নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 7 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • রুদ্র মাহমুদ
  • সুষুপ্ত পাঠক
  • বেহুলার ভেলা
  • নিটোল আরন্যক
  • মো.ইমানুর রহমান
  • সুজন আরাফাত
  • মাইকেল

নতুন যাত্রী

  • রমাকান্ত রায়
  • আবুল খায়ের
  • একজন সত্যিকার হিমু
  • চক্রবাক অভ্র
  • মিস্টার ইনকমপ্লেইট
  • নওসাদ
  • ফুয়াদ হাসান
  • নাসিম হোসেন
  • নেকো
  • সোহম কর

আপনি এখানে

মগজ এর ব্লগ

হায়রে বই মেলা ।।


এখানে ভবর চটি হয় পবিত্র সিদ্ধ,
আর আজাদরা হয় চিরতরে নিষিদ্ধ।
এখন আর আগের মত গন্ধ নেই মুক্ত বাতাসের
আছে শুধু আতঙ্ক মাখা ভয়ানক দুর্গন্ধ।

বর্তমান শিক্ষা ব্যবস্থা ও শিক্ষকদের অবস্থা ।



মানুষের শুরুটা শুরু হয় পরিবারে, তারপর কাছের কোনো স্কুলে । কিন্তু আমাদের কি দুর্ভাগ্য, উন্নতমানের শিক্ষা তো দূরে থাক আমাদের শিক্ষাব্যবস্থাটাই ভঙ্গুর। পুরো চিত্রই যে হতাশাজনক তা নয়। কিন্তু শিক্ষাব্যবস্থার বর্তমান চিত্র দেখে আশাবাদি হওয়াটাও কঠিন। এ শিক্ষাব্যবস্থার আমূল সংস্কার ছাড়া এটি প্রকৃত শিক্ষাদান ও জ্ঞান সৃষ্টি করতে পারবে না।

ষড়যন্ত্র নাকি চরম ব্যার্থতা?


বর্তমান শিক্ষা ব্যবস্থার যা অবস্থা এর জন্য দায়ী কে?
এই প্রশ্ন যদি করি তাহলে কি বলবেন?
বলবেন এর জন্য দায়ী বর্তমান সরকারের শিক্ষা ব্যবস্থা।
এখন কথা হল, এই ধরনের কর্মকাণ্ড করার মানে কি?
আমি সম্পূর্ণ ব্যক্তিগত ভাবে চিন্তা করে দেখলাম, তা আজ প্রকাশ করব।
আবার আপনারা আমার অভিমত হিসেবেও ধরে নিতে পারেন
আমরা যদি বিয়ের কার্ড বা জন্মদিনের কার্ড বানাতে দেই সেখানেও কম পক্ষে ১০ বার বানান শুদ্ধ কিনা তা দেখে শুনে ছাপায়।
কিন্তু যেখানে লক্ষ কোটি ছেলে মেয়ে পড়বে সেখানে এতো ভুল কি ভাবে হয়?
এ কি ইচ্ছাকৃত কোন ষড়যন্ত্র?
নাকি ব্যর্থতারর প্রতিচ্ছবি।

ধামাচাপায় অতীত


আমাদের অনেক বধ অভ্যাস আছে।তার ভেতরে মারাত্মক বধ অভ্যাস হল অতীতের ঘটনা গুল ধামা চাপা দিয়ে ভুলে যাওয়া।
ধামা,
অনেকেই হয়ত এই শব্দটির সাথে পরিচিত।
আবার অনেকেই শুনেছেন কিন্তু চোখে দেখার সৌভাগ্য হই নায়।
ধামা হল একপ্রকার বেত দ্বারা তৈরি গোলাকার পাত্র।
এই পাত্র দুটি কাজে খুব ব্যাবহার হয়।
১. চাল বা ধান রাখা।
২.চাপা দিয়ে রাখা।
আর মাত্র কয়েক ঘন্টা বাকি আছে নতুন বছর আসতে। কিন্তু আমারা ঠিকি এ বছরের নেক্কার জনক ঘটনা ভুলে গেছি। চাপা পরে গেছে ওই নির্মম ধামার ভেতর।

স্যার থেকে ষার


আগে ভাবতাম বানান শুধু আমার বেলাই ভুল হয়।
কিন্তু আজ জাতির কাছে ভুল প্রমান করে দেখিয়ে দিয়েছেন বর্তমান পাক ইসলামি একাডেমি অতিত বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক সাহেব।
ভাবছি উনি আর আমি আবার পূনরায় পাঠশালা কিংবা বাংলা মাধ্যমের কোন স্কুলে ভর্তি হব।

আইয়ুব খান আর বর্তমান


আমি যতটুক জানি প্রথমে গ্যাসের দাম ছিল দুই চুলা ৩৫ টাকা। তার পর ক্রমে ক্রমে বেড়ে এখন হয়েছে ৬৫০ টাকা। তার পরো আমার দেশের অসহায়, মেহনিত মানুষের মাথার ঘাম পায়ে ফেলা উপর্জানের ফসলের উপর লালসা কমছে না কুলাঙ্গার বুর্জুয়া শ্রেনির। অথচ যারা কানাডার বেগম পাড়ায় গিয়ে রাত কাটায়। যারা বিলিয়ন বিলয়ন টাকা পাচার করে পশ্চিমে। ১০ লক্ষ টাকা খরচ করে টয়লেট বানায় আর দাত কেলিয়ে বলে মাত্র ১০ লাখ টাকা দিয়ে বানিয়েছে। যাদের কাছে ১০ লক্ষ টাকা মাত্র তাদের টনক নরানোর কোন ব্যাবস্থা করে না।

বিজ্ঞান বিভাগের এক ছাত্রের গল্প


মা বাবার একটি মাত্র ছেলে । নাম ... থাক নামটি না হয় বললাম না । তারপরও ছদ্ম নাম দিলাম । ছেলেটার নাম দিলাম দৃশ্য । ৫ ফুট সাড়ে ৪ ইঞ্চির মতো লম্বা হবে ছেলেটা, দেখতেও একেবারে খারাপ নয়। পড়াশুনাতেও খুব ভালো । এই তো এ বছরই বিজ্ঞান বিভাগ থেকে এস.এস.সি তে জিপিএ ৫ পেয়েছে । সুযোগ হয়েছে বিজ্ঞান কলেজে । বাবা গ্রামে থাকে মাঝে মাঝে ঢাকা আসে ছেলেকে দেখতে ।

আইউব খান ও আওয়ামী শাসনকাল


আজকাল আমাদের দেশে কিছু ব্যক্তি বিশেষত ক্ষমতাসীন রাজনীতিক ও সংশ্লিষ্ট বুদ্ধিজীবীরা বলছেন, আগে উন্নয়ন পরে গণতন্ত্র। এদের কথা শুনে মনে হচ্ছে অর্থনৈতিক উন্নয়ন আর গণতন্ত্র যেন পরস্পরের সাথে সাংঘর্ষিক। কিন্তু ইতিহাস তা বলে না। বর্তমানে যেসব রাষ্ট্রকে বলা হচ্ছে অর্থনৈতিক দিক থেকে উন্নত, তারা সবাই প্রায় হলো গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র। অর্থনৈতিক উন্নয়ন আর গণতন্ত্র পরস্পরবিরোধী হলে এটা কখনোই হতে পারত না।

উগ্রতার দমনে উগ্রতারি সাহায্য নিতে হবে বলে মনে করি


মুদ্রারা যেমন এপিঠ ওপিঠ আছে ঠিক তেমনি ভাবে পক্ষ বিপক্ষও থাকবে । এটাই স্বাভাবিক । কিন্তু এই সহজ ব্যাপারটা অনেকের মাথায় ঢোকে না । তারা ভাবে মুদ্রার শুধু এপিঠ আছে ওপিঠ নেই। নেই কোন বিপক্ষ নামক শব্দ ।
মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে প্রেসিডেন্ট নির্বাচন নিয়ে এদেশে অনেকের মাথা ব্যাথা আছে । আমার যে নেই তা বলব না । আমারও আছে । আমি রিপাব্লিকের সমর্থন করেছি। করেছি আব্রাহম লিঙ্কন এর সমর্থন । করেছি দৃশ্যমান শয়তানের সমর্থন । আমি মনে করি মনের ভেতর কালীর দাগ নিয়ে সাধু সেজে ঘুরে বেড়ায় তাদের থেকে দৃশ্যমান শয়তান অনেক অনেক গুন শ্রেয় ।

যারা নিজের সাধু মাখা চেহারার ভেতরে চোর পুষেছিল তাদের মুখস উন্মেচন করার সময় এসেছে


যারা নিজের সাধু মাখা চেহারার ভেতরে চোর পুষেছিল তাদের মুখস উন্মেচন করার সময় এসেছে।
আমি ছোট মানুষ ছোট মাথা। তাই আমার এই কিঞ্চিত অভিজ্ঞতাই তা বলে।
এতে অনেকেই অনেক কিছু মনে করতে পারে।
কিন্তু আমি তো আমার অভিমত প্রকাশ করব ।
যদি নাই করতে পারি তাহলে তো আমি নিজেই ৫৭ ধারা পালন করলাম
প্রতিবাদ আর করলাম কই ।না এটা আমি পারবো না। আমি দুমুখো সাপ নই ।

পৃষ্ঠাসমূহ

Facebook comments

বোর্ডিং কার্ড

মগজ
মগজ এর ছবি
Offline
Last seen: 2 weeks 1 দিন ago
Joined: সোমবার, জুলাই 18, 2016 - 10:21পূর্বাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

ফেসবুকে ইস্টিশন

SSL Certificate
কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর