নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 3 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • নগরবালক
  • লুসিফেরাস কাফের
  • সাইয়িদ রফিকুল হক

নতুন যাত্রী

  • নীল মুহাম্মদ জা...
  • ইতাম পরদেশী
  • মুহম্মদ ইকরামুল হক
  • রাজন আলী
  • প্রশান্ত ভৌমিক
  • শঙ্খচূড় ইমাম
  • ডার্ক টু লাইট
  • সৌম্যজিৎ দত্ত
  • হিমু মিয়া
  • এস এম শাওন

আপনি এখানে

মিথুন এর ব্লগ

বামাতি জামাতি যখন মিলেমিশে একাকার


সিরিয়ায় হাজার হাজার মানুষ মরছে , শিশুও ছাড় পাচ্ছে না।মুক্তমনারা চুপ কেন?
আজকে উমুক জায়গায় উমুক নেতার ভাই একটা মেয়েকে রেপ করেছে।মুক্তমনারা চুপ কেন?
আজকে উমুক শিক্ষককে লাঞ্ছিত করেছে। মুক্তমনারা চুপ কেন?

আসলে এরা ইসলামের শত্রু। এরা ধর্মের শত্রু। না এরা পশ্চিমা দালাল। এরা সাম্রাজ্যবাদের লেজুড়বৃত্তি করে।

হরে রাম হরে মুহাম্মদ হরে কৃষ্ণ...


এক হিন্দু গুরু ( কৃষ্ণের অনুসারী) বলেছিল তুমি শুধু হরে কৃষ্ণ মহামন্ত্র জপ করো সকল মুশকিল আসান হয়ে যাবে। মহামন্ত্র টা হলো
হরে কৃষ্ণ হরে কৃষ্ণ কৃষ্ণ কৃষ্ণ হরে হরে। হরে রাম হরে রাম রাম রাম হরে হরে।

শ্রীমতি রাধারাণীর অনুমিত ব্যতীত কোন মহান ভক্ত বা দেবতাদের ও পরমেশ্বর ভগবান শ্রীকৃষ্ণের সেবা করার অধিকার নেই,
শ্রীমতি রাধারাণী ও আনন্দদায়ক ভগবান শ্রীবলরামের নিকট প্রার্থনা জানিয়ে নিজেকে ভগবানের সেবায় নিয়জিত করা।

কিছু অহেতুক প্রলাপ


ধার্মিকদের দৃঢ় বিশ্বাস, ধর্মপুস্তকই পৃথিবীর সব জ্ঞানের উৎস! অর্থাৎ পৃথিবীর জ্ঞান-বিজ্ঞানের ভাণ্ডার হলো এসব ধর্মগ্রন্থ। এসব পুস্তক সর্বজ্ঞানের অধিকারী । কারণ এই মহাবিশ্বের সর্ব জ্ঞানীরা বাণী পাঠিয়েছে। তাদের জ্ঞান ভাণ্ডারে জ্ঞানের অভাব নাই ! কিন্তু সবথেকে মজার বিষয় তা হলো যাদের জন্য এতো আয়োজন তারাই এসব বই খুলে দেখে না। এসব বই পড়ে নাস্তিক নাছাড়ারা। এজন্য তারা জ্ঞান বিজ্ঞানের চুড়ায় অবস্থান করে। কিন্তু এমন কেন যারা মানেই না কোন কিছু তারা কিভাবে এতো কিছু করে আর যারা এতো মানে এতো জানে তাদের এই বেহাল দশা কেন?

কথোপকথন


-তুমি কি ভারতীয়?
-না।
-তাইলে বাংলাদেশী?
-কেন?
-বলতে সমস্যা কোন?
-না সমস্যা নাই। তবে আমি ভারতীয় বা বাংলাদেশী এই শব্দগুলোতে আমার সমস্যা আছে।
-কেন?
-আমার মাঝে জাতীয়তাবাদী চেতনা খুব কম আছে।
-মানে কি? কেউ যদি তোমাকে বলে যে তোমার দেশ কি?উত্তরে বলবা যে,আমি পৃথিবী আমার দেশ?
-কেন আমি কি এই পৃথিবীর অংশ নই?
-হ্যা তা ঠিক। কিন্তু সবার তো নিজের একটা পরিচয় লাগে। দেখ আমি কাথরিন। আমি চাইনিজ।আমি একজন চাইনিজ ক্রিষ্টিয়ান। জন্মসূত্রে আমি বৃটিশ নাগরিক।

স্বাধীন দেশের নাগরিক


বিজয়ের মাস ডিসেম্বর।এক ঐতিহাসিক রক্তক্ষয়ী সংগ্রামের মাধ্যমে আমারা অর্জন করি মহান স্বাধীনতা।আমরা আজ স্বাধীন দেশের স্বাধীন নাগরিক। অনেক ত্যাগের বিনিময়ে আমাদের গৌরবের মায়া গাঁথা স্বাধীনতা। ইতিহাসের বিচারে মাত্র নয় মাসের সংগ্রামের অর্জিত স্বাধীনতা খুব কম নাই বললেই চলে।কয়েকটা দেশের পরিসংখ্যান দেখাই।

ভিয়েতনামঃ ২৬ বছর
ভারতঃ ৪০ বছরেরও অধিক আন্দোলন ও সংগ্রামের পর অর্জিত হয়েছে স্বাধীনতা।
আলজেরিয়াঃ ফ্রান্সের বিরুদ্ধে নয় বছর লড়াইয়ের পর পেয়েছে স্বাধীনতা

জাহান্নাম তুমি কার?


আল্লাহ বা ঈশ্বর আছে বা নেই এই নিয়ে তো বিতর্কের শেষ নেই।যেদিন থেকে ঈশ্বর বা আল্লাহ নামক কন্সেপ্টের উদ্ভব হয়েছে সেদিন থেকে এই বিতর্ক চলে আসছে। সবাই যে যার পক্ষে যুক্তি দেখাচ্ছে। এটা চলতে থাকবে সেই দিন পর্যন্ত যেদিন না ঈশ্বরের অস্তিত্ব বিলীন হয়ে যায় কিংবা সবাই সর্বসম্মতিক্রমে ঈশ্বরকে মেনে নেয়। কিন্তু সমস্যা টা এই জায়াগাতেই। কারণ যারা ঈশ্বরবাদী তারা তাদের অবস্থানে অটল তারা কোনভাবেই যুক্তি বা বিজ্ঞানকে মানতেই পারে না। তারা গোজামিল দিয়ে হলেও বোঝানোর চেষ্টা করে ঈশ্বর বিরাজমান।এই পৃথিবীতে হাজারের ও অধিক ঈশ্বর আছেন আর লক্ষের ও বেশী ঈশ্বরের অবতার বা পয়গাম্বর আছেন। যেহেতু ইসলাম বর্তমান সময়ের আলোচিত এব

ব্যক্তিগত জিজ্ঞাসা-১


কোথায় তুমি নৌকা ভেরাও
কোথায় তোমার ইষ্টিশন?
কোথায় তুমি স্বপ্ন ওড়াও
কোথায় তোমার নাকের ফুল?
কোথায় তুমি হাঁটতে থাকো
কোথায় তোমার পথের ধুলো?
কোথায় তুমি গান ধরেছো
কোথায় তোমার নদীর কুল?
কোথায় তুমি সুবাস ছড়াও
কোথায় তোমার ফুলের দল?
কোথায় তুমি আঁতকে ওঠো
কোথায় তোমার দীর্ঘশ্বাস?
কোথায় তুমি আলো ছড়াও
কোথায় তোমার অন্ধকার?
কোথায় তুমি ঘামতে থাকো
কোথায় তোমার ট্রাফিক জাম?
কোথায় তুমি বাজনা বাজাও
কোথায় তোমার রেশমি চুরি?
কোথায় তুমি গল্প জমাও
কোথায় তোমার হাতের ছোঁয়া?
কোথায় তুমি ভিজতে থাকো

একটি মেঘের গল্প


সবে মাত্র বাড়িতে ঢুকতে যাব, এমন সময় আমন্ত্রন এসে জড়ায়ে ধরলো। আমন্ত্রন আমার বোনের ছেলে। আমার দেখা সবথেকে ট্যালেন্ট একটা ছেলে। আমাকে একবার প্রশ্ন করেছিল আচ্ছা মামা আমরা তো ভাত খাই, পানি খাই, চিপস খাই, চকলেট খাই এজন্য আমাদের ক্ষুধা লাগে না গাছ কি খায়? আমি ওকে বলেছিলাম গাছ কিভাবে খাবার খায়। ঐ একবারই বলেহিলাম। তারপর তো ওর ঐটা মুখস্ত । মাত্র ছয় বছরের একটা ছেলে সালোকসংশ্লেষণ প্রক্রিয়া ঘট ঘট করে বলে দিতে পারে। ভাবা যায়?

একটি ফেসবুক স্ট্যাটাস


একটি আত্নহত্যা ।একটি সুইসাইড নোট । একটি ফেসবুক স্ট্যাটাস । একজন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী । একটি শিক্ষা ব্যবস্থা । একটি চায়ের দোকান । একটি পত্রিকা । একটি টিভি চানেল । একটি টকশো । একজন বুদ্ধিজীবী । একটি শাহবাগ । একটি লাল ঝাণ্ডা । বিকল হয়ে যাওয়া একটি রাষ্ট্রযন্ত্র । একটি পচে যাওয়া সিস্টেম । একটি ভাঙা রেকর্ড । হতাশা আর নেগেটিভিটিতে পরিপূর্ণ পাবলিক ।

সূর্যাস্ত


কাশেম স্যারের ক্লাস চলছে। কিন্তু দেখে বোঝার উপায় নেই কাশেম স্যারের ক্লাস । থমথমে একটা পরিবেশ। মনে হচ্ছে এই বুঝি কেউ হু হু করে কেঁদে উঠবে। আজ আর ক্লাস হবে না , ভালো থেকো তোমরা বলে স্যার ক্লাস থেকে বেরিয়ে গেলেন। বাহিরে তাকালাম কংক্রিটের দেয়ালে একটা কাক বসে আছে। একেবারে নির্জীব মনে হয় ঝিমুচ্ছে। চলে যাবার আগে আজ রাতটায় এখানে আমার শেষরাত। এটাই শেষ ক্লাস। আর কোনদিন এই ক্লাসরুমে ফিরব না আমি। । ইতু আমার স্টাডি পার্টনার ।আজই শেষ সুযোগ ইতু কে জিজ্ঞেস করার । আমি তা করছি না কারণ আমাদের ইতিমধ্যে বিদায়পর্ব শেষ হয়েছে। একটা প্লান অবশ্য ছিল কংক্রিটের দেয়ালে বসে সূর্যাস্ত টা দেখে হোষ্টেলে ফেরা।

পৃষ্ঠাসমূহ

বোর্ডিং কার্ড

মিথুন
মিথুন এর ছবি
Offline
Last seen: 2 months 1 week ago
Joined: বুধবার, অক্টোবর 7, 2015 - 8:46অপরাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

কু ঝিক ঝিক

ফেসবুকে ইস্টিশন

কপিরাইট © ইস্টিশন ব্লগ ® ২০১৮ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর