নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 0 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

নতুন যাত্রী

  • জয়বাংলা ১৯৭১
  • জাহানারা নূরী
  • মোহাম্মদ আল আমীন
  • সজিব আহামেদ
  • সাগর সাহা
  • মাহবুব আলী
  • সাগর স্পর্শ
  • মীর মোহাম্মদ মামুন
  • শাহরিয়ার_খান_রাব্বি
  • শাহ্রিয়ার খান রাব্বি

আপনি এখানে

আবু মমিন এর ব্লগ

ধর্ম,দর্শন ও বিজ্ঞান-১১ঃ পরিবার


সূর্য, গ্রহ-উপগ্রহ, উল্কাপিন্ড, ধুমকেতু ও অন্যান্য জ্যেতিষ্কমন্ডলীকে নিয়ে সৌর পরিবার গঠিত। এ পরিবার থেকে যদি কোন গ্রহ যেমন পৃথিবী কক্ষ চ্যুত হয় তবে পৃথিবীর ধ্বংস অবশ্যম্ভাবী। একাধিক গ্রহ একই সঙ্গে একাধিক সৌর কিংবা নক্ষত্র পরিবারের সদস্য হতে পারেনা। তেমনি একটি নক্ষত্র একই সঙ্গে একাধিক সৌর পরিবার গঠন করতে পারেনা। সৌর পরিবারের নিউক্লিয়াস সূর্য। সূর্যকে কেন্দ্র করেই তার সকল সদস্য আবর্তিত। কোন জ্যোতিষ্ক তার কক্ষ পথ থেকে বিচ্যুত হলেই উহা ধ্বংস স্তুপে পরিনত হয়। উল্কাপাত তার প্রকৃষ্ট উদাহরন।

যে কোন সংগঠনের একটা নিউক্লিয়াস থাকা চাই যাকে কেন্দ্র করেই অন্য সদস্যরা আবর্তিত হয়।

ধর্ম,দর্শন ও বিজ্ঞান-১০ঃ জায়মান ও মুক্তির সাধনা


জায়মানঃ

১.১ জায়মান মানে চার্জ কিংবা আসক্তিযুক্ত। যেমন_কেমিস্ট্রিতে জায়মান হাইড্রোজেন(H+).

১.২ মহাবিশ্বের জড়,অজড়ীয়,মৌলিক, যৌগিক কিংবা মিশ্র প্রতিটি সত্ত্বাই জায়মান_অনিরপেক্ষ কিংবা আসক্তিবিহীন নয়।

১.৩ প্রতিটি সত্তাই cause & condition যুক্ত, অনিরপেক্ষ_আপেক্ষিক।

১.৪ পরম মৌলিক মানে cause & condition বিমুক্ততা_শূন্যতা কিংবা অনস্তিত্বতা, অবাস্তবতা।

১.৫ যা বাস্তব তা অবশ্যই জায়মান।

জ্যোতিষশাস্ত্র(Astrology): অপবিজ্ঞানে বিজ্ঞান


জ্যােতিষশাস্ত্র(Astrology)ঃ অপবিজ্ঞানে বিজ্ঞান

১.১ সাগরের পানিতে ৩% এর মত লবন থাকে তাই উহা লোনা পানি। সাগরের পানি তাই ভেজাল যুক্ত।

১.২ খিচুরীকে আমরা ভাত বলিনা যদিও খিচুরীতে ভাতের উপাদান আছে।

১.৩ এস্ট্রোলজিতে অবশ্যই বিজ্ঞানের মিশ্রন আছে। তবে এক গ্লাস ভন্ডামীতে এক চিমটি বিজ্ঞান মিশ্রিত করলে যা হয় তাই একজন ভন্ড জ্যোতিষীর জ্যোতিষ শাস্ত্র।

১.৪ জ্যোতিষ শাস্ত্র প্রাচীন জ্যোতির্বিদ্যাকে কেন্দ্র করেই গড়ে উঠে।

১.৫ জ্যোতিষ শাস্ত্রের যে অংশটুকু মনোবিজ্ঞান ঠিক সেই অংশটুকুই বিজ্ঞান বাকী অংশটুকু ভন্ডামী।

ধর্ম,দর্শন ও বিজ্ঞান-৯ঃ জড় ও মন


বস্তু হলো শক্তির দেশ-কালিক চতুর্মাত্রিক রূপ। ভিন্ন ভিন্ন কম্পাঙ্কে-দৈর্ঘ্যে, ভিন্ন ভিন্ন কৌনিক অবস্থান ও মাত্রায় ইলেক্ট্রোম্যাগনেটিক ওয়েভের প্যাটার্নই মানব মস্তিষ্কে বস্তুরূপে প্রতিভাসিত হয়।বস্তু হলো শূন্যের উপর পরা-অপরা শক্তির চতুর্মাত্রিক খেলা! অন্যভাবে বলা যায়, বস্তু হলো শূন্যের উপর ক্রিয়াশীল কতগুলো যৌক্তিক গানিতিক রাশিমালার দেশ-কালিক চতুর্মাত্রিক বাস্তব প্রতিফলন।

কার্য-কারনঃ একটি কুইজ, একটি ধাঁধা


কার্য-কারন: একটি কুইজ, একটি ধাঁধা।
আশাকরি পাঠকতা ন্তব্য করবেন।

ফলোয়ার


আস্তিক্য চিন্তার সঙ্গেই অনুসারী কথাটি যায়, নাস্তিক্য চিন্তায় উহা প্রযোজ্য নয়। একজন ড. হুমায়ুন আজাদ কিংবা একজন ড. আহমদ শরীফের ফলোয়ার তৈরী হওয়ার কথা নয় কারন নাস্তিক্য চিন্তায় বিষয়টি খাপ খায়না। যারা হুমায়ুন আজাদের সকল কথাকে বেদ বাক্য মনে করে এবং অন্ধভাবে অনুসরন করতে চায়_যারা হুমায়ুন আজাদের কোন উক্তির সমালোচনা সহ্য করতে চায়না তারা মূলত হুমায়ুন আজাদ কেন্দ্রিক আস্তিক। তারা সত্যিকারের নাস্তিক্য চিন্তায় ধাপিত নয়।

বস্তুবাদ বনাম ভাববাদঃ বিজ্ঞান


বস্তুবাদ বনাম ভাববাদঃ বিজ্ঞান
.......................................................
১.১ আমরা যাকে এটম বা পরমানু বলি তার ৯৯.৯৯৯৯% ভাগই ফাঁকা বা শূণ্য(space) এবং মাত্র ০.০০০১% ভাগে ভর রয়েছে; অথচ পরমানু গঠিত বস্তুকে আমারা ফাঁকা না দেখে মাত্র ০.০০০১%এর বাস্তবতাকেই অনুভব করি।

বিজ্ঞান বনাম কলাবিদ্যা


বিজ্ঞান বনাম মানবিক বিদ্যা

আমি বিজ্ঞানকে ভালোবাসি। আমি যে বাক্যটা বললাম এটা কলা বিদ্যার অংশ।বিজ্ঞানের প্রতি অনুরাগ বুঝাতে আমি মানবিক বা কলা বিদ্যার আশ্রয় নিলাম। প্রকৃত প্রস্তাবে মানবিক বিদ্যা ব্যতীত বিজ্ঞানকে আমরা বুঝতে পারবনা। গানিতিক সমীকরন বিজ্ঞানের ছাত্র, বিজ্ঞান শিক্ষক কিংবা গবেষকদের নিকট বোধগম্য হলেও সাধারনে বোধগম্য নয়। বিজ্ঞানের সমীকরন কিংবা সূত্রাবলীর ব্যাখ্যা করতে মানবিক বিদ্যার আশ্রয় নিতে হবে। অতএব, বিজ্ঞানকে বুঝতে-জানতে মানবিক বিদ্যা জানা আবশ্যক।

ধর্ম,দর্শন ও বিজ্ঞান-৮ঃ আস্তিকতা-নাস্তিকতা এবং নৈতিকতা ও বিবর্তনবাদ


মানুষের অনু-পরমানু এবং ঐ নিম্ন শ্রেনীর প্রানীটির অনু-পরমানু একই সেলে, একই বিন্দুতে কেন্দ্রিভূত[ বিগ ব্যাং কালীন] ছিল_এখনও মহাবিশ্বের সকল অনু-পরমানুর মধ্যে একই ওয়েভ ফাংশন ক্রিয়াশীল_যে কোন বিন্দুর স্পন্দনে অন্য বিন্দু গুলোও স্পন্দিত হয়।

ধর্ম, দর্শন ও বিজ্ঞান-৭ঃ ষষ্ঠ ইন্দ্রিয়, মানব মস্তিষ্ক, ধ্যান ও জ্ঞান


আমরা সাধারনত ইন্দ্রিয় বলতে পাঁচটি ইন্দ্রিয়কে বুঝি, যথা_চোখ, কান, নাক, জিহ্বা ও ত্বক_এগুলো যথাক্রমে দর্শন, শ্রবন, ঘ্রান, স্বাধ ও স্পর্শ ইন্দ্রিয়। এগুলোর মাধ্যমে আমরা জগতকে বুঝে থাকি।
আমরা যখন ঘুমাই তখন প্রায় সকল ইন্দ্রিয়ই সাধারনত নিষ্ক্রিয় থাকে। কিন্তু তখনও আমাদের দেহ কাজ করে, মস্তিষ্ক সক্রিয় থাকে। পঞ্চ ইন্দ্রিয়ের মাধ্যমে যে তথ্য বা তথ্যসমূহ মস্তিষ্করূপ জৈবিক কম্পিউটারে ইনপুট হয় তা মস্তিষ্ক প্রক্রিয়াজাতকরন করে সিদ্ধান্ত গ্রহন করে। মানব শরীরে যেহেতু জড়ীয় সত্তাও বিদ্যমান সেহেতু শরীর কিংবা মস্তিষ্কের অচেতন ক্রিয়া সম্পর্কে আমরা সচেতন নই। মস্তিষ্কের অবচেতন ক্রিয়া সম্পর্কেও আমরা সরাসরি সচেতন নই।

পৃষ্ঠাসমূহ

Facebook comments

বোর্ডিং কার্ড

আবু মমিন
আবু মমিন এর ছবি
Offline
Last seen: 1 দিন 20 ঘন্টা ago
Joined: রবিবার, মে 1, 2016 - 9:00অপরাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

ফেসবুকে ইস্টিশন

SSL Certificate
কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর