নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 4 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • দ্বিতীয়নাম
  • মিশু মিলন
  • বেহুলার ভেলা
  • আমি অথবা অন্য কেউ

নতুন যাত্রী

  • সুশান্ত কুমার
  • আলমামুন শাওন
  • সমুদ্র শাঁচি
  • অরুপ কুমার দেবনাথ
  • তাপস ভৌমিক
  • ইউসুফ শেখ
  • আনোয়ার আলী
  • সৌগত চর্বাক
  • সৌগত চার্বাক
  • মোঃ আব্দুল বারিক

আপনি এখানে

আকাশ মালিক এর ব্লগ

এই দিনই শেষ দিন নয়



“২০১৭ সাল আমাদের জন্য একটি গৌরবোজ্জ্বল বছর। জাতীয় ও আন্তর্জাতিক অঙ্গনে বছরটি ছিল বাংলাদেশের জন্য সাফল্যময় বছর।” - প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

ধর্ষণের শাস্তি নিয়ে কিছু কথা



Not enough people understand what rape is, and, until they do ... , not enough will be done to stop it.
—rape victim, quoted in Groth 1979 (p. 87)

ইসলামে তালাক ও আমাদের দৃষ্টিভঙ্গী


ভালকে ভাল আর মন্দকে মন্দ বলা সত্যবাদীতার পরিচয়। কিন্তু ভাল মন্দে মিশ্রীত কোনো কিছু হলে সেটাকে আমরা বিচার করি কীভাবে? কথায় আছে, এক মণ ঘি এর মাঝে এক ফোটা কেরোসিনই যথেষ্ঠ এক মণ ঘিকে দোষীত প্রমাণ করে দিতে। আর সেই ঘি যে, কেউ কেরোসিনের দামেও কিনবেনা তা বলারই অপেক্ষা রাখেনা। ইসলামের ধর্মগ্রন্থ কোরান-হাদিস সহ অন্যান্য সকল ধর্মগ্রন্থেও এ রকম অনেক কথা বা বাণী আছে যার কিছু ভাল আর কিছু খারাপ। তবে যে সকল ভাল কথা ধর্মগ্রন্থ রচনাকারীগণ বা ধর্মপ্রবর্তকগণ মানুষকে শুনিয়েছেন তা কিন্তু নতুন কিছু নয়, মানুষ এর আগে থেকেই তা জানতো এবং মানতো। হাজার হাজার বছর যাবত ধর্মগ্রন্থ চুরি করা পাপ, মিথ্যা বলা পাপ বলে এসেছে, তাই বলে কেউ মিথ্যা বলা আর চুরি করা ছেড়ে দেইনি, তা যত বড়ই পরকালের শাস্তির ভয় দেখানো হউক না কেন। মানুষের খাদ্য ও যৌন চাহিদা বা লোভের কাছে পরকাল আল্লাহ রাসুল বেহেস্ত দোজখ খুবই তুচ্ছ। ইসলাম ধর্ম যে মানবিকতা আর নৈতিকতা শিক্ষায় চরম ব্যর্থ তার প্রমাণ ইসলামি রাষ্ট্রগুলো ও মুসলিম সমাজ। কথাটা অন্যান্য ধর্মবাদী সমাজ বা রাষ্ট্রের বেলায়ও প্রযোজ্য। এ নিয়ে প্রচুর যুক্তি তর্ক হয়েছে আজ সেদিকে যাবোনা।

হিন্দু ধর্মের ইতি বৃত্ত, পর্ব ০৭


যদিও বলা হয় হিন্দুদের প্রধান ধর্ম গ্রন্থ বেদ কিন্তু জীবন ধারনের সকল পদ্ধতি যেমন প্রতিমাপূজা , উপসনা, ব্রতাচারণ,বিবাহের নিয়মাবলী,শ্রাদ্ধবিধি,খাদ্য বিধি,বর্ণাশ্রম বিধি,সম্পত্তি বন্টন যাবতীয় সব কিছুই ‘মনুসংহিতা’ বা ‘মনুস্মৃতি’র নিয়ম মেনে করা হয়। একজন হিন্দু জন্ম থেকে মৃত্যু পর্যন্ত কী করলে ইহলোকে ও পরলোকে পুরুষ্কৃত হবেন এবং কী না করলে দুনিয়া আখেরাতে শাস্তি ভোগ করবেন তার বিষদ বর্ণনা আছে ভগবান মনুর এই মনুসংহিতায়। এটাই হিন্দুদের জীবন বিধান তথা কোড অফ লাইফ। বেদে কী আছে আর কী নাই তাতে কিছুই যায় আসেনা বাস্তবে কী আইন মানা হয় সেটাই আসল কথা। আমরা নারীদের প্রতি মনুর দৃষ্টিভঙ্গী নিয়ে আগেই আলোচনা করেছি এবার কিছুটা ফিডব্যাক করা যাক।

হিন্দু ধর্মের ইতি বৃত্ত, পর্ব ০৬


“অন্তবিষঃ ময়া-হোতা...বহির্ভাগে মনোরমাঃ।
গুঞ্জাফল সমাকারা ঘোষিতঃ সর্বদৈবহি”। - স্কন্ধপুরাণ নাগরখণ্ড শ্লোক নং ৬১।

অর্থাৎ নারী জাতি সর্বদাই গুঞ্জাফলের ন্যায় বাইরে মনোহর। নারীর অধরে পীযুষ আর হৃদয়ে হলাহল, এ জন্যই তাদের অধর (ঠোঁট) আস্বাদন এবং হৃদয়ে পীড়ন (প্রহার) করা কর্তব্য।

হিন্দু ধর্মের ইতি বৃত্ত, পর্ব ০৫


মহাভারত ও রামায়ণ, এই দুই মহাকাব্যের দুটি অবিসংবাদিত নারী চরিত্র হল যথাক্রমে দ্রৌপদী ও সীতা । মহাভারতের যুগে দ্রৌপদীর স্বামী অর্জুন আর রামায়ণের যুগে সীতার স্বামী রাম দুই মহাকাব্যের দুই মহা নায়ক। বিবাহের পরে স্বামীসহ দ্রৌপদীর হয়েছিল তের বছর অজ্ঞাতবাস, সীতার চৌদ্দবছর বনবাস। পাঁচটা তাগড়া জোয়ান স্বামী, ভীরু কাপুরুষ, পুরুষ নামের কলংক, মাথা নীচু করে কপাল চাপড়ায়, জাত গেল জাত গেল বলে হায় হায় করে আর চোখের সামনে তাদের স্ত্রীকে সভাসদে ন্যাংটা করানো হয়। একটা নিরপরাধ নারীকে উলঙ্গ দেখতে উপস্থিত পাষন্ডদের বিকৃত আনন্দে ফেটে পড়ার কী উচ্ছাস? কতো বড় নির্লজ্ব অকৃতজ্ঞ অথর্ব ছিল রাম যে, তার স্ত্রী সীতাকে সন্দেহ করে আগুনে পুড়িয়ে তার সতীত্ব পরীক্ষা করতে পারে? আরেকজন আছেন মঙ্গল কাব্যের ঊষা। কোনো কোনো গ্রন্থে বলা হয়েছে এই ঊষাই নাকি পরবর্তিতে দেবী স্বরসতীরূপে আবির্ভুত হন।

হিন্দু ধর্মের ইতি বৃত্ত, পর্ব ০৪


‘অহল্যা, দ্রৌপদী, কুন্তি, তারা, মন্দোদরী তথা।
পঞ্চ কন্যাং স্মরেন্নিত্যং মহাপাতক নাশনম্ ।।’

অর্থাৎ অহল্যা, দ্রৌপদী, কুন্তি, তারা ও মন্দোদরী এই পঞ্চ কন্যার নিত্য স্মরণে মহাপাপ নাশ হয়। আমরা এই পবিত্র পাঁচ কন্যা থেকে শুধু দ্রৌপদীতে আলোচনা সীমিত রাখবো।

মহাভারতের কেন্দ্রীয় ও বহুল আলোচিত চরিত্র দ্রৌপদী সাধারন কন্যা নন। সাধারন নারীর মতো তাঁর জন্মও হয়নি। তিনি অযোনিসম্ভবা। যজ্ঞবেদী থেকে তাঁর জন্ম। তাই তিনি জন্মাবধি পবিত্র। জরায়ুর অপবিত্রতা তাকে স্পর্শ করেনি। এই হল দ্রৌপদীর প্রাথমিক পরিচয়।

হিন্দু ধর্মের ইতি বৃত্ত, পর্ব ০৩


আমরা আরো কিছুক্ষণ হিন্দু ধর্মের আরো কিছু দেব-দেবীদের জন্মবৃত্তান্ত ও তাদের পরিচয় সংক্ষিপ্তভাবে জেনে নিয়ে এই ধর্মের নিয়ম কানুন, বিধি বিধান, রীতিনীতি নিয়ে আলোচনায় মনোনিবেশ করবো।

হিন্দু ধর্মের ইতি বৃত্ত, পর্ব ০২


সিদ্ধিদাতা মহারাজ গণেশের মাথা ও মুখমন্ডল নিয়ে কিছু কথা। গণেশ হচ্ছেন মহাদেব শিব এবং পার্বতীর পুত্র। গণেশের জন্ম হবার পরে অনেক দেবতার সঙ্গে দেবতা শনিও দেখতে এসেছিলেন নবজাতককে। শনির স্ত্রী কোনো এক কারণে একসময় তাকে অভিশাপ দিয়েছিলেন যে, তিনি যার দিকে দৃষ্টি দেবেন, তারই সর্বনাশ হবে। তাই শনি নবজাতকের চেহারা দেখতে চান নি কিন্তু পার্বতীর একান্ত পীড়াপীড়িতে তিনি বাধ্য হন শিশুর দিকে তাকাতে। শনির দৃষ্টি শিশুমুখে পড়া মাত্র শিশুটির মুণ্ড দেহচ্যুত হয়ে যায়। খবরটি স্বর্গে মহাপ্রভু বিষ্ণুর কাছে যখন পৌছুল তিনি অতিসত্বর চলে আসার পথে মাঠে একটা হাতিকে শুয়ে থাকতে দেখে সুদর্শন চক্রের সাহায্যে সেটির মাথা কেটে নিয়ে এলেন আর গণেশের গলার সঙ্গে যুক্ত করে দিলেন। একদম পুরোপুরি ‘প্লাষ্টিক সার্জারি’।

পৃষ্ঠাসমূহ

বোর্ডিং কার্ড

আকাশ মালিক
আকাশ মালিক এর ছবি
Offline
Last seen: 9 months 1 week ago
Joined: শুক্রবার, আগস্ট 14, 2015 - 5:16অপরাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

কু ঝিক ঝিক

ফেসবুকে ইস্টিশন

SSL Certificate
কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর