নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 4 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • কাঠমোল্লা
  • মিঠুন বিশ্বাস
  • মারুফুর রহমান খান
  • দ্বিতীয়নাম

নতুন যাত্রী

  • চয়ন অর্কিড
  • ফজলে রাব্বী খান
  • হূমায়ুন কবির
  • রকিব খান
  • সজল আল সানভী
  • শহীদ আহমেদ
  • মো ইকরামুজ্জামান
  • মিজান
  • সঞ্জয় চক্রবর্তী
  • ডাঃ নেইল আকাশ

আপনি এখানে

কাঠমোল্লা এর ব্লগ

কোরান-হাদিসের মধ্যে বিজ্ঞান? পর্ব-২(ইসলামী মহাবিশ্ব)


কোরান ও হাদিস থেকে আমরা মহাবিশ্বের যে চিত্র পাই তা হলো জ্যোতির্বিজ্ঞানীদের চিত্র থেকে আলাদা। তাহলে আমরা এখন কোন চিত্র গ্রহন করব ? কোরান হাদিসেরটা নাকি জ্যোতির্বিজ্ঞানীদেরটা ? প্রসঙ্গত: জ্যোতির্বিজ্ঞানীরা যে চিত্র প্রকাশ করে , তা নানা পরীক্ষা নীরিক্ষার মাধ্যমেই সেটা করে। নিজেদের মনগড়া কোন কথা বলে না। পক্ষান্তরে কোরান হাদিসের মহাবিশ্ব চিত্র শুধুই বিশ্বাসের ব্যাপার। যাইহোক , কোরান হাদিস থেকে এবার আসল বিষয়টা জানা যাক।

সুরা আত ত্বালাক- ৬৫: ১২: আল্লাহ সপ্তাকাশ সৃষ্টি করেছেন এবং পৃথিবীও সেই পরিমাণে, --------------

মুসলমানরা কেন এত দুর্নীতি পরায়ন হয় ?


মুসলমানরা যে কি পরিমান দুর্নীতিপরায়ন, তা কিন্তু বোঝা যায়, সারা পৃথিবীতে দুর্নীতিপরায়ন দেশগুলোর দিকে তাকালে। সবচাইতে দুর্নীতিপরায়ন দেশগুলোর দিকে তাকালে দেখা যাবে , তাদের অধিকাংশই মুসলিম প্রধান দেশ। যেমন - সুদান , সোমালিয়া, আফগানিস্তান , ইরাক , তুর্কমেনিস্তান, লিবিয়া , ইয়েমেন , বাংলাদেশ, পাকিস্তান ইত্যাদি। একই সাথে সবচাইতে কম দুর্নীতি হয় - ডেনমার্ক, নরওয়ে ,সুইডেন, নেদারল্যান্ডস, সুইজারল্যান্ড ইত্যাদি যেখানকার অধিকাংশ মানুষই নাস্তিক বা উদার। এর কারন কি ?

কারন অনুসন্ধান করতে গেলেই দেখা যায়, এখানে ধর্মের একটা বিরাট ভূমিকা আছে। কোরান বলছে-

স্ত্রীকে প্রহার করার মধ্যেই আছে নারীকে বিপুল সম্মান প্রদর্শন- কিন্তু কাফিররা বলে ভিন্ন কথা


তথাকথিত ইসলামী পন্ডিতরা দাবী করে , ইসলামই একমাত্র ধর্ম যা নারীকে দিয়েছে বিপুল সম্মান। তারা একটা হাদিস বের করে তাদের দাবীর পক্ষে প্রমান দেখায় , সেটা হলো - মায়ের পায়ের নীচে সন্তানের বেহেস্ত। তো সেই মা একজন স্ত্রীও , আর তার স্বামী তাকে কিভাবে সম্মান দেখাবে , সেটা বলা আছে কোরানে হাদিসে। এবার সেটা দেখা যাক----

আল্লাহর কোন আকার আছে ?


মুমিনরা দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করে , আল্লাহর কোন আকার নাই। আল্লাহ নাকি নিরাকার। কিন্তু ঘটনা কি ঠিক ? এ বিষয়ে কোরান হাদিস কি বলে ? এই কারনে হিন্দুরা যে তাদের ঈশ্বরের প্রতিমা গড়ে বা খৃষ্টানরা তাদের যীশুর প্রতিমা গড়ে ,মুমিনেরা তাচ্ছিল্যের সাথে তাকে বলে মূর্তিপূজা। আর ইসলামের আল্লাহ হলো আকারহীন। যাইহোক , কোরান হাদিস থেকে এবার প্রকৃত সত্য জানা যাক।

কোরান-হাদিসের মধ্যে বিজ্ঞান ? পর্ব-১(বিগ ব্যাং তত্ত্ব)


সাম্প্রতিক কালে কোরান হাদিসের মধ্যে বিজ্ঞান আবিস্কারের মাত্রা বহুগুন বৃদ্ধি পেয়েছে। দুনিয়ার তাবৎ বৈজ্ঞানিক তথ্য ও তত্ত্বের খোজ পাওয়া যাচ্ছে কোরান হাদিসে। যা মুমিনদের ইমানদন্ড শক্তিশালী করার একটা মস্ত হাতিয়ার। দুনিয়াতে মুসলিম দেশগুলোতে বিজ্ঞানীর তেমন জন্ম হয় না , তার একটাই কারন , সবাই জানে ও বিশ্বাস করে দুনিয়ার সব বিজ্ঞান আছে কোরান হাদিসে , তাই নতুন করে সেসব আবিস্কার করার তো কোন মানেই হয় না। যাইহোক , এবার আসল বিষয়ে আসা যাক।

জাকির নায়েক প্রমুখ ইসলামী বিজ্ঞানীরা কোরানের নিচের আয়াতের মধ্যে বিগ ব্যাং তত্ত্ব খুজে পেয়েছে।

আল্লাহর ক্ষমতা বেশী , নাকি ছাগলের ক্ষমতা বেশী ?


কোরানে আল্লাহ বলেছে , সে নিজেই কোরানকে সংরক্ষন করবে। কোরান বলেছে- সুরা হিজর- ১৫:০৯:আমি স্বয়ং এ উপদেশ গ্রন্থ অবতারণ করেছি এবং আমি নিজেই এর সংরক্ষক। সুতরাং ধরেই নিতে হবে যে দুনিয়ার আর কেউ কোরানের কোন বানীকে ধ্বংস করতে পারবে না। যদি পারে , বুঝতে হবে , যে কোরানের বানী ধ্বংস করার ক্ষমতা রাখে , সে আল্লাহর চাইতে বেশী শক্তিশালী। কিন্তু দেখা যাচ্ছে , সামান্য ছাগলে কোরানের বানী ধ্বংস করে ফেলেছে। তাহলে সামান্য ছাগল কি আল্লাহর চাইতে বেশী শক্তিশালী ? বিষয়টা খোলাসা করা যাক।

হাদিসে আছে -------

মুহাম্মদের চলাচলের রাস্তায় ইহুদি বুড়ির কাটা বিছানোর গল্প: কোরান বা হাদিসে কোথায় আছে ?


আমাদের জ্ঞান হওয়ার আগেই , একটা গল্প দিয়ে আমাদের জীবন শুরু করান হয়েছে যার মাধ্যমে আমাদের জ্ঞান হওয়ার আগেই আমাদেরকে বুঝান হয়েছে মুহাম্মদের মত মহৎ ব্যাক্তি দুনিয়াতে আর কেউ নাই ছিল না। সেই বিখ্যাত গল্প যাতে বলা আছে - মুহাম্মদের চলাচলের রাস্তায় এক ইহুদি বুড়ি কাটা বিছিয়ে রাখত যাতে মুহাম্মদ সেই পথে চলাচলের সময় কষ্ট পায়। একদিন হঠাৎ মুহাম্মদ লক্ষ্য করল পথে কাটা নেই। তখন মুহাম্মদ খোজ নিয়ে জানল , বুড়ি নাকি অসুস্থ। তখন , মুহাম্মদ সেই বুড়ির বাড়ীতে গেল। গিয়ে তার সেবা যত্ন করল। মুহাম্মদের মহানুভবতায় মুগ্ধ হয়ে বুড়ি ইসলাম গ্রহন করল। কিন্তু প্রশ্ন হলো- এই গল্পের সূত্র কি ? এই গল্প কোথায় আছে - কোরানে ?

ইসলাম কি সত্য ধর্ম ? পর্ব -৩


ইসলাম সত্য ধর্ম কি না সেটা বিচার বিবেচনাটা বিশেষ জরুরী। কারন কিছু মানুষ যেমন ইসলামের নামে হত্যা , রাহাজানি , নারী ধর্ষন ইত্যাদি করছে , তেমনি কিছু মানুষ ইসলাম শান্তির ধর্ম বলে চিৎকার করছে। আমাদের জানা উচিত , আসলে কারা সঠিক ও কেন সঠিক। ইসলামী পন্ডিতরা বাইবেলের মধ্যে মুহাম্মদ সম্পর্কিত ভবিষ্যদ্বানী খুজে পায়, যদি দেখা যায় , সেই ভবিষ্যদ্বানী অনুযায়ী মুহাম্মদ নবী না , তাহলে ইসলাম যে সত্য ধর্ম না সেটা প্রমানিত হবে। আব্রাহামিক ধর্মের বিধান অনুযায়ীই তখন ইসলাম মিথ্যা ধর্মে পরিনত হবে, কারন ইসলাম দাবী করে সে হলো আব্রাহামিক ধর্মের শেষ সংস্করন।

আজ শবে বরাতের রাত : এর পরিনতি


আজ শবে বরাতের রাত। আল্লাহ তার আরশ থেকে সর্ব নিম্ন আসমানে নেমে এসে রাতের বেলা বান্দাদের গুনাহ মাফ করে দেবে। সেই কারনে বান্দারা সারা রাত ধরে আল্লাহর কাছে ইবাদত বন্দেগী করবে। শাবান মাসের ১৫ তারিখ রাতকে শবে বরাতের রাত বলে ধরা হয়। কিন্তু সমস্যা হলো শবে বরাতের রাতে ইবাদত বন্দেগী করলে পাপী বান্দাদের গুনাহ মাফ হয়ে যাবে , এমন ধরনের কোন বাক্য কোরান বা হাদিসে ( সহিহ) নাই। কিন্তু তাতে কিছু যায় আসেনা, দুনিয়ার বিভিন্ন মুসলিম দেশে ইমামরা মহা সমারোহে, এই রাতে কান্না কাটি করে । এই কান্না কাটি কি সবই অর্থহীন ?

কিছু ইসলামী পন্ডিত মনে করে , নিচের আয়াত হলো শবে বরাত উপলক্ষ্যে -

ইসলাম কি সত্য ধর্ম ?-পর্ব-২


মুমিনের যুক্তি কিন্তু সর্বদাই হাটুর নিচে। যখন বাইবেল কিতাব দিয়ে কোরান বা মুহাম্মদকে বিচার করা হয়, তারা সাথে সাথেই বলবে বাইবেল কিতাব বিকৃত। কিন্তু একই সাথে তারা সেই বিকৃত কিতাবের মধ্যে মুহাম্মদ সম্পর্কে ভবিষ্যদ্বানী খুজে পায়। যদি বাইবেল কিতাব বিকৃত বা ভুয়া হয়, তাহলে তার মধ্যেকার ভবিষ্যদ্বানীও বিকৃত বা ভুয়া হবে। কিন্ত কিসের কি , মুমিনেরা এসব যুক্তির ধার ধারে না। যাইহোক , এবার দেখা যাক, বাইবেলের মধ্যে মুহাম্মদকে খুজে পাওয়া যায় কি না।

পৃষ্ঠাসমূহ

বোর্ডিং কার্ড

কাঠমোল্লা
কাঠমোল্লা এর ছবি
Online
Last seen: 22 min 38 sec ago
Joined: শুক্রবার, এপ্রিল 8, 2016 - 4:48অপরাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

ফেসবুকে ইস্টিশন

কপিরাইট © ইস্টিশন ব্লগ ® ২০১৮ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর