ফেনিল হয়ে উঠেছে!
তোমার স্পর্ষে সহসা দ্রবীভূত হবে বলে!
আর কতোকাল প্রতীক্ষা?
শুধু ভুভুক্ষের মতো চেয়ে আছি আগামির দিকে....
কেউ আসুক,
স্পর্ষ করুক
অধরে অধর মিলাক
আমি শুধু নিজেকে ছেড়ে এলিয়ে দেব
সে যেমন খুশি আমাকে নিঙড়ে নিক
আমি তো চাইছি সেই তার মতো করে আমাকে পাক
আমি তো পুরুষ!
আমি হাজার বছর ধরে তাকে চেয়ে এসেছি,

অপ্রিয় কথা'র কবিতা সমগ্র, পর্ব-৩


আমাদের মুক্তিযুদ্ধের চেতনা আজ মলিন হয়ে গেছে,
তাকে নিয়ে খদ্দরের মতো বেচাকেনা চলে,
আমাদের বাঙালীয়ানা আরবের থাবায় আজ মুমুর্ষ!
অসাম্প্রদায়িকতা বিলুপ্তি হয়েছে কখন!
আমাদের রাজনীতির দলগুলো প্রতিনিয়ত ত্রিশ লক্ষ শহীদের সাথে বিশ্বাসঘাতকতা করে যাচ্ছে!
বাঙালীত্ব ছাপিয়ে ওরা ইসমালিত্বের মাঝে গৌরব খুঁজে!
দিনশেষে কবিতা, গল্প, স্বসংস্কৃতি সবকিছু ফিকে যায় আরব্য বিশ্বাসে!
মনে হচ্ছে অস্তিত্ব থেকে হারিয়ে যাচ্ছি!
ধীরে ধীরে লাল-সবুজ আমাদের কাছে ধূসর থেকে ধূসরতর হয়ে যাচ্ছে
প্রতিবাদ চেতনা চিৎকার
আজ ইতিহাসে স্থান নিচ্ছে.....

December 7, 2014

অপ্রিয় কথা'র কবিতা সমগ্র, পর্ব-২


সেই শাহবাগি নাস্তিকরা
---------------------------------

মালোপাড়ায় সংখ্যালঘু হামলা নিয়ে
সরকার-বিরোধী দল যখন বাকবিতন্ডায় ব্যস্ত,
তখন গনজাগরনের তরুন-তরুনীরা একে একে জড়ো হচ্ছে।

চেতনাব্যবসায়ীরা যখন টাকার জন্য সম্পাদকীয়তে কলাম লিখতে ব্যস্ত,
তখন সেই শাহবাগি নাস্তিকরা নিজেদের
ব্যক্তিগত জীবন ভুলে গিয়ে যার যা আছে
সবটুকু সামর্থ্য দিয়ে ক্ষতিগ্রস্তদের জন্য
চাঁদা দিচ্ছেন,
বন্ধুদের কাছ থেকে চাঁদা তুলছেন।

পৃষ্ঠাসমূহ

বোর্ডিং কার্ড

অপ্রিয় কথা
অপ্রিয় কথা এর ছবি
Offline
Last seen: 6 ঘন্টা 29 min ago
Joined: শনিবার, ডিসেম্বর 24, 2016 - 2:15পূর্বাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

কু ঝিক ঝিক

ফেসবুকে ইস্টিশন

SSL Certificate
কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর