নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 12 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • রাজিব আহমেদ
  • কাঠমোল্লা
  • পৃথু স্যন্যাল
  • আল আমিন হোসেন মৃধা
  • নিরব
  • সাগর স্পর্শ
  • দ্বিতীয়নাম
  • নুর নবী দুলাল
  • নরসুন্দর মানুষ
  • সাইয়িদ রফিকুল হক

নতুন যাত্রী

  • মাসুদ রুমেল
  • জুবায়ের-আল-মাহমুদ
  • আনফরম লরেন্স
  • একটা মানুষ
  • সবুজ শেখ
  • রাজদীপ চক্রবর্তী
  • নাজমুল-শ্রাবণ
  • চিন্ময় ভট্টাচার্য
  • নেইমানুষ
  • পরাজিত শুভ

আপনি এখানে

সিগন্যাল-ম্যান এর ব্লগ

ত্রাসের নাম বঙ্গবন্ধুর রক্ষী বাহিনী!


রক্ষী বাহিনী স্বাধীন বাংলাদেশের ইতিহাসে এক কলংকজনক অধ্যায় যার সূচনার করেছিলেন শেখ মুজিব | মুক্তিযুদ্ধের সময় বামপন্থী মুক্তিযোদ্ধাদের দমন করতে আওয়ামীলীগ কর্মীদের নিয়ে যে মুজিব বাহিনী গঠন করা হয়েছিল তার সদস্যদের নিয়েই গঠন করা হয়েছিল এই রক্ষী বাহিনী। বাংলাদেশের ৭ কোটি মানুষের কাছে তারা ছিল এক ত্রাস ! রক্ষীবাহিনীর ইনডেমনিটি ছিল, তাদের বিরুদ্ধে মামলা করার সুযোগ ছিল খুবই কম। সে সময় অধিকাংশ পত্রিকাই ছিল শেখ মুজিবের অনুগত, ফলে রক্ষীবাহিনীর নির্যাতনের সামান্য অংশই প্রকাশ্যে এসেছিল। '৭৩ সালের প্রথম থেকেই গ্রামে গ্রামে রক্ষীবাহিনী বর্বর, নিষ্ঠুর ও পৈশাচিক অভিযান চালিয়েছিল|

বিগ ব্যাং থেকে বর্তমান মানব সভ্যতা


আজ থেকে প্রায় ৩৮০ কোটি বছর পূর্বে পৃথিবীতে প্রথম স্থায়ী সমুদ্রের সৃষ্টি হয়। স্থায়ী সমুদ্র সৃষ্টির প্রায় ৭ লক্ষ বছর পর সমুদ্রের তলদেশে কয়েকটি প্রাথমিক উপাদান; বিগ ব্যাং এর পর সৃষ্ট প্রথম মৌল হাইড্রোজেন, নক্ষত্রে সৃষ্ট নাইট্রোজেন, কার্বন, এবং অক্সিজেন মিলে তৈরি করে পৃথিবীতে প্রাণের সূচনা। DNA, যে সর্পিলাকার আণুবীক্ষণিক গঠনে লুকিয়ে আছে প্রাণের রহস্য। এটি ছিল পৃথিবীর সর্বপ্রথম মহাবিপ্লব। এরপর DNA থেকে কালক্রমে তৈরি হল প্রথম অণুজীব, ব্যাকটেরিয়া। যেটি শুধু তখন নয় এখনো জীবনের অবিচ্ছেদ্য অংশ। মানুষের দেহ সারা পৃথিবীর জনসংখ্যার চেয়ে বেশি সংখ্যক ব্যাকটেরিয়ার একটা ‘চিড়িয়াখানা’।

বিগ ব্যাংয়ের অন্যতম বড় রহস্যের সমাধান


মহাবিশ্বের গঠনপ্রকৃতি সম্পর্কে স্পষ্ট ধারণা লাভের উদ্দেশ্যে ইউরোপিয়ান কাউন্সিল ফর নিউক্লিয়ার রিসার্চের (সংক্ষেপে সার্ন) বিজ্ঞানীরা ১৯৫৪ সাল থেকে প্রতিনিয়ত গবেষণা করে যাচ্ছেন। ফ্রান্সের এই সংস্থাটিতে নিযুক্ত প্রকৌশলী ও পদার্থবিদরা কণাত্বরক যন্ত্র ও ডিটেক্টরের সাহায্যে প্রকৃতির বিভিন্ন সূত্র ও পদার্থের মৌলিক বৈশিষ্ট্যগুলোর অন্তর্নিহিত বিষয়সমুহ জানার চেষ্টা করছেন। ধারণা করা হচ্ছে, সম্প্রতি সার্নের বিজ্ঞানীরা সম্ভবত পদার্থবিজ্ঞানের স্ট্যান্ডার্ড মডেলের একটি গুরুত্বপূর্ণ অমীমাংসিত সমস্যা সমাধান করতে সক্ষম হয়েছেন। তাদের সেই গবেষণাপত্র কিছু দিন আগে নেচার ফিজিক্সে প্রকাশিত হয়েছে।

যিনার প্রমানে চার স্বাক্ষীর প্রেক্ষাপট


আচ্ছা, একটা যিনা প্রমান করতে ৪ জন লাগবে কেনো? ১ জন হলেই তো যথেষ্ট... আবার, ৪ জনই পুরুষ কেনো হতে হবে? এটা কি সৃষ্টিকর্তার বাণী বলে বিশ্বাস হয়? উক্ত ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে এটা পানির মত পরিস্কার যে, মুহাম্মদ তার স্ত্রী আয়েশাকে বাচানোর জন্যে ৪ জন পুরুষ স্বাক্ষীর কথা বলেছেন। আয়েশার বিরুদ্ধে ওরা ৪ জন মিলেও স্বাক্ষী দিলে লাভ হতো না ওদের একজন নারী বলে। আয়েশাকে বাচাতে মুহাম্মদ কি কৌশলটাই না করেছেন! মুহাম্মদের বুদ্ধির তারিফ করতেই হয়। আর, উপস্থিত হাবাগোবা সাহাবিরা বিশ্বাস না করে যাবে কোথায়! এ যে কুরানের আয়াত!

কোন ইসলামকে শরিয়া হিসেবে দেখতে চান


মোল্লারা প্রতিনিয়ত দাবী করেন, “বাংলাদেশকে ইসলামের বিধান অনুসারে চলতে হবে। এখানে ইসলামি শরিয়া আইন প্রতিষ্ঠা করতে হবে।” এটা শুধু মোল্লারা নন, দেশের অসংখ্য ধর্মজীবী মানুষেরও দাবী। একে আমি তাঁদের মতপ্রকাশের স্বাধীনতা হিশেবেই দেখি।

সর্বশেষ নবী সর্বশ্রেষ্ঠ না (শেষ পর্ব)


যত যত নামে হযরত মুহাম্মদকে (তাঁর উপর শান্তি) অভিহিত করা হয়েছে তার মধ্যে একক এবং অদ্বিতীয় উপাধি হল খাতামান নাবিয়্যিন বা শেষনবী। তাঁর নাম নিয়ে আয়াত শুরু হয়ে এই মহান পরিচয়ের কথা বলে তা শেষ হয়েছে।
আল্লাহ তাঁর এই নবীর মর্যাদা প্রসঙ্গে অন্যত্র বলেন- আমি তোমার যিকর বা স্মরণকে সমুন্নত করেছি (৯৪:৪)। এভাবে আরও যত মর্যাদায় তাঁকে অভিষিক্ত করা হয়েছে, সেগুলোই কি আমাদের জন্য উদ্ধৃত করা যথেষ্ট নয়? যা বলেন নাই, যেভাবে বলেন নাই সেটা করার এখতিয়ার আমাদের কোত্থেকে এল?

সর্বশেষ নবী সর্বশ্রেষ্ঠ না (পর্ব ০১)


শিরোনামের বক্তব্য তীর্যক ও সরাসরি। লেখার শেষ-সিদ্ধান্তও তাই। অত্যন্ত নিরাবেগ এবং নির্মোহ দৃষ্টিভঙ্গী নিয়েই লেখাটি পড়ার আবেদন থাকবে। যুক্তি উপস্থাপনায় যুগ-যুগ ব্যাপী লালিত আবেগের উপর কুরআনের দিক-নির্দেশনাকেই সর্বাধিক গুরুত্ব দেয়া হয়েছে। যে বিষয়টি অনেকের জন্য আপাত-আহত হবার কারণ হবে তা আমার জন্যও কোন সময় যে ছিল না তা নয়। তবে সত্য সবসময়ই সুন্দর, শক্তিশালী এবং শেষবিচারে তা সবার জন্য সর্বাধিক কল্যাণকর।

আদালতের হুকুমে হত্যা করা হয়েছিল যে নির্দোষ প্রাণগুলো


মানুষ আইন তৈরি করেছে সমাজের ন্যায়-অন্যায়ের মধ্যে সীমারেখা টানতে। কোনো মানুষের ক্ষতি করে এমন কোনো কাজ যাতে কেউ না করে তার জন্য তৈরি হয়েছে বিচার ব্যবস্থা। কিন্তু ইতিহাসের এমন অসংখ্য ঘটনা আছে যেখানে বিচার ব্যবস্থা পুতুলের ন্যয় অত্যাচারী শাসকের আঙুলের ইশারায় নিয়ন্ত্রিত হয়েছে। আবার কখনও আদালত বিচার করবার সময় পালন করেছে দুর্বল ভূমিকা, আশ্রয় নিয়ে দুর্বল যুক্তির। যত যুক্তিই থাকুক না কেন, আদালতের বিচারের মাধ্যমে যদি একজন নিরপরাধ মানুষও সাজা পায় তবে সেটা আইনের সবচেয়ে বড় ব্যর্থতা হিসেবে দেখা হয়।

কেন আমি ইসলাম ত্যাগ করলাম


এই ব্যপারটা অনেককে বোঝানো কঠিন যে, শখ করে কেউ তার ধর্ম ছেড়ে দিতে পারে না। বেশকিছু কারনে আমি ইসলাম ধর্ম ছেড়ে দিয়েছি। এই স্ট্যাটাসে এখন সেটা বিস্তারিত করে লিখছি।

ট্যাবু, লজ্জা, কুসংস্কার ভাঙ্গার আনন্দ


পিরিয়ড একজন নারীর জন্যে যতই স্বাভাবিক ঘটনা হউক না কেন আদতে নারী পুরুষ কেউই এটাকে স্বাভাবিক ভাবে নিতে পারেনা। প্রায় সবাই পিরিয়ড, স্যানিটারি ন্যাপকিন বা প্যাড নিয়ে এক ধরনের হীনমন্যতায় ভোগে। অশুচি, খারাপ, লজ্জার, অত্যন্ত গোপণ কোন 'রোগ' বলে মনে করে। আর পিরিয়ড যদি হয় পরিবারের কোন টিনএজ সদস্যের তবে তো কথাই নেই। তারা মনে করে পিরিয়ডের কথা প্রকাশ পেলে ইজ্জত চলে যাবে, পরিবারে অন্যান্যদের সামনে মুখ দেখাতে পারবে না, অন্যরা কী মনে করবে বলে নিজেকে প্রায় লুকিয়ে রাখে। পেটে ব্যথা শুরু হলেও কাউকে বলতে পারে না। মারাত্মক পেট ব্যথায় অস্থির হয়ে বিছানায় গড়াগড়ি খাবে, পেটে চাপ দিয়ে রেখে ব্যথা সয়ে নেবার চেষ্টা করবে

পৃষ্ঠাসমূহ

বোর্ডিং কার্ড

সিগন্যাল-ম্যান
সিগন্যাল-ম্যান এর ছবি
Offline
Last seen: 5 months 1 week ago
Joined: সোমবার, জুলাই 4, 2016 - 1:08পূর্বাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

কু ঝিক ঝিক

ফেসবুকে ইস্টিশন

SSL Certificate
কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর