নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 5 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • শাম্মী হক
  • সলিম সাহা
  • নুর নবী দুলাল
  • মারুফুর রহমান খান
  • রাজর্ষি ব্যনার্জী

নতুন যাত্রী

  • চয়ন অর্কিড
  • ফজলে রাব্বী খান
  • হূমায়ুন কবির
  • রকিব খান
  • সজল আল সানভী
  • শহীদ আহমেদ
  • মো ইকরামুজ্জামান
  • মিজান
  • সঞ্জয় চক্রবর্তী
  • ডাঃ নেইল আকাশ

আপনি এখানে

আনিসা নাসরীন এর ব্লগ

ভালোবাসা দিবস


ভালোবাসা দিবস নিয়ে অনেকেই দেখলাম রেগে আছে... রেগে যাওয়ার কি আছে আসলেই বুঝলাম না....

প্রত্যেকটা দিন তাঁকে যেমন করে ভালোবেসে আসছি আজকের দিনেও তাঁকে তেমন করে ভালোবাসছি... শুধু প্রত্যেকদিন বলা হয় না শুভ ভালোবাসা দিবস, আজ শুধু বললাম।

আরো যেমন- বাবা দিবস, মা দিবস... এই দিবসের দিনেই কি শুধু বাবা মাকে বেশি ভালোবাসছি... অন্য দিন কি নয়? একদম তা নয়... অন্যদিনের মতো সেদিনও তাঁদের ভালোবাসছি। শুধু একটা দিন বলে আসছি শুভ বাবা বা মা দিবস।

যে কোন উৎসব হোক আনন্দের... ত্যানা প্যাঁচানো ছাড়া.. উৎসব হোক রঙের খেলার, উৎসব হোক হাসির মেলার।

মুক্ত আকাশ


এক কঠিন বেসাতির ভীড়ে তুমি আর আমি একটি পাখির আত্মা নিয়ে জন্মেছি। এখনের এই পরিবেশ আমাদের জন্য নয়। এখানের সবকিছু বড্ড মেকী, বড্ড কাটাকাটা। কেমন যেনো সব যান্ত্রিকতায় ভরা। এক মনে বসত করিয়ে বেড়াচ্ছে অনেক জনকে। এতো নিয়ম, এতো জটিলতা, এতো মুখোশ দেখে হাঁপিয়ে উঠেছি ভেতর ভেতর। এর আবদার, তার ইচ্ছা, তার হাসি এসব দেখতে দেখতে তারা সব ভালো সময়গুলো আমাদের থেকে কেড়ে নিতে বসছে। তারা জানেনা কি টান ধীরে ধীরে তারা বাড়িয়ে দিয়ে যাচ্ছে আমাদের মনের মাঝে। আলাদা হবার জন্য তোমার আমার জন্ম হয়নি এ পৃথিবীতে।

শেষ তো সব শেষ


দিনের হিসাবে বাঁচাই ভালো। এখানে আগামীকালের কোন ব্যাপার থাকে না। নিজেকে হারিয়ে ফেলার মতোন কোন গল্প থাকে না। এখানে লাল নীল স্বপ্ন গুড়িয়ে যাওয়ার কোন বিলাপ থাকে না। এখানে মরে যাওয়াটা কষ্টের কিছু নয়, উলটো মনে হবে ভারমুক্ত করে দিয়ে গেলাম অনেক গুলো মানুষকে। চলে যাওয়াটা আসলেই খারাপ কিছু নয়।

এখন শেষ তো সব শেষ......

সব ঠিক আছে কি!


প্রতিদিনের মুখস্থ বুলির মতোন কিছু মানুষ প্রতিনিয়ত বলে চলছে সব ঠিক আছে.... কোথাও কোন হাহাকার নেই... কোথাও কোন মন খারাপ নেই..
কোথাও এক চিলতে আকাশের মাঝে আঁধারের কোন ভেলা নেই..
সব ঠিক আছে...

সব ঠিক আছে...আমার সব ঠিক আছে...

এই সব ঠিক আছের মাঝে সবকিছু ঠিক কতোটুক ঠিক আছে ?

ছেড়ে আসা শিখুন


বন্ধু ভেবে ছোট বেলার প্রিয় সেই মুখগুলো, যারা পাশে থাকলে মনে হতো এটাই জীবন। আজ প্রয়োজনের শেষে এরা কোথায় হারিয়ে গেলো পিঠে ছুড়ি বসিয়ে ভাবাই তা দায়। আর সেই প্রিয় মানুষটা যার চোখে প্রেম দেখে মনে হয়েছিলো এই তো আমার, সবটুকু আমার। দিনশেষে যখন দেখা গিয়েছিলো এমন কথা সে অনেক মানুষকেই দিয়ে এসেছে তখন নিজেকে ভীষণ প্রতারিত লাগাটাই স্বাভাবিক।

ভালো থাকা শিখে নিয়েছি


অভিমান পর্ব চুকিয়ে ফেলেছি
থাকা না থাকার মাঝে না থাকাকে বেছে নিয়েছি
অবাঞ্ছিত টান উপেক্ষার সূত্রটা শিখে গিয়েছি
সহস্র দাবী উঠিয়ে নেওয়ার নিয়মটা শিখে নিয়েছি
একতরফার গল্পটা মেনে নিয়েছি
তোমাকে ছাড়া বাঁচতে আমি শিখে গিয়েছি।

ভালো থাকার সূত্রটা আমি নিজের করে নিয়ে নিয়েছি।

সেই মেয়েটির কথা


মাঝে মাঝে মেয়েটি ফিল করে বিয়ে নামের যে সীলটি এক সময় সে গায়ে জড়িয়েছিলো আশা নিয়ে, ঘর বাঁধার টান নিয়ে আর তার বদলে কবুল বলার উপহার স্বরূপ যে দিয়েছিলো এক ঘোলাটে জীবন তার সাথে নিজের সম্পর্কটা ডিভোর্স না বলে ঐ মানুষটা মৃত বললে সমাজের মানুষগুলোর মেনে নিতে হয়তো মেয়েটিকে একটু সুবিধা হতো। আহারে নজরে হয়তো মেয়েটির তখন ঠাঁই হতো সবার নজরে।

তোমায় পেতে ইচ্ছা করে


মাঝে মাঝে একসাথে অনেক কিছু পেতে ইচ্ছা জাগে আমার। এক চুল পরিমাণ ছাড় দিতে ইচ্ছা করে না কিছুতেই। সেই বিশাল নীল আকাশ, পাহাড় ,সমুদ্র, দীঘি আর সেই অজস্র মায়া ভরা ডাক। যা শুনে বলতে ইচ্ছা করে," তুমি কি শুধু আমার হবে?"। আল্লাদ ভরা গলায় ডাকতে ইচ্ছা করে ভীষণ। প্রতিদিন বেরোনোর আগে একটা ছবি তুলে পাঠাতে ইচ্ছা করে, যা দেখে অন্তত্য হেসে বলবে আহারে। নাইবা বললে সুন্দর, শুধু মায়া নিয়ে আহারে বললেই তো অনেক। চোখের দিকে চেয়ে বলবে একটু যদি না ঘুমাও তবে তো আর দিনকয়েক পর কাজল চোখে টানতে হবে না, এমনিতেই চোখে কালি এসে যাবে। ফোনটা হাতে নিয়ে তোমাকে কল দিবো ভাবতে ভাবতেই যখন তোমার কল চলে আসে কি যে খুশি লাগে।

বর্ষণ কথন


এখানে আটকে থাকে প্রথম সেই বর্ষণ, আজো এটিই সব। সব কিছুর এক অন্যপ্রকাশ ছিলো। অযথা কোন কথাই কানে আসেনি। আসেনি উচিত অনুচিত কিছু। অবাঞ্ছিত ছিলো সব, তুমিই মূখ্য। অবলীলায় তোমায় নিয়ে সাজালাম কথা, এমন হয়নি অন্য সময়। যেনো বর্ষণে প্রকৃতি নয়, ভিজে যাচ্ছি আমরা।

সন্ধ্যা ছুঁই ছুঁই তখন। একটা অবাক টান বা মায়া খুঁজে পেলাম অচেনা সে তোমার জন্য। বর্ষণ বেড়ে যাচ্ছে। আটকে আছো কাজে, অফিস গারদে। মন তোমায় নিয়ে গেছে বান্দরবনের সেই পাহাড় মাঝে। আর আমায় অন্য কোন এক ঘোরের মাঝে। একটু একটু সে বর্ষণ অপরিচিত দুজনার মনকে চেনা করছে।

বইমেলা আর আমার প্রিয় লেখক


প্রিয় লেখকের বই নিয়ে কিছু লেখার সময় ১০০ পারসেণ্ট ভালাবাসা নিয়ে লেখা হলেও মনে হয় অনেক কথা তো লেখাই হয়নি।

পৃষ্ঠাসমূহ

বোর্ডিং কার্ড

আনিসা নাসরীন
আনিসা নাসরীন এর ছবি
Offline
Last seen: 3 months 2 weeks ago
Joined: বৃহস্পতিবার, জুন 30, 2016 - 12:56পূর্বাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

ফেসবুকে ইস্টিশন

কপিরাইট © ইস্টিশন ব্লগ ® ২০১৮ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর