নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 6 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • রাফিন জয়
  • দীপ্ত সুন্দ অসুর
  • মিশু মিলন
  • সাইয়িদ রফিকুল হক
  • মোমিনুর রহমান মিন্টু
  • জাকারিয়া হুসাইন

নতুন যাত্রী

  • ফারজানা কাজী
  • আমি ফ্রিল্যান্স...
  • সোহেল বাপ্পি
  • হাসিন মাহতাব
  • কৃষ্ণ মহাম্মদ
  • মু.আরিফুল ইসলাম
  • রাজাবাবু
  • রক্স রাব্বি
  • আলমগীর আলম
  • সৌহার্দ্য দেওয়ান

আপনি এখানে

কাঠমোল্লা এর ব্লগ

আমেরিকার মিলিটারি ইন্টেলিজেন্স স্বীকার করল UFO ও বহির্জাগতিক উন্নত প্রানীর অস্তিত্ব সত্য


বেশ কয়েক দশক ধরে আলোচনা সমালোচনা চলছে , বিশ্বে মানুষই একমাত্র উন্নত প্রানী না। বরং বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তেই বুদ্ধিমান জীব আছে আর তারা মানুষের চাইতেও বহু উন্নত। এসব নিয়ে বহু বই পুস্তক, অনলাইনে বহু ভিডিও , ওয়েব সাইট আছে। কিন্তু এ পর্যন্ত কখনই এমন কোন নির্ভরযোগ্য ব্যাক্তি এ বিষয়ে সুনির্দিষ্ট প্রমান দাখিল করেন নি। এবারই প্রথম আমেরিকার মিলিটারী ইন্টেলিজেন্সের একজন প্রাক্তন কর্মকর্তা CNN এ সেটা স্বীকার করলেন।

আজকের মুক্তিযোদ্ধারা একদিন রাজাকারে পরিনত হবে, আর রাজাকাররা পরিনত হবে খাটি মুমিন ও জিহাদীতে


ইসলাম শুধুই একটা ধর্ম না, এটা একটা সম্পূর্ন জীবন বিধান। জন্মের আগ থেকে কবরে যাওয়া পর্যন্ত তাই একজন মুসলমানের সব কিছুই ইসলামের বিধি বিধান দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হবে। ইসলামের ভিত্তিতে যদি মুক্তিযুদ্ধকে বিচার বিবেচনা করি , দেখা যাবে , আজকে যারা মুক্তিযোদ্ধা হিসাবে সম্মানিত , তারাই ভবিষ্যতে ঘৃণিত মুনাফিক ও বিশ্বাসঘাতক হিসাবে অসম্মানের পাত্র হবে , এমন কি তাদেরকে মরনোত্তর বিচার করে ফাঁসি দেয়া হতে পারে। আর আজকে যারা রাজাকার হিসাবে গণ্য তাদেরকে বলা হবে মহান জিহাদী ও শহিদ হিসাবে।

আকায়েদ উল্লাহর কর্মকান্ডের সাথে ইসলামের কোনই সম্পর্ক নেই বা সে এ কাজ করতই পারে না


যখনই কোন মুসলমান আল্লাহু আকবর ধ্বনি দিয়ে , ইহুদি নাসারা কাফেরদের হত্যা করার জন্যে বোমা ফাটায় বা গাড়ি চালিয়ে দেয় বা গুলি করে, তখনই এক শ্রেনীর মুসলমানরা দাবী করে , সেই লোকের কাজের সাথে ইসলামের কোন সম্পর্ক নেই , আর সেই লোক মুসলমান না। সম্প্রতি আকায়েদ উল্লাহ নামের এক বাংলাদেশ বংশোদ্ভুত যুবক আমেরিকার নিউইয়র্কে আত্মঘাতী বোমা হামলা করতে গিয়ে ধরা পড়েছে , সাথে সাথেই বলা শুরু হয়েছে , তার কাজের সাথে ইসলামের সম্পর্ক নেই , তার আত্মীয় স্বজন অবশ্য বলছে - সে একাজ করতেই পারে না। কারন সে পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ পড়ত।

ইসলাম নারীদেরকে কুত্তা ও শয়তানের সমান বলে নারীকে দিয়েছে সুমহান মর্যাদা


বিধি বিধান দ্বারা ইসলামই একমাত্র ধর্ম যা নারীকে চুড়ান্তভাবে অপমান করেছে। অন্য কোন ধর্মে নারীকে বিধি বিধান দিয়ে অপমান করে নাই, বরং সামাজিকভাবে তাদেরকে নানারকম ভাবে অপমান করা হয় যার সাথে তাদের ধর্মের কোন সম্পর্ক নেই। সেই কারনেই অমুসলিম সমাজে রাষ্ট্র আইন করে নারীদের নানা ধরনের অধিকার বাস্তবায়ন করলে ধর্ম সেখানে বাধা হয়ে দাড়ায় না।সেখানে ইসলাম নারীকে পুরুষের অর্ধেক , নারীরা শয়তান ও কুত্তার সমান ইত্যাদি বলে চুড়ান্ত অপমান করেছে।

ইসলাম ধর্মে কোন জবর দস্তি নেই, কারন যুদ্ধ , খুন এসব কোন জবর দস্তি না, এটা হলো জিহাদ


ইসলাম হলো চুড়ান্ত শান্তির ধর্ম। আর সেটা অর্জন করতে হলে যুদ্ধ , তরবারি চালাতে হবে , অমুসলিমদের কণ্ঠ রোধ করে তাদেরকে ইসলামের পতাকাতলে আসতে বাধ্য করতে হবে , আর তাহলেই অর্জিত হবে চুড়ান্ত শান্তি। যেমন কোরানে বলেছে ---

কুকুরকে বুদ্ধিমান বানান যেতে পারে , কিন্তু মুসলমানকে মানুষ বানান সম্ভব না


বেশ কিছু অভিজ্ঞতার পর আমার মনে হয়েছে , বরং কুকুরকে প্রশিক্ষন দিলে সে বুদ্ধিমান হতে পারে , কিন্তু কোনভাবেই মুসলমানদেরকে মানুষ বানান সম্ভব না।মানুষ তাকেই বলে যে যুক্তি ও প্রমানের ভিত্তিতে সিদ্ধান্ত গ্রহন করে। সেই কারনেই মানুষকে বুদ্ধিমান জীব বলা হয়। কিন্তু দেখা যাচ্ছে , মুসলমানরা কোনভাবেই যুক্তি ও প্রমানের ভিত্তিতে সিদ্ধান্ত গ্রহন করতে রাজী না। তার মানে তারা কোন ভাবেই মানুষ হতে রাজী না। দুই একটা ঘটনার প্রেক্ষিতে বিষয়টা ব্যখ্যা করব।

লাখ শহিদ ও ধর্ষিতার প্রতি অসম্মান দেখিয়ে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা কেন বিলীন হওয়ার পথে ?


১৬ই ডিসেম্বর আসলেই বিভিন্ন রাজনৈতিক দল বিশেষ করে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লিগ নানা অনুষ্ঠানে আবেগময় বক্তব্য দিয়ে তাদের ভয়াবহ রকম মুক্তিযুদ্ধের চেতনার বহি:প্রকাশ ঘটায়। অথচ এই আওয়ামী লিগের বহু লোকই, যখন রাজাকার দেলোয়ার হোসেন সাইদির ফাঁসির আদেশ হয়, তখন এর বিরোধীতা করে প্রকাশ্যে যা মুক্তিযুদ্ধের মুখে একটা প্র্রকান্ড চপেটাঘাত। রাজাকারের ফাঁসির আদেশের বিরুদ্ধে মত প্রকাশ করে নিশ্চয়ই মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ধারন করা যায় না। সোজা কথায় , গোটা দেশের জনগনের মন থেকে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বিলীন হওয়ার পথে।

রাজাকার ও জামাত কেন আজও স্বাধীনতার যুদ্ধের সময় তাদের কর্মকান্ডের জন্যে ক্ষমা চায় না?


গত বেশ কিছু বছর ধরে ১৯৭১ সালের স্বাধীনতা যুদ্ধে যারা বিপক্ষে ছিল , যারা রাজাকার , আলবদর বা জামাত ইসলামের লোক ছিল , তাদের কয়েকজনকে বিচার করে ফাঁসি দেয়া হয়েছে।কিন্তু আজ পর্যন্ত একজন আসামীও স্বীকার করে নাই যে তারা স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় অন্যায় কাজ করেছিল। বরং তারা হাসতে হাসতে ফাঁসির কাষ্ঠে ঝুলেছে। বরং তারা বুক ফুলিয়ে বলেছে - তারা যা করেছিল আদর্শিকভাবে তা সঠিক ছিল। তার মানে মুক্তিযোদ্ধারা বেঠিক ছিল। সুতরাং বিষয়টা বিচার বিশ্লেষন করে দেখা যাক।

মিশরে মসজিদে ২৫০ সুফি হত্যা, সহিহ মুসলমান ও সহিহ ইহুদি ষড়যন্ত্র


মাত্রই গতকাল একদল জঙ্গি (বলাবাহুল্য আই এস) মিশরের একটা সুফি মসজিদের হামলা চালিয়ে ২৫০ এর মত সুফিকে হত্যা করেছে , যাদের মধ্যে বহু শিশুও ছিল , বাকী আরও কয়েকশ আহত হয়েছে। এখনই কথিত মডারেট মুসলমান সহ সকল পশ্চিমা মিডিয়া প্রচার করবে , যারা ইসলামের নামে সুফিদের হত্যা করেছে , তারা সহিহ মুসলমান নহে । ইসলাম কাউকে হত্যা করতে বলে না।বলাবাহুল্য হত্যাকারী জঙ্গিরা সবাই আই এস এর সদস্য আর তারা মিশরে একটা ইসলামী রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার চেষ্টা করে যাচ্ছে। যাহোক , এবার পুরো বিষয়টার কারন ও উদ্দেশ্য জানার চেষ্টা করা যাক।

কথিত ড: কিথ মুর-এর ইসলাম গ্রহন, ভ্রুনতত্ত্ব ও ইসলাম


কথিত ড: কিথ মুরের নামে মুমিনরা জিকির করে , কারন সে নাকি দুনিয়ার সর্বশ্রেষ্ট ভ্রুনতত্ত্ববিদ এবং একই সাথে আবিস্কার করেছে কোরানের মধ্যেই সেই বিখ্যাত ভ্রুনতত্ত্ব লুক্কায়িত। সে কারনেই ড: কিথ মুর নাকি ইসলাম গ্রহন করেছিল। সুতরাং কোরান একটা ঐশি কিতাব যাতে কোন ভুল নেই। মুমিনরা এই ঘটনা তাদের নিয়ন্ত্রিত সকল মিডিয়াতে রাত দিন চব্বিশ ঘন্টা প্রচার করে থাকে, এর ফলে জঙ্গি নামি খাটি মুমিনরা আরো ইমানি জোশে কাফের মুর্তাদদের কল্লা কাটে বা গাড়ি চালিয়ে হত্যা করে। এবার পুরো বিষয়গুলো একটু বিবৃত করা যাক।

পৃষ্ঠাসমূহ

বোর্ডিং কার্ড

কাঠমোল্লা
কাঠমোল্লা এর ছবি
Offline
Last seen: 4 weeks 1 দিন ago
Joined: শুক্রবার, এপ্রিল 8, 2016 - 4:48অপরাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

কু ঝিক ঝিক

ফেসবুকে ইস্টিশন

SSL Certificate
কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর