নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

There is currently 1 user online.

  • নুর নবী দুলাল

নতুন যাত্রী

  • নীল মুহাম্মদ জা...
  • ইতাম পরদেশী
  • মুহম্মদ ইকরামুল হক
  • রাজন আলী
  • প্রশান্ত ভৌমিক
  • শঙ্খচূড় ইমাম
  • ডার্ক টু লাইট
  • সৌম্যজিৎ দত্ত
  • হিমু মিয়া
  • এস এম শাওন

আপনি এখানে

চোত্রা পাতা এর ব্লগ

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়(?)


গ্রাম বাংলায় একটা প্রবাদ আছে 'খাইবো পোলাহানে, চিড়ায় জল না দিয়ে হিসু দিলেই কী!' জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নাম দিয়ে দেশের ২১ লক্ষাধিক ছেলে-মেয়েকে সরকার শিক্ষার নামে হিসু খাওয়াচ্ছেন বলেই আমার বিশ্বাস। বিশ্ববিদ্যালয়ের মৌলিক সংজ্ঞা যদি হয় হাজার বছরের জ্ঞান সংরক্ষণ, জ্ঞান বিতরণ ও নতুন জ্ঞান সৃষ্টির কর্তব্য পালন করা তবে বিশ্ববিদ্যালয়ের সংজ্ঞা অনুযায়ী জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় আদৌ কি বিশ্ববিদ্যালয়?

মা


মা- ধরো এই সন্ধ্যায় ঘরে ফিরলাম
দু'টো থাপ্পড় আর এ্যাত্তগুলি বকা শেষে একটি চুমু দেবে?

না ঘুমিয়ে সারা বিকেল বনেবাদাড়ে ঘুরে
লাল চেহারা রোদে পুড়ে- করেছিস টা কী?
নানু আসা বিকেলের মত করে আর এক বার বলবে?

মা, দ্যাখো- লাল মোরগটা খুঁড়িয়ে হাঁটছে
জবাই দেবে? রান কিন্তু আমায় দেবে
গ্যালো বার একটি বাবা, আরেকটি আমি খেয়েছিলাম
এবার কিন্তু দু'টোই আমার চাই, চাই ই চাই

কই, বকলে না কেন?
এখন আমি বড় হয়েছি বলে?

মা, জানো-
ইচ্ছে হয় তোমার আঁচলে মুখ লুকাই-
বাবার ভয়ে
মা, দু'টো চুমু দেবে?
তোমার চুমু পেলেই আমি ছোট হয়ে যাই

শৈল্পীক বেদনা


এই কাঁচে শৈল্পীক বেদনা আঁকে
এমন রমনী নাই
যতটুকু সুখ আছে- বেদনার দামে তুলে দিতে চাই
তোমার কাছে হবে? শৈল্পীক বেদনা!

০৯/০৫/১৮
ব-দ্বীপ,চৌড়ঙ্গী

আপনাকে আমি ভালোবাসি ঈশ্বর


আপনাকে আমি ভালোবাসি ঈশ্বর
বিশ্বাস করুন, গত ভাগ্য রজনীতে যখন-
আপনার মুমিন বান্দারা স্ব স্ব অপরাধের ভারে ভারাক্রান্ত
কান্নায় কথিত সাত আসমান ফুঁটো হয়ে আপনাকে করেছিল আবেগ আপ্লুত-
আর মহৎ গুণে গুণান্বিত আপনি করলেন ক্ষমা
আর আগামি এক বছর তাদের দিলেন উপ-ঈশ্বরের দ্বায়িত্ব
তখন আপনি মহৎ ঈশ্বরের জন্যে আমি পূজা, আসিফার নিকট প্রার্থনা করেছিলাম-
তারা যেন আপনাকে ক্ষমা করে দ্যায়

মাটির ধুলোর পূজা, আসিফা আপনার মত মহৎ নয়-
কিন্তু তারা বিনা শর্তে ক্ষমা করল

সংবাদ


অপরাহ্নের রৌদ্রের ঝলক
মহামতি রামমোহনের সভ্যতা বিনাশী কীর্তিনাশা-
পাশেই সিগ্রেটে মগ্ন যুবক
ধর্মযাজক হেন ধ্যান তার সিগ্রেটে

বৈশাখি তাণ্ডবনৃত্য চৌদিকে-
পলকে কালি রৌদ্রের ঝলকে
বৃক্ষের মস্তডাল, ঘাসের গালিচা, একটি দু'টি আর বক পাখির ঝাঁক উদ্ভট ছুটছে
সিগ্রেটে মগ্ন যুবক

খেজুর রস ফোঁটায় ফোটায় বৃষ্টি!
পথিকের গায়ে এ যেন বুলেট বর্ষণ
ছুটছে পথিক-
অলস ব্যাচলরের মতন মশার কামড় ভেবে যুবক-
নড়েচড়ে বসল
ধর্মযাজক হেন ধ্যান তার সিগ্রেটে

চুমু আর সিমু


সিমু খোঁজ নেয়নি বলে কিচ্ছু হয় নি সাহেবের। শুধু মাঝে মাঝে খেই হারিয়ে ফেলে নাকি মাঝে মাঝে হুশ হয় তা বলতে পারে না। সাহেবের মা রোজ সকালে কোরআন পড়ত, মা'র মতন নিয়ম করে সাহেবও পড়ত তার প্রিয় লেখিকার বই। একদিন লেখিকা সাহেবকে এমন করে আঁকড়ে ধরছিল যে ছুটতে পারছিলো না সাহেব। ওদিকে সিমুর দুইশত পঞ্চান্ন নাম্বারটা বারবার ভেসে উঠছে মোবাইলের স্কিনে। সাহেব পাঠ্য রেখে অপাঠ্য পড়ুয়া ছেলে। ক্লাস বহির্ভুত বই সাহেবকে প্রেমিকার চেয়েও বেশি টানে। সাহেব সিমুকে ভালোবাসে। বন্ধুরা জিজ্ঞেস করলে বলত 'পৃথিবীর শুরু থেকে শেষ অবধি মানুষ তার প্রেমিকাকে যত ভালোবেসেছে এবং বাসবে তার সাথে তুলনা করলেও কম হয়ে যাবে, এতটাই ভালোবাসি'। বন

তুমি


দিন শেষে দেখা মাত্রই টের পেলে-
চৈত্রের রৌদ্রে লাল হয়েছে মুখ
বৈরী আবহাওয়ায় শুকায়েছে তনু
নিকোটিনের ধোঁয়ায় পুড়েছে ঠোঁট
সে কি তোমার শুশ্রুষা- আহা!

শত দিবস রজনী কেটে গেল তবু-
টাইফয়েটে আক্রান্ত মন শুশ্রুষাহীন
ব্যর্থ লিটয় বয়ের ধোঁয়ায় তামাটে আত্মা
হৃদয় বাগানের ফুল ঝড়ে গেছে পরাগায়ন হীন
-টের পেলে না!

০৮ এপ্রিল ২০১৮
তালুকদার বাড়ি।

হে নবী


হে নবী, আপনি প্রেরিত হোন
এবং তাকে সুসংবাদ দিন
কবির বুক ছাড়া কোথাও তার সুখ নেই
স্বর্গ একটাই; সে কবির বাম পাজরে

হে নবী সতর্ক করুন তাকে
নিশ্চয় সে কাফের
সে বিশ্বাস স্থাপন করে পুঁজিবাদী স্বর্গে
সে কি জানে না অচলা ও তার বাবার পরিণতি সম্পর্কে?
নিশ্চয় কাফেরের জীবন লোমহর্ষক

হে নবী, আপনি তাকে বলে দিন
সে যেনো কবির কথায় বিশ্বাস স্থাপন করে এবং কবির সেবা করে।

দুঃখ


নিশ্চয় মৃত্যুদূত প্রত্যেক প্রাণকে তাড়া করে
তাড়া করে আমার প্রাণকেও
মৃত্যুদূতের প্রকৃত নাম দুঃখ

মৃত্যুদূতকে ফাঁকি দেওয়ার অভিপ্রায়ে
দক্ষিণবঙ্গ থেকে উত্তরবঙ্গে
পাতাল থেকে আকাশে
বিন্দু থেকে সিন্ধুতে
পালিয়ে বেড়ায় আমার প্রাণ

অদৃশ্য প্রাণ ক্লান্ত হতে থাকে দীর্ঘ দৌড়ে
প্রাণের ভয়ে প্রাণ ছোটে,
তাকে প্রথম ও দ্বিতীয় বার ফাঁকি দেওয়া যায়
তৃতীয় বারে ফাঁকি চলে না
মৃত্যুদূতের ককর্শ থাবায় গ্রাস হয় প্রাণ

আসুন রাষ্ট্র, আপনাকে একটু ভালোবাসি


আসুন রাষ্ট্র, আপনাকে একটু ভালোবাসি
যেমন আপনি ভালোবেসেছিলেন তনুকে।

প্রথমে আপনাকে ন্যাংটো করি
অথবা আপনার আবরণ ছিঁড়ে ফেলি
অত:পর ধর্ষণ করি।

আসুন রাষ্ট্র, আপনাকে একটু ভালোবাসি
যেমন লিটন তার প্রেমিকাকে ভালোবেসেছিল।

প্রথমে আপনাকে মিঠে কথায় পটাই
তারপর ফ্লাটে নেই
এবং আমার ফ্লাট থেকে ভেসে আসা চিৎকার শুনুক
মালা, রহিম, পিংকি আর মিডিয়া কর্মীরা।

আসুন রাষ্ট্র, আসুন আসুন
আপনাকে একটু ভালোবাসি।

পৃষ্ঠাসমূহ

বোর্ডিং কার্ড

চোত্রা পাতা
চোত্রা পাতা এর ছবি
Offline
Last seen: 2 দিন 10 ঘন্টা ago
Joined: মঙ্গলবার, সেপ্টেম্বর 1, 2015 - 5:43অপরাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

কু ঝিক ঝিক

ফেসবুকে ইস্টিশন

কপিরাইট © ইস্টিশন ব্লগ ® ২০১৮ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর