নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 5 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • রাজর্ষি ব্যনার্জী
  • দ্বিতীয়নাম
  • নিঃসঙ্গী
  • সাইয়িদ রফিকুল হক
  • মিঠুন বিশ্বাস

নতুন যাত্রী

  • চয়ন অর্কিড
  • ফজলে রাব্বী খান
  • হূমায়ুন কবির
  • রকিব খান
  • সজল আল সানভী
  • শহীদ আহমেদ
  • মো ইকরামুজ্জামান
  • মিজান
  • সঞ্জয় চক্রবর্তী
  • ডাঃ নেইল আকাশ

আপনি এখানে

সাব্বির খান এর ব্লগ

এক ঢিলে তিন পাখিঃ প্রসঙ্গ যুদ্ধাপরাধের বিচার :: সাব্বির খান


শিরোনাম দেখে ভাবার কোন কারন নেই যে, আমি বিরোচিত কোন কাজের বর্ননা দিচ্ছি। একই লেখায়, সম্পূর্ন ভিন্ন অবস্থানের তিনজন বিশিষ্ট ব্যক্তির ব্যাপারে কিছু কথা লিখবো বলে এই শিরোনামের আশ্রয় নিয়েছি। যুদ্ধাপরাধের বিচারের মত মারাত্নক স্পর্শকাতর বিষয়ে গত এক সপ্তাহে বিভিন্ন ভাবে এই তিন ব্যক্তির নাম আলোচনায় উঠে এসেছে। একই লেখায়, তিনটি সংখ্যানুক্রমের ধারা বজায় রেখে যুদ্ধাপরাধের বিচার প্রসঙ্গকে বিন্দুতে রেখে শিরোনামটি নির্ধারন করেছি। স্বভাবতই শিরোনামের অন্য যে কোন ব্যাখ্যা অগ্রহনযোগ্য বলে বিবেচিত হবে।

এক.

মাহফুজ আনামরা ক্লান্ত হন না...


ইংরেজী পত্রিকা ডেইলী স্টারের প্রকাশক ও সম্পাদক মাহফুজ আনাম সাহেব তাঁর নিজের পত্রিকায় সম্প্রতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ জানিয়ে বিশাল এক 'সুশীলাকৃতি"র কলাম লিখেছেন। প্রতিটা লাইন খুব মনযোগ দিয়ে পড়েছি। কিন্তু ওনার লেখা একটা লাইনও আমাকে বিশেষভাবে আন্দোলিত করেনি বা করতে পারেনি। বরং সুবিচার ও মানবতার কথা বলে মার্কিনী প্ররোচনায় এবং স্টাইলে এনারাই এক সময় এই

ট্রাইব্যুনালের বিরুদ্ধে পরোক্ষভাবে কলম ধরেছিলেন, ক্ষেত্রবিশেষে যা বর্তমানেও চলমান।

প্যাকেজ নাটকঃ 'যাত্রা দেখে ফাতরা লোকে!'


অভিনয়েঃ
শেখ হাসিনাঃ মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশে সরকার
খালেদাঃ সাবেক বিরোধী দলীয় নেত্রী এবং বর্তমান বিএনপি চেয়ারম্যান
----------------------------------------------

প্রথম দৃশ্যঃ

হাসিনাঃ জামায়াতকে ছেড়ে সমঝোতায় আসুন > খালেদার প্রতি হাসিনার আহবান
খালেদাঃ জামায়াতকে ছাড়া যাবে না > হাসিনাকে খালেদার সোজাসাপ্টা উত্তর

(( গ্যালারী থেকে বিদগ্ধ দর্শকের শীটি বাজিয়ে মন্তব্যঃ ))

দর্শক একঃ খালেদা জিয়ার অন্যায়টা কি? সে কি সর্বহারার মত নিষিদ্ধ দলের সাথে জোট করেছে নাকি? খালেদাকে জামায়াত ছাড়ার নসিহত করার আগে রাষ্ট্রের প্রধান হিসেবে আপনের দায়িত্ব কি সেইটা আগে কন?

পোড়া মৃতদেহের রাজনীতি ও সময়ের গল্প


২৯ নভেম্বর শুক্রবার প্রভাতে শেষ হল বিএনপি-জামায়াত নেতৃত্বাধীন ১৮ দলের টানা ৭১ ঘণ্টার অবরোধ। এই অবরোধে লাভ-ক্ষতির হিসাব কে কীভাবে করবেন জানি না। তবে বিএনপি-জামায়াতের চাহিদা অনুযায়ী মৃতের মাথা গুনে যদি এর হিসেব করা হয়, তাহলে নির্দ্বিধায় বলা যায় যে, “স্বল্প সময়ে চাহিদা অনুযায়ী জামায়াত-বিএনপির ‘প্রাপ্তি’ বিশাল!’’

যুদ্ধাপরাধী দল জামায়াতকে রেখে গণতন্ত্রের চর্চা হয়না


দেশে একাত্তরের মানবতাবিরোধী অপরাধের বিচার হচ্ছে বিশেষ আদালতে। অথচ যুদ্ধাপরাধী দল জামায়াত ইসলামের বিচার হবে না, বিষয় দুটো সম্পূর্ন স্ববিরোধী এবং হঠকারী। অনেকে প্রশ্ন করতে পারেন যে, একজন ব্যক্তির বিচার হতে পারে, তার ফাঁসি বা কারাদন্ডও হতে পারে; কিন্তু একটা দলের ক্ষেত্রে তা কিভাবে সম্ভব? এ প্রশ্নের জবাব দেয়া ছিল বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান প্রণীত ১৯৭২ সালের সংবিধানেই। সেই আদি-সংবিধানে জামায়াত ইসলামিকে বাংলাদেশে শুধু নিষিদ্ধই করা হয়নি, সেই সাথে ধর্মভিত্তিক রাজনীতিও নিষিদ্ধ করা হয়েছিল। লক্ষ্য ছিল একটা ধর্মনিরপেক্ষ দেশ গড়ার।

আইনের প্যাঁচাল


৪৭(ক)(২) এ বলা হয়েছে, "এই সংবিধানে (১০৫ অনুচ্ছেদ) যাহা বলা হইয়াছে, তাহা সত্ত্বেও যে ব্যক্তির ক্ষেত্রে এই সংবিধানের ৪৭ অনুচ্ছেদের (৩) দফায় বর্ণিত কোনো আইন প্রযোজ্য হয়, এই সংবিধানের অধীন কোনো প্রতিকারের জন্য সুপ্রিম কোর্টে আবেদন করিবার কোনো অধিকার সেই ব্যক্তির থাকবে না।"

"এক ঢাকা হেফা" না-কি "এক দেশ বাঙ্গালী"?


বালকটি যখন হাটহাজারী মাদ্রাসায় পড়াশুনা করতে আসে,তখন তার বয়স মাত্র ১০ বছর। সে সময় ছাত্ররা বৃত্তবানদের বাড়িতে লজিং থেকে পড়াশুনা করতো। বালক যে বাড়িতে লজিং থাকতো, সে বাড়ির মহিলারা প্রায়ই বিভিন্ন কাজে তার সামনে চলে আসতো, যা সে খুবই অপছন্দ করতো। একদিন সে বাড়ির মহিলাদের বলেই বসল যে, তার সামনে তারা এভাবে হুট যেন করে চলে না আসেন এবং মহিলাদের পর্দার বিষয়টি সে তাঁদের স্মরন করিয়ে দেয়। মহিলারা তখন অবাক হয়ে জিজ্ঞেস করলেন, তুমি তো এখনো ছোট,সন্তানসম। সামনে আসলে গুনাহ হবে কেন? বালকটি তারপরও বার বার অনুরোধ করার পরেও বাচ্চা ছেলে বলে কেউ তাঁর কথার কোন গুরুত্ব দেয়নি বলে জানা যায় (সংগৃহিত)।

'আইনের আদালত' আর 'মানবতার অবতার- স্বাস্থ্যবিশেষজ্ঞ' এক কথা নয়


রায়টি এসেছে মূলত একটি সাংবিধানিক আদালতের মাধ্যমে। আদালত এবং এর রায়কে স্বতস্ফূর্ত ভাবে স্বাগত জানানোর কোন কারন একাত্তরের ৩০ লক্ষ শহীদ পরিবারের নাই। আমারও নাই।

আদালতের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়েও বলা যায়, একাত্তরের ৩০ লক্ষ শহীদ পরিবার এই রায়ে "সংক্ষুব্ধ-আশাহত-হতভম্ব।" আমার ন্যায় বিচার পাইনি।

আইনের প্রতি শ্রদ্ধা রেখেও প্রশ্ন করা যায়ঃ

-গো. আযম যখন এই অপরাধ করেছিল, তখন তার বয়স কত ছিল? সেই বয়সটাকেই বিচারিক আমলে নেয়া উচিত ছিল কি-না?

পাপিয়া-প্রানীর ব্যাপারে কিছু কথা


একজন সারমেয় জাতের তৃতীয় শ্রেনীর অমানুষের মুখ থেকে সভ্য জাতীয় কিছু শোনার আশা যিনি করেন, শহীদ জননী জাহানারা ইমামের ভাষায় তাকে নির্দ্বিধায় "......মূর্খ অর্বাচীন বলা যাবে না- সে আসলে ধূর্ত শয়তান। শান্তিপ্রিয় মানুষের সে বিনাশ চায় আসলে।’’

‘গণআদালতের গণজাগরন আজ বিজয়ের দ্বারপ্রান্তে’


শহীদ জননী জাহানারা ইমাম মৃত্যুবরন করেছিলেন ১৯ বছর আগে, ২৬ জুন ১৯৯৪ সালে। দীর্ঘ ১৩টি বছর দূরারোগ্য কর্কট ব্যাধির বিরুদ্ধে যুদ্ধে হেরে গিয়েছিলেন তিনি ঠিকই, কিন্তু তাঁর সূচীত স্বাধীনতাবিরোধী মৌলবাদীদের বিরুদ্ধে আন্দোলনে তিনি হেরে যাননি। বরং স্বাধীনতা পরবর্তি বিশাল আন্দোলনগুলোর মধ্যে জননী জাহানারা ইমামের নেতৃত্বে সূচীত যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের দাবির আন্দোলনের বীরোচিত বিজয় নিঃসন্দেহে অন্যতম এবং অতুলনীয়। মৃত্যুর মাত্র আড়াই বছর আগে তাঁর নেতৃত্বে সূচীত হয়েছিল যুদ্ধাপরাধীদের বিচার ও মৌলবাদী-সাম্প্রদায়িক রাজনীতি নিষিদ্ধের দাবিতে এক অভূতপূর্ব ও অবিস্মরনীয় নাগরিক আন্দোলন, যা আজ দীর্ঘ ২১ বছরের কন

পৃষ্ঠাসমূহ

বোর্ডিং কার্ড

সাব্বির খান
সাব্বির খান এর ছবি
Offline
Last seen: 2 years 10 months ago
Joined: রবিবার, ফেব্রুয়ারী 3, 2013 - 11:22অপরাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

ফেসবুকে ইস্টিশন

কপিরাইট © ইস্টিশন ব্লগ ® ২০১৮ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর