নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 3 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • জলের গান
  • নুর নবী দুলাল
  • আকাশ সিদ্দিকী

নতুন যাত্রী

  • সুমন মুরমু
  • জোসেফ হ্যারিসন
  • সাতাল
  • যাযাবর বুর্জোয়া
  • মিঠুন সিকদার শুভম
  • এম এম এইচ ভূঁইয়া
  • খাঁচা বন্দি পাখি
  • প্রসেনজিৎ কোনার
  • পৃথিবীর নাগরিক
  • এস এম এইচ রহমান

আপনি এখানে

খান আসাদ এর ব্লগ

রাজনৈতিক ইসলামের সাথে সেক্যুলার গণতন্ত্রের দ্বন্দ্ব!



রংপুরে সাম্প্রদায়িক হামলার ছবি ও এই ঘটনা কারা কিভাবে ঘটিয়েছে, এ সম্পর্কে প্রায় সব তথ্যই আমরা এখন জানি।

একজন "হিন্দুর" নামে ফেসবুকে "ধর্ম অবমাননার" গুজব ছড়িয়েছেন একজন মাওলানা হামিদি। কর্মী ও সমর্থকদের সমাবেশ ঘটিয়েছেন ওলামা দলের ও জামাতে ইসলামীর নেতারা। এদের একজন, জামাত নেতা ও মসজিদের ইমাম সিরাজুল ইসলাম এখন পুলিশ হেফাজতে।

"মুসলমান কে?" - সমাজবিজ্ঞানের আলোয়


বিজ্ঞান আর কল্পনার, কিংবা বিজ্ঞান আর গল্প উপন্যাসের পার্থক্য কি?
গল্প উপন্যাসের লেখক আপন মনের মাধুরী মিশিয়ে, জলকন্যাকে আগুনমুখো ড্রাগনের পিঠে বসিয়ে, পাহাড়ের চুড়ায় নিয়ে যেতে পারেন, সেই পাহাড়ে সোনার মাটির ইট দিয়ে তৈরি কাঠের বাড়ি আছে, খাবার কেবল ঘোড়ার ডিম সিদ্ধ, সাথে চাঁদে চাষ করা পিং পং বলের কাবাব। গল্প উপন্যাস লেখকদের কোন দায় নেই তাঁর লেখা চরিত্র ও ঘটনার "সত্যতার" প্রমাণ দেয়ার। চাঁদে পিং পং বলের চাষ হতেই পারে।

বামাতি চেনার ব্যাকরণ


বামাতি চেনার ব্যাকরণ, কিংবা সিপিবির অনেকের বন্ধু, পিনাকী ভট্টাচার্জ কে নিয়ে লিখতে হবে, তা দুঃস্বপ্নেও ভাবিনি। লিখতে হল, কারণ পিনাকী অধ্যাপক সিরাজুল ইসলাম চৌধুরীর বিরুদ্ধে একটি সাংস্কৃতিক জ্বিহাদ চালিয়েছে, বাংলাদেশের সাম্প্রদায়িক-মৌলবাদী-জঙ্গিবাদী চাপাতিওয়ালাদের পক্ষ হয়ে। বাংলাদেশে সাম্প্রদায়িকতা-মৌলবাদ-জঙ্গিবাদ একটি সামাজিক-রাজনৈতিক আন্দোলন। একটি প্রবাহ বা কন্টিনিউম। এই প্রবাহের একপাশে আছে পিনাকীর মত বামাতি, অন্যপাশে আছে মুফতি হান্নানের মত জঙ্গি। মাঝখানে নানা রকম হেফাজতি, খিলাফতি, ওলামালীগ ধরনের চরিত্র।

হেফাজতে ইসলামের এজেন্ডা


" বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টের সামনে থেকে গ্রীক দেবির মূর্তি অপসারন না করা হলে এদেশের হিন্দুদের শান্তিতে থাকতে দেওয়া হবেনা,তাদেরকে উচ্ছেদ করা হবে। পাশাপাশি প্রতিবেশি হিন্দু প্রধান দেশ ভারতের সাথেও এদেশের ধর্মপ্রাণ মুসলিমরা যুদ্ধ ঘোষনা কতে পারে বলে ঘোষনা দিয়েছে বাংলাদেশ হেফাজতে ইসলামের ব্রাহ্মণবাড়িয়া শাখা।" - সংবাদটি দেখি Shimanto’s Blog নামে একটি ব্লগে, এবং ফেসবুকে অনেকের স্ট্যাটাসে।

জ্ঞানগম্যি ও সত্য মিথ্যার ব্যাকরণ


মানুষগুলো যে চমৎকার, তা কিভাবে জানা হোল? “চমৎকার" কোন জিনিষ নয় যে আমাদের পঞ্চইন্দ্রিয় (চক্ষু, কর্ন, নাসিকা, জিহ্বা ও ত্বক) দিয়ে সরাসরি জানা যাবে। কিন্তু জানা যায়, যদি আমরা গল্পের মানুষদের "আচরণ" অনুবাদ করি। গল্পের মানুষগুলো পরস্পরকে ভালোবাসে, বিতর্ক করে, তামাশা করে এবং একটি মানসিক বন্ধন আছে। এই যে বলা হোল চমৎকার, কারণ এদের মধ্যে “ভালোবাসা" ধরনের আচরণ দেখা গেছে। যত্নশীলতার আচরণের নাম “ভালোবাসা"।

শরীরের অমর্যাদাঃ শ্রেণীক্ষমতার প্রকাশ


স্কুলের অনুষ্ঠান। এই অনুষ্ঠানে ছাত্ররা একটি সেতু বানিয়েছে, নিজেদের শরীর এই সেতুর উপাদান, খুঁটি ও পাটাতন, যার উপর দিয়ে হেঁটে যাওয়া যায়। গল্পের এই সংবাদ আমাকে আশির দশকে বাংলাদেশের গণনাটকের, গ্রামথিয়েটারের স্মৃতি মনে করিয়ে দেয়। এই সব থিয়েটার আজ প্রায় বিলুপ্ত।

ব্যক্তির অভিব্যক্তি ও রাজনৈতিক


রাজনীতি সংকীর্ন অর্থে, মতাদর্শ, সরকার, দল, ভোট - ইত্যাদি। রাজনীতি মর্মার্থে ক্ষমতা। সিদ্ধান্ত গ্রহণ (নীতি, পলিসি) ও বাস্তবায়ন ক্ষমতা। যে সিদ্ধান্ত গ্রহণ ও বাস্তবায়ন প্রক্রিয়ায় সকল নাগরিকের কম বেশি ভূমিকা থাকে। কোন সিদ্ধান্তের ব্যাপারে আমাদের অভিব্যাক্তি, সন্মতি দিয়ে, মৌন সন্মতি দিয়ে কিংবা বিরোধিতা করে হয়ে থাকে। আমাদের ব্যক্তিগত অভিব্যক্তিও রাজনৈতিক।

"অজ্ঞতা" এক ধরনের জ্ঞান, টিকে থাকে ক্ষমতার প্রয়োজনে


আমরা যা ভাবি এবং করি, তার কারন আমরা “অজ্ঞ" বা “জানিনা", এজন্য নয়, বরং বিপরীত। আমরা “জানি" এবং "বিশ্বাস" করি বলেই আমরা কিছু বলি বা করি। আমাদের সকলেরই জ্ঞান আছে। শিশুটিরও আছে, ধর্মশিক্ষকেরও আছে, পিতামাতারও আছে। শিশুটি "কোরবানি" ধারনাটিকে আক্ষরিক অর্থে বুঝেছে, সে শিশু বয়সের, এইজন্য? তাহলে বুয়েটে কিংবা বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের যে ছেলেটি, যে গুলশানের হোলিআর্টিজানে অচেনা অজানা মানুষদের হত্যা করেছে, সে কি অজ্ঞ? ঠিক বিপরীত। তার “জ্বিহাদ" সম্পর্কে একটি সুস্পষ্ট ধারনা বা “জ্ঞান" রয়েছে। এবং তার জ্ঞানকে সে "বিশ্বাস" করে। এমন বিশ্বাস যে সে জীবন বিসর্জন দিতেও পেছপা হয়নি।

ভাষার ক্ষমতা ও ক্ষমতার বৈধতা


শোষণ বঞ্চনা বৈষম্য ও সহিংসতা (যুদ্ধ) আছে কারণ আধিপত্যকারী শ্রেণী আছে। এদের ক্ষমতা আছে অব্যাহতভাবে এই সহিংস আধিপত্যব্যাবস্থা চালু রাখার।

এই ব্যাবস্থা চালু রাখার অন্যতম হাতিয়ার রাষ্ট্র,বা রাষ্ট্রযন্ত্র। সমাজকে নিয়ন্ত্রণের জন্য, তিন ধরনের ক্ষমতা দরকার; সামরিক বা বলপ্রয়োগের ক্ষমতা যা রাষ্ট্র করে, টাকার বা পুঁজি ও ব্যাঙ্ক বীমা প্রতিষ্ঠানের তথা বাজার নিয়ন্ত্রণের ক্ষমতা, এবং জ্ঞানের মানে স্কুলের ও মিডিয়ার কনটেন্ট বা বিষয়বস্ত নির্ধারনের ক্ষমতা।

বিশ্বাসের শৃঙ্খল এবং মুক্তির বিশ্বাস


ভেবেছিলাম পুঁজিবাদ ও সমাজতন্ত্র নিয়ে আলোচনাটা ফেসবুকে অব্যাহত রাখব। অনেকেই হয়ত যুক্তি তথ্য দেখবে বুঝবে এবং নিজেদের বিশ্বাস থেকে বেড়িয়ে আসবে। তার পরেই মনে হল, আসলে ‘বিলিভিং ইজ সিইং’, মানে আমরা কিছু দেখেশুনে বিশ্বাস করিনা, বিপরীতে, যা বিশ্বাস করি তাই দেখতে থাকি। জ্ঞানের মনস্তত্ত্ব তাই বলে।

পৃষ্ঠাসমূহ

বোর্ডিং কার্ড

খান আসাদ
খান আসাদ এর ছবি
Offline
Last seen: 11 months 3 weeks ago
Joined: শনিবার, আগস্ট 6, 2016 - 6:02অপরাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

কু ঝিক ঝিক

ফেসবুকে ইস্টিশন

SSL Certificate
কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর