নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 4 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • সাজ্জাদুল হক
  • শঙ্খচিলের ডানা
  • তাকি অলিক
  • ইকরামুল শামীম

নতুন যাত্রী

  • মোমিত হাসান
  • সাম্যবাদ
  • জোসেফ স্ট্যালিন
  • স্ট্যালিন সৌরভ
  • রঘু নাথ
  • জহিরুল ইসলাম
  • কেপি ইমন
  • ধ্রুব নয়ন
  • সংগ্রাম
  • তানুজ পাল

আপনি এখানে

নিরব এর ব্লগ

সর্বজনগ্রাহ্য নির্বাচন অনুষ্ঠানের বিধিমালাতে আমূল পরিবর্তন


আগামী একাদশ সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে জাতীয় সংসদ নির্বাচনের বিধিমালা গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশ ১৯৭২-এ (আরপিও) -তে বড় ধরনের সংস্কার আনা হচ্ছে। নির্বাচনে পেশীশক্তির দমন, কালো টাকার অবাধ ব্যবহার রোধ, সর্বোপরি অবাধ, প্রভাবমুক্ত ও সর্বজনগ্রাহ্য নির্বাচন অনুষ্ঠানের প্রয়োজনেই এই বিধিমালাতে আমূল পরিবর্তন আনা হচ্ছে। বিদ্যমান আরপিওর ২৭টি ধারার ৩৫টি অনুচ্ছেদে সংযোজন-বিয়োজন এবং সংশোধন ও বিলুপ্তির লক্ষ্যে প্রস্তাবনা চূড়ান্ত করা হয়েছে। এর মধ্যে সংযোজন হবে ২১টি, বিয়োজন হবে ৩টি, সংশোধন হবে ৭টি এবং অপ্রয়োজনীয় ৪টি অনুচ্ছেদ বিলুপ্তির সুপারিশ করা হয়েছে। গত রোববার একাদশ জাতীয় নির্বাচনকে সামনে রেখে আগামী দেড় বছরের ক

জামায়াত ভোটে লড়তে চায় কোন অধিকারে?


জামায়াতে ইসলামী বাংলাদেশ ও তাদের ছাত্র সংগঠন বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্র শিবিরের রগকাটা থেকে শুরু করে গাছ ফেলে রাস্তা অবরোধ এবং পেট্রোল বোমা নিক্ষেপসহ নানা অপ্রীতিকর ঘটনায় দেশের মানুষ আজ অতিষ্ঠ। ১৯৭১-এ মানবতাবিরোধী অপরাধের সাথে জড়িত ছিল দলটির অধিকাংশ শীর্ষস্থানীয় নেতাকর্মী। মানবতাবিরোধী অপরাধে সংশ্লিষ্টতার কারণে ইতোমধ্যে আদালতের রায়ে জামায়াতের কিছু শীর্ষ নেতার ফাঁসিও কার্যকর করা হয়েছে। অন্যদিকে জামায়াতে ইসলামী বাংলাদেশের ঘোষণাপত্র রাষ্ট্রের সংবিধানের মৌলিক স্তম্ভ গণতন্ত্রের সঙ্গে সাংঘর্ষিক হওয়ায় একটি রিট আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ২০১৩ সালের আগস্টে রাজনৈতিক দল হিসেবে নির্বাচন কমিশনে দলটির নিবন্ধনও বা

তুলে ধরতে হবে সঠিক আদর্শ


বাংলাদেশ এখন একটি ক্রান্তিকাল অতিক্রম করছে, যেখানে উগ্রপন্থা বা জঙ্গিবাদ নতুন করে একটি উদ্বেগ ও ঝুঁকির কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। গত বছর গুলশানে জঙ্গি হামলা এ ক্ষেত্রে একটি নতুন মাত্রা যোগ করেছে। তবে একটি বিষয় উল্লেখযোগ্য, ওই ঘটনার পর আমরা পুরো দেশে সামাজিক প্রতিরোধ গড়ে তোলার মনোভাব লক্ষ্য করেছি। এর ফলে গত এক বছরে কোনো ধরনের জঙ্গি হামলার ঘটনা আমরা দেখিনি। যদিও জঙ্গিবাদের হুমকি এখনো অনেকটাই ব্যাপক। জঙ্গিবাদকে সম্পূর্ণভাবে মোকাবিলা করতে গেলে তরুণ সমাজের মধ্যে সচেতনতা আনাটা সবচেয়ে জরুরি। কেননা, তারাই উগ্রবাদীদের লক্ষ্য থাকে। বর্তমানে আমাদের তরুণ সমাজের একাংশের মধ্যে দেশ নিয়ে, সমাজ নিয়ে, সমাজব্যবস্থা

জঙ্গিবাদ-উগ্রবাদের মদদ দাতাদের ষড়যন্ত্র নির্মুলে মোবাইল ব্যাংকিংয়ে কঠোর নজরদারি


বাংলাদেশ সন্ত্রাস ও নৈরাজ্যের বিরুদ্ধে নিরন্তর লড়াই করে যাচ্ছে। বর্তমান সরকার খুব সাফল্যের সঙ্গে দেশের আইন-শৃংঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রেখেছে এবং সাম্প্রতিক কালের সন্ত্রাসী হামলার প্রেক্ষিতে আইন-শৃংঙ্খলা পরিস্থিতিকে আরো জোরদার করা হয়েছে। সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে বর্তমান সরকারের ‘জিরো টলারেন্স’ নীতির কারণে দেশ দ্রুত এ উগ্রবাদী ছোবল থেকে বের হয়ে আসছে। ধর্মীয় উগ্রবাদ ও উগ্রবাদী জঙ্গিদের বিরুদ্ধে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কার্যকর সাঁড়াশি অভিযান ও তাদের দমনের ফলে আতঙ্ক চেপে বসা সাধারণ জনগণের মনেও ধীরে ধীরে স্বস্তির ভাব ফিরে আসছে। সরকার ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনী জঙ্গি দমনে কঠোর অবস্থানের ফলে উগ্রবাদী

টোল আদায়ে চালু হচ্ছে ‘টাচ অ্যান্ড গো’ প্রযুক্তি


বর্তমানে বাংলাদেশে এরূপ প্রতিষ্ঠান খুঁজে পাওয়া যাবেনা যেখানে আধুনিক তথ্য প্রযুক্তির ছোঁয়া পৌঁছায়নি। অনেক আগ থেকেই সেবা প্রদানকারী সংস্থাগুলোকে যুগ-উপযোগী করার লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছে বাংলাদেশ সরকার। এরই ধারাবাহিকতায় সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে বিদ্যমান টোল আদায় পদ্ধতির পাশাপাশি দ্রুতগতিতে টোল আদায়ের জন্য টোল প্লাজায় চালু হতে যাচ্ছে ডিজিটাল ‘টাচ অ্যান্ড গো’ প্রযুক্তি। ডিজিটাল কার্ড, টাচ অ্যান্ড গো-সংশ্লিষ্ট মেশিনে স্পর্শ করলে স্বয়ংক্রিয়ভাবে টোল পরিশোধ হয়ে যাবে। এতে সময় কম লাগার পাশাপাশি টোল ব্যবস্থা আরো স্বচ্ছ ও শতভাগ টোল আদায় নিশ্চিত হবে। এক্ষেত্রে আগে থেকেই কার্ড বিক্রির ব্যাবস

গুম নয় আত্নগোপনে রয়েছে তারা


বাংলা ভাষায় গুম একটি নেতিবাচক শব্দ। অভিধানে গুম মানে ‘অন্তর্ধান’, ‘অদর্শন’, ‘অনুপস্থিতি’ ‘অপহরণ’ এবং নিখোঁজ হওয়া। কিন্তু গুমের আছে আরো ব্যাখ্যা। বাংলাদেশের মামলাবাজ মানুষেরা শত্রুকে জবরদস্তিমূলকভাবে অথবা কৌশলে ধরে এনে হত্যা করে। কখনো কখনো স্বজনকে লুকিয়ে রেখে শত্রুর বিরুদ্ধে মামলা করে। এভাবে গুমের ব্যক্তিগত ব্যবহার লক্ষ করা যায়। গুম নয়, দেশে যা ঘটছে, তা আসলে আত্মগোপন। রাজনৈতিক বা অন্য কোনো কারণে কেউ আত্মগোপন করলে সেটা গুম বলে প্রচার হচ্ছে। এ নিয়ে উদ্বেগের কিছু নেই। আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সাদা পোশাকে ধরে নিয়ে যাওয়ার অভিযোগ একবারেই ভিত্তিহীন এ ধরনের ঘটনার সঙ্গে সরকারের কোনো বাহিনীর সংশ্লিষ্টতা ন

টার্গেট এক কোটি, মাজেজা কী?


গত কিছুদিন যাবত দেশের অন্যতম টক অব দ্যা টাউন হিসেবে আলোচিত ইস্যু হচ্ছে, আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে ঘিরে তৃণমূল চাঙ্গা, তহবিল গঠন, দল ভারি ও ডাটাবেজ তৈরির জন্য সদস্য সংগ্রহ অভিযান শুরু করেছে বিএনপি। দলের চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া গত ১লা জুলাই এই কর্মসূচির উদ্বোধন করে আগামী দুই মাসের মধ্যে এক কোটি নতুন সদস্য সংগ্রহের টার্গেট ঘোষণা করেন। তিনি দশ টাকা দিয়ে নিজের সদস্য পদ নবায়ন করেন। এই টার্গেট সফল করতে দলের স্থায়ী কমিটির সদস্যসহ সিনিয়র নেতারা পর্যায়ক্রমে বিভিন্ন জেলায় গিয়ে ঘটা করে কর্মসূচি উদ্বোধন করে সদস্য সংগ্রহ ফরম সংশ্লিষ্ট জেলার প্রতিটি উপজেলার দলীয় সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকদের হাতে তুলে

এই দাবির অন্তরালে রহস্যটা কী?


বর্তমানে দেশের রাজনীতি সচেতন প্রতিটি মানুষের মনেই ঘুরপাক খাচ্ছে একটি প্রশ্ন, বিএনপি’র সহায়ক সরকারের সংজ্ঞাটা কী? নিকট অতীতে তাদের বোধাতীত হটকারি কর্মকান্ডের বিরুপ অভিজ্ঞতার কারণেই দেশবাসীর কাছে পুরো বিষয়টি এখনও একটি ধোঁয়াশা ছাড়া কিছুই নয়। এমনকি বিএনপি’র স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদও বলেছেন, “আমরা নির্বাচনকালে একটি নিরপেক্ষ সহায়ক সরকারের রূপরেখা তৈরির কাজ করছি। তাই এ বিষয়ে এখনই কিছু বলতে চাই না।” অর্থাৎ যে সহায়ক সরকারের রূপরেখাই এখন পর্যন্ত তৈরি হয়নি, সেই সরকারের দাবি মানানোর জন্য বিএনপি’র হাঁকডাকের অন্ত নেই!

অভিনব অগ্রগতি


আন্তরিকতা আর নিষ্ঠাই যে ইতিবাচক পরিবর্তনের মূল চালিকা শক্তি তা আরও একবার প্রমাণিত হলো। এ দেশে এক সময় গণ পরিবহণ নিয়ে জণগনের হতাশার প্রতীকী প্রতিচ্ছবি ছিলো – নয়টার ট্রেন কয়টায় ছাড়ে?

সাম্প্রদায়িক রাজনীতি, ধর্মকে পুঁজি করে নয়!


বাংলাদেশ একটি ধর্ম নিরপেক্ষ দেশ। এদেশে সব ধর্মের সঙ্গে সহমর্মিতা, সৌহার্দ্য ও ভ্রাতৃত্ব বোধ বিদ্যমান। সবাই কাধে কাধ মিলিয়ে দেশের ধর্মীয় আচার অনুষ্ঠান ও সংকৃতিক কর্মকান্ড পালন করে থাকে। কিছু অপশক্তি ধর্ম ব্যবসায়ী মাঝে মাঝে দেশের স্থিতি অবস্থাকে বিনষ্ট করার পায়তারা করে। সরকার অবশ্য তাদের কঠোর হস্তে দমন করে আসছে। জনগণের সামাজিক, রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক, সাংস্কৃতিক এবং নৈতিক দিকের সর্বাঙ্গীণ কল্যাণ সাধন করাই গণতান্ত্রিক কল্যাণমূলক রাষ্ট্রের অন্যতম লক্ষ্য। এ উদ্দেশ্যে, আমেরিকা, ব্রিটেন বা যুক্তরাজ্য, ভারত এবং আয়ারল্যান্ডসহ পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের সংবিধানে রাষ্ট্র পরিচালনার জন্য কতকগুলো মৌলিক নীতি নির্

পৃষ্ঠাসমূহ

বোর্ডিং কার্ড

নিরব
নিরব এর ছবি
Offline
Last seen: 1 week 3 দিন ago
Joined: রবিবার, অক্টোবর 23, 2016 - 6:13অপরাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

কু ঝিক ঝিক

ফেসবুকে ইস্টিশন

SSL Certificate
কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর