নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 7 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • জান্নাতুল নাইম শাওন
  • শাহরিয়ার জাহিদ...
  • পৃথু স্যন্যাল
  • নীল কষ্ট
  • আরিফ ইউডি
  • নুরুন নেসা
  • এম ইউ রাকিব

নতুন যাত্রী

  • আবুল কালাম
  • ইমরান আহমেদ সৈকত
  • উন্মাদ কবি
  • রাহাত মাকসুদ
  • শাহরিয়ার জাহিদ...
  • অপূর্ব দাশ
  • এল্লেন সাইফুল
  • বাপ্পি হালদার
  • রমাকান্ত রায়
  • আবুল খায়ের

আপনি এখানে

আবু মমিন এর ব্লগ

প্রার্থনা কি ও উহার কার্যকারিতা কিসে?


প্রার্থনা কি ও উহার কার্যকারিতা কিসে?

O my God! There is no God. He is in nowhere but in human belief.

ঈশ্বর থাকুক বা না থাকুক; উহা আছে মানুষের বিশ্বাসে কিংবা নিঃশ্বাসে। ঈশ্বরের নিকট প্রার্থনা মূলত অবচেতন ও চেতন মনের মিথোষ্ক্রিয়ায় ইতিবাচক ফল লাভের আকাঙ্খা। একজন নাস্তিক কিংবা অজ্ঞেয়বাদী অন্যের শুভকামনা কিংবা মঙ্গলকামনা করেন সেটাও প্রার্থনা।

মানুষ যা চায় তা সে পাবেই পাবে যদি এবং কেবল যদি উহা মনছবি আকারে উহা চেতন মন থেকে অবচেতন মনে প্রোগ্রামিত হয়।

আমি'র ভেতরে আমি


আমি'র ভেতরে আমি

আমি ঘন্টায় ৩৬০০ সেকেন্ড বেগে মৃত্যুর দিকে ধাপিত হচ্ছি। মৃত্যু অবধারিত ও অনিবার্য্য।

আমি যখন শুধুই দেহ কিংবা মূর্তিমান অস্তিত্ব তখন অবশ্যই আমি নশ্বর। আমি যদি কোন গানিতিক সফ্টওয়্যারের বিকাশমান রূপ হই তবে সেই সফ্টওয়্যারের মৃত্যু নেই। কারন ঐ সফ্টওয়্যার গানিতিক ও বিমূর্ত।

আর এই বিমূর্ত আমি'র জগতের যেকোন যায়গায় পুনরায় মূর্তমান হওয়ার সম্ভবনা থেকেই যাচ্ছে। এই জগতে অসংখ্য আমি'র সম্ভবনাকে আমি নাকচ করতে পারিনা এবং ঠিক এই অর্থে এই "আমি"র মৃত্যু নেই!
এই পার্থিব আমি'র মৃত্যু মানে জগতের অসংখ্য আমি'র মৃত্য নয়!!!

রাষ্ট্রচিন্তাঃ গনতন্ত্র


More development, less democracy.

বাংলাদেশের আর্থ-সামাজিক-রাজনৈতিক-ধর্মীয়-সাংস্কৃতিক অবস্থার প্রেক্ষিতে উপরোক্ত বিষয়টি মেনে আমাদের নিতেই হবে।

গনতন্ত্র মানে ভোটতন্ত্র নয়। গনতন্ত্র মানে উন্নয়ন ও প্রগতি_নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি হবে উন্নয়ন ও প্রগতির জন্য। যে ভোটতন্ত্র উন্নয়ন ও প্রগতির পরিপন্থী তা কখনও গনতন্ত্রের সহায়ক শক্তি হতে পারেনা।

জনগনের উন্নয়ন ও প্রগতির সহায়ক কিংবা অনুগামী প্রশাসনিক সিদ্ধান্ত কিংবা উচ্চতর আদালতের নির্দেশনাও গনতন্ত্র।

ভিন্ন ভিন্ন দেশের প্রেক্ষিতে গনতান্ত্রিক দৃষ্টিকোনও ভিন্নতর হতে হবে উন্নয়ন ও প্রগতির স্বার্থে।

ধর্ম,দর্শন ও বিজ্ঞান-১৬ঃ ইতিহাসবিজ্ঞান


ইতিহাসবিজ্ঞান

০.০ ইতিহাস হলো ঘটনার বস্তুনিষ্ঠ বর্ননা। অতীত, বর্তমান ও ভবিষ্যৎ সব ক্ষেত্রেই ইতিহাস রয়েছে_সকল ঘটনার বস্তুনিষ্ঠ বনর্নাই ইতিহাস। ইতিহাস মানুষ কেন্দ্রিক এবং কিংবা বস্তু ও বস্তুর কার্য-কারন কেন্দ্রিক। ইতিহাস যখন শুধুই অবস্তু কেন্দ্রিক তখন তা শুধুই কল্পনা-ধর্মমত-গল্প-কেচ্ছা-কাহিনী-হরর কিংবা বৈজ্ঞানিক কল্প-কাহিনী; তা ইতিহাস নয়। ইতিহাস তাই যা বস্তুনিষ্ঠতায় ও কার্য-কারনে ব্যাখ্যা যোগ্য। ইতিহাস হলো ইতিহাস বিজ্ঞান। এই অর্থে ইতিহাস জড়বিজ্ঞান, জীববিজ্ঞান ও সামাজিক বিজ্ঞান, এমনকি মানবিক বিদ্যাও ইতিহাস বিজ্ঞানের পরিধিভূক্ত।

"প্রেম ও দ্রোহ"


ধর্ম,দর্শন ও বিজ্ঞান-১৫ঃ বিবর্তনবাদ এবং আস্তিকতা ও নাস্তিকতা


বিবর্তনবাদঃ আস্তিকতা ও নাস্তিকতা

১.১ ধরাযাক, আপনার বয়স ৪০ বছর। আপনার ০ দিন বয়সের ১টি ছবি তোলা হয়েছিল। এভাবে ১ দিন, ২দিন, ৩দিন.............৪০ বছর বয়সের প্রত্যেক দিনের ছবি তোলা হয়েছিল এবং প্রত্যেকদিনের ছবি সংরক্ষিত রাখা আছে। যদি যেকোন পাশাপাশি ২ দিনের ছবি ২টি পর্তাল করা হয় তাহলে ছবি ২টির মধ্যকার পার্থক্য অনুভূত হবেনা এবং ছবি ২টি যে একই ব্যক্তির তা স্পষ্টত বুঝা যাবে। কিন্তু আপনার ১০বছর বয়সের ছবি এবং ৪০ বছর বয়সের ছবি ২টি একই ব্যক্তির অনুভূত হবেনা। সময়ের ব্যবধানে ব্যাপক পরিবর্তনের কারনে সত্য বিষয়টিই অসত্য মনে হবে।

ধর্ম, দর্শন ও বিজ্ঞান-১৪ঃ প্রেম ও ভালোবাসা(২য় পর্ব)


প্রেম ও ভালোবাসাঃ

আমি ইতোপূর্বে ♥প্রেম-ভালোবাসা♥'র ০৭(সাত)টি উপাদানের কথা বলেছিলাম; যথা-
১) মানসিক আকর্ষণ: ভালোবাসার প্রথম ও প্রাথমিক উপাদান হলো মানসিক আকর্ষণ। ভালোলাগা থেকেই মানসিক আকর্ষণের সৃষ্টি। পরস্পরকে ভালোলাগা থেকেই ভালোবাসার সূত্রপাত ঘটে। পরস্পর পরস্পরকে ভালো লাগতে হবে। প্রেমিক-প্রেমিকের মধ্যে যেমন মানসিক আকর্ষণ বিদ্যমান ঠিক তেমনি বাবা-মার সঙ্গে তাদের সন্তানদের মধ্যে মানসিক আকর্ষণ বিদ্যমান থাকে।

২) কল্যানকামনাঃ পরস্পরের কল্যাণকামনার বিষয়টি ভালোবাসার ক্ষেত্রে দ্বিতীয় গুরুত্বপূর্ন উপাদান।

ধর্ম,দর্শন ও বিজ্ঞান-১৩ঃ প্রেম ও ভালোবাসা( ১ম পর্ব)


১ম অংশ

প্রেম বলতে আমি কি বুঝি?

বস্তুতে.বস্তুতে যে মিথোষ্ক্রিয়া সেতো আকর্ষন।
জীবে.জীবে যে ভাব ক্রিয়া সেওতো আকর্ষণ।
জীবে.বস্তুতে যে প্রভাব ক্রিয়া সেওতো আকর্ষণ।
আর বিকর্ষণ সেওতো নেতিবাচক আকর্ষণ।

জগতের সত্তাসমূহের মধ্যস্থ এক অদৃশ্য আন্তজালিক আকর্ষনই প্রেম। জগতটাতো প্রেমেরই ঝরনা ধারা।

ধর্ম,দর্শন ও বিজ্ঞান-১২ঃ আমি কিছুই জানিনা, তবুও কিছু জানাতে চাই


আমি কিছুই জানিনা, তবুও কিছু জানাতে চাইঃ

ধর্ম কিংবা ধর্মমত সমূহ ঐতিহাসিক বাস্তবতা। ঐতিহাসিক প্রেক্ষাপট থেকেই উহার মূল্যায়ন করতে হবে। ধর্ম গ্রন্থগুলো কাব্যগ্রন্থের সঙ্গে তুলনীয় যাতে ঐতিহাসিক বাস্তবতারই প্রতিফলন ঘটেছে। আধুনিকতার মানদন্ডে তা বিচার্য্য হতে পারেনা।

তদ্রূপ, আজকের বিজ্ঞানকে সুদুর ভবিষ্যতের বিজ্ঞান কতটুকু গ্রহন কিংবা বর্জন করবে তা ভবিষ্যতই বলে দিবে।

আমাদের বুঝতে হবে শিম্পাঞ্জির কিংবা মানুষ অপেক্ষে নিম্ন শ্রেনীর প্রানীরও পদার্থ বিজ্ঞান আছে। সেও তার পদার্থ বিজ্ঞানমতে তার দৈনন্দিন কার্যক্রম গ্রহন করে থাকে যদিও তার বিজ্ঞানকে আমরা বিজ্ঞান বলিনা।

ধর্ম,দর্শন ও বিজ্ঞান-১১ঃ পরিবার


সূর্য, গ্রহ-উপগ্রহ, উল্কাপিন্ড, ধুমকেতু ও অন্যান্য জ্যেতিষ্কমন্ডলীকে নিয়ে সৌর পরিবার গঠিত। এ পরিবার থেকে যদি কোন গ্রহ যেমন পৃথিবী কক্ষ চ্যুত হয় তবে পৃথিবীর ধ্বংস অবশ্যম্ভাবী। একাধিক গ্রহ একই সঙ্গে একাধিক সৌর কিংবা নক্ষত্র পরিবারের সদস্য হতে পারেনা। তেমনি একটি নক্ষত্র একই সঙ্গে একাধিক সৌর পরিবার গঠন করতে পারেনা। সৌর পরিবারের নিউক্লিয়াস সূর্য। সূর্যকে কেন্দ্র করেই তার সকল সদস্য আবর্তিত। কোন জ্যোতিষ্ক তার কক্ষ পথ থেকে বিচ্যুত হলেই উহা ধ্বংস স্তুপে পরিনত হয়। উল্কাপাত তার প্রকৃষ্ট উদাহরন।

যে কোন সংগঠনের একটা নিউক্লিয়াস থাকা চাই যাকে কেন্দ্র করেই অন্য সদস্যরা আবর্তিত হয়।

পৃষ্ঠাসমূহ

Facebook comments

বোর্ডিং কার্ড

আবু মমিন
আবু মমিন এর ছবি
Offline
Last seen: 1 দিন 13 ঘন্টা ago
Joined: রবিবার, মে 1, 2016 - 9:00অপরাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

ফেসবুকে ইস্টিশন

SSL Certificate
কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর