নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 2 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • নুর নবী দুলাল
  • নীল কষ্ট

নতুন যাত্রী

  • ষঢ়ঋতু
  • এনেক্স
  • আরিফ ইউডি
  • গলা বাজ
  • হুসাইন
  • তারুবীর
  • অন্তরা ফেরদৌস
  • শেখ সাকিব ফেরদৌস
  • প্রাণ
  • ফেরদৌস সজীব

আপনি এখানে

মলি এর ব্লগ

ছয় মাসে ১০ হাজার কোটি টাকা


সময়ের পট পরিবর্তনে দেশের অর্থনৈতিক কাঠামোতে চলমান পরিবর্তনের ধারাবাহিকতায় সামগ্রিক দেশীয় অর্থনীতির কৃষিনির্ভরতা বর্তমানে বহুলাংশে হ্রাস পেলেও দেশের সিংহভাগ জনগোষ্ঠীর আর্থিক কার্যক্রমে এখনো কৃষি সম্পৃক্ততাই মূখ্য। এ কারণেই বর্তমান জনবান্ধব সরকার নানা সময়োপযোগী উদ্যোগ বাস্তবায়নের মাধ্যমে দেশীয় কৃষির সক্ষমতা বৃদ্ধিতে সদা সচেষ্ট। এরই ধারাবাহিকতায় সরকারি কৃষি প্রণোদনা কার্যক্রমের আওতায় চলতি অর্থবছরের প্রথম ছয় মাসে প্রায় ১০ হাজার কোটি টাকার কৃষি ঋণ বিতরণ করেছে ব্যাংকগুলো, যা নির্ধারিত লক্ষ্যমাত্রার ৫৬ শতাংশ। এ বছর সরকারি ব্যাংকগুলো বিতরণ করেছে লক্ষ্যমাত্রার ৪৯ দশমিক ৫৯ শতাংশ ও বেসরকারি ব্যাংকগুলো

দেশের স্বাস্থ্য খাতকে ডিজিটালে রূপান্তরিত করতে বিশেষ অ্যাপ


দেশের স্বাস্থ্য খাতকে ডিজিটালে রূপান্তরিত করতে সবার জন্য উন্মুক্ত অ্যাপ এসেছে গুগল প্লেতে। নাটোরের এসআরএ এন্টারপ্রাইজের ব্যবস্থাপনায় সারা দেশে সফটওয়্যারটি চালানো হবে।আর আনুষ্ঠানিক বার্তা শুরু হবে এ বছরের ফেব্রুয়ারিতে। অ্যাপটির নাম ইউঊগজ, যার পুরো নাম হচ্ছে বাংলাদেশ ইলেকট্রনিক মেডিকেল রেকর্ড। এ অ্যাপের মাধ্যমে রোগী তার সব মেডিকেল তথ্য সংরক্ষণ করতে পারবেন। প্রতিদিনের রক্তচাপ, রক্তে শর্করার পরিমাণ, নাড়ির গতি, অক্সিজেনের দ্রবীভূত হওয়ার শতকরা হার, ওজন, উচ্চতা, বিএমআই নিয়মিত লিখে জমা রাখতে পারবেন। সেই লিখে রাখা তথ্য রোগীর চিকিৎসক তার চেম্বারে বসেই দেখতে পাবেন অন্য একটি অ্যাপের মাধ্যমে। চিকিৎসক যদ

বাংলাদেশের আগামীর ভাবনা


নব্য মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড জে ট্রাম্প দায়িত্ব গ্রহণের প্রথম দিনই যেভাবে নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি পালনে উদ্যোগী হয়েছেন তাতে উদ্বেগ বাড়ছে যুক্তরাষ্ট্রসহ সারা বিশ্বে, তালিকায় আছে বাংলাদেশও। অভিবাসন, বাণিজ্য, জলবায়ু পরিবর্তন ও নিরাপত্তা নিয়ে ট্রাম্পের নতুন মার্কিন প্রশাসনের পদক্ষেপগুলো এখন মনোযোগ দিয়ে পর্যবেক্ষণ করতে হবে বাংলাদেশকে। ইতোপূর্বে ঢাকা-ওয়াশিংটন সম্পর্কের বর্তমান ধারা অব্যাহত রেখে তা এগিয়ে নিতে গত নভেম্বরের মাঝামাঝি সরকারের দায়িত্বশীল এক কর্মকর্তা মার্কিন প্রশাসন ও রাজনৈতিক মহলে যোগাযোগ করেছেন বলে জানা গেছে। তবে বর্তমান প্রেক্ষাপটে পরিস্থিতি অনুযায়ী সম্পর্ক এগিয়ে নিতে সময়োপয

দ্রুত গতিতে চলছে উন্নয়নের চাকা


বাংলাদেশ বর্তমানে উন্নয়ন মহাসড়কে দ্রুত গতিতে এগিয়ে চলছে। জিডিপি প্রবৃদ্ধি ৭ দশমিক ৫ শতাংশের প্রত্যাশা করা হচ্ছে। বাংলাদেশে ২৭ লাখ লোকের কর্মসংস্থানের পাশাপাশি ২০১৬-১৭ অর্থবছরে মোট দেশজ উৎপাদন (জিডিপি) প্রবৃদ্ধি ৭ দশমিক ৫ শতাংশ প্রাক্কলন হবে। চলতি অর্থবছরের প্রবৃদ্ধি গত অর্থবছরের চেয়ে ছাড়িয়ে যাবে। অর্থবছরের প্রথম ৬ মাস দেশের সামষ্টিক অর্থনীতি বেশ ভালো অবস্থানে রয়েছে। এ ধারা অব্যাহত থাকলে ২০১৭ সালের অর্থনীতি ২০১৬ সালের অর্থনীতির চেয়েও শক্তিশালী অবস্থানে থাকবে। কৃষি, সেবা ও শিল্প খাতের ওপর ভিত্তি করেই প্রধানত জিডিপি প্রবৃদ্ধি বাড়ে। তবে এক্ষেত্রে শ্রমিকের অভাবে কৃষিতে প্রবৃদ্ধি সামান্য কমেছে। অ

দেশের কৃষি ব্যবস্থায় টেকসই উন্নয়ন নিশ্চিত করতে ‘ই-ভিলেজ’


আমাদের দেশের কৃষি ব্যবস্থায় ফসল উৎপাদনে জলবায়ু পরিবর্তনজনিত অভিঘাত, শিল্পায়ন ও অবকাঠামোগত উন্নয়নের প্রভাব বিদ্যমান। বাস্তব এমন পরিস্থিতিতে গবেষকরা নিরন্তর প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির অফুরন্ত সম্ভাবনা কাজে লাগিয়ে কিভাবে স্বল্প ব্যয়ে সর্বোচ্চ ফলন নিশ্চিত করা যায়। কৃষিবান্ধব বর্তমান সরকারও প্রযুক্তিকে সর্বাধিক গুরুত্ব দিয়ে আসছে। এরই ধারবাহিকতায় প্রযুক্তির সর্বশেষ অগ্রগতি কাজে লাগিয়ে দেশের কৃষি ব্যবস্থায় টেকসই উন্নয়ন নিশ্চিত করতে ‘ই-ভিলেজ’ নামের একটি বিশেষ প্রকল্পে সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর করেছে বাংলাদেশ ও চীন। মাটির স্বাস্থ্য, ফসলের প্রকৃত রোগ যথাযথভাবে নিরূপণ করে বিদ্যমান উৎপ

জলে ভাসা এলএনজি টার্মিনাল এবং অন্যান্য


দেশের সার্বিক জ্বালানি পরিস্থিতি উন্নয়নে কক্সবাজারের মহেশখালীতে দ্বিতীয় এলএনজি টার্মিনাল নির্মাণে সম্মতি দিয়েছে সরকার। এর আওতায় কক্সবাজারের মহেশখালীতে সামিট কর্পোরেশন লিমিটেড কর্তৃক ৫০০ এমএমসিএফ ক্ষমতা সম্পন্ন দ্বিতীয় ভাসমান এলএনজি টার্মিনাল ‘ফ্লোটিং স্টোরেজ এ্যান্ড রিগ্যাসিফিকেশন ইউনিট’ স্থাপন করা হবে। এই টার্মিনাল থেকে ১৫ বছর মেয়াদে গ্যাস সরবরাহ করা হবে। টার্মিনালটি নির্মাণে কতদিন লাগবে সেটা এখনো নির্ধারিত না হলেও এর জন্য জি টু জি ভিত্তিতে কাতারের ‘র্যা সগ্যাস’ এর নিকট থেকে সরাসরি ক্রয় পদ্ধতিতে এলএনজি ক্রয়ের নীতিগত অনুমোদনের জন্য সুপারিশ করা হয়েছে।এছাড়া কুয়েত ফান্ডের সহায়তায় তৃতীয় কর্ণফ

এটা এখন আর বলার অপেক্ষা রাখে না


১৯৭১ সালে স্বাধীনতা পরবর্তী সময়ে বিশ্বের দ্বিতীয় দরিদ্রতম দেশ ছিল বাংলাদেশ। আর সেই বাংলাদেশের অর্থনীতি এখন জিডিপির ভিত্তিতে বিশ্বে ৪৫তম এবং ক্রয়ক্ষমতার ভিত্তিতে ৩৩তম স্থান অধিকার করেছে। বাংলাদেশ এখন আর ‘তলাবিহীন ঝুড়ি’ নয়, বরং ঐ ঝুড়ি এখন পরিপূর্ণ হয়ে উপচে পড়ছে। দেশে এখন আর দুর্ভিক্ষ হয় না, মঙ্গা শব্দটিও নির্বাসিত। মানুষের জীবনযাত্রায় ঘটে গেছে এক নিরব পরিবর্তন। দেশব্যাপী শুরু হওয়া কর্মযজ্ঞে শহর-গ্রামের পার্থক্য অনেকটাই কমে যেতে শুরু করেছে। পুরোপুরি পাল্টে গেছে নিম্ন মধ্যবিত্ত পরিবারের জীবনযাত্রার চিত্র। রঙিন টিভি, ফ্রিজ, খাট-পালঙ্ক থেকে শুরু করে আধুনিক গৃহসজ্জার প্রায় সব সামগ্রীই বিদ্যমান এসব

সম্ভাবনাময় তরুন সমাজ


বাংলাদেশের তরুণরা অনেক সম্ভাবনাময়। এই দেশে তরুণদের আধিক্য আমাদের ব্যাপক অর্থনৈতিক উন্নয়নের নির্দেশক। জনসংখ্যাগত এই সুবিধা ও সুযোগ সব সময় আসে না। কিন্তু এই সুযোগকে কাজে লাগাতে না পারলে আমাদের মধ্যম আয়ের ও উন্নত দেশের স্বপ্ন থেকে যাবে অধরা। তরুণদের মানসম্মত শিক্ষা ও প্রশিক্ষণ যেমন দরকার, তেমনি দরকার তাদের কর্মসংস্থানের পথ সমপ্রসারণও। সমপ্রতি একটি বেসরকারি গবেষণা সংস্থা প্রণীত ‘কর্মসংস্থান ও শ্রমবাজার পর্যালোচনা, ২০১৭’ শীর্ষক এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে যে, দেশের ১৫ হইতে ২৯ বছর বয়সী প্রায় ২৫ শতাংশ তরুণ নিষ্ক্রিয়। তারা কর্মবাজারে নেই, শিক্ষায় নেই, আবার প্রশিক্ষণও গ্রহণ করে না। তাদের সংখ্যা প্রায় এক

দীর্ঘ পথ পরিক্রমায় আমরা


বাঙালী জাতি অনেক আগে থেকেই অবহেলিত, তাই মুক্তির জন্য অনেক সংগ্রাম করতে হয়েছে। বাঙালী জাতির মুক্তির জন্য সংগ্রামটা শুরু হয়েছে অনেক আগে, প্রায় সত্তর-ঊনসত্তর বছর হয়ে গেল, যখন ১৯৪৮ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে বাংলার এক সূর্যসন্তান কুমিল্লার ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত পাকিস্তানের সংসদ অধিবেশনে দাঁড়িয়ে গর্জে উঠলেন, রাষ্ট্রের সংখ্যাগরিষ্ঠ মানুষের মুখের বুলি বাংলাকে রাষ্ট্র ভাষার মর্যাদা দিতে হবে। তখন পাকিস্তানের পাঞ্জাবী শাসকরা ধীরেন্দ্রনাথ দত্তকে ভারতের দালাল আর পাকিস্তানের শত্রু ও ইসলামের দুশমন হিসেবে চিহ্নিত করে তাঁর বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহের অভিযোগ আনেন। কিন্তু বঙ্গ সন্তানদের অব্যাহত অদম্য সংগ্রামের ফলে ১৯৫৬ স

ব্যাপক সাফল্য এসেছে শিক্ষা খাতে


বাংলাদেশ যে একটি মধ্যম আয়ের উন্নত দেশে রূপান্তরিত হতে চলেছে, বিষয়টি এখন আর কল্পনা বা অনুমানের মধ্যে সীমাবদ্ধ নেই, বিষয়টি এখন দৃশ্যমান। বিশ্বব্যাংক, এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক বা এ ধরনের যে সমস্ত সংস্থা রয়েছে, তাদের সকলেরই অভিমত, বাংলাদেশ সামনের পাঁচ বছরের মধ্যে একটি মধ্যম আয়ের দেশে রূপান্তরিত হবে। বর্তমান বাংলাদেশ সরকারও তাদের দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেছে ২০২১ সালের মধ্যে বাংলাদেশ একটি মধ্যম আয়ের দেশ বলে বিবেচিত হবে এবং ২০৪১ সালের মধ্যে বাংলাদেশ পৃথিবীর উন্নত দেশের কাতারে শামিল হবে। বাংলাদেশ সরকারের এ আশাবাদের মধ্যে যুক্তি ও তথ্য আছে। একটি দেশের টেকসই উন্নয়ন তখনই সম্ভব, যখন দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নের পাশ

পৃষ্ঠাসমূহ

বোর্ডিং কার্ড

মলি
মলি এর ছবি
Offline
Last seen: 11 ঘন্টা 53 min ago
Joined: সোমবার, অক্টোবর 17, 2016 - 10:53পূর্বাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

ফেসবুকে ইস্টিশন

SSL Certificate
কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর