নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 4 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • শহরের পথচারী
  • দীব্বেন্দু দীপ
  • অলীক আনন্দ
  • মিশু মিলন

নতুন যাত্রী

  • তা ন ভী র .
  • কেএম শাওন
  • নুসরাত প্রিয়া
  • তথাগত
  • জুনায়েদ সিদ্দিক...
  • হান্টার দীপ
  • সাধু বাবা
  • বেকার_মানুষ
  • স্নেহেশ চক্রবর্তী
  • মহাবিশ্বের বাসিন্দা

আপনি এখানে

আবু মমিন এর ব্লগ

মুক্তচিন্তা


০.০ এক গুচ্ছ যুক্তি ও বিশ্বাসকে কেন্দ্র করে মানুষের একেকটি চিন্তার কাঠামো গড়ে উঠে। কোন মত, বাদ বা ইজম মূলত পৃথক পৃথক চিন্তা কাঠামো কেন্দ্রিক।

১.১ ধর্মীয় মতগুলো কত গুলো চিন্তার কাঠামো দ্বারা গঠিত।একজন ধার্মিকের চিন্তা আবর্তিত হয় তার শাস্ত্র বা ধর্ম গ্রন্থ কেন্দ্রিক। তবে ধর্মনিরপেক্ষ আস্তিকের চিন্তার কোন ধর্মমত কেন্দ্রিক চিন্তার কাঠামো নেই। অপরদিকে একজন নাস্তিক, অজ্ঞেয়বাদী, সংশয়বাদী কিংবা একজন স্পিরিচুয়ালিস্টেরও ধর্ম কেন্দ্রিক চিন্তার কাঠামো নেই। কিন্তু তাদের চিন্তাও অন্যকোন এক বা একাধিক চিন্তার কাঠামো ভিত্তিক।

শূন্য ও অসীম


১. শূন্য ও অসীম

শূন্যতো শূন্য নয়,
সেতো পূর্ন!
ইতিতে-নেতিতে পূর্ন!
অসীমতো অসীম নয়,
সেতো শূন্য।
শূন্যতো শূন্য নয়,
সেতো দ্বিভাজিত
বিপরীতে পূর্ন!
সেইতো অসীম
সেইতো জগত
অনন্ত সংখ্যক দ্বিভাজিত শূন্য!

আমরা যাকে শূন্য বলি সেতো শূন্য নয়, সেতো পূর্ন, সেতো পজিটিভ-নেগটিভে পূর্ন। অসীমতো কিছুনা সেতো শূন্যেরই রূপভেদ। সুপ্ত শূন্যের বিকাশমান রূপই অসীম। শূন্য যখন অসীম রূপে মুক্তি পায় তখন তাই জগত। অনন্ত সংখ্যক শূন্যের মুক্তিতে অনন্ত সংখ্যক মহাবিশ্ব_আর উহাই মাল্টিভার্স বা মহাজগত।

২.শূন্যকে জানুনঃ

ধর্ম,দর্শন ও বিজ্ঞান


সাধারনের জন্য ধর্ম
অসাধারনের জন্য দর্শন
সকলের জন্য বিজ্ঞান
অতি অসাধারনের জন্য
না ধর্ম, না দর্শন, না বিজ্ঞান_
তিনিই ধর্ম, তিনিই দর্শন, তিনিই বিজ্ঞান।

রাষ্ট্রচিন্তাঃ সাম্যবাদ ও সাম্যতা


১.১ জগতে হুবহু কিংবা সর্বসম দুইটি কোন সত্তা নেই। জ্যামিতিক কিংবা বিজ্ঞানের সর্বসমতার ধারনা মূলত আদর্শিক প্রত্যয় কিন্তু বাস্তবে উহার অস্তিত্ব নেই। তবে জগতে সদৃশ সত্তার অস্তিত্ব বিদ্যমান রয়েছে।

১.২ দুইটি অতি পারমানবিক কনিকাও সর্বসম নয় কারন উহাদের দেশ-কালিক ও পারিপার্শ্বিক অবস্থান ভিন্ন।

১.৩ পৃথিবীর আটশ কোটি মানুষও দৈহিক ও মানসিক ভাবে পৃথক এবং তাদের প্রত্যেকেরই দেশ-কালিক অবস্থানও ভিন্ন।

বাংলাদেশের ভূমি ব্যবস্থাপনার আধুনিকায়নঃ পর্ব-০৩


পর্ব-০৩
ভূমিতে জন্ম, ভূমিতে চাষ, ভূমিতে বাস, ভূমিতে ঔষধ_মানুষের মৌলিক চাহিদার অন্তর্গত অন্ন, বস্ত্র,বাসস্থান,চিকিৎসা সব কিছুই ভূমি কেন্দ্রিক।

প্রাচীন কালে জনসংখ্যার তুলনায় ভূমির পরিমান ছিল অনেক বেশি। তখন ব্যক্তিতে-ব্যক্তিতে, পরিবারে-পরিবারে কিংবা গোত্রে-গোত্রে,রাষ্ট্রে-রাষ্ট্রে ভূমির প্রাপ্যতা কিংবা দখল দারিত্ব নিয়ে কাড়াকাড়ি কিংবা মারামারি ছিলনা।

বাংলাদেশের ভূমি ব্যবস্থাপনার আধুনিকায়নঃ


পর্ব-০১

চাই ভূমি ব্যবস্থাপনার আধুনিকায়ন। একের ভেতরে তিন_Three in One. Land management, Land Settlement & Land Registration.

অস্তিত্ব, অনস্তিত্ব ও আমিত্ব


১)
আমি নাস্তিক নই, অজ্ঞেয়বাদী হয়েও আমি একজন আস্তিকঃ

"Know thyself". আমি নিজেকে জানার চেষ্টা করলাম বাইরে থেকে। কারন মায়ের পেট থেকেতো নিজেকে জানার চেষ্টা সম্ভব হইনি যদিও মায়ের পেটই ছিল তখন আমার জগত।
ভূমিষ্ঠ হওয়ার পর থেকেই নিজেকে জানার চেষ্টা করলাম _জগতকে বুঝতে- বুঝতে কিংবা জানতে-জানতে জানতে পারলাম যে, জগত মূলত দুইটি বিপরীত শক্তি তথা সত্তার ভারসাম্যমূলক অবস্থান যার লব্ধি শূন্য। Something exists in nothing. But we don't know what's nothing.

প্রার্থনা কি ও উহার কার্যকারিতা কিসে?


প্রার্থনা কি ও উহার কার্যকারিতা কিসে?

O my God! There is no God. He is in nowhere but in human belief.

ঈশ্বর থাকুক বা না থাকুক; উহা আছে মানুষের বিশ্বাসে কিংবা নিঃশ্বাসে। ঈশ্বরের নিকট প্রার্থনা মূলত অবচেতন ও চেতন মনের মিথোষ্ক্রিয়ায় ইতিবাচক ফল লাভের আকাঙ্খা। একজন নাস্তিক কিংবা অজ্ঞেয়বাদী অন্যের শুভকামনা কিংবা মঙ্গলকামনা করেন সেটাও প্রার্থনা।

মানুষ যা চায় তা সে পাবেই পাবে যদি এবং কেবল যদি উহা মনছবি আকারে উহা চেতন মন থেকে অবচেতন মনে প্রোগ্রামিত হয়।

আমি'র ভেতরে আমি


আমি'র ভেতরে আমি

আমি ঘন্টায় ৩৬০০ সেকেন্ড বেগে মৃত্যুর দিকে ধাপিত হচ্ছি। মৃত্যু অবধারিত ও অনিবার্য্য।

আমি যখন শুধুই দেহ কিংবা মূর্তিমান অস্তিত্ব তখন অবশ্যই আমি নশ্বর। আমি যদি কোন গানিতিক সফ্টওয়্যারের বিকাশমান রূপ হই তবে সেই সফ্টওয়্যারের মৃত্যু নেই। কারন ঐ সফ্টওয়্যার গানিতিক ও বিমূর্ত।

আর এই বিমূর্ত আমি'র জগতের যেকোন যায়গায় পুনরায় মূর্তমান হওয়ার সম্ভবনা থেকেই যাচ্ছে। এই জগতে অসংখ্য আমি'র সম্ভবনাকে আমি নাকচ করতে পারিনা এবং ঠিক এই অর্থে এই "আমি"র মৃত্যু নেই!
এই পার্থিব আমি'র মৃত্যু মানে জগতের অসংখ্য আমি'র মৃত্য নয়!!!

রাষ্ট্রচিন্তাঃ গনতন্ত্র


More development, less democracy.

বাংলাদেশের আর্থ-সামাজিক-রাজনৈতিক-ধর্মীয়-সাংস্কৃতিক অবস্থার প্রেক্ষিতে উপরোক্ত বিষয়টি মেনে আমাদের নিতেই হবে।

গনতন্ত্র মানে ভোটতন্ত্র নয়। গনতন্ত্র মানে উন্নয়ন ও প্রগতি_নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি হবে উন্নয়ন ও প্রগতির জন্য। যে ভোটতন্ত্র উন্নয়ন ও প্রগতির পরিপন্থী তা কখনও গনতন্ত্রের সহায়ক শক্তি হতে পারেনা।

জনগনের উন্নয়ন ও প্রগতির সহায়ক কিংবা অনুগামী প্রশাসনিক সিদ্ধান্ত কিংবা উচ্চতর আদালতের নির্দেশনাও গনতন্ত্র।

ভিন্ন ভিন্ন দেশের প্রেক্ষিতে গনতান্ত্রিক দৃষ্টিকোনও ভিন্নতর হতে হবে উন্নয়ন ও প্রগতির স্বার্থে।

পৃষ্ঠাসমূহ

বোর্ডিং কার্ড

আবু মমিন
আবু মমিন এর ছবি
Offline
Last seen: 3 দিন 17 ঘন্টা ago
Joined: সোমবার, মে 2, 2016 - 3:00পূর্বাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

কু ঝিক ঝিক

ফেসবুকে ইস্টিশন

SSL Certificate
কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর