নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 5 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • আবু মমিন
  • মাহিন রহমান সাকিফ
  • রবিঊল
  • পৃথু স্যন্যাল
  • দ্বিতীয়নাম

নতুন যাত্রী

  • রবিঊল
  • কৌতুহলি
  • সামীর এস
  • আতিক ইভ
  • সোহাগ
  • রাতুল শাহ
  • অর্ধ
  • বেলায়েত হোসাইন
  • অজন্তা দেব রায়
  • তানভীর রহমান

আপনি এখানে

রাজেশ পাল এর ব্লগ

ভারতে বৌদ্ধ ধর্মের অন্ধকার যুগ


মৌর্য সম্রাট অশোক বৌদ্ধ ধর্ম গ্রহণ করার পর হিন্দু ধর্মাম্বলীদের পুরুষমেধযজ্ঞ (ইশ্বরতুষ্টির জন্য নরবলি) ও অশ্বমেধযজ্ঞ (ইশ্বরতুষ্টির জন্য ঘোড়াবলি) নিষিদ্ধ করে দেয়।
হিন্দু সমাজ ক্ষেপে উঠলেও প্রতাপশালী সম্রাট অশোকের ভয়ে কেউ উচ্চবাচ্য করার সাহস করেনি।
মৌর্য-পরবর্তী শাসক পুষ্যমিত্র শুঙ্গ বৌদ্ধদের উপর মারাত্মক অত্যাচার শুরু করে। তার শাসনামলে বহু বৌদ্ধ মঠ ধ্বংস করা হয়,বৌদ্ধদের উচ্ছেদ করা হয়, বৌদ্ধদের গণহত্যা করা হয়, বৌদ্ধ ধর্মপন্ডিতের হত্যা করা হয় ও তাদের ধর্মীয় পুস্তক পুড়িয়ে ফেলা হয়।

সব চরিত্র কাল্পনিক


শরীফ ভাই আমাদের সহকর্মী।হেফাজতে র হার্ডকোর সমর্থক।সম্ভব হলে আজকেই ফ্যাসিবাদী জালেম সরকারের পতন ঘটিয়ে আইএস এর পতাকা তুলে ফেলেন।সাধারণ কথাও বলেন অতি আবেগের সাথে জিহাদী জোশে।
অনেকটা লালদিঘির মাঠে বক্তৃতার আদলে।নতুন করে সরকার পতনের আন্দোলন শুরু হওয়ার খবর পাওয়ার পর হতেই অত্যন্ত উল্লসিত তিনি।এবার যে আর বাকশালীদের রক্ষা নেই সে ব্যাপারে মোটামুটি শতভাগ
নিশ্চিত।আজ দুপুরে ক্যান্টিনে লাঞ্চ করতে গিয়ে দূর্ভাগ্যবশতঃ শরীফ ভাইয়ের টেবিলে বসলাম।যথারীতি শুরু
হলো উনার বক্তৃতার মিসাইল এটাক।

--বুঝলেন ভাইজান,এবার আর হাম্বালীগের রক্ষা নাই।যৌন
জাগরণরে রক্ষা করার মজা এবার
হাড়ে হাড়ে টের পাবে।

স্বাধীনতা সংগ্রাম ও স্বাধীনতা পরবর্তীতে চীন ও চৈনিক পন্থীদের ভূমিকা


ষাটের দশকের শুরুতে আন্তর্জাতিক কমিউনিস্ট আন্দোলনে ভাঙনের জের ধরে কমিউনিস্ট পার্টি মস্কো ও পিকিংপন্থী তে বিভক্ত হয়ে যায়। চীনের সাথে পাকিস্তানের হৃদ্যতাপূর্ণ সম্পর্কের কারণে চৈনিক পন্থী অংশটি বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামের বিরোধিতা করে। ৬ দফা আন্দোলনের সময়ে কমরেড তোয়াহা একে সরাসরি সিআইএ প্রণীত দলিল বলে আখ্যায়িত করেন। চীনের প্রতি আনুগত্যের অবস্থান থেকে সরে এসে রাশেদ খান মেনন ,হায়দার আকবর খান রনো ,কাজী জাফর এর মতো কেউ কেউ স্বাধীনতা যুদ্ধে অংশ নেন। ক্র্যাক প্লাটুনের বীর যোদ্ধা রুমী ও তাদের একজন। কিন্তু সিংহভাগ অংশই পাকিস্তানের প্রতি অনুগত থাকেন। সিরাজ সিকদার ,মানস ঘোষদের মতো কেউ কেউ আবার পাকবাহি

জিয়াউর রহমানকে কেন মুক্তিযোদ্ধা বলতে রাজী নই?


৭ ই নভেম্বর তথাকথিত সিপাহি জনতার বিপ্লব করে জাসদ। হত্যা করা হয় এদেশের মুক্তিযুদ্ধের তিন অকুতোভয় বীর সন্তান মেজর জেনারেল খালেদ মোশাররফ , ক্র্যাক প্লাটুনের প্রতিষ্ঠাতা মেজর হায়দার ও আগড়তলা ষড়যন্ত্র মামলার আসামী কর্ণেল হুদাকে।

নাটকীয়ভাবেই ক্ষমতায় আসেন জেনারেল জিয়া। কালুরঘাটের বেতার কেন্দ্রের মতো আরো একবার ভাগ্য হলো তার পরম সহায়। জিয়া ক্ষমতা পেয়েই প্রথমে চরম গাদ্দারী করে বসেন ৭ ই নভেম্বরের কুশীলবদের উপর্। বন্দী করা হয় কর্ণেল তাহের ,মেজর জলিলি ,মেজর জিয়াউদ্দিন সহ শত শত সিপাহী ও অফিসারদের্। প্রহসনের কোর্ট মার্শালে রাতের অন্ধকারে ফাসিঁতে হত্যা করা হয় তাদের বেশীরভাগকে।

পৃষ্ঠাসমূহ

বোর্ডিং কার্ড

রাজেশ পাল
রাজেশ পাল এর ছবি
Offline
Last seen: 4 দিন 19 ঘন্টা ago
Joined: বুধবার, অক্টোবর 22, 2014 - 2:54পূর্বাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

কু ঝিক ঝিক

ফেসবুকে ইস্টিশন

SSL Certificate
কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর