নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 3 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • এলিজা আকবর
  • পৃথ্বীরাজ চৌহান
  • নুর নবী দুলাল

নতুন যাত্রী

  • সুমন মুরমু
  • জোসেফ হ্যারিসন
  • সাতাল
  • যাযাবর বুর্জোয়া
  • মিঠুন সিকদার শুভম
  • এম এম এইচ ভূঁইয়া
  • খাঁচা বন্দি পাখি
  • প্রসেনজিৎ কোনার
  • পৃথিবীর নাগরিক
  • এস এম এইচ রহমান

আপনি এখানে

কবীর চৌধুরী তন্ময় এর ব্লগ

শেখ হাসিনার দিল্লি সফর ও আমাদের বিশ্বাস


প্রধামন্ত্রী শেখ হাসিনার সাম্প্রতিক ভারত সফর নিয়ে রাজনৈতিক বিরোধী পক্ষ বেশ সরগরম করে রেখেছে তাঁদের মিছিল-মিটিং ও আলোচনা সভাগুলো। মুলধারার গণমাধ্যমের পাশাপাশি সামাজিক মাধ্যমেও এ নিয়ে নানান ধরনের জল্পনা-কল্পনা করতে দেখা যায়। কেউ হয়-তো বুঝে আবার কেউ হয়-তো লোক মুখে শুনে যাঁর-যাঁর মতন করে কখনো চা’র টেবিলে আবার কখনো আড্ডাস্থলে তর্ক-বিতর্কের ঝড় তুলছে।

বিগত সফরগুলোতে তিস্তাচুক্তি নিয়ে বেশ হৈচৈ দেখা গেলেও এবার প্রায় সবার আলোচনা-সমালোচার বিষয় দেখা যায় ‘প্রতিরক্ষা চুক্তি’ বা ‘সামরিক চুক্তি’র বিষয়টি। আর সে সাথে যুক্ত হয়েছে নানান বিষয়াদি।

পান্তা-ইলিশ অতঃপর বৈশাখ


বৈশাখ বাংলা পঞ্জিকার প্রথম মাস। পহেল বৈশাখ, বৈশাখ মাসের ১ম তারিখ। বাংলা সনের প্রথম দিন, তথা বাংলা নববর্ষ। এই দিনটি বাংলাদেশ এবং ভারতের পশ্চিমবঙ্গে নববর্ষ হিসেবে বিশেষ উৎসবের সাথে পালিত হয়ে আসছে।

ত্রিপুরায় বসবাসরত বাঙালিরাও এই উৎসবে অংশগ্রহণ করে থাকে। সে হিসেবে বৈশাখ বা পহেলা বৈশাখ বাঙালিদের একটি সর্বজনীন লোকউৎসব হিসাবে আজ বিবেচিত।

একটু পিচনের দিকে তাকালে, গ্রেগরীয় বর্ষপঞ্জি অনুসারে ১৪ই এপ্রিল অথবা ১৫ই এপ্রিল পহেলা বৈশাখ পালিত হত। আধুনিক বা প্রাচীন যে কোন পঞ্জিকাতেই এই বিষয়ে মিল পাওয়া যায়।

সামাজিক যোগাযোগ ব্যবহারে লুকোচুরি


প্রতিটা স্বপ্ন, অধিকার বাস্তবায়ণের লক্ষে ব্যক্তি জীবন গড়িয়ে সমাজ, রাষ্ট্র তথা রাজনৈতিক ভাবে আন্দোলন-সংগ্রাম গড়ে তুলতে হয়। জনসচেতনতার পাশাপাশি ঐ সিদ্ধান্তের প্রতি জনমত তৈরি করা হয়ে উঠে অপরিহার্য।

প্রযুক্তি নির্ভর আধুনিক তৃতীয় বিশ্বের কতিপয় ব্যক্তি ও মহল তাদের হীন উদ্দেশ্য বাস্তবায়ণের জন্যে এক এক সময় এক এক নামে অপতৎপরতা, বর্বরতা চালিয়ে নিজেদের শক্তির অবস্থান জানান দিয়ে থাকে।

সমসাময়িক প্যারিসে আত্মঘাতী হামলা ও বিভিন্ন রাষ্ট্রে হামলার পরিকল্পনার বার্তা হুমকিস্বরূপ ছুড়ে দিয়েছে আইএস।

মানুষ, মানবতাবোধ ধ্বংস করার অপতৎপরতাকারীদের মূল পছন্দ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম।

আয়লান কুর্দির মত মানবিক বিপর্যয় বাংলাদেশেও


আমরা যাদেরকে লিজেন্ড মনেকরি, অনেক সময় তাদের ব্যক্তিগত আচরন পর্যবেক্ষণ করলে বেড়িয়ে আসে সত্যিকারের ভিতরের মানুষটিকে, বেড়িয়ে আসে তার বর্বরতম পশুত্ব আর তখনই নিজেকে লজ্জিত মনে হয়।

ক্রিকেটার নাসির হোসেনের ফেসবুকে পোষ্ট করা বোনের ছবি নিয়ে অপ্রাপ্ত বয়স্ক এক শ্রেণীর বর্বর কিছু নষ্ট মন্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে নাসির হোসেন তাদের শাস্তির ব্যবস্থা না করে বরং পোষ্ট করা ছবিটি ডিলেট করে দিয়েছে যা নিয়ে গরম সংবাদ প্রকাশ করেছে সংবাদ মাধ্যমগুলো।

গফুর ভাই এটা কি কথা বলেছে !


পাশের বাড়ির আক্কাস...
বহু চেষ্ঠার পরও তার লেখা-পড়ায় মন বসেনি। চারপাশে সারাদিন শুধু ঘুর ঘুর করেছিল। এই বাড়ীর পেয়ারা, ঐ বাড়ির আম আর সুযোগ বুঝে অনেক বাড়ীর ডাব-নারিকেল তো ছিলোই চুরির তালিকায়।

মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পাশ করতে না পারলেও বাবা-মা'র ভয়ে সকাল বেলায় মোক্তবে গিয়ে কোনো রকমে ইসলাম সম্বন্ধে কিছুটা জ্ঞান অর্জন করতে সক্ষম হয়েছে এই ধরেন নামাজ পড়া, শুত্রবারের জুম্মা পড়া, ঈদের নামাজ পড়া ইত্যাদি ইত্যাদি।

বহু কষ্টে বাবা-মা আক্কাসকে বিদেশ পাঠিয়েছে। এখন সে সৌদি আরবে লম্বা পাঞ্জাবি অর্থাৎ সৌদি বাদশাদের মতন পোশাক পড়ে ফটো তুলে বাড়িতে পাঠায় আর বাড়ির সবাই তাতেই অনেক খুশি।

নরেন্দ্র মোদির সফর ও তিস্তার ভাবনা


বিশ্বের বৃহত্তম গণতান্ত্রিক দেশ ভারত। বাংলাদেশের এক পরিক্ষীত বন্ধু। ১৯৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় ভারত এক অগ্নী পরিক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে বাংলাদেশের জনগণের হৃদয়ে শ্রদ্ধা, সম্মান আর ভালোবাসার জায়গাটুকু খোদাই করে অর্জন করেছে।

বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার স্বপ্নদ্রষ্ঠা, মুক্তিযুদ্ধের মহানায়ক, সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও বাঙালিদের পাশে দাঁড়াতে গিয়ে ভারত হারিয়েছে তাদের প্রায় চার হাজার সেনা সদস্য আর আহত হয়েছে প্রায় দশ হাজারের মতন। তখন প্রায় এক কোটি বাঙালি শরণার্থীকে আশ্রয় দিয়ে যে মহানুভবতা প্রদর্শন করেছে তা বিশ্বের ইতিহাসে অন্যন্য হয়ে থাকবে।

ভুভুজেলায় নষ্ট পরিবেশ ও ভয়ঙ্কর নারীর শ্লীলতাহানী


বাঙালি জাতিসত্ত্বার মহাসম্মিলন বাংলা নববর্ষ। এখানে জাতি, ধর্ম, বর্ণ নির্বিশেষে সবাই এককাতারে এসে সামিল হয়, আনন্দ ভাগাভাগি করে। বাঙালি জাতির ইতিহাস-ঐতিহ্য ধারন করে, পালন করে। বাঙালির মাঝে বাঙালি হারিয়ে যায়, আড্ডায় মশগুল আর বাড়িতে বাড়িতে বৈশাখের গন্ধের আমেজ বাতাসে ছড়িয়েছিটিয়ে থাকে।

এবারের ১৪২২ বাংলা বর্ষবরণ ছিল একটু অন্য রকম। ৯২ দিনের রাজনৈতিক হিংসা প্রতিহিংসার অসহ্য যন্ত্রণা থেকে বাঙালি জাতি একটু প্রশান্তির স্পর্শ অনুভব করেছে, প্রাণখুলে আনন্দ-উৎসব উদযাপন করার সুযোগ পেয়েছে। সকল ভয়-উৎকন্ঠা কাটিয়ে ঘুরে বেড়িয়েছে এখান থেকে সেখানে, সাথে নিয়েছে আদরের ছোট্ট সোনামণিকেও।

কোকোর মরদেহ দাফন অতঃপর প্রজন্মের ভাবনা


বাঙালি জাতির শ্রদ্ধারপাত্র, হূদয়ে টুকরো, ভালোবাসার সর্বোচ্চ জায়গায় যাকে স্থান দেওয়া তিনি আর কেউ নন, তিনি সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি, তিনি মুক্তিযুদ্ধের অগ্র নায়ক, তিনি ৭ই মার্চের বলিষ্ঠ কন্ঠসুর, তিনি বাঙালির আশা ও বিশ্বাসের ভরসা, তিনি বাংলাদেশের স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান।

জানোয়ার নয়, মানুষের আচরণ হতে হবে


ভেবেছিলাম কিছু বলবো না, লিখবো না কিছু, শেয়ার করবো না কোনো বন্ধুর সাথে, বাঘ শিকার করে।

বন বিড়াল অনেক সময় নিজেকে বাঘের মত ভাবতে থাকে, চেষ্ঠা করে বাঘের মত আচরণ করতে, হুংকার দিতে। মাঝে মাঝে শখের বসে একটু আকটু বচন ভঙ্গি, আকার ইঙ্গিত, শব্দ-বাক্য করারও চেষ্ঠা করে। এতেই সে মহা খুশী। আনন্দে আত্মহারা। নিজেকে বাঘ ভাবতে থাকে, ভাবতে থাকে বনের রাজা, আধিপত্যকারী একক শক্তি। যদিও বন বিড়াল।

যুদ্ধাপরাধীদের পক্ষ অবলম্ভন, জঙ্গী-সন্ত্রাসবাদ প্রতিষ্ঠা করা


এরিক প্রাইবকে, একজন নাৎসি যুদ্ধাপরাধী।

এরিক প্রাইবকের লাশ পৃথিবীর কোনো দেশই সমাহিত করতে রাজি হয়নি। এরিক প্রাইবকের শেষ ইচ্ছা ছিলো- মৃত্যুর পর যেন তাকে আর্জেন্টিনায় তার স্ত্রীর কবরের পাশে সমাহিত করা হয়। কিন্তু আর্জেন্টিনা সরকার তাতে অনুমতি দেয়নি।

একজন যুদ্ধাপরাধীর লাশ আর্জেন্টিনার সরকার এভাবেই ফিরিয়ে দেয়।

ভ্যাটিকান রোমের সকল চার্চে এরিকের অন্ত্যেষ্টিক্রিয়ার উপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়। এমনকি, এরিকের জন্মস্থান খোদ জার্মানিও তার লাশ গ্রহণ করতে রাজি হয়নি তার কারণ, এই যুদ্ধাপরাধীর লাশ সমাহিত করা হলে “নব্য-নাৎসিরা” এই সমাধিকে তীর্থস্থানে পরিণত করতে পারে।

পৃষ্ঠাসমূহ

বোর্ডিং কার্ড

কবীর চৌধুরী তন্ময়
কবীর চৌধুরী তন্ময় এর ছবি
Offline
Last seen: 7 months 3 weeks ago
Joined: বৃহস্পতিবার, মার্চ 21, 2013 - 4:17অপরাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

কু ঝিক ঝিক

ফেসবুকে ইস্টিশন

SSL Certificate
কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর