নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 4 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • নুর নবী দুলাল
  • দ্বিতীয়নাম
  • সাইয়িদ রফিকুল হক
  • মিশু মিলন

নতুন যাত্রী

  • নীল মুহাম্মদ জা...
  • ইতাম পরদেশী
  • মুহম্মদ ইকরামুল হক
  • রাজন আলী
  • প্রশান্ত ভৌমিক
  • শঙ্খচূড় ইমাম
  • ডার্ক টু লাইট
  • সৌম্যজিৎ দত্ত
  • হিমু মিয়া
  • এস এম শাওন

আপনি এখানে

অনন্য আজাদ এর ব্লগ

অপরাধের বৈধতা


শেখ হাসিনার যতো বয়স বাড়ছে, তিনি ততোই ভারসাম্যহীন হয়ে যাচ্ছেন। সাম্প্রতিককালে তিনি 'গুম' নিয়ে যে মন্তব্য করেছেন তাতে তিনি যে একটি অগতান্ত্রিক রাষ্ট্রের একজন দায়িত্বজ্ঞানহীন স্বৈরশাসক তাই প্রমাণ হচ্ছে।

স্রোতের বিপরীতে চলা নারী


আমার পরিচিত একজন ধর্ষণের শিকার হয়েছেন। তিনি যখন সেই বিভীষিকাময় পরিস্থিতির বর্ণনা করছিলেন, আমি নিজেই দুমড়ে-মুচড়ে যাচ্ছিলাম। যারা ধর্ষণের মতো জঘন্য অপরাধের ভুক্তভোগী, তাদের মধ্যে খুব অল্প সংখ্যক মানুষ থাকেন, যারা সেই যন্ত্রণাকে উপচে ফেলে সামনের দিকে অগ্রসর হতে পারেন।

প্রতিক্রিয়াশীল রাজনীতি


বাঙালির মানবতা শুধু সন্দেহজনকই নয়, বরং বিপদজনকও বটে। প্রায় দুইমাস আগে কোন একজনের সাথে বাঙলাদেশে রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দেওয়া নিয়ে আলোচনা করছিলাম। তিনি যা বলেছিলেন, তা মানবতার ক্ষেত্রে ভুল বলেন নি। কিন্তু বাঙলাদেশ রাষ্ট্রের ও বাঙালির মানবতা যে স্বার্থকেন্দ্রিক, নির্দিষ্ট গোষ্ঠীকেন্দ্রিক তা তিনি অস্বীকার করতে চাচ্ছিলেন। আজকের দিনের বাঙলাদেশের রাজনীতি সম্বন্ধে তার জ্ঞান সীমিত বলা যেতেই পারে।

প্রাক্তন শরীর


তোমার ঠোঁটের নিচের তিলটি অমাবস্যার
অন্ধকারে জ্বলে উঠে
পূর্ণিমার চাঁদ হয়ে,
আর আলো ছড়ায় তোমার টলমলে অধরে।
তোমার পিঠের তিলটি একগুচ্ছ ঘনকালো কেশের
মাঝে জেগে উঠে,
নিঃসঙ্গ তারা হয়ে; শোভাবর্ধন করে তোমার নিটোল
ভাঁজহীন নগ্ন পিঠে।
তোমার শরীরের সবচে’ উঁচু স্থানের মাঝের
তিলটি হয়ে ওঠে
সর্বোচ্চ উদ্ধত দ্বীপ, আর গ্রহণ করে আমার বাধাহীন
উন্মুখ অধরের স্পর্শ।
তোমার প্রিয়তম স্বামী স্পর্শ করবে দু'পাহাড়ের
মাঝের তিলটিকে,
এবং এড়িয়ে যাবে শরীরে অসংখ্য নিঃসঙ্গ
তিলগুলি’কে।
তোমার ত্রিভুজের পাশের

শরীরের ওপর আধিপত্য বিস্তার


"ছেঁড়া-ফাটা জিনস পরা মহিলাদের ধর্ষণ করা উচিত। যাঁরা রাস্তায় নিতম্ব প্রদর্শন করে হাঁটে, তাঁদের ধর্ষণ করা কর্তব্য। যে মহিলারা এমন পোশাক পরবেন তাঁদের ধর্ষণ করা প্রত্যেক দেশবাসীর কর্তব্য।”-- নাবিহ আল-ওহাস, মিশরের আইনজীবী।

কথা বলাই সমাধান


একবার এক বন্ধু আমাকে মিথ্যে বলেছিল। যেহেতু সে আমার জীবনে ঘনিষ্ঠ একজন, সেহেতু আমার ধরে ফেলতে খুব একটা কষ্ট হয় নি। আমি অবাক হচ্ছিলাম এটা ভেবে, যে মিথ্যে বলার প্রয়োজন কী ছিল! যে আমাকে সব সময় বলত, কথা বলাই সমাধান।

ছোটকাল থেকে মানুষকে পড়া ছিল আমার নেশা। তারপর মনোবিজ্ঞানের আনাচকানাচ নিয়ে বেশ ভালো রকম পড়াশোনা করেছি। দু'একবার বাদে মানুষ চিনতে ভুল হয় নি কখনোই।

পুরুষতন্ত্র



এই দুনিয়াটা ভাই, বাবা, স্বামী, মামা, কাকা, চাচা, দাদা, নানা অর্থাৎ পুরুষের একচেটিয়া সম্পত্তি। কোন দিন শুনলাম না স্ত্রীর মৃত্যুর পর স্বামীকে জীবন্ত আগুনে পোড়ানো হয়েছে, কিংবা কোন দিন শুনলাম না পুত্রসন্তান প্রসব করার কারণে পুত্রকে জীবিতাবস্থায় মাটিতে পুঁতে দেওয়া হয়েছে, কিংবা কোন দিন শুনলাম না কন্যা সন্তান প্রসব করার কারণে স্বামীকে নির্যাতনের ইতিহাস, কিংবা স্ত্রীর দীর্ঘায়ুর জন্য প্রার্থনা করার রীতি, বা বোনের সাফল্যে জন্য ভাইয়ের কামনা!

তথাকথিত ধর্মনিরপেক্ষ রাষ্ট্র জার্মানি


হিপোক্রিসি শুধু বাঙালি জাতিরই একচেটিয়া সম্পত্তি নয়! জার্মানদের মধ্যেও হিপোক্রিসি বিদ্যমান। পার্থক্য হচ্ছে, তথাকথিত সভ্য জাতি হিসেবে পরিচিত জার্মানেরা বা ইউরোপিয়ানেরা এতো নিখুঁত, দক্ষ এবং শান্তশিষ্ট ভাবে হিপোক্রিসি করে থাকে যা চোখে পড়া কঠিন। অন্যদিকে, বাঙালি বা এশিয়ানেরা স্বভাবত খুবই উত্তেজিত ও বাচাল প্রকৃতি হওয়ার কারণে সেগুলো চোখে পড়ে।

কখনো যদি


কখনো যদি তোমার শহরে বৃষ্টি হয়, তাহলে মনে করো সেই বৃষ্টির ফোটা হয়ে তোমার শরীর ছুঁয়ে নিবো।
কখনো যদি সিদ্ধান্তহীনতায় দীর্ঘ নিঃশ্বাস ছাড়ো, সেই নিঃশ্বাসের বায়ুতে আমাকে খুঁজে ফিরো।
কখনো যদি শত মানুষের ভিড়ে নিজেকে একলা মনে করো, তাহলে ভেবে নিও তোমার ছায়ার মধ্যেই আমার উপস্থিতি।
কখনো যদি ভিন্ন মনুষ্যে নিজেকে খুঁজে পাওয়ার চেষ্টা করো, তাহলে ধরে নিও তুমি সুখী নও।
কখনো যদি যন্ত্রণায় ছটফট করো, শান্ত মনে আমাকে স্মরণ করো।
কখনো যদি আমাকে স্মরণ করো- তাহলে খুঁজে পাবে তোমার শরীরের গন্ধে মিশে থাকা আমার দীর্ঘ প্রতীক্ষার ইতিহাস।

দেশ চলবে হাসিনাতন্ত্রের নিয়মানুসারে


বর্তমানে শেখ হাসিনা একনায়কতন্ত্রের স্বপ্নে বিভোর। শেখ মুজিব যে ভুল করতে যাচ্ছিলেন তার প্রিয়তমা কন্যা সেই ভুল শুধরে নেওয়ার পরিবর্তে একই ঘটনার পুনরাবৃত্তি করতে যাচ্ছেন। বর্তমানে এমন এক ভীতিকর পরিস্থিতি বিদ্যমান- যে শেখ হাসিনার কর্মকাণ্ডের বিপক্ষে, কিংবা তার কোনো সিদ্ধান্তের বিপক্ষে, কিংবা তার শাসনামলে ভুল-ত্রুটি নিয়ে যে ব্যক্তিই কণ্ঠস্বর তুলবেন তাকে হয় দেশান্তরী হতে হবে, অথবা তার মৃত্যু অনিবার্য। এখন যদি শেখ মুজিব জীবিত থাকতেন এবং শেখ হাসিনার সমালোচনা করতেন তাহলে তাকেও হয়ত দেশান্তরী হতে হতো।

পৃষ্ঠাসমূহ

বোর্ডিং কার্ড

অনন্য আজাদ
অনন্য আজাদ এর ছবি
Offline
Last seen: 21 ঘন্টা 52 min ago
Joined: শুক্রবার, সেপ্টেম্বর 4, 2015 - 10:56অপরাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

ফেসবুকে ইস্টিশন

কপিরাইট © ইস্টিশন ব্লগ ® ২০১৮ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর