নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 11 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • মূর্খ চাষা
  • নরসুন্দর মানুষ
  • রাজিব আহমেদ
  • কাঠমোল্লা
  • পৃথু স্যন্যাল
  • আল আমিন হোসেন মৃধা
  • নিরব
  • সাগর স্পর্শ
  • দ্বিতীয়নাম
  • নুর নবী দুলাল

নতুন যাত্রী

  • মাসুদ রুমেল
  • জুবায়ের-আল-মাহমুদ
  • আনফরম লরেন্স
  • একটা মানুষ
  • সবুজ শেখ
  • রাজদীপ চক্রবর্তী
  • নাজমুল-শ্রাবণ
  • চিন্ময় ভট্টাচার্য
  • নেইমানুষ
  • পরাজিত শুভ

আপনি এখানে

অপ্রিয় কথা এর ব্লগ

এই রাষ্ট ও সমাজের যৌনাক্রম, ধর্ষন, যৌনাধিকার আর যৌন-অশিক্ষার..... সমাচার


এদেশের রাষ্ট্র-সমাজ ও পরিবার যৌনশিক্ষাটাকে এতো এতো ট্যাবু করে রেখেছে যে, এই শিক্ষা শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে যোজন যোজন দুরে রাখা হয়। এই যেন নিষিদ্ধ কোনো শিক্ষা। এই যেন ঔষদের মতো ভয় দেখিয়ে বলার মতো, -শিশুদের নাগালের বাইরে রাখুন! যৌনশিক্ষা কেন ট্যাবু হবে? এই শিক্ষা কেন ছোটকাল থেকে শিশুকে দেয়া হয় না? সঙ্গম, সেক্স, মিলন, সহবাস, মৈথুন..... এই শব্দগুলো মানুষের জীবনের সাথে ওতপ্রোত ভাবে জড়িত। এটা কেন আমাদের ছোটকাল থেকে বলা হয় না? এটা কি নিষিদ্ধ কোনো গন্ধম? এটা মানব জীবনের বাইরের কোনো অংশ?

শিশুকালে নারীর মনে সতীত্ব নামক এক উদ্ভট ধারণা গেঁথে দেয় আমাদের পরিবার আর সমাজ।


অনেকদিন আগে আমার বন্ধু মিলন চারজন বন্ধুকে নিয়ে শোকে দুঃখে পার্টি দিচ্ছিল। কারণ প্রেমিকার সাথে তার দীর্ঘদিনের সম্পর্ক ভেঙ্গে গেছে। বন্ধু মিলন পেগ খেতে খেতে আমাদের বলে, -ইলা আমাকে ছেড়ে কিভাবে চলে যেতে পারল সেটাই ভাবছি! তার সাথে....

কথা শেষ না হতেই আহসান বলল, -আরে বাদ দে! তুই তো ওরে খাইয়া দিছস, ভোগ করছস, ওর জামাই কিন্তু এখন দুই নম্বর মাল পাবে!

আমি বললাম, -আহসান, ইলা দুই নম্বর মাল হতে যাবে কেন? ইলা যদি দুই নম্বর মাল হয়, তাহলে মিলনও তো দুই নম্বর মাল হয়ে গেল!

ধর্মের গুনাবলী


ধর্মের গুনাবলী
==========

ধর্ম এমন একটা বিশ্বাস,
যে বিশ্বাস মানুষকে হিন্দু-
মুসলিম-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান
-ইহুদী- জৈণ-শিখ......হতে শেখায়।

ধর্ম এমন একটি অনুভূতি,
যে অনুভূতি শান্ত-শিষ্ট বিনয়
মানুষটাকে সহিংস হিংস্র বর্বর করে তুলে!

ধর্ম এমন একটি প্রাচীর,
যে প্রাচীর মানুষ
মানুষের মাঝে বড় বড় অদৃশ্যের প্রাচীর গড়ে তুলে,
তৈরি করে জাতিভেদ!
শ্রেনীভেদ!
লিঙ্গভেদ!

ধর্মের সুরায় এতোই নেশা,
যে নেশায় মানুষ অলৌকিক
স্বর্গ-বেহশ্তের আশায় মত্ত থাকে!
ইহলোককে দোযখ বানায়!

.....যে বাণিজ্যে অর্থ আর পুঁজি বিনিয়োগ করার কোনো প্রয়োজন পড়ে না।


গতকাল থেকে অসুস্থ। হাঁটতে পারছি না। একদম খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে হাঁটছি। পায়ের গোঁড়ালিতে কোথায় কখন মোচড় খেয়েছি ঠিক মনে করতে পারছি না। পায়ের গোঁড়ালির ব্যাথায় সারারাত আহত কুকুরের মতো দীর্ঘশ্বাস ছেড়ে ছেড়ে গোঙাচ্ছিলাম। গোঙানীর মধ্যে যে শব্দটি প্রাধান্য পেয়েছে তা হল, - ও মা! ও মা! মারে! অসুখ হলে এই পৃথিবীতে সবচেয়ে মাকে আপন মনে হয়। মাকেই সেরা ডাক্তার মনে হয়। ছোট বেলার কথা মনে পড়ে। গায়ে জ্বর আসলে মা ছোট কাপড় ভিজিয়ে ভিজিয়ে মাথায় জলপট্টি দিতেন। মাথার শিউরে রাত জেগে বসে থাকতেন। মাথায় হাত বুলাতেন। আর বলতেন, বাবা এখন কেমন লাগছে?

বিবেকের দৃষ্টি


ব্রিটেনে দেখেছি উন্নত গনতন্ত্র চর্চার পার্লামেন্ট
প্যারিসে পেয়েছি সভ্যতা
জার্মানে পেয়েছি মানুষের জন্য মানবিকতা
কিউবায় দেখেছি জনগনের শিক্ষা ও চিকিৎসার প্রতি রাষ্টের দায়িত্ববোধ
চীন-রাশিয়ায় দেখেছি ক্যমুনিজমের নামে দুঃশাসনের একনায়কতন্ত্র
জাপানে দেখেছি কর্মব্যস্ততায় ভরা মানুষের দৈনিন্দ জীবন
নরওয়েতে পেয়েছি স্বস্তির শান্তি
আমেরিকায় পেয়েছি এক নম্বর অর্থনীতির প্রতিযোগীতা
সৌদিতে দেখেছি বর্বর আইনের প্রয়োগ
ইরাক-সিরিয়ায় দেখেছি আল্লাহু আকবরের নামে মানুষ জবাইয়ের মহোৎসব!
ভারতে দেখেছি একদিকে কানায় কানায় কুসংস্কার

ঈমামের জন্য সম্মান! ধর্মান্ধতার পথ ধরে এগিয়ে যাচ্ছে স্বদেশ!


তরুনটি পাশের টুলে বসা পঞ্চাশোর্ধ ফর্সা গোলগাল নুরানি চেহেরার অধিকারীকে হাতের ইশারায় দেখিয়ে আমাকে বলল, -দেখুন উনি আমাদের মসজিদের ঈমাম। আমাদের সবাইকে নামাজ পড়ায়। এলাকায় আমরা সবাই উনাকে সম্মান করি। উনার সামনে সিগারেট খাওয়া বেমানান, এটা উনাকে অসম্মান করা!

এখন আমাকে আর কোনো কিছুই অবাক করেনা!


পাকিস্তানের মারদানে 'আব্দুল ওয়ালি খান ইউনিভার্সিটি' তে মাশাল খানকে খুব নির্মমভাবে হত্যা করা হয়েছে এক সপ্তাহ হয়ে গেল। তার নির্মম মৃত্যুর ঘোর এখনো কাটেনি। এই শোক আমাকে এখনো ছুঁয়ে ছুঁয়ে যায়। খুঁড়ে খুঁড়ে খাচ্ছে আমার বিবেককে। গত বুধবারে পাকিস্তানের মারদানে আব্দুল ওয়ালি খান ইউনিভার্সিটিতে মাশাল খানের পোষ্ট নিয়ে তারই সহপাঠীরা ক্যাম্পাসে তাঁর সাথে বাক-বিতণ্ডায় লিপ্ত হয়, এর পরদিন বৃহঃস্পতিবার সকালের পর সেই বুদ্ধিদীপ্ত তরুন মাশাল খান ছবি হয়ে গেল! এক রক্তাক্ত লাশ হয়ে গেল! দুর্বল কাপুরুষ ধর্মান্ধ সবাই মিলে তাঁকে পিটিয়ে মারল।

হেই বাংলাদেশ তোমাকেই বলছি


হেই বাংলাদেশ তোমাকেই বলছি
-----------------------

এখন আমার চোখের সামনে ভাসছে একটিই লাশ,
রোমেল চাকমার পোঁড়া লাশ!
পার্বত্য চট্টগ্রামের নিপীড়িত আদিবাসী মানুষের অব্যক্ত কষ্ট দেখছি
আমি জম্ম থেকেই
যেখানে আদিবাসী মানুষদের কুকুর-বেড়ালের মতো মারা হয়
যেখানে আদিবাসী মেয়েদের সেনাবাহিনী আর বাঙালী সেটেলাররা মিলেমিশে গনধর্ষন করে!
যেখানে বাংলাদেশের সেনাবাহিনীরা পাহাড়ের আদিবাসীদের বুকে বন্দুকের নল ঠেকিয়ে শাসিয়ে রাখে!
যেখানে আদিবাসীদের পৈতৃক ভুমি মুসলমান সেটেলার আর বাংলাদেশী সেনাবাহিনীরা ভুমিদুস্যের মতো দখল করে নেয়।

পিকে সমাচার


ভারতে রাজস্থানের মরুভুমিতে ভুল করে নেমে আসা এক এলিয়েন। গায়ে কিছু নেই, পুরাই নগ্ন। এলিয়েনের গলায় একটা লকেট, (রিমোট কন্ট্রোল) যা প্রতিনিয়ত তাকে নিয়ন্ত্রণ করে। দিক নির্দেশনা বাতলে দেই। এই মনুষ্য পৃথিবীতে পা দেয়ার পর পরই এলিয়েনটি বিপদে পড়ে! পাগরী পড়া এক বৃদ্ধ মানুষ তার লকেটটি ছিনতাই করে পালিয়ে যায়। এখন এলিয়েন যাবে কোথায়? তাকে কে নির্দেশনা দেবে? সেই আবার নিজের গ্রহেই বা ফিরে যাবে কিভাবে? শুরু হয় এই লকেটের জন্য এলিয়েনের গভীর অনুসন্ধান।

পৃষ্ঠাসমূহ

বোর্ডিং কার্ড

অপ্রিয় কথা
অপ্রিয় কথা এর ছবি
Offline
Last seen: 2 দিন 14 ঘন্টা ago
Joined: শনিবার, ডিসেম্বর 24, 2016 - 2:15পূর্বাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

কু ঝিক ঝিক

ফেসবুকে ইস্টিশন

SSL Certificate
কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর