নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 3 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • রূপালীনা
  • নুর নবী দুলাল
  • সুব্রত শুভ

নতুন যাত্রী

  • মহক ঠাকুর
  • সুপ্ত শুভ
  • সাধু পুরুষ
  • মোনাজ হক
  • অচিন্তা দত্ত
  • নীল পদ্ম
  • ব্লগ সার্চম্যান
  • আদি মানব
  • নগরবালক
  • মানিকুজ্জামান

আপনি এখানে

গোলাম সারওয়ার এর ব্লগ

ব্রাহ্মণ পুত্র রাজা রামমোহন রায় এখন বাংলাদেশের কওমি মাদ্রাসার "ব্র্যান্ড এম্বাসেডর" । কিস্তি - ৩


দ্বিতীয় কিস্তির লিংক এখানে

বাংলাদেশের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ও ব্লগ অঞ্চলের জনপ্রিয় লেখক বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ও ব্লগার পিনাকী ভট্টাচার্য এবং মাদ্রাসা শিক্ষক সৈয়দ মবনুরা বলছেন, বাংলাদেশের কওমি মাদ্রাসা গুলোতে হিন্দু বা বিধর্মী ছাত্রদের পড়তে কোনও বাধা নেই। কারন রাজা রামমোহন রায় পাটনা মাদ্রাসায় পড়েছিলেন, সুতরাং এখনকার হিন্দু ছাত্ররাও কওমি মাদ্রাসায় পড়তে পারেন। কিন্তু হিন্দু ছাত্ররা যান না সেখানে পড়তে (১)। এই বিশয়টির উপরে আজকের আলোচনা।

ব্রাহ্মণ পুত্র রাজা রামমোহন রায় এখন বাংলাদেশের কওমি মাদ্রাসার "ব্র্যান্ড এম্বাসেডর" । কিস্তি - ২


গত পর্বের লেখায় অনেক পাঠক ব্যক্তিগত ভাবে জানতে চেয়েছেন, সংশয় প্রকাশ করেছেন, এই লেখার শিরোনামে রাজা রামমোহন রায় কে "ব্রাহ্মণ পুত্র" হিসাবে উল্লেখ করার সঠিকতা নিয়ে। অনেকেই বলেছেন, রাজা রামমোহন রায় ব্রাহ্মণ কাস্ট এর ছিলেন না, কিম্বা রায় আসলে ব্রাহ্মণ পদবী নয় ইত্যাদি। বিস্তারিত আলোচনায় না গিয়ে, শুধু এই টুকু বলছি, একাধিক নির্ভরযোগ্য সুত্রে বিষয়টি নিশ্চিত করা গেছে যে, রাজা রামমোহন রায়ের পরিবার একটি প্রথাগত ব্রাহ্মণ পরিবার ছিলো। প্রয়োজনে এই বিষয়ে পরে সূত্র সহ আরো আলোচনা করা যাবে। আগ্রহীরা, লেখার শেষে দুইটি তথ্যসূত্র মিলিয়ে দেখতে পারেন। (১,২)

ব্রাহ্মণ পুত্র রাজা রামমোহন রায় এখন বাংলাদেশের কওমি মাদ্রাসার "ব্র্যান্ড এম্বাসেডর" । কিস্তি - ১


রাজা রাম মোহন রায় ছিলেন একজন কুলীন ব্রাহ্মণ পুত্র। পিতা এবং তাঁর পাঁচ পুরুষ মুঘল শাসকদের চাকুরে ছিলেন। জন্মের পর থেকেই মুসলিম আবহ দেখেছেন পাশ থেকে। প্রভাবশালী মুসলিমদের কে দেখেছেন খুব আছ থেকে। রাজা রাম মোহন রায় কে বাঙ্গালী জানে তাঁর বহুমাত্রিকতার জন্যে। তাঁর অনেকগুলো জীবনীর যেকোনো একটি পাঠ করলেই তাঁর বহুমাত্রিকতার পরিচয় পাওয়া যায়। পাঠের প্রতি ও নতুন বিষয় শেখার প্রতি এই রকমের অনুরাগ খুব কম বাঙ্গালীর দেখা গেছে।

আওয়ামিলীগ আমাদের সমাজ – রাজনীতি – অর্থনীতিতে যে 'ইতিবাচক' পরিবর্তনগুলো এনে দিয়েছে !


আমরা সবাই জানি, বিএনপি বা জেনারেল জিয়ার প্রতিষ্ঠিত এই দলটির কোনও গনভিত্তি ছিলোনা, এই দলটি ক্যান্টনমেন্ট এর নিরাপদ ছাউনিতে গড়ে উঠেছিলো এবং পরবর্তীতে আওয়ামী – ডান – বাম – মৌলবাদী স্বার্থান্বেষী দলছুটদের নিয়ে বিকশিত হয়েছিলো। এই দলটি বিভিন্ন মেয়াদে ৪ বার ক্ষমতায় ছিলো, ক্ষমতায় থেকে এই দলটি বাংলাদেশকে দুর্নীতিতে পৃথিবীর এক নাম্বার দেশে পরিনত করেছিলো। তারেক – কোকো – মামুনের দুর্নীতিতে বাংলাদেশ একটি সত্যিকারের তলাবিহীন ঝুড়িতে পরিনত হয়েছিলো। সেই রকমের একটি প্রায় ধ্বংস হয়ে যাওয়া দেশের হাল ধরে আওয়ামীলীগ তাদের তিনবারের ক্ষমতার সময়কালীন দেশের রাজনীতি – অর্থনীতিতে অভূতপূর্ব ইতিবাচক পরিবর্তন এনে দেয়ার মাধ

ডাক্তার দের ভুল এবং চিকিতসায় অবহেলা আসলে কি ? বাংলাদেশ ও বিশ্ব প্রেক্ষিত ! – পর্ব ২


এই পর্ব টি যখন লিখছি তখন আমাদের দেশে চিকিতসক এবং সাংবাদিক দুটি পেশার মানুশেরা প্রায় আক্রমণাত্মক ভাবে মুখোমুখি অবস্থান নিয়েছেন। আশ্চর্য জনক হচ্ছে এই উভয়ের পেশার সাথেই জড়িত রয়েছে বিপুল কারগরি দক্ষতা ও কঠোর নৈতিক পেশাগত আচরন এর বাধ্যবাধকতা। অবস্থা দৃষ্টে সত্যি ই সন্দিহান হয়ে পড়ছি যে এই দুই পেশার মানুষেরা তাঁদের পেশার কারিগরি দিকটি যত ভালো বোঝেন, নৈতিক ও আচরণগত দিকটি ততটা ভালো বোঝেন কি না। শুরু থেকেই আমার পরিকল্পনা এই ধরনের সাম্প্রতিক বিতর্কের বিষয় গুলি কে এই সিরিজের সর্বশেষ পর্বে লেখার, তাই অনুগ্রহ করে আসুন আমাদের আলোচনা কে পথভ্রষ্ট না করি।

ডাক্তারদের ভুল এবং চিকিৎসায় অবহেলা আসলে কি? বাংলাদেশ ও বিশ্ব প্রেক্ষিত! – পর্ব ১


আমার অনেক দিনের ইচ্ছা চিকিতসা ব্যবস্থা সম্পর্কিত সব চাইতে গুরুত্বপূর্ণ চারটি বিষয় নিয়ে কিছু লেখা লিখবো। এই বিষয় গুলো হলো –

১ চিকিৎসকের ভুল ( বা চিকিৎসার ভুল),
২ চিকিৎসকের অবহেলা (বা চিকিৎসার অবহেলা),
৩ চিকিৎসকের পেশাগত আচরন বিধির সংরক্ষন এবং
৪ রোগী – চিকিৎসক সম্পর্ক।

“চিকিতসক ইনজেকশন টি দেয়ার কিছুক্ষণ পরে রোগী মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন!” – এটি একটি বড়ো লেখার ভূমিকা মাত্র !


আমি তখন এক মাসের অভিজ্ঞ ডাক্তার। মানে মাত্র পাস করে মেডিসিন ওয়ার্ড দিয়ে শুরু করেছি আমার চিকিতসক জীবন। ইন্টার্ন চিকিতসকদের জন্যে “এডমিশন ডে” এক ধরনের উত্তেজনাকর দিবস, বিশেষ করে প্রশিক্ষনের প্রথম দিক কার দিন গুলো তে। এডমিশন ডে মানেই হচ্ছে অসংখ্য রোগী আসবে, নানান ধরনের সমস্যা নিয়ে, বেশীর ভাগই জরুরী এবং জটিল সমস্যা। সুতরাং শেখার অবারিত সুযোগ। আমাদের মেডিক্যাল কলেজে সকল রোগী আসতো মেডিসিন ওয়ার্ড এ তাঁর পর সেখান থেকে ভাগ হয়ে যেত কারডিওলজি, নিউরলজি, গ্যাস্ট্রো-এন্টেরলজি ইত্যাদি উপ শাখার ওয়ার্ড এ। এই রকমের এক টি এক্সাইটিং দিনে আমার ভাগ্যে সন্ধ্যা সাড়ে সাত টার দিকে (লং ইভেনিং) পড়ল একটি ওপিসি পয়জনিং এ

“সৃজনশীলতার সুত্র কি ?” – একজন নোবেল বিজয়ীর সাথে দেড় ঘন্টা !


আজ আমার কর্মস্থলে একটি ঘরোয়া সেমিনার এ গিয়েছিলাম। সেমিনার এর বিষয় ছিল “সৃজনশীলতার সুত্র কি ?” । প্রধান বক্তা ছিলেন ২০০৬ সালে রসায়নে নোবেল বিজয়ী স্ট্যানফোর্ড অধ্যাপক রজার কর্নবার্গ । যে সকল বন্ধুরা ইউরোপের বা আমেরিকার বিশ্ববিদ্যালয় গুলোতে পড়াশুনা বা কোনও ইভেন্ট এ অংশও নিয়েছেন তারা জানেন সাধারনত এই ধরনের সেমিনার এর ফরম্যাট হয়ে থাকে খুব ই সাদা-মাটা, একদম গ্ল্যামার বিহীন। শুরুতে বা শেষে কোনও আপ্যায়ন নেই, শুধুই বক্তৃতা ও প্রশ্ন-উত্তর পর্ব। এই সেমিনার টি আমার সংস্থা ও নোবেল মিডিয়া সেল এর একটি যৌথ উদ্যোগ, যেখানে বিজ্ঞানের ছাত্র ও গবেষক দের কে প্রেরনা দেয়ার জন্যে বিভিন্ন বিষয়ে নোবেল বিজয়িদের নিয়ে পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে বিভিন্ন

বাংলাদেশী জাতীয়তাবাদ এর “মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষ “ তত্ত্ব


(ডিসক্লেইমার –এই লেখাটির খসড়া করার সময় ভাবছিলাম এই ধরনের লেখা খানিকটা provocative হয়ে যাবার সম্ভাবনা থাকে। তাই খুব সহজেই হয়ত এই ধরনের লেখাকে “ব্যক্তি আক্রমন” ট্যাগ দেয়া যেতে পারে। আগাম বলে রাখছি, যদি কারো মনে হয় এই লেখাটা ব্যক্তি আক্রমন হয়ে গেছে, দয়া করে যদি একটু দেখিয়ে দেন কেন এবং কোথায় ব্যক্তি আক্রমন হয়েছে, দুঃখ প্রকাশ করব ও সংশোধন করে নেবো।)

পৃষ্ঠাসমূহ

বোর্ডিং কার্ড

গোলাম সারওয়ার
গোলাম সারওয়ার এর ছবি
Offline
Last seen: 1 week 1 দিন ago
Joined: শনিবার, মার্চ 23, 2013 - 4:42পূর্বাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

কু ঝিক ঝিক

ফেসবুকে ইস্টিশন

SSL Certificate
কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর