নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 8 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • ফারুক হায়দার চৌধুরী
  • নরসুন্দর মানুষ
  • শিকারী
  • ফারজানা সুমনা
  • নুর নবী দুলাল
  • আবদুর রহমান শ্রাবণ
  • মওদুদ তন্ময়
  • অজল দেওয়ান

নতুন যাত্রী

  • প্রলয় দস্তিদার
  • ফারিয়া রিশতা
  • চ্যাং
  • রাসেল আহমেদ
  • আবদুর রহমান শ্রাবণ
  • হিপোক্রেটস কিলার
  • পরিতোষ
  • শ্যামা
  • শিকারী
  • মারিও সুইটেন মুরমু

আপনি এখানে

রাজর্ষি ব্যনার্জী এর ব্লগ

একজন রমেল চাকমা এবং..........:


উপজাতি কথাটা কলোনিয়াল। কলোনিয়াল মাষ্টাররা তাদের ট্রাইব নাম দেয়। এটা তাদের একটা স্পেশাল স্ট্যাটাস দিয়ে দেয়। সেইটাই আধুনিক অনেক রাষ্ট্রে চলে আসছে। বাংলাদেশেও, যাকে বলা হয়ে থাকে উপজাতি। জাতির থেকে ছোট এবং অবমাননাকর। রাষ্ট্র তাদের নানাভাবে বঞ্চিত করে(কাপ্তাইয়ে বিদ্যুৎ কেন্দ্র হলো পার্বত্য চট্টগ্রাম বহুবছর বিদুৎ পায় নাই) উল্টে বহু মানুষ গৃহহীন হয়েছে। আদিবাসী হলো বর্তমানে আত্মস্বীকৃত পরিচয় যা সংস্কৃতি, পরিচয় এবং ভূমির উপর ভিত্তি করে জাতিসংঘ আদিবাসীর গুরুত্বপূর্ন অধিকারগুলোর স্বীকৃতি দিয়েছে।
তারমধ্যে প্রধানগুলো হলো:

ব্লগার হত্যার মধ্যকথা:২


নাস্তিক একটিভিস্টদের সিরিয়াল হত্যা প্রকল্প ছিল আওয়ামীলীগের 'জামাতের গোপন এজেন্ট' নির্মূল করা আর হেফাজতের কাছে ছিল 'নাস্তিক মুরতাদ' নির্মূলকরণ| এই নাস্তিকদের ফাঁসি চেয়ে হেফাজতের অনেক আলেম ওলামাকে মরতে হয়েছিল তাই এক একটা নাস্তিক ব্লগার খুন ছিল এক একটা প্রতিশোধ আর আওয়ামী খুশি , তাদের এক সময়কার দোর্দণ্ডপ্রতাপ প্রতিপক্ষ হেফাজত আজ তাদের বকলমে বন্ধু!

ব্লগার হত্যার মধ্যকথা: ১


মূলত কূটনীতি খেলে প্রতিপক্ষকে নির্বাচন থেকে দুরে সরিয়ে ২০১৪ সালে ৫ই জানুয়ারী নির্বাচন জিতে সরকারে এলো হাসিনা| এই উপায়ে নির্বাচিত হাসিনা সরকারের আশঙ্কা দেখা দিল, যে তাদের জনসমর্থনের খামতি দেখা দেবে কি না! সরকার টিঁকবে তো?

ব্লগার হত্যার আদিকথা


২০১৩ গণজাগরণ মঞ্চ যখন জনপ্রিয়তার তুঙ্গে, ঠিক সেই সময় খুন হলো ব্লগার 'থাবা বাবা'- রাজীব হায়দার| রাজীব হায়দারের খুন ছিল একটা সুপরিকল্পিত চাল। রাজিবকে খুন করে শেখ হাসিনার মুখের সামনে টোপ ফেলা হয়েছিল| গণজাগরণ মঞ্চকে নাস্তিকদের উত্থান প্রমান করে ধর্মান্ধ স্বাধারণ মুসলমানদের ভিন্ন একটা প্লাটফর্ম স্থাপন করাই ছিল উদ্দেশ্য। আন্সারুল্লাকে দিয়ে এই কাজ করিয়েছিল বি এন পি -জামাত|

একজন অভিজিৎ রায় ও অনেক প্রশ্ন :৪


টিএসসি এর মতন জায়গায় এসে কাউকে হত্যা করে নির্বিঘ্নে খুনিরা পালিয়ে গেছে। লুকিয়ে, বা দূর হতে গুলি করে নয়, সামনে এসে কুপিয়ে খুন করে, নির্বিঘ্নে পালিয়ে গেছে। এমন কাজ করার মতন সাহসী বা ক্ষমতাবান সংগঠন বাংলাদেশে কয়টি আছে? হঠাত করে গজিয়ে ওঠা সংগঠনের (আনসার বাংলা ৭) পক্ষে এটা করা কিভাবে সম্ভব?

একজন অভিজিৎ রায় ও অনেক প্রশ্নঃ ৩


বোরখা পরা খুনি চাপাতি দিয়ে অভিজিৎদার মাথা বরাবর উপর্যুপরি কোপাতে থাকলে তিনি ফুটপাতেই লুটিয়ে পরেন। রক্তে ভেসে যেতে থাকে এলাকা। এ সময় বন্যাদি চাপাতির কোপ থেকে অভিজিৎদাকে বাঁচাতে গেলে খুনি তার হাতেও কোপ মারে। এতে করে তার হাতের একটি আঙুল কেটে রাস্তায় পড়ে যায়।

পুরো ঘটনাটি খুব কাছ থেকে দেখে তুলি নামের এক নারী (পুরো নাম দেওয়া যাবেনা)।

একজন অভিজিৎ রায় ও অনেক প্রশ্ন :২


নিম্নোক্তগুলো কি সত্যি না নিছক বিরোধীদলের গুজব রটানো? আপনাদের মতামত জানান:

১.অভিজিৎদা হত্যার মূল পরিকল্পনাটি করা হয়েছে ইন্ডিপেন্ডেন্ট বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক আরাফাত এ রহমানের বাড়িতে। যেখানে ৭১ টিভির মোজাম্মেল বাবু প্রায়ই আড্ডা মারতে এবং মদ খেতে আসত। এই বাড়িতে বসেই এই দুই জন অভিজিৎদা হত্যার এই ভয়ংকর পরিকল্পনাটি করে।

২.তথ্যমন্ত্রণালয়ের নির্দেশেই অভিজিৎদা কে হত্যা করা হয়েছে। এ তথ্যটি বিভিন্ন সূত্র না কি নিশ্চিত করেছে। আরাফাত ও বাবুর মদের আড্ডায় উপস্থিত ছিল তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনুও। সেখান থেকেই অভিজিৎদার হত্যার মূল পরিকল্পনা হয়।

নাস্তিক ব্লগার হত্যার টুকরো ছবি


নিলাদ্রী চট্টোপাধ্যায় ব্লগার নিলয় নীল হত্যার ঘটনায় শ্রম প্রতিমন্ত্রী মুজিবুল হক চুন্নুর ছোট ভাই নজরুল হক নান্নুর ছেলে সাদ আল নাহিনকে আটক করেছিল পুলিশের গোয়েন্দা বিভাগ।

নাহিন আটকের কথা ডিবি স্বীকার করেনি তবে নাহিনের বাবা দাবি করেছিলো তার ছেলে আটক

নজরুল হক নান্নু বলে: ‘জিজ্ঞাবাদের জন্য ডিবি পুলিশ আমার ছেলে নাহিনকে আটক করেছে। আমি কিশোরগঞ্জ থেকে ঢাকায় এসেছি। দেখি কী হয়।’

সাদ আল নাহিন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এমবিএ-এর ছাত্র । ২০১৩ সালের ১৪ জানুয়ারি ব্লগার আসিফ মহিউদ্দিনকে কুপিয়ে হত্যা চেষ্টার অভিযোগে তাকে ও আরো তিন সহযোগীকে, ৩১ মার্চ গ্রেপ্তার করেছিল ডিবি পুলিশ।

নাস্তিক ব্লগার হত্যার টুকরো ছবি (অবতরণিকা )


নিলাদ্রী চট্টোপাধ্যায় ব্লগার নিলয় নীল হত্যার ঘটনায় শ্রম প্রতিমন্ত্রী মুজিবুল হক চুন্নুর ছোট ভাই নজরুল হক নান্নুর ছেলে সাদ আল নাহিনকে আটক করেছিল পুলিশের গোয়েন্দা বিভাগ। নাহিন আটকের কথা ডিবি স্বীকার করেনি তবে নাহিনের বাবা দাবি করেছিলো তার ছেলে আটক।

একজন অভিজিৎ ও অনেক প্রশ্ন


বাবা অজয় রায়ের নিষেধ সত্ত্বেও ফেব্রুয়ারির ১৫ তারিখ ব্লগার অভিজিৎদা ও তার স্ত্রী বন্যাদি আমেরিকা থেকে দেশে আসে। বিদেশ থেকে আসার পর থেকে নিয়মিত বইমেলায় যেত তারা। ঢাবির অধ্যাপক মেজবাহ কামালের সাথে অভিজিৎদার বাবা ঢাবির অবসরপ্রাপ্ত অধ্যাপক অজয় রায়ের বিরোধ চলছিল। মেজবাহ অজয় রায়কে বিভিন্ন সময় হুমকিও দিয়েছিল বলেন অজয় রায়ের সহকর্মীরা। সে কারণে অজয় রায় অভিজিৎদাকে দেশে আসতে নিষেধও করেছিলো|

সিসিটিভি ফুটেজ আর ভাষ্য অনুযায়ি, অভিজিৎদা যখন বইমেলাতে ছিল তখন তার সাথে ২ জন ঘোড়াঘুড়ি করেছে। একসাথে চাও খেয়েছে!অভিজিৎদা যখন বইমেলা থেকে চলে যেতে তৈরী ঠিক তখনই রহস্যজনকভাবে কেটে পরলো সে ২ জন!

পৃষ্ঠাসমূহ

বোর্ডিং কার্ড

রাজর্ষি ব্যনার্জী
রাজর্ষি ব্যনার্জী এর ছবি
Offline
Last seen: 4 ঘন্টা 57 min ago
Joined: সোমবার, অক্টোবর 17, 2016 - 1:03অপরাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

ফেসবুকে ইস্টিশন

SSL Certificate
কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর