নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 5 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • কান্ডারী হুশিয়ার
  • দীপ্ত সুন্দ অসুর
  • দীব্বেন্দু দীপ
  • আলমগীর কবির
  • গোলাম সারওয়ার

নতুন যাত্রী

  • সুক্ন্ত মিত্র
  • কাজী আহসান
  • তা ন ভী র .
  • কেএম শাওন
  • নুসরাত প্রিয়া
  • তথাগত
  • জুনায়েদ সিদ্দিক...
  • হান্টার দীপ
  • সাধু বাবা
  • বেকার_মানুষ

আপনি এখানে

অনন্য আজাদ এর ব্লগ

যত মসজিদ ততো উগ্রতা


রথযাত্রায় মাইক নিষিদ্ধের ঘোষণা তখনই গ্রহণযোগ্যতা পেত যদি সকল ধর্মের ধর্মীয় অনুষ্ঠানের ক্ষেত্রে এটি কার্যকরী হত। এই ঘোষণা একটি নির্দিষ্ট ধর্মের ওপর চাপিয়ে দেওয়ায় প্রমাণ হয় এদেশে সংখ্যালঘুদের অবস্থান কোন পর্যায় এসে নেমেছে। এই ঘটনাটি আরো প্রমাণ করে বাঙলাদেশ এখন আর সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির নিদর্শন নয়।

রাষ্ট্রের কোন ধর্ম নেই


ধর্ম কখনই মানুষকে একত্রিত করতে পারে না, বরং পার্থক্য করে, বিভাজিত করে। সুবিধাবাদী শ্রেণির মানুষেরা বলে থাকে যে ধর্ম মানুষকে ভালোবাসতে শেখায়, কিন্ত বাস্তবে এর কোন নজির পাওয়া যায় না।

স্কুলের পাঠ্যপুস্তক থেকে শুরু করে কর্মজীবনে চলার ক্ষেত্রে, সর্বত্র দেখা যায় ধর্ম মারাত্মকভাবে বৈষম্যের সৃষ্টি করে। একজন মানুষ ধর্মনিরপেক্ষ না হওয়া পর্যন্ত কখনই অন্য জাতি, অন্য ধর্ম, অন্য বর্ণের, অন্য ভাষাগোষ্ঠীর বা সম্প্রদায়ের উর্ধ্বে উঠে মানুষকে শুধুমাত্র একজন মানুষের মর্যাদা দিতে পারে না।

ধর্মের সীমানায় ভালোবাসা বন্দি


ভারতীয় উপমহাদেশে সাম্প্রদায়িকতা, আন্তঃধর্ম সংকীর্ণতাকে হারানোর মত যদি কিছু থাকে তা হলো শুধুমাত্র ভালোবাসা। ভালোবেসে যা করা সম্ভব, ধর্মের বিধি মেনে তা করা মোটেও সম্ভব নয়। ভালোবাসা মানুষকে আপন করে, গ্রহণ করে নেয়, সুখ-দুঃখ, হাসি-কান্নায় এক করে দেয়। বিপরীতে ধর্ম শুধু মানুষ থেকে মানুষকে দূরে ঠেলে দেয়। ভালোবাসায় যে শক্তি আছে, সেই শক্তি ধর্মের নেই। ধর্ম যেভাবে মানুষকে পৃথক করে দেয়, ভালোবাসা সেই পার্থক্যকেই ঘুচিয়ে দেয়। ধার্মিকেরা ঘৃণা খুঁজে বেড়ায়, অথচ প্রেমিকের চোখে ঘৃণা একেবারেই মূল্যহীন।

স্বাগতম পাকিস্তানঃ অন্ধকারের পথিক বাঙলাদেশ


১৯৭১ সালে সংগঠিত তৎকালীন পশ্চিম পাকিস্তানের বিরুদ্ধে পূর্ব পাকিস্তানের সশস্ত্র সংগ্রাম, যার মাধ্যমে বাঙলাদেশ একটি স্বাধীন দেশ হিসাবে পৃথিবীর মানচিত্রে আত্মপ্রকাশ করে। এই মানচিত্র অর্জন করা সহজ ছিল না। এই মানচিত্রের সাথে জড়িয়ে আছে ৩০ লক্ষ জীবনের বিসর্জনের ইতিহাস। ৪ লক্ষ নারীর আত্মত্যাগের সোনালী ফসলের নাম বাঙলাদেশ।

শরীরটি নারীর কিন্তু মস্তিষ্কটি পুরুষের


ছেলেরা একটু অগোছালোই হয়, উদাসী মন ছেলেদের এতোটাই বিক্ষিপ্ত করে তোলে যে পরিষ্কার, পরিচ্ছন্ন থাকার প্রয়োজন বোধ করে না, রান্নাবান্না তো ছেলেদের জন্য নয়, পরিবার থেকে দূরে থাকলে ছেলেরা একটু কাজেকর্মে খামখেয়ালী করবেই- এই ধরণের কথাবার্তা, চিন্তাধারা আমাদের সমাজে বহুল প্রচলিত ও প্রতিষ্ঠিত। এই ধরণের চিন্তাধারা একদিনের নয়; শত, হাজার বছর ধরে লালিত ও পালিত পুরুষতন্ত্রের সোনালী ফসল।

শেখ হাসিনার হিপোক্রেসি


একনজরে শেখ হাসিনা'র হিপোক্রেসিঃ

-ইসলামিক ফাউন্ডেশনের ৪২তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে বৃহস্পতিবার (৬ই এপ্রিল, ২০১৭) আলেম-ওলামা মহাসম্মেলনে শেখ হাসিনা বলেন, "আমার খুব কষ্ট হয় যখন দেখি বিভিন্ন দেশে মুসলমানেরা মুসলমানদের হত্যা করছে"।

অথচ, মধ্যপ্রাচ্যের দেশ ইয়েমেনে মুসলমানদের উপর আক্রমণ করার জন্য সৌদি আরবের সাথে বাঙলাদেশ রাষ্ট্রও সমর্থন জানিয়েছে। (৩০ মার্চ, ২০১৫)

বাঙলার মুক্তচিন্তক আহমদ শরীফের প্রতি শ্রদ্ধাঞ্জলি


আহমদ শরীফ বাঙলা সাহিত্য ও সংস্কৃতি, দর্শন, ইতিহাসের অসামান্য পণ্ডিত, বিদ্রোহী, অসাম্প্রদায়িক, যুক্তিবাদী, দার্শনিক, বিতর্কিত ব্যক্তিত্ব-যাকে সকল সরকার ও দলীয় চাটুকাররা ভয়ের চোখে দেখতো, প্রগতিশীল, মানবতাবাদী, আধুনিকতাবাদী আন্দোলন-মুক্তবুদ্ধির ও নির্মোহ চিন্তার ধারক।

পৃষ্ঠাসমূহ

বোর্ডিং কার্ড

অনন্য আজাদ
অনন্য আজাদ এর ছবি
Offline
Last seen: 14 ঘন্টা 11 min ago
Joined: শুক্রবার, সেপ্টেম্বর 4, 2015 - 10:56অপরাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

কু ঝিক ঝিক

ফেসবুকে ইস্টিশন

SSL Certificate
কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর